আধাসামরিক প্রেমের গল্প

আধাসামরিক ক্যাডেট কলেজে বেসামরিক প্রেমিকা থাকা শুধু কষ্টের নয়, ভয়াবহ কষ্টের।প্রতিবার ছুটির শেষে প্রিয়
মানুষটিকে ফেলে কলেজে যেতে অনেক কষ্ট হয়।ক্যাডেট কলেজ, সে এমন এক বিচ্ছিন্ন দ্বীপ, যেখান থেকে মুক্ত পৃথিবীর খোঁজ নেয়া অসম্ভব প্রায় । আর্মি হেড কোয়ার্টারের স্বেচ্ছাচারিতায় মুঠোফোনের বেতার তরঙ্গ তখনো জায়গা করে নিতে পারেনি ক্যাডেট কলেজের সেই চৌহদ্দিতে। তবুও সমস্ত কলেজ প্রশাসনকে ফাঁকি দিয়ে কখনো আন্ডারগার্মেন্টস এর নিচে,কখনো মোজার ভেতর,মোটা বইয়ের পৃষ্ঠা কেটে,ব্যাগের কোনায়,এংলেটের মধ্যে,

বিস্তারিত»

যুদ্ধ…!!!

বিধাতা কিংবা প্রকৃতি যাই বলি মানুষ কে বাঁচতে শেখায় যুদ্ধ করে। মাঝে মাঝে অবাক লাগে যে অসম কোন কিছুই প্রকৃতি মেনে নেয়না । নর-নারীর প্রেম প্রকৃতির বিধানের অদ্ভুত এক রহস্যময় দিক।

আবেগ খুব তাড়া করে মাঝে মাঝে। অদ্ভুত সেই অসম প্রেমের গল্প। নায়ক নায়িকা নেই,আছে শুধু পাগলামি,উষ্ণতার অনুভূতি। চোখ বন্ধ করে নেয়া চুলের মিষ্টি গন্ধ কিংবা কাছের বান্ধবীর কাছে শোনা নির্ঘুম রাতের কথা ;

বিস্তারিত»

স্বজন…

স্বজন,
আমার এ চিঠি যখন পড়বে
আমি পাশে থাকবো না,
থাকবো না তোমার স্পর্শে,তোমার পরশে।
পাবে না আমায় কোনো গোধূলী বেলায়।
নিগূঢ় বেদনায় মলিন ওই মুখ,
হয়তোবা বারান্দায় একাকী দাড়িয়ে,

কাঁদছো ওই নীল আকাশের দিকে তাকিয়ে।

আমি আসবোনা,
আসবোনা তোমার কান্না মুছে দিতে,
আমি আসবোনা তোমার সঙ্গী হতে।
তোমার ওই নিষ্পাপ মুখে
সারল্যের চঞ্চল হাসি ফোটাতে,

বিস্তারিত»

সন্ধ্যা সন্ধ্যা বিষাদ বিষাদ

বিকেলের রোদ মিশেছে নীলের সাথে
কমলা আভায় ভরেছে আকাশ দূরে
পৃথিবীর পরে পড়েছে মেঘের ছায়া
বিদায় রাগিনী বাজিছে করুণ সুরে

দু হাত দিয়ে সরায়ে আচল খানি
তাকালো যুবক বধূর নম্র চোখে
কী দারুন ব্যথা বুকে জেগে উঠে দেখে
বিস্মিত আলো বালিকার চোখে মুখে

বিদায় নারী আমাদের পথচলা
শেষ হলো আজি সন্ধ্যার এই ক্ষণে
ফুলগুলো যবে উদ্যত হলো,হায়
ফুটবে এবার রজনীগন্ধা বনে

[ক্লাস নাইন টেনের ডায়েরীতে এই কোবতেটা ছিলো……একটু অসম্পূর্ণ মনে হয়…তাও এইসব সন্ধ্যাবেলায় কেম্নে কেম্নে জানি মনে পড়ে গেলো]

বিস্তারিত»

ফটোব্লগঃ জাস্ট সেলোগ্রাফী-১৮, ইসিসি (একটি স্বপ্ন)

নাহ, দুনিয়া জুড়ে প্রচুর গিয়াঞ্জাম। কালকে হঠাত সিসিবি এর এফবি পেজ এ একটা কমেন্ট দেখলাম। পুরানো দিনের কথা মনে করে আফসোস করা হইতেছে। আসলেই আগে কি সুন্দর দিন কাটাইতাম। সারাদিন কমেন্ট র পোষ্টের বন্যা। এখন আর আগের সেই স্টার লেখকদের কাউকেই দেখি না। এমন কি আমাদের প্রিন্সিপাল স্যার ও অনেক বিজি। 🙁

কালকে কমেন্ট এ ফাইসা গেলাম। আবাহনীর আকাশ ( আবাহনী রে নিয়া আমিও খুব এ হতাশ এই সিজন এ) এর রিকোয়েস্ট একটা সেলোগ্রাফী হইলেও দেন।

