বিতংস – পাঠক প্রতিক্রিয়া

 

বিতংস

লেখকঃ ওয়াহিদা নূর আফজা

প্রচ্ছদঃ সামিয়া হোসেন

প্রাকাশকঃ আগামী প্রকাশনী, ফেব্রুয়ারী ২০১৩ খ্রীঃ

পৃষ্ঠাঃ ২৮০

মূল্যঃ ৫৫০ টাকা

————————————————————

বিতংস এর ঘেরা টোপে পাঠক। লেখক তার স্বকীয়তায় সুনিপুণ রচনাশৈলী দিয়ে সুক্ষ সুক্ষ জালে আটকে ফেলবে পাঠককে – হ্যাঁ ওয়াহিদা নূর আফজার লেখা ‘বিতংস’ আগা-গোড়া পড়ে পাঠক হিসাবে এই আমার অভিমত।

বিস্তারিত»

একজন মৃণাল হক ও একজন ওয়াস্ফি

২৩শে আগস্ট ২০২০, রাত ৩টা [ব্লগের প্রথম পাতায় বেশ কিছুদিন আমার একাধিক লেখা থাকায় এবং সেগুলোর কোন একটি পরের পাতায় না যাওয়া পর্যন্ত অন্য লেখা দিতে পারছিলাম না। খসড়টা আগেই লেখা ছিল। আজ শুধু এই প্রথম অংশটুকু সংযোজন করে লেখাটাকে পোস্ট করছি।]

এই পোস্টে সংযুক্ত ছবিটা ক্যাডেট কলেজ ক্লাব আয়োজিত ২০১৮ সালের স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে বাচ্চাদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতায় বিচারক মৃণাল হকের কাছে আমাদের কন্যা আরিশা সহ প্রতিযোগী সকল বাচ্চার ব্যাক্তিগত ভাবে উপহার গ্রহনের মুহূর্তে তোলা।

বিস্তারিত»

বাবার আবদার

ব্যস্ত থাকি অফিস কাজে

সন্ধ্যা নাগাদ ঘর,

এই রুটিনে চলছে-ত বেশ

জীবন নিরন্তর।

 

বাবুর স্কুলের পড়ার বোঝা

রোজকার হোমওয়ার্ক–

বন্ধু বান্ধব মিলে চলি

সামলাই নেটওয়ার্ক।

 

মা’র ঔষধ, বাবার খরচ

মাস শেষে দেই পাঠিয়ে,

চিঠি ও লেখা হয়নাত আর

সংসার নেই গুছিয়ে।

বিস্তারিত»

কোভিডের দিনগুলি

কোভিডের দিনগুলি
============

এখানে থাকার কথা ছিলো একটি ফড়িং-এর
কথা ছিল পানকৌড়ির একটি স্থিরচিত্রের-
যা আমরা দেখেছিলাম কালনীর কুয়াশায়।

এখানে থাকার কথা ছিলো নিদেনপক্ষে একটি শিশুর
কথা ছিলো এক যুগলের ভুল সময়ে মিলনের-
বাণিজ্যমেলায় যাদের সাক্ষাত হয়েছিলো।

এখানে থাকার কথা ছিলো একটি হলুদ বিকালের
কথা ছিলো সাহেব পার্কে একটি আত্মহত্যার-
যেটার কারণ ছিলো একটি শূন্য নীল খাম!

বিস্তারিত»

যৌথ প্রয়াস (অনুবাদ কবিতা)

সে বুদ্ধি আঁটে, আমি সাহস দেই।
সে শেখায়, আমি শিখি।
(এভাবেই) আমরা কাজ করি।

সে মাপ নেয়, আমি চেরাই।
সে ধরে, আমি ছিদ্র করি।
(এভাবেই) আমরা বিনির্মাণ করি।

আমরা যোগাই, আমরা গজাল ঠুকি।
আমরা পালাবদল করি, করে সরি।
আমরা (একে অপরের) প্রশস্তি করি।

মূলঃ Moira Cameron
অনুবাদঃ খায়রুল আহসান

কবি পরিচিতিঃ কানাডার টরন্টো তে জন্ম হলেও,

বিস্তারিত»

বলধা গার্ডেন – ঢাকা

যে কোন নগর সভ্যতার অন্যতম উপাদান বাগ-বাগিচা-উদ্যান। মুঘল সাম্রাজ্যের হাত ধরে ঢাকায় বাগ-বাগিচার সূচনা হয়, যেমনঃ বাগ-ই-বাদশাহী, নবাব বাগিচা, হাজারীবাগ, বাগ-ই-মুসা, বাগ হোসেনউদ্দিন ইত্যাদি। বৃটিশ আমলেও এই ধারা অব্যাহত থাকে, রমনা এর বড় উদাহরণ। দেশের জমিদারদের পাশাপাশি ঢাকার নবাব পরিবারও এক্ষেত্রে বেশ বড় ভূমিকা রাখে। রোজ গার্ডেন, শাহবাগ উদ্যান, মতিঝিল কিংবা দিলখুশা বাগানবাড়ি সম্পর্কে আমরা সবাই কম-বেশী অবহিত। ১৭৬৫ খ্রীঃ বৃটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানী বাঙলার দেওয়ানি লাভ করে রাজধানী,

