আমি আবারও কিছু বলিতে পারিলাম না-৮

১।

ক। আমার স্ত্রী-র সাথে অকারণেই একচোট হয়ে গেল। কারণটা তেমন জটিল কিছু নয়…আমার ছেলেকে আমি লরি-র কয়েকটা ছবি মেইল করে পাঠিয়েছিলাম সেটা নিয়েই…

-তুমি কেন ওই ছবিগুলি পাঠালে?
-কেন, তাতে কি এমন সমস্যা হয়েছে?
-দিন নেই…রাত নেই…সব সময়ে সেই ছবিগুলি দেখে…আর আমাকে বলে আরও ছবি ডাউনলোড করে দিতে!
-তো তুমি আরও কয়েকটা ছবি ডাউনলোড করে দিলেই তো পারো!
-আমার আর খেয়ে কাজ নেই! তা ছাড়া, আমি কি ছাই অতকিছু পারি না কি?
-হুম্‌…ব্যাপারটা তাহলে এ-ই!

খ। কয়েকদিন পরের ঘটনা।

আমার ছোটভাই (অর্থাৎ…আপনাদের সবার প্রিয় জুনায়েদ কবির) কয়েকদিন ধরে আমাদের বাসায় অবস্থান করছে। যথারীতি আমাদের ছোট্ট মাহীন তার প্রিয় চাচা-র জীবনটা অতিষ্ঠ করে তুলেছে লরি-র ছবি ডাউনলোড করে দেবার জন্য…

ভাতিজা-র অহেতুক উপদ্রবের হাত হতে রেহাই পাবার জন্য চাচা নিজেই তাকে হাতে কলমে শিখিয়ে দিল… কিভাবে ইন্টারনেট থেকে লরি-র ছবি ডাউনলোড করতে হয়…

গ। সাগরে থাকার কারণে আমি সবসময়ে ইন্টারনেটে বসতে পারি না……বাসায় কথা-ও বলতে পারি না। এই রকম কয়েকদিন সাগরে কাটিয়ে আসার পরে আমার স্ত্রী-র কাছে শুনি…

-মাম্‌, জানো, আমি এখন নিজে নিজে লরি-র ছবি ডাউনলোড করতে পারি।
-তাই নাকি? কি ভাবে?
-খুব সহজ…প্রথমে তুমি ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার-এ যাবা। তারপর তুমি ইংরেজিতে লিখবা লরি… যদি বড় লরি চাও, তাহলে লিখবা বিগ লরি। আর, যদি ছোট লরি চাও, তাহলে লিখবা স্মল লরি। তারপর এন্টার বাটন-এ চাপ দিলেই লরির ছবি চলে আসে।…দাঁড়াও, তোমাকে দেখাচ্ছি।

মা-কে হাতে কলমে দেখাতে দেখাতে সে বললো, তুমি এইভাবে যা-ই লিখবে…তা-ই চলে আসবে।

তারপর হঠাৎ ক্যাডেটীয় স্টাইলে তার আক্রমন…দাঁড়াও মাম্‌, তোমাকে আমি একটা মজার জিনিস দেখাই…বলে সে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার-এ যে কথাটা লিখে এন্টার বাটন-এ চাপ দিল…সে টা হলো BIG SHAKIRA!

তার পরবর্তী কয়েক মিনিট আমার ছেলের মা এবং চাচা-র অবস্থা না কি দেখার মতন ছিলো!
ছেলে যাতে এই বিষয়টাকে তেমন ভয়ংকর কিছু না ভেবে ফেলে…সে জন্য ওরা দুইজন না কি একটু গা ছাড়া ভাব দেখিয়েছিল। পরে, মাহীন রুম ছেড়ে চলে যেতেই তার চাচা ফিল্টারিং করে অনেক কিছু বন্ধ করে দিয়েছিল।

গ। দিন তিনেক পরে, ছেলের মনে হয় ব্যাপারটা আবার খেয়াল পড়েছে।

-মাম্‌, আমি তোমাকে আবার দেখাবো কিভাবে ছবি ডাউনলোড করতে হয়?

– (আতংকগ্রস্ত মায়ের ত্বরিৎ জবাব) না বাবা, আমি বুঝতে পেরেছি।
-আচ্ছা, ঠিক আছে। তাহলে আমি দেখি তো, পারি কি না।

বলে তাকে ঠেকানোর আর কোন সুযোগ না দিয়ে আবারও একই শব্দ লিখে এন্টার বাটনে প্রেস!
এবং একই রেজাল্ট পেয়ে তার কনুই এবং হাত নাড়িয়ে অভিব্যক্তি প্রকাশ…ইয়েস!