বিস্তারিত»

সাভারনামা…

সাভারের ভবনধসের ঘটনা এখন পুরোনো হয়ে গেছে। আজ সেই সময় তোলা কিছু ছবি ফেবু’তে আপলোড করলাম। ছবি দেখে রাজীব ভাই/১৩তম বিসিসি; বললেন “সাভারের উদ্ধারকাজের উপরে একটা লেখা দে”! সাথে সাথে ফেবু বন্ধ করে সেই সময়কার কিছু স্মৃতি নিয়ে আজ লিখলাম। এক বসায় লিখেছি। ভুলভাল হতে পারে।

ভবন ধসে পড়ার পরপরই শাহবাগ গিয়ে রক্ত দিয়ে এসেছি। তবু কেমন যেন ছটফট করছিলাম। আরো কিছু করতে ইচ্ছা হচ্ছিলো।

বিস্তারিত»

লেঃ মাহমুদ এবং আমাদের গল্প…

আমাদের গল্পটার শুরু গ্রীষ্মের কোন এক মধ্য দুপুর থেকে। অন্য দুপুরগুলোর মত সেই দুপুরটাও অলস হতে পারত, কিন্তু সেদিন দুপুরের অলসতার সুযোগ ছিল না। কারন সেই দুপুরে দেশের বিভিন্ন জায়গার,বিভিন্ন চেহারার কিছু ছেলের ‘আমি থেকে আমরা’ হবার দিনের সূচণা হতে চলেছিল।০৭ মে,২০০২ সালের সেই রৌদ্রজ্জল দুপুরকে সাক্ষী রেখে আমরা একে একে খাকী পোশাকে নিজেকে জড়াই, আর নিজের অজান্তে ৫৪টি মন কখন যেন নিজেদের মত করেই জড়িয়ে গেছে,

বিস্তারিত»

একটা কুইক ভিজিট করে আসলাম কলেজে…যা যা দ্যাখলাম

বি এম এ তে যখন প্রথম শুনলাম পোস্টিং কুমিল্লায়…সেরাম মজা পাইসিলাম।সাথে থ্রীল…গাড়ি নিয়ে কলেজে যাবো…ক্লাস সেভেন এইটে যেমন দ্যাখতাম জিডিও যায়,ভাইয়ারা যায়।রেজিমেন্টেশান টাইমে একদিন ডিউটি,রাস্তায় দাড়ায়া আছি,হঠাৎ করে কলেজের বাসটা সামনে দিয়ে চলে গেলো,প্রথম দিনের সেই আবেগটা বোঝানো যাবে না।আজকাল প্রায়ই হয়,কলেজের যারা গ্রাউন্ডস ম্যান,হাউজ বেয়ারা,হয়তো রাস্তা দিয়ে যাচ্ছে,দূর থেকে দেখে ডাক দেয়,শাহরিয়ার ভাই কেমন আছেন?আমিও ডাক দেই “আরে,আক্কাস ভাই না”…ভাল্লাগে খুব…রি-ইউনিয়নের পরে আর নানা ব্যস্ততায় যাওয়া হয় নাই।মাঝে মাঝে প্ল্যান করি,এত কাছে কলেজ,না গেলে পরে আফসোস হবে।সেই মোতাবেক আজকে একটা চান্স পাইসিলাম প্যারেন্টস ডে উপলক্ষ্যে।কিন্তু ফ্রী হইতে হইতে ১ টা বাইজা গেসে।তাই ভাবলাম একটানে একটু ঘুইর‍্যা আসি।তাই একটা কুইক ভিজিট করে আসলাম কলেজে…মেইনলি যা যা দ্যাখলামঃ

১।

বিস্তারিত»

বিপন্ন মানবতা এবং একটি সাহায্যের আবেদন

আরো একবার মানবিক বিপর্যয়ের সামনে এসে দাঁড়িয়েছি আমরা,আমাদের বাংলাদেশটা। যেসব সেলাই দিদিমনিরা দিনরাত কষ্ট করে আমাদের জন্য কাপড় বুনেন,যেইসব পোষাক শ্রমিকের ঘামে ভেজা নিঃশ্বাসে ভর করে দেশ অর্থনৈতিক স্বচ্ছলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে তাদের লাশ আজকে আরেকবার তাজরীনের গন্ডি পেড়িয়ে অধরচন্দ্র স্কুলমাঠে সারি বেঁধে শুয়ে আছে। আর ধ্বসে পড়া রানা প্লাজার ভিতরে আটকা পড়ে আছে আরো শতাধিক।

উদ্ধার কাজ চলছে এখনো। উদ্ধারকর্মীদের পাশাপাশি আছে সেচ্ছাসেবক উদ্ধারকর্মীরা।

বিস্তারিত»