বিস্তারিত»

তাল পিঠা

দমকা হাওয়ায় নিভে গেল বিজলী বাতি। এ তল্লাটে এমনটি ঘটে না সচরাচর। পাশের বাড়ির এক ঝাপটা বাতাস নাসারন্ধ্র পথে ডুব দিলো অনেক গভীরে। বজ্রপাতের আলো আঁধারের মাঝে ঝপঝপ বৃষ্টি। হারিকেনের টিমটিমে আলোয় কাঁসার থালা হাতে বুবু। কলা পাতার উপরে লাল চাপড়া আর বড়ার সুবাস আসছে। মা পিঠা বানিয়েছে। জিভে জল চলে এলো! হঠাৎ টরটর করে ওঠে ফ্যানটা। পটরপটর করে থিতু হবার চেষ্টায় টিউবলাইট। আরেকটু দেরী করে এলে ক্ষতি ছিল না বিজলী!

বিস্তারিত»

ক্যাডেট রম্যের দ্বিতীয় সংস্করণ ও ই-বুক প্রকাশ

‘ক্যাডেট রম্য’ নামে আমার একটা বই আছে। ২০১৬ সালের বইমেলায় বইপত্র প্রকাশন থেকে বইটি প্রকাশ পেয়েছিলো। মাত্র আটদিন বইটি মার্কেটে ছিলো। চাহিদা থাকা সত্ত্বেও মেলার পর বিভিন্ন কারণে বইটার হার্ড কপি আর প্রকাশ করা হয় নি। বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন মানুষ বইটির খোঁজ করেছেন। ‘ক্যাডেট রম্য’ নামে প্রথম আলোর অধুনালুপ্ত ফান সাপ্লিমেন্ট রস+আলো এবং দৈনিক ইত্তেফাকের ফান সাপ্লিমেন্ট ঠাট্টায় ২০১১-২০১৪ সময়কালে লিখেছি। ফলে, ‘ক্যাডেট রম্য’-এর এক ধরণের পাঠক শ্রেণী গড়ে উঠেছিলো।

বিস্তারিত»

মেলবোর্নের দিনলিপি – ৫ঃ নতুন বছরের (২০২০) প্রথম কয়েকটা দিন

এর আগের পর্বটি দেখতে পাবেন এখানেঃ মেলবোর্নের দিনলিপি-৪ঃ ঘরোয়া জন্মদিন পালন এবং ঘরের বাহিরে ইংরেজী নতুন বর্ষবরণ


(আমি দিনভর সময়ে সময়ে ব্যালকনিতে এসে আমার প্রিয় আকাশটাকে দেখে গিয়েছি)

আগের রাতে দেরী করে ঘুমালেও, বেশ সকাল সকাল ঘুম ভেঙে যাওয়ায় ইংরেজী ২০২০ সালের প্রথম প্রত্যুষে ব্যালকনিতে এসে দেখি তখনো মেঘের কোলে রোদ হাসেনি, তবে দূর থেকে আসা রাঙা প্রলেপ মেঘের গায়ে গায়ে লেগে আছে।

বিস্তারিত»

দূরের পাল্লা

আথেন্স-সভ্যতা সংস্কৃতি সৌন্দর্যের কেন্দ্রভূমি আথেন্স, আজ মৃত্যুভয়ে কম্পমান। বিশাল পারস্য বাহিনী ধেয়ে আসছে, ম্যারাথনের প্রান্তরে ক্ষুদ্র গ্রীক বাহিনী তাদের মখোমুখি। কিন্তু গ্রীসের কি সাধ্য মহাশক্তিধর পারস্যের বিজয় রথের চাকা রুখবে! পরাজয় মানেই নির্বিচার হত্যাযজ্ঞ আর ধ্বংসের বর্বর তান্ডব। এমনি ঘোর দুঃসময়ে হঠাৎ নগরদ্বারে এ কার কন্ঠ? এ যে সৈনিক ফিডিপাইডিস-ম্যারাথন প্রান্তরের মরনপণ লড়াইয়ের বার্তা নিয়ে ছুটে এসেছে। কি নিদারুন সংবাদ নিয়ে এসেছে সে? “উল্লাস করো হে নগরবাসী- আমরা জিতেছি!” এটুকু বলেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে বীর সৈনিক।

বিস্তারিত»

হাতেতে যদিও না মারিত তারে, শত যে মারিত ঠোঁটে

“হাতেতে যদিও না মারিত তারে, শত যে মারিত ঠোঁটে”
… পল্লীকবি জসীম উদ্দিনের “কবর” কবিতা থেকে নেয়া।

সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই ইদানিং “থাপ্পড়” মুভিটার রিভিউ লিখছেন। যে কটা পেয়েছি, সব কটাই মনোযোগ দিয়ে পড়েছি। এখন পর্যন্ত আমার পঠিত প্রতিটা রিভিউ সবাই খুবই সুন্দর লিখেছেন।

তবে দুয়েকজনের কিছু জায়গায় খানিকটা দ্বিমত পোষণ করি। “৯৫% পুরুষ এই মুভিটা দেখে হিহি করে হেসেছেন”, কোন একটা রিভিউ-এ কেবল এই লাইনটা মেনে নিতে পারিনি,

বিস্তারিত»

টরেটক্কা টরোন্টো – আগমন (পর্ব-১)

১লা জুলাই, ২০০৬ – ‘কানাডা দিবস’-এর শেষ বেলায় আমরা টরোন্টোর পিয়ারসন্স এয়ারপোর্টে এসে পোঁছাই। টরোন্টো শহরে এই আমাদের প্রথম আসা – তাও আবার একেবারে তল্পিতল্পাসহ। পোর্টারের সাহায্য নিয়ে ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস পেরিয়ে যখন অ্যারাইভাল লাউঞ্জে এলাম, বাইরে তখন সন্ধ্যা ঘনিয়ে এসেছে। দীর্ঘ আকাশ পথ পাড়ি দেয়ার ধকলে কিছুটা হলেও ক্লান্ত আমরা। লাউঞ্জের কাঁচের দেয়ালের বাইরে বর্ষণসিক্ত টরোন্টো শহরের প্রাণ চাঞ্চল্যপূর্ণ জীবনের চিত্র চোখে পড়তেই অনেকটা চাঙ্গা বোধ করলাম।

বিস্তারিত»

মাকে মনে পড়ে

[এই লকডাউনে সিসিবিতে আমার চলমান দিনলিপি “করোনার দিনগুলি”-র ১৪তম পর্বে এই লেখাটা ছেপেছিলাম। সেখানে এক শ্রদ্ধেয় এক্স-ক্যাডেট লেখক বড় ভাইয়ের মন্তব্য ছিল, এটাকে আমি আলাদাভাবে একটা ব্লগ আকারে রাখতে পারতাম। সেই চিন্তা থেকেই এই লেখাটাকে আলাদা একটা ব্লগ হিসেবে ছাপানোর ইচ্ছে হলো। অবশ্য এই লেখাটা ফেসবুক ভিত্তিক ইদানিংকালের বেশ জনপ্রিয় ক্রিয়েটিভ প্লাটফর্ম “পেন্সিল” গ্রুপেও ছেপেছিল। কিন্তু যেহেতু এই লেখাটা একটু পুরোনো, সোশ্যাল মিডিয়ায় আমার টাইমলাইনে প্রথমবার ২১শে এপ্রিল ২০২০ তারিখে লিখেছিলাম,

বিস্তারিত»

বড় লোকের বিটি লো

[লেখাটা গত ২০ এপ্রিল ২০২০ তারিখে লিখেছিলাম; আজ ১ জুলাই ২০২০ তারিখে সিসিবিতে পোস্ট করা হলো।]

খুব বোরিং এবং আনকনভেনশনাল একটা লেখা এটা। তাই আগেই ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছে। লেখার টাইটেল-টা নিশ্চয়ই বলে দিচ্ছে, লোক-সঙ্গীত এবং তার কন্ট্রোভার্সিয়াল প্রেজেন্টেশন নিয়ে লিখতে যাচ্ছি। আমার কথাগুলো খুব বিরক্তিকর মনে হলে, নির্দ্বিধায় এই লেখা এ্যাভয়েড করে যান। আর লোক-সঙ্গীত নিয়ে কিছু ভাবনা ভালবাসায় দুচার মিনিট সময় কাটাতে চাইলে,

বিস্তারিত»

নক্ষত্রবাসী

ছোটবেলায় বাবা অফিস থেকে সন্ধ্যায় ফিরতেন।
হাতমুখ ধুয়ে উঠোনে রাখা একটা ইজী চেয়ারে
গা এলিয়ে তিনি আমায় ডেকে নিতেন।
আমি তার পেছনে দাঁড়াতাম,
তিনি মুখে মুখে ইংলিশ ট্রান্সলেশন ধরতেন,
পাটিগণিতের আর্যা ধরতেন,
মুখে মুখে অংক কষাতেন,
আকাশের নক্ষত্রপুঞ্জের সাথে পরিচয় করিয়ে দিতেন,
ওরিয়ন, গ্রেট বীয়ার, পোল স্টার, আরো কতো কি!

সেই থেকে আমার অভ্যেস হয়ে গিয়েছিল,

বিস্তারিত»