ইহা শুনিয়া আমি আবারও কিছু বলিতে পারিলাম না!

২। বৈরুতের মতন শহরে এক বছর অবস্থান করবো…এখানকার সালমা হায়েক…, শাকিরা…, হাইফা…, ইত্যাদি-র নাম শুনবো…প্রায় হাজার খানেক নাইট ক্লাব/পাব দেখবো… আর মনের মাঝে সে সব জায়গায় যাওয়ার সাধ উঁকি দেবে না!

আমাদের এক্সপার্ট তিনজনকে আমরা নাদান পার্টি-র কয়েকজন ধরলাম…আমাদেরকে অন্ততঃ একবার হলেও নিতে হবে!

অনেকবার রিকয়েস্ট করার পরে একদিন আমরা বেশ কয়েকজন দল বেঁধে যাত্রা শুরু করলাম…

একটিতে ঢুকতে গিয়ে প্রথমেই বোল্ড… “SORRY, YOU HAVE TO COME BY COUPLES”

দ্বিতীয়টিতে ঢোকার মুখে ইন্সট্রাকশন, “PLEASE REMEMBER, YOUR ENTRY FEE IS 200$, AND WHATEVER YOU TAKE, MINIMUM BILL IS 500$”

অনেক খুঁজে একটি মোটামুটি কম পয়সার/খরচের একটি ক্লাবে এলাম…ততক্ষণে রাত বাজে পৌনে দুইটা…যেটার এন্ট্রি ফি নেই…।

বাইরে দাঁড়িয়ে থেকে এক্সপার্টরা পরিচিত এক স্থানীয়কে (লেবানীজ) নিয়ে আসলো এবং তার মাধ্যমে আমরা ভিতরে ঢুকতে পারলাম।

সেই ক্লাবে নৃত্যরত এক তরুণীর সহাস্য ডায়লগ… “তোমাকে খুব চেনা চেনা লাগছে! তুমি তো এখানে প্রায়ই আসো, তাই না?”
আমরা নাদান-রা কেবল স্প্রাইট, কাজু বাদাম,চিপ্‌স আর পানি খেলাম। আগে-ই কথা ছিল…বিল হবে হিজ্‌ হিজ্‌ … হুজ্‌ হুজ্‌ এই নীতিতে।

বের হওয়ার আগে…বিল দেবার প্রাক্কালে শুনি …এখানকার মিনিমাম ফি 75$!

আমি আবারও কিছু বলিতে পারিলাম না!

৩। এমন একটি মিশনে এসেছি…যেখানে ৭০% সময়ে সাগরে ভেসে বেড়াতে হয়…অন্ততঃ ৫৫-৬৫% তো বটেই!

যখনই তীরে আসি…ইন্টারনেট লাইন পাই… সিসিবি-তে আসি। আর খোঁজ করি…কি কি নতুন লেখা আসলো…কিংবা নতুন কি ঘটনা ঘটলো…

সাথে আরেকটি কাজ করি… দেখি… কে কে লগ ইন করে আছে।

খুব অল্প সময় সুযোগ পাই বলেই হয়তো…যে টুকু সময় তীরে থাকি…তার প্রায় সবটুকু সময়ে-ই আমি থাকি অন লাইন। আর, এমন ভাবে-ই অসংখ্যবার দেখি…

আমি আবারও কিছু বলিতে পারিলাম না!

৪। আজ ০৯ নভেম্বর। সকাল থেকে-ই মনটা একটু খারাপ হয়ে আছে…। আজই সাগর থেকে ফিরেছি… স্ত্রী-র সাথে কথা হলো… সে-ও কিছু বললো না, বাবা-মায়ের সাথে কথা হলো…তাঁরাও কিছু-ই বললেন না…সিসিবি-তে ঢুকলাম…সেখানেও কোন কথা নেই। জাহাজের অন্যান্য অফিসারদেরও আজ কাউকে দেখছি না…সবাই যেন উধাও!

রাতের খাবারের ঠিক আগে আগে আমাকে আমন্ত্রণ জানানো হলো জাহাজের গ্যাম্বো গান ডেকে। সেখানে গিয়ে দেখি…মোমবাতি সহ সবাই কেক কাটার জন্য আমার অপেক্ষায় রয়েছে!
বয়স তাহলে চল্লিশের কাছাকাছি চলে-ই গেল! সকলের ভালবাসা দেখে আমি আবারও কিছু বলিতে পারিলাম না!