প্রিয় বাদামওয়ালী

প্রিয় বাদামওয়ালী,
তোমার স্কুলের ড্রেসটা লাল-সাদা ছিল, মনে আছে…… আর তাই-ই বোধহয় তোমাকে লাল অথবা লাল সাদাতেই আমার কাছে বেশী ভালো লাগতো। যদিও কিনা রং দুটোর চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য সম্পূর্ণ বিপরীত। আগে একসময় পরিণয় এর রং ছিল শুধুই লাল, আর বৈধব্যের রং সাদা। এখন অবশ্য এ সকল আদিখ্যেতা কমে গেছে অনেক। লাল এর ভেতর যে আবার বহু রকমফের আছে সেটা তুমিই শিখিয়েছিলে। তোমার সাথে যে লালটা সবচে ভালো যেত তার নাম মনে আছে বলেছিলে ”

বিস্তারিত»

নিশাদল

ক্যাফাইন এর মাত্রা তীব্র থেকেও অতিরিক্ত
নির্ঘুম রাত, আর একটি অনুৎপাদনশীল মস্তিষ্ক – চিন্তাসিক্ত,
ভেড়া গোনা আর ঘুমপাড়ানি গান – কবেই হয়েছে ছার……
এই হাফ বার্গার চাঁদের রাতে- আমি তো আমার……
তুমি কার ??????

আধখানি চাঁদ- নির্লিপ্ত, জবুথবু আর চৌচির
আধখানি ঘরে আধখানি স্বপন– দুর্দান্ত অস্থির
লাল পেড়ে শাড়ি আর টানা কাজলের মোহ–
আমি সে কবেই করেছি পার…

বিস্তারিত»

বনের রাজা টারজান এবং আমরা

জীবনে চলার পথে পরিস্থিতি বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ভাবে ছ্যাকা দিয়েছে আমাকে , আমাদের। একলা একলা ছ্যাক এর চেয়ে দলগত ভাবে ছ্যাকা খাওয়ার পরিমাণটাই জীবনে বেশী। ছ্যাকার কোয়ালিটি একেকটা একেক রকম। একরকম ছ্যাকা আছে ” হতবিহ্বল ছ্যাকা” । যা খাবার পর মুখ দিয়ে কোন বাণী নিঃসৃত হয় না। এমনি এক ছ্যাকার দেখা পেয়েছিলাম আমরা একাদশ মান এর , ৭ দিনের শিক্ষা সফরে। সময়- ২০০৫ সাল, স্থান- ফৌজদারহাট ক্যাডেট কলেজ এর হাসপাতাল।

বিস্তারিত»

একজন অখ্যাত মহানায়কের নীরব প্রস্থান

প্রায় তিন বছর পর আজ সিসিবিতে লিখতে বসলাম। কিছু পারিপার্শ্বিক কারনে এবং কিছুটা ব্যক্তিগত কারনে ইচ্ছাকৃতভাবেই সিসিবি থেকে দূরে ছিলাম। আজ আর সেসব কারন ঘাটতে যাবনা। একটি বিশেষ কারনে আমার এই প্রত্যাবর্তন। যারা সিসিবিতে নতুন তাদের আমি অনুরোধ করব ১০/১৫ মিনিট সময় নিয়ে আমার আগের এই পোষ্টটিতে একটু ঘুরে আসার জন্য। এখানে ক্লিক করুনঃ একজন অখ্যাত মুক্তিযোদ্ধার গল্প। আশা করি লিংকটি পড়ে এসেছেন।

বিস্তারিত»

হৃদয় মেশিনগান

ওরে ওরে
তোর হাতে কিরে?
রাম’দা ? চা’পাতি ?
তুই নিবি আমার প্রান ?
হাহ, ডাশা মূর্খরে তুই,
বোধহয় জানিস না আজ-
বুকে আমার
হৃদয় মেশিনগান।

বলছিস কি?
জং ধরেছে?
৭১ এ গর্জে ছিল,
আজ মনে হয় থমকে গেছে?
বড় মূর্খরে তুই…
দেখ চেয়ে দেখ
হৃদয়খানি অস্ত্র করে,
জেগেছে আজ লক্ষকোটি প্রান।

বিস্তারিত»

পবিত্রতা

অনিন্দ্য ইমতিয়াজঃ

দেখে কে বলবে। এখন রাত সাড়ে ১০টা বাজে? রাজপুরীর মত ঝলমলে আলোয় ভরে আছে গোটা শহর। চারিদিকে মানুষের চিৎকার, চেঁচামেচি, আনন্দোৎসব। সবার মুখেই একটা খুশি খুশি ভাব। নাহ! সবাই এই কথাটা ঠিক না। কোথাও না কোথাও অন্তত একজন তো থাকবেই যে খুশি নয়। অখুশি বলবনা, কিন্তু হয়ত সে  বিষন্ন। একা একা চারিদিকে হাটছে আর নিজের প্রতিবিম্ব খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।

বিস্তারিত»