ছেদোকথা

দবিরঃ 
ওই আওমি লিগ
কেমন আছিস?
চান্দু!
দবিরঃ  
শালা হাচিনা কি তোর শ্বাশুড়ি লাগে?
ক্যান?
দবিরঃ  
তুই তো হাচিনা ছাড়া কিসুইইইই বুঝশ না
হা হা
আই লাইক হাসিনা
দবিরঃ 
তোর সব পোস্ট তো তাইইইই বলে
বাট আমি আওয়ামী লীগ না।
দবিরঃ 
তার অসভ্য-অভব্য কথার জন্য পছন্দ করিস?
পাষ্টে আমি বিএনপি রে ভোট দিছি।
নতুন আবার কি কইছে?
সে রসাইয়া কথা বলে, ভালো লাগে।
দবিরঃ  
হাসিনা-খালেদা ছাড়া বিডি তে অপশন নাই
দবিরঃ  
রসাল ** তাই রশিয়ে কথা বলে
খালেদার মাথা নষ্ট হইয়া গেছে
দবিরঃ  
খালেদা র মাথা আছে নাকি?
তাইলে এখন হাসিনা রে সাপোর্ট করা ছাড়া উপায় আছে!
দবিরঃ  
তুই কি ভোট দিতে আসবি নাকি?
দেখি..
আমার আসন নৌকার
গাজীপুর সদর।
দবিরঃ  
হ তা না হলে তো হাচিনার একটা ভোট কমে যাবে রে
বরিশাল সদর হিসাব করলে সরোয়ার।
হাসিনা অবশ্য এমনিতেই জিতবে।
দবিরঃ 
তুই গোঁফ এ তেল দিতে থাক।
ও জানে ওর ভবিষ্যৎ।
আমার তেল দেয়ার দরকার নাই।
হারলে দিবো।
দবিরঃ 
তাই তো সংবিধান পালটালও
অলরেডি গোফ দাড়ি বড় করতেছি
দবিরঃ 
আরও বড় কর
যাতে করে সবাই টানতে পারে
আচ্ছা
শেষকথাঃ উপরে সব কথাই কাল্পনিক।বাট আমি শেখ হাসিনারে পছন্দ করি। আজকের কথাই ধরা যাক। ঢাকা সিটির প্রাপ্তন মেয়র হানিফের নামে উড়াল সেতুর উদ্বোধন হইছে আজ। হাসিনা ৫০ টাকা টোল দিয়া সেতু পার হইছেন। এন্ড ইট্স লুক গুড।
1384044_4726132769695_1255917498_n
৭৫৮ বার দেখা হয়েছে

৭ টি মন্তব্য : “ছেদোকথা”

  1. সিরাজ(১৯৯১-১৯৯৭)

    হমমম ৫০টাকা টোল দিয়ে ৪০টা গাড়ী পার হইছে।৬০০কোটি টাকার বাজেটের জিনিস গেছে ২০০০কোটি টাকার উপর।সেইটার সাইড ইফেক্ট আমাদের মতন জন সাধারণকেই দিতে হবে বেশি টোল দিয়ে।


    যুক্তি,সঠিক তথ্য,কমন সেন্স এবং প্রমাণের উপর বিশ্বাস রাখি

    জবাব দিন
    • রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

      টোল সিস্টেম নিয়া অলরেডি কিছু অব্যবস্থা শুরু হয়ে গেছে।
      আমার জানা নাই ৫০ টাকা দিয়া ৪০ টা না ১০ টা গাড়ি পার হইছে।
      পি এম যে টাকা দিয়ে একটা নজীর দেখাইছে তাতেই আমি খুশি।

      বাংলাদেশে এমন কোন প্রজেক্ট দেখাতে পারবা যা প্রথম যে খরচ বা বাজেট অনুযায়ী সম্পন্ন হইছে!
      এমনকি আমাদের দেশের বাজেট ও ত পরে সাইজ করা হয়।


      এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

      জবাব দিন
      • সিরাজ(১৯৯১-১৯৯৭)