এবার যদি কাইয়ুম ভাই কিছু বলেন!

২,৭৮১ বার দেখা হয়েছে

২৬ টি মন্তব্য : “আমি আবারও কিছু বলিতে পারিলাম না-৮”

  1. তৌফিক (৯৬-০২)

    শুভ জন্মদিন জুলহাস ভাই। অনেক ভালো থাইকেন। আর কেউ উইশ করল না দেখে ভাইবেন না আমরা আপনারে ভালো পাই না। ভালো পাই, কিন্তু বিরাট বিজি এই যা। ভাতিজার ব্যাপারে চিন্তা কইরেন না, বয়েজ উইল বি বয়েজ। কিছু করার নাই 😛

    জবাব দিন
  2. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    শুভ জন্মদিন জুলহাস ভাই। অনেক ভালো থাইকেন। আর কেউ উইশ করল না দেখে ভাইবেন না আমরা আপনারে ভালো পাই না। ভালো পাই, কিন্তু বিরাট বিজি এই যা। ভাতিজার ব্যাপারে চিন্তা কইরেন না, বয়েজ উইল বি বয়েজ। কিছু করার নাই 😛

    জবাব দিন
  3. দিহান আহসান

    আমিও কিছু বলিতে পারিলাম না নেভী'দা 🙁
    সাগরেই ডুব দিসি মনে হইতাসে :((
    খুবি দুঃখিত দাদা। ইনশাল্লাহ বাইঁচা থাকলে সামনের বছর গতবারের মত ১২টায় পেয়ে যাবা। 🙂

    জন্মদিনের অনেক অনেক শুভেচ্ছা ।

    জবাব দিন
  4. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)

    ভাই,
    শুভ জন্মদিন...
    পুরুষ মানুষ তো চল্লিশেই শুরু...এর আগে সব দুধভাত!

    আল্লাহপাক জুনার হাত থেকে আপনার মাসুম বাচ্চাটারে রক্ষা করুক, আমিন!


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন
  5. রবিন (৯৪-০০/ককক)

    শুভ জন্মদিন জুলহাস ভাই। অনেক ভালো থাইকেন। আর কেউ উইশ করল না দেখে ভাইবেন না আমরা আপনারে ভালো পাই না। ভালো পাই, কিন্তু বিরাট বিজি এই যা। ভাতিজার ব্যাপারে চিন্তা কইরেন না, বয়েজ উইল বি বয়েজ। কিছু করার নাই 😛 :grr:

    জবাব দিন
  6. মাহমুদ (৯৫-০১)

    শুভ জন্মদিন জুলহাস ভাই।
    আপনার মত আমিও মিশনে অবস্থান করছি। কিন্তু অদ্ভুত ব্যাপারটা কি জানেন, আপনার চারপাশে শুধু পানি আর পানি, একটুকরো মাটি/বালুর তীর দেখার জন্যে আপনার মনটা যেমন ছটফট করে, ঠিক তেমনি একফোটা পানি দেখার জন্যে আমার মনটাও ছটফট করে। আমি আছি আফ্রিকার সাহারা মরুভূমিতে... 🙁

    ......তবুও দিনের শেষে স্টকে থাকা মোট দিনগুলো থেকে একটা করে দিন কাটছি। সারা দিনের মোরাল এইটুকুই।

    অদ্ভুত না বলেন তো...

    আগামী জন্মদিন আপনার সপরিবারে কটুক এই কামনা করছি...

    জবাব দিন
  7. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    শুভ জন্মদিন জুলহাস ভাই। অনেক ভালো থাইকেন। আর কেউ উইশ করল না দেখে ভাইবেন না আমরা আপনারে ভালো পাই না। ভালো পাই, কিন্তু বিরাট বিজি এই যা। ভাতিজার ব্যাপারে চিন্তা কইরেন না, বয়েজ উইল বি বয়েজ। কিছু করার নাই 😛 :grr:


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  8. মুহিব (৯৬-০২)

    শুভ জন্মদিন ভাই। আপনি তাহলে লেবাননে মিশন করছেন। ভাল কথা। আপনি লেবাননে মিশন করেন আর আমরা গুটি কয়েক লেবানিজ দেখি আবিদজানে। তাও আবার যদি যাওয়া হয়। এক এক জায়গার মোরাল এক এক রকম। তাই যা আছে সেইটা নিয়াই মাস্তি করেন। :awesome: :tuski: :tuski:

    আর পুরুষ মানুষ চল্লিশে শুরু ভালো কথা। কিন্তু পুরুষ মানুষের শেষ আছে নাকি???? 😛

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।