তোমার জন্য আমি

কখনো বলে দাওনি তুমি
অন্ধকারকে ভীষন ভয় তোমার।
তারপরেও আমাকেই তা বুঝে নিতে হয়েছিল;
ঠিক যেমন ভাবে বুঝে নেতে হয়েছিল
তোমার ভালবাসার অজানা ভাষা।
…নতুন করে পাঠগ্রহন শুরু হল তোমার কাছে।

শিখতে থাকলাম অনেক কিছুই-
যতক্ষন আমি তোমার কাছে থাকি,
চিক চিক করতে থাকা উজ্জল চোখ দুটি তোমার
বলে দেয় এর নাম “পাওয়ার আনন্দ”।
এক মুহুর্তের বিরহে ব্যাথায় বিবর্ন
তোমার মুখ আর
হাজার মানুষের ভীড়ে আমাকে খুজতে থাকা
চঞ্চল দুটি চোখ তোমার
নিমিষেই কি প্রশান্ত হয়ে যায়
বলে দেয় এর নাম “স্বস্তি”।
ক্ষুধায় কাতর যখন তুমি,
আমার মাঝেই খুজে নাও “আহার” তোমার।
ছোট ছোট ব্যাথা বেদনাতে
সবার হাজারো সান্তনার পরেও তোমার প্রতীক্ষা
আমারই সান্তনার ছোয়ার,
বুঝলাম এর নাম “নির্ভরতা”।

তোমার প্রতি ভালবাসায় জড়ানোর লোভ
কোনভাবেই সামলাতে পারি না আমি।
তোমার ঘুমন্ত শরীরের দিকে পলকহীন তাকিয়ে থাকি
আর জেগে থাকা প্রানবন্ত উচ্ছল শরীরটার সাথে
মায়ার খেলায় মেতে উঠে পাই জন্মের সুখ।
কোন ভাবেই কেন তোমাকে এড়িয়ে যেতে পারি না?
কেন পারিনা?
কোত্থেকে আসে এতো ভালবাসা?
তোমার চুল, নখ, হাত, দাঁত, আঙ্গুল… …
সবকিছুই আমাকে এতো টানে কেন?
এসব তৈরীতে আমার অবদান আছে এই কি একমাত্র কারণ?

নাকি পরম নির্ভরতায় আমাকে “মা” বলে ডাক বলে?
চিন্তায় পড়ে যাই,
জন্ম তো দিয়েছি আগেই,
এখন আপ্রান চেষ্টা আমার,
পারব তো হতে “মা”?

৫,৯৬৫ বার দেখা হয়েছে

৬১ টি মন্তব্য : “তোমার জন্য আমি”

  1. রাব্বী (৯২-৯৮)
    হাজার মানুষের ভীড়ে আমাকে খুজতে থাকা
    চঞ্চল দুটি চোখ তোমার
    নিমিষেই কি প্রশান্ত হয়ে যায়
    বলে দেয় এর নাম “স্বস্তি”।

    দারুন তো!


    আমার বন্ধুয়া বিহনে

    জবাব দিন
  2. আমীন (০১-০৭)

    সুন্দর চিন্তাধারার অসম্ভব রকমের ভাল একটা কবিতা।বেশ কয়েকবার পড়লাম,তবে মনে হয় অনুভুতিটা পুরো উপলব্ধি করতে পারিনি।কোন ছেলের পক্ষে কি আদৌ বোঝা সম্ভব??
    :clap:

    জবাব দিন
    • সাবিহা জিতু (১৯৯৩-১৯৯৯)
      কোন ছেলের পক্ষে কি আদৌ বোঝা সম্ভব??

      হয়তো সম্ভব। কেননা আমি অনেক বাবাদের দেখেছি যারা একই সাথে একজন বাবা ও একজন মায়ের ভূমিকা পালন করছে, যদিও সেই উপমা সংখ্যায় অনেক নগন্য। তবে পিতৃত্বের সাধও অনেক মধুর। যারা স্বেচ্ছায় নিজেদের তা থেকে বঞ্চিত করে তাদের মত অভাগা আর নাই আমার মতে।


      You cannot hangout with negative people and expect a positive life.

