স্নানপর্ব-২

এইমাত্র স্নান সেরে
দুইহাত জড়ো করে
বৃন্তজোড়া ঢেকে
ঝর্ণা থেকে
উঠে এসে দেখে —-
নেই।
বেগ্‌নি জামাটিতো কোনোখানে নেই!

থাকবে কি করে,
নিরাবরণ ওকে নেমে যেতে দেখে
স্নানের অগুণতি দৃশ্য
পাবে বলে
বিভিন্ন কোণ থেকে
কবেই চুপিসারে বিদীর্ণ হোয়ে
খাড়া পাহাড়ের
সারা গায়ে গায়ে
অজস্র বেগুনী ফুল সেঁটে গেছে!

৩,৭৫১ বার দেখা হয়েছে

৩১ টি মন্তব্য : “স্নানপর্ব-২”

  1. সাব্বির (৯৮-০৪)

    আপনার কবিতার জন্য উপযুক্ত বিশেষন খোঁজা বেশ ঝামেলার কাজ।
    গবেষনা করার মতো কঠিনও নয় আবার একাধিক বার না পরলেও চলে না।
    আপ নাকে কী বলা যায়?
    "Turner in his 30's" or "Vermeer"??
    দুটোই আবার কোনোটাই না। এ কী উতপাত?!! ~x(

    তবে আপনার কবিতা পড়লে শুধু শুধু(কারন ছাড়া) মজা লাগে এইটা ঠিক।

    জবাব দিন
  2. পাভেল (১৯৯৩-৯৯)

    দুইভাবে কল্পনা করার সুযোগ আছে। বুঝতেছিনা কোনটা কবির উদ্দেশ্য। গায়ে থাকা জামাটাই সেঁটে গেছে শরীরে অথবা আপনার কল্পনায় ঝর্নার আশেপাশের পাহাড় সব বেগুনী ফুলে ছেয়ে গেছে। যেটাই হয়ে থাকুক একেবারে ছবির মত কবিতা :thumbup:
    'বেগিন' কি বানান ভুল নাকি এইরকম শব্দ আছে (ফারসী অনেক শব্দ নজরুলের কবিতায় আছে আজকাল আর তেমন ব্যবহার হয়না)? মনে হচ্ছে 'বেগুনী' লিখতে চাইছিলেন। আমি তাই ঠিক শিউর না।

    অফটপিক: এইমুহুর্তে সবার সাথে জয় গোস্বামীর স্নান কবিতা টা শেয়ার করার লোভ সামলাইতে পারতেছি না 🙂

    জবাব দিন
    • নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

      পাভেল,
      বেগ্‌নি হচ্ছে 'বেগুনী'-র কথ্য ফর্ম। ফুল ও জামা একই রঙের হবার কারণেই বিভ্রম সৃষ্টির সুযোগ থাকছে। 'বেগিন' শব্দটির সংগে আমার একেবারেই পরিচয় নেই, মানে কী এটার?
      আর লেখা পড়ে কল্পনার স্বাধীনতা তো পাঠকের একচেটিয়া। ভিন্ন ভিন্ন পাঠে ভিন্ন ভিন্ন আমেজ। তবে অর্ণবের কথাই ঠিক। কবিতাটা সরল-ই।

      জয়ের কবিতাটা দুর্দান্ত। অনেক ধন্যবাদ এটা আবারো পড়ার সুযোগ করে দেয়ার জন্য।

      জবাব দিন
  3. জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)

    হুম্‌, ভালো লাগলো আপনার কবিতা পড়ে। তবে, স্নানপর্ব ১ টা বেশী ভালো লেগেছিল। ওইটাতে একটা অন্যরকম সেন্স অফ পার্সোনালিটি ছিল, অন্যরকম একটা সেন্স অফ গ্র্যাভিটি ছিল। এইটাও ভালো লেগেছে, তবে কেমন যেন একটু বেশী সরল মলে হচ্ছে, আরেকটু জটিলতা থাকলে বোধহয় আরও ভাল হত। তবে সাব্বিরের সাথে আমিও একমত হব, আপনার কবিতা পড়তে খারাপ লাগে না কখনও।

    জবাব দিন
    • নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

      অর্ণব,
      আসলে যেভাবে ভাবনাটা কিংবা ছবিটা মাথায় এসেছিলো ( বা আসে) সেভাবেই তুলে ধরার প্রাণান্তকর প্রচেষ্টা ছিলো ( বা থাকে) আমার।
      জটিলতা বা সরলতা যাই বলো, যেটাই স্বতঃস্ফূর্তভাবে মস্তিষ্কে অনুপ্রবেশ করে সেটাকেই আমি ভাষায় অনুবাদ করতে চাই একটুও বেশী কিছু আরোপ না করে। পাঠক হিসেবে যখন তুমি জটিলতা আশা করছো, আর আমি সেটা দিতে পারছিনা তখন আমার শুধু এটুকুই বলার, যে, আমি এর চে' অন্যরকম কোনভাবে উপস্থাপন করতে পারিনা। ব্যর্থতা মেনে নিতে আমার এতটুকু দ্বিধা থাকেনা।

      ছবিগুলো তো নিজেরাই আসে, তারা স্বাধীন; আমার কথা শোনেনা। 🙁

      জবাব দিন
  4. ফয়েজ (৮৭-৯৩)

    :boss: :boss:

    ভাইয়া, বলতে চাইছিলাম কি, বাথরুম আর ঝর্নার স্লান-পর্ব তো হল। সমুদ্র, নদী, পুকুর আর বিল-ঝিল বাকী থাকল।

    আরও কিছু দূর্দান্ত স্নান হবে আশা করি। 😀


    পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

    জবাব দিন
  5. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)

    নূপুর ভাই,
    আপনার স্নানপর্বের কবিতাগুলা আমার কাছে অসাধারণ লাগে...
    আসলেই অসাধারণ...
    আমি আসলে আমার মুগ্ধতা বুঝাইতে পারতেসি না...
    আপনে কবি মানুষ...বুইঝা নিয়েন...


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।