সূর্যপুত্র (পর্ব ছয়)

সূর্যপুত্র (ভূমিকাসহ পর্ব এক) (পর্ব দুই) (পর্ব তিন) (পর্ব চার) (পর্ব পাঁচ)
****আমি স্পষ্ট করেই বলতে চাই…আমার এই লেখাটি সম্পূর্ণই বানানো। জীবিত…মৃত…কাল্পনিক কারও সাথে আমার এই লেখা মিলে গেলে সেটার দায়ভার আমার একেবারেই নেই…আছে সিসিবির প্রিন্সিপ্যাল ভাইস্যার… ভাইস প্রিন্সিপ্যাল ভাপু… অ্যাডজুট্যান্ট ভাইস্যার…ইত্যাদিসহ আমার সকল সিনিয়র/জুনিয়র ভাই/বোনদের…কারণ, বৃক্ষের আবার দায়ভার কিসের???????!!!!!

০২ মে, ২০০৯।

শ্রীলংকার ত্রিংকোমালী বন্দর থেকে ৭৫০ নটিক্যাল মাইল দক্ষিণ পূর্বে… … ভারত মহাসাগরের একটি স্থানে…

৩১। জাহাজের দিক পরিবর্তন করে শ্রীলঙ্কান ফিশিং বোটগুলির দিকে এগুবার জন্যে অফিসার অফ দি ওয়াচকে নির্দেশনা দিলেন লেঃ কমান্ডার বিক্রমাদিত্য। পাশাপাশি, জাহাজের এক্সিকিউটিভ অফিসার, লেফটেন্যান্ট কমান্ডার সুবল আগরওয়ালা-কে ডেকে… প্রায় পঁয়তাল্লিশ মিনিট ধরে…করণীয় বিষয়ে বিশদ নির্দেশনা দিলেন।

৩২। ভারতীয় কোষ্টগার্ড জাহাজটি দেখে…… অনেক দিন পর…… প্রথমবারের মতন………মনের মধ্যে কু-ডাক ডেকে উঠলো গুণওয়ার্দানার। শেষবার ভারতীয় জাহাজ দেখেছিলো সাতাশ বছর আগে…ভারতীয় জলসীমায়। সেবার পরিণতি হয়েছিলো…বোট হারানোসহ…ছয় মাসের জেলহাজত। কিন্তু…সেবার…সেটি ছিল ভারতীয় নৌবাহিনীর জাহাজ…এবং সেটির সাথে দেখাও হয়েছিলো রাতে। যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে দলছুট হয়ে সেবার তাদের বোটটি ভারতীয় জলসীমানায়…প্রায় স্থলভাগের কাছাকাছি চলে গিয়েছিল। তাদের স্কিপার অনেক চেষ্টা করেছিলো ভারতীয় নৌজাহাজটির সবাইকে যান্ত্রিক সমস্যার কথা বুঝিয়ে বলতে…কিন্তু কোন লাভ হয়নি। এবারও সে রকম কিছু হবে না তো!!! অজানা এক আশঙ্কায়…দ্রুত অন্যান্য বোটগুলির স্কিপারদেরকে সকল কাগজপত্র বের করে তৈরী থাকতে বললেন গুণওয়ার্দানা। তার পাশাপাশি…হৃদয়ের বোটটিকে কাছাকাছি চলে আসতে বললেন…ইংরেজীটা ওর অনেক সহজাতভাবে আসে। তার নিজের ভাঙ্গা ভাঙ্গা ইংরেজীর চেয়ে সেটা অনেকগূণে ভাল হবে নিশ্চয়ই…ভাবলেন গুণওয়ার্দানা।

৩৩। কিছুক্ষণ পরে… সকল বোটগুলিকেই তার বোটের কাছে চলে আসার জন্যে বললেন গুণওয়ার্দানা। ঘন্টাখানেকের মধ্যেই…অন্যান্য শ্রীলঙ্কান ফিশিং বোটগুলি গুণওয়ার্দানার বোট “জলকুমারী”-র চারপার্শ্বে চলে আসলো। গুণওয়ার্দানার উৎকন্ঠিতভাব দেখে হৃদয় জিজ্ঞাসা করলো… “কি হয়েছে? আপনাকে অমন দেখা যাচ্ছে কেন?”
-“কি জানি…আমার কেন জানি ভাল লাগছে না…।”
-“কিন্তু…, আমি তো কোন সমস্যা দেখছি না! আমরা তো এই এলাকায় প্রায়শঃই মাছ ধরি!”
-“সেটা ঠিক আছে…, কিন্তু ভারতীয় জাহাজের বিষয়ে কিন্তু তোমরা সাবধান থাকবে। কেউ আগ বাড়িয়ে কোন কথা বলতে যেও না…যা বলার আমি-ই বলবো। আর, আমি যদি ঠিকমত বুজঝিয়ে বলতে না পারি…সে ক্ষেত্রে…হৃদয় , তুমি বুঝিয়ে বলবে।”
-“ধুর্‌, আপনি কোন চিন্তা করবেন না…”
-“কি জানি…আমার কেন জানি খুব বেশী ভাল মনে হচ্ছে না ব্যাপারটা। খুব একটা ভালও লাগছে না…!”