      জবাব দিন
  3. আশহাব (২০০২-০৮)

    জিতুপ্পী :hatsoff:

    হাজার মানুষের ভীড়ে আমাকে খুজতে থাকা
    চঞ্চল দুটি চোখ তোমার
    নিমিষেই কি প্রশান্ত হয়ে যায়
    বলে দেয় এর নাম “স্বস্তি”।

    এই অনুভূতি অনেকবার হয়েছে :bash: ছোটবেলায় বানিজ্য মেলায় গেলেই প্রায়ই আমি হারিয়ে যেতাম, আর কি কান্না, যখনই আম্মুকে দেখতাম, যেন জান ফিরা পাইলাম :hug:


    "Never think that you’re not supposed to be there. Cause you wouldn’t be there if you wasn’t supposed to be there."
    - A Concerto Is a Conversation

    জবাব দিন
    • সাবিহা জিতু (১৯৯৩-১৯৯৯)

      বয়স যখন ৪ বছরঃ আমার মা সব জানে! :goragori:
      বয়স যখন ৮ বছরঃ মা তো অনেক জানে!:-B
      বয়স যখন ১২ বছরঃ মা আসলে অনেক কিছুই জানে নাহ! 😐
      বয়স যখন ১৪ বছরঃ মা... তুমি কিচ্ছুই জানো না! :no:
      বয়স যখন ১৬ বছরঃ মা কে অদৃশ্য মনে হয়! :tuski:
      বয়স যখন ১৮ বছরঃ মা খুবই সেকেলে! :thumbdown:
      বয়স যখন ৩০ বছরঃ এ ব্যাপারটায় মা হয়তো ভালো বলতে পারতেন! 🙂
      বয়স যখন ৩৫ বছরঃ আমরা নিজেরা সিদ্ধান্ত নেওয়ার আগে, চল মা কে একবার জিজ্ঞেস করি! 😕
      বয়স যখন ৪৫ বছরঃ মা আমার জায়গায় থাকলে কিভাবে চিন্তা করতো? :-/
      বয়স যখন ৬৫ বছরঃ ইসসস... মা... সময় থাকতে কদর করলাম না 🙁 ~x(


      You cannot hangout with negative people and expect a positive life.

      জবাব দিন
  4. কিবরিয়া (২০০৩-২০০৯)

    :hatsoff: :hatsoff:
    অনেক ভালো লাগ্লো.........


    যেমন রক্তের মধ্যে জন্ম নেয় সোনালি অসুখ-তারপর ফুটে ওঠে ত্বকে মাংসে বীভৎস ক্ষরতা।
    জাতির শরীরে আজ তেম্নি দ্যাখো দুরারোগ্য ব্যাধি - ধর্মান্ধ পিশাচ আর পরকাল ব্যবসায়ি রূপে
    - রুদ্র মুহম্মদ শহীদুল্লাহ

    জবাব দিন
  5. আলীম (২০০১-২০০৭)

    :thumbup: :thumbup: :thumbup: :thumbup: :thumbup:

    সবাই সবকিছু বলে গেছে... আমি শুধু বলব,

    ....."মামনি".......
    কি করে ভূলব আমি
    অম্ল মধুর সেই ছোট ছোট স্মৃতি
    মাঝে মাঝে ভূলে যাই আমি
    তোমার চোখের দুঃখ নদী

    অদৃশ্য কিংবা অলীক কিছুর মোহে
    মরিচীকার পিছে তীব্র বেগে ছুটছি আমি
    কখনো কখনো ভূলে যাই মামনি
    তোমার চোখের খরস্রোতা নদী

    গান আর কাজ , কাজ আর গানে
    ভূলে থাকি সর্বদা
    হঠ্যাত করে জেগে ওঠে ২১ বছর আগের
    নাড়ী ছেড়ার তীব্র বিচ্ছেদ যন্ত্রণা

    তুমি নিঃসঙ্গ দিন কাটাও
    সেই পুরনো সবুজ বাগান বাড়িতে
    আমার দিন কেটে যায় নিরব হতাশায়
    পতেঙ্গা, জাফলং সেন্ট মার্টিন ঘুরে ঘুরে

    কবে ভূলে গেছি তোমার বুকের নোনতা মধুর গন্ধ
    হারিয়ে গেছে তোমার আঁচলের স্বস্তির ছাঁয়া
    এখন শুধুই তীব্র যান্ত্রিকতা.........
    আমি চাই তোমার জঠরের শীতলতা।।


    -আলীম হায়দার.1312.

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।