        সেটাই যদি বলেন তাহলে আর হাসিনাকে ধন্যবাদ দিয়ে কি হবে।আপনিতো সবটাই নেগেটিভ বল্লেন বরং হাসিনা যদি এমন একটা কাজ করতো যেখানে বাজেট বাড়ে নাই,বা সময় মত কাজটা শেষ হয়েছে তাহলেও তাকে না হয় ধন্যবাদ দেয়া যেত।
        ছোট বেলায় এরশাদ এর সময়ে একজন একটা কথা বলেছিল যে একবার এরশাদ এক জায়গায় সরকারি সফরে গেছেন সেখানে একজন তার কাছে সমস্যা নিয়ে আসলো যে তার অবসর গ্রহনের পর ১বছর পার হয়ে গেছে কিন্তু তিনি পেনশন পান নি।তখন এরশাদ নির্দেশ দিলেন কাজ টা তারাতারি করে দেয়ার জন্য এবং খুব তারাতারি সেই ভদ্রলোক পেনশন পেলেন।আপাত দৃষ্টিতে মনে হল যে বাহঃ এরশাদ তো খুব ভাল।কিন্তু ব্যাপারটাকে তলিয়ে দেখেন যে একটা পেনশন পাবার মত ব্যাপারের তদবির যদি দেশের প্রেসিডেন্ট কে করতে হয় তাহলে পুরা দেশের প্রশাসন যন্ত্রের কি ভয়াবহ অবস্থা। এবং এই দায় দেশের প্রেসিডেন্টের উপর যায়। ঠিক এখানেও এই ছোট্ট টোল দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ দিতে হবে কেন? তার মানে পুরা দেশের কি খারাপ অবস্থা যে ৫০টাকার টোল দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে সততা দেখাতে হয়। তিনিতো বড় বড় কাজ করবেন। বড় বড় সততার কাজ দেখাবেন জনগন কে।
        আবশ্য যিনি আবুল হোসেন কে দেশপ্রেমিক আখ্যা দেন আর বছরের পর বছর সুরঞ্জিত সেন কে দপ্তরবিহীন মন্ত্রী করে রাখেন তাকে তো ৫০টাকা টোল দিয়ে সততা প্রমাণ করতে হবে!!!!! আর আপনার জানা নাই কেন।আপনাকে জানতে হবে যে ৫০টাকা দিয়ে একটা গাড়ী পার হইছে নাকি ৪০টা গাড়ী পার হইছে। আর এখানে বিশেষ ভাবে উল্লেখ্য যে এটা পুরা সরকারি প্রজেক্ট না। এটা পাবলিক প্রাঈভেট পার্টনারশিপ। ওরিয়ন গ্রুপ ২০বছর টোল আদায় করবে তাই সরকারি গাড়িও ছাড় নাই।


        যুক্তি,সঠিক তথ্য,কমন সেন্স এবং প্রমাণের উপর বিশ্বাস রাখি

        জবাব দিন
        • রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

          আমি কি হাসিনার পি এস নাকি; সিরাজ?

          সোজা জিনিস সোজা করে দেখাটাই বেটার।

          শুধু বাঙলাদেশ না পৃথিবীর সব জায়গায় জোর যার মুল্লুক তার।
          লন্ডনে কনজেশন চার্জ বলে একটা ব্যাপার আছে। এইটা সবাই কে দিতে হয় যারা জোন ওয়ানে গাড়ি নিয়া যায়। সবাই দেয় একমাত্র ইউ এস এম্বাসি দেয় না। এইটা নিয়া এক্স মেয়র একবার বলেছিলো তার ইচ্ছা করে ইউ এস এমবাসির গাড়িগুলা ক্রাশ করে ফেলতে।

          তোমার উপরের আলোচনা ধরেই বলি, যেহেতু মন্ত্রী- মিনিষ্টারদের এইসব টোল- ঠোল দেয়ার রীতি নাই তাই হাসিনা যে দিছেন এইটাই গুড প্রাক্টিস।
          এর মধ্যে কোন ইতং বিতং নাই।


          এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

          জবাব দিন
  2. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    এইতা ছিলো ফেবু পোষ্ট যেইটা দেইখা বন্ধু বিরাগভাজন হইছিলো আমার উপর -
    ৯৬-০১ এ আওয়ামী সরকারের সময়ে সবকিছু মুজিবের নামে নামকরণের হিড়িক পইড়া গেছিলো। তেলুরাও সব্কিছুর নাম জাতির পিতা, বংগবন্ধু, ইত্যাদি নামে দেয়া শুরু করলো। খুজলে হয়তো বঙ্গবন্ধু খাটি সরিষার তৈল নামে কোন ঘানি না তেলকলের নাম পাওয়া গেলেও আশ্চর্য্য হবো না। টিনের চাল, ছাপড়া বেড়া দিয়া নাম দেয়া হইছে বঙ্গমাতা আদর্শ স্কুল ও কলেজ, ইত্যাদি।

    অবশ্য সে সময় ঢাকার প্রধান চারটা সড়কের নাম চার নেতার নামে হয়েছে, বিভিন্ন কবি সাহিত্যিকদের নামে হয়েছে।

    এবার আর শেখ হাসিনা আগের ভুল করেন নি। তেল কে না খায়, মিষ্টি কথায় চিড়ার মতো শুকনা জিনিস ও ভেজে।

    প্রাপ্তন মেয়র হানিফের নামে উড়াল সেতু হওয়ায় ভালো লাগলো।
    আর প্রধানমন্ত্রী নিজে টোল দিয়ে সেতু পার হওয়ায় আরো ভালো লাগলো। মনে করতে চাই না খালেদা জিয়া ও একই কাজ করবেন। (যদিও ৯৬-০১ এ বিরোধী দলের নেতা হয়েও তিনি ও তার গাড়ি বহর যমুনা সেতু পার হবার টোল দেননি ) (সম্পাদিত)


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।