৩৪। জাহাজের ব্রীজে লেঃ কমান্ডার বিক্রমাদিত্য আসামাত্রই অফিসার অফ দি ওয়াচ-কে সতর্ক করলো স্টারবোর্ড লুক আউটঃ
-“ব্রীজ, দিস্‌ ইজ স্টারবোর্ড লুক আউট…ক্যাপ্টেন অন দি ডেক স্যার!”
-“ব্রীজ রজার।”
-“ গুড আফটারনুন, ক্যাপ্টেন।”
-“ওকে…ওওডব্লিঊ…আই হ্যাভ্‌ দি শিপ্‌।”
-“আই, আই… স্যার।”
ব্রীজের দায়িত্ব ক্যাপ্টেনের কাছে বুঝিয়ে দিয়ে… ফ্ল্যাগ ডেকে সিগারেট ধরাতে আসলো লেফটেন্যান্ট দার্শিল। মনে মনে ভাবলো…কি কু-ক্ষণেই যে শ্রীলঙ্কান বোটগুলি নজরে পড়েছিলো…!!! আর মাত্র মিনিট পঁচিশ পরেই ওর ওয়াচ শেষ হয়ে যেত…এখন ক্যাপ্টেন যখনই আবার তার কাছে ওয়াচের দায়িত্ব ফিরিয়ে দিক না কেন…তাকে কমপক্ষে আরও দুই ঘন্টা ব্রীজে থাকতে হবে!!! যতসব ফালতু ঝামেলা!!!!

৩৫। ভারতীয় কোষ্টগার্ড জাহাজ “………” প্রায় হাফ মাইল দূর থেকে ভেঁপু বাজাতে লাগলো…। শ্রীলঙ্কান ফিশিং বোটগুলির সকলে কৌতুহলী দৃষ্টিতে জাহাজটি থেকে নেমে আসা হাই স্পিড মেকানাইজ্‌ড বোটগুলির দিকে তাকিয়ে রইলো……

৩৬। সব মিলিয়ে মোট ছয়টি মেকানাইজ্‌ড বোট দেখলো হৃদয়। কাছাকাছি আসার পরে ভাল করে বোটগুলির আরোহীদের দেখার সুযোগ হলো ওর…কিন্তু সব কয়জন আরোহীর কাছেই আর্মস্‌ কেন? আপনমনেই ভাবতে লাগলো হৃদয়। একেবারে কাছে আসার পরে বোটগুলি থেকে একজন সৈনিক (ওদের লিডার মনে হয়) মেগাফোন দিয়ে ওদের বোটের স্কিপারদেরকে কাগজপত্র নিয়ে রেডি হতে বললো। তারপর,… কোন আগাম আলোচনা ছাড়া…হঠাৎ করেই…বেশ কয়েকটি ফাঁকা গুলি বর্ষণ করা হলো বোটগুলি থেকে…। একে একে সকল স্কিপারদেরকে হাত বেঁধে জোর করে বোটগুলিতে তুলে ভারতীয় জাহাজটিতে নিয়ে যাওয়া হলো… শ্রীলঙ্কান ফিশিং বোটগুলির স্কিপারদের লিডার গুণওয়ার্দানা বেশ কয়েকবারই তাদের বোঝানোর চেষ্টা করলো…যে তারা নিরস্ত্র এবং কেবলমাত্র মাছ-ই ধরছে…কিন্তু তার কথায় ভারতীয় জাহাজটির কেউই কোন আমল দিল না…

৩৭। ভারতীয় কোষ্ট গার্ড জাহাজ “……”-এর এক্সিকিউটিভ অফিসার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার সুবল আগরওয়ালা একজন প্রচন্ড সৎ মানুষ। তদুপরি, তার মতন অগাধ দেশপ্রেম খুব কম ভারতীয়রই রয়েছে। লম্বা চওড়া…, শক্ত গড়নের এই অফিসারটি শরীরে প্রচন্ড শক্তিও রাখেন। কিন্তু… উক্ত কর্মকর্তার একটা বড় সমস্যা… তিনি একজন প্রচন্ড বদরাগী মানুষ এবং… তাঁর অভিধানে ধৈর্য্য শব্দটি…বোধহয় অনুপস্থিত। আর, তাঁর সবচেয়ে ভাল গুণ হলো…কোন দায়িত্ব দেয়া হলে তিনি সেটা জীবন দিয়ে হলেও সম্পন্ন করবেন। সে কারণেই… যখন লেঃ কমান্ডার বিক্রমাদিত্য তাঁকে বলে দিয়েছেন…শ্রীলঙ্কান বোটগুলি অবৈধভাবে ভারতীয় জলসীমায় অনুপ্রবেশ করে মাছ ধরছে…এবং তাদের ধরতে হবে…তখন থেকেই তিনি রাগে গর্‌গর্‌ করছেন…”এত বড় সাহস?… অবৈধভাবে ভারতীয় জলসীমায় অনুপ্রবেশ?? আবার মাছ ধরা??? তা-ও আবার আঠারটি বোটে করে…একত্রে এসে!!!! আজ খবর আছে তোদের…দাঁড়া!!! ”
[ক্রমশঃ

৩,১২৯ বার দেখা হয়েছে

২৯ টি মন্তব্য : “সূর্যপুত্র (পর্ব ছয়)”

    • জুলহাস (৮৮-৯৪)

      তুই এতো ভূয়া মারতে পারস্‌ রে ম্যাশ 🙂 🙂 🙂 🙂 🙂

      আইচ্ছা যা...আমি তোর কথাটারে সত্যি ভাইব্যা নিলাম... 😛 😛 😛 😛

      যা দিনকাল পড়ছে...পোলাপাইন আইস্যা আবার কথা ফিরায়া নিবার পারে...

      কি বলেন কাইয়ুম ভাই??? :grr: :grr: :grr:


      Proud to be an ex-cadet..... once a cadet, always a cadet

      জবাব দিন
  1. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    লেখাটা এইবার লাইনে আসতেছে মনে হয় জুলহাস। ব্যাপারটা কি কেক আইসক্রিম খাওয়ার পর ঘটতে শুরু করলো নাকি?? :thumbup:

    অফটপিক : আমারে রীতিমতো ছিল্লা-কাইট্টা লবন লাগাইয়া দিয়া গ্যাছে!! :duel: :duel: :duel:


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  2. সামিয়া (৯৯-০৫)

    মাঝখান থেকে পড়ার জন্য কিছুই বুঝলাম না, সবগুলা পড়তে হবে,কিন্তু শেষ প্যারায় ভারতীয় চরিত্র বেশ সুন্দর তুলে এনেছেন জুলহাস ভাই।
    (দুঃখিত, কেউ যদি আঘাত পেয়ে থাকেন)

    জবাব দিন
    • জুলহাস (৮৮-৯৪)

      বোন‌...
      কষ্ট করে...প্রথম থেকে-ই না হয় পড়তি!!!!!!!!!!! 😕 😕 😕
      আমার লেখা তুই সচরাচর পড়িস্‌ না...সবাইরে জানান দেওয়ার কি দরকার ছিল!!! 😛 😛 😛 😀 😀 😀
      যাই হোক্‌... ব্যাপার না। B-) B-)
      এইবার ম্যাডাম...আপনি গিয়া তাড়াতাড়ি প্রথম থাইক্যা পইড়া আসেন...
      নইলে কিন্তু আপনারে...আজ্‌ সে কিয়ামত তক্‌ :frontroll: :frontroll: :frontroll: দেওয়ানোর জন্যে...দিহান ভাপু (সাময়িকএডজুট্যান্ট ভাপু)-কে লাগিয়ে দেয়া হবে!!!!!!! :goragori: :goragori: :goragori: :goragori: :goragori: :goragori: :goragori: :awesome: :awesome: :awesome: :awesome: :awesome: :awesome: :awesome: :duel: :duel: :duel: :duel: :duel: :duel: :duel:


      Proud to be an ex-cadet..... once a cadet, always a cadet

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।