ব্যাবধান

ব্যাবধান
মো ও খা ও।

বহুদিন পর পাশাপাশি
গহিনে গাহন নিরবধি
ছিল দিন উচ্ছল প্রেমে
প্রবাহমান ভরাট নদী।

পাশে বসা শুধু বসা নয়
অনন্ত কালের যাত্রা রথ,
ধাবিত অসীম অন্তরীক্ষে
খোদিত স্মৃতি অমর পথ।

প্রহর খুঁজে ফিরে আপন
স্বকীয় বলয় চেনাজানা
আকুলি মনে ব্যাকুল কথা
বিভাজন দুপাড়ে দুজনা।

যতটুকু কথা সে কথা নয়
পুঞ্জিত মেঘমল্লার মর্মধ্বনি
সহস্র দিনান্তের শব্দ মালা
গ্রন্থিত অক্ষরে কাব্য খানি।

বিস্তারিত»

আমার রাংগামাটি

আমার রাঙ্গামাটি।

আমার প্রথম রাঙ্গামাটি দর্শন নব্বই দশকের শুরুতে তরুণ বয়সে। সেটা ইয়ার বন্ধুদের সাথে কোন আনন্দ ভ্রমণ বা পর্যটন উপলক্ষ্যে নয়। আর সে বয়সে পরিবার নিয়ে নিরিবিলি ছুটি কাটানোর মত পরিবারও হয়ে ওঠেনি।

আমি রাঙ্গামাটি গিয়েছিলাম একান্তই চাকরির সুবাদে, অর্থাৎ পেটের দায়ে।

সেনাবাহিনীর পদাতিক কোরের কর্মকর্তা হিসেবে পার্বত্য চট্টগ্রামে বদলি অনিবার্য জেনেও প্রথম বদলিতে আপ্লুত হওয়ার কোন কারণ খুঁজে পাইনি।

বিস্তারিত»

এক নিশীথেই

আজকে আমার মনটা খারাপ,
মনটা খারাপ, মনটা খারাপ;
অকারণেই মনটা খারাপ!
কেন খারাপ, কেন খারাপ?
বলেছি তো, কারণ ছাড়া
অকারণেই মনটা খারাপ,
খারাপ গেল দিনটা আমার অদ্য!

তবু, মন খারাপে চিন্তা নেই,
নিদ্রা যাবো ভারী বুকেই,
পাহাড় এসে দাঁড়াবে পাশে,
ভোরের পাখি ডাকবে শাখে,
স্বপন এসে চুমিয়ে যাবে,
এক নিশীথেই বদলে যাবে
মন খারাপের পদ্য!

বিস্তারিত»

সেই বালুকাবেলায়

আমি একটা প্রার্থনার কথা বলতে চেয়েছিলাম;
মুখে বলার অভ্যেস নেই বলে লিখে রেখেছিলাম।
তুমি প্রতিদিনই সাগর সৈকতে আসো, জানতাম।
সেকথা জেনেই সেই বালুকাবেলায় লিখেছিলাম
গুপ্ত প্রার্থনাটি; চেনা সংকেতে, সেই সমুদ্রতটে।

তোমার নিঃশব্দ পায়ের আওয়াজ পাওয়ার আগেই,
উন্মত্ত জলরাশির তরঙ্গ এসে সেটা মুছে দিয়েছিল!

ঢাকা
১৯ অগাস্ট ২০২৩

বিস্তারিত»

কেমন করে পারো তুমি?

কেমন করে পারো তুমি?

আজকে দিনের এই অবেলায়
কত কিছু ঘটে গেলো,
ভাষায় প্রকাশ করতে গিয়ে
নেত্র খানি ঝাপসা হলো।

দিন তারিখের বালাই ছেড়ে
মূল্য কতো আসবে বলো,
প্রতিহিংসার দেয়াল ভেঙ্গে
সামনে এবার এগিয়ে চলো।
পাপ পূন্যের শ্যাওলা জমা
সম্পর্কের হিসাব তোলো।

আসল খানি বেঁচে দেয়া
হালজামানা চলে এলো,
সুদটা বুঝে নিতে এখন
বুক-কাঁপে-কি এলোমেলো?

বিস্তারিত»

ইচ্ছের পালক

ইচ্ছের পালক
ব্যান্ড: ফিলিংস (নগরবাউল)
কথাঃ বাপ্পী খান
সুর: মাহফুজ আনাম জেমস
অ্যালবাম: জেল থেকে বলছি
লেবেল: সারগাম

ইচ্ছের পালক দিয়ে লিখেছি নতুন ঠিকানা,
সেই পালক গুলো উড়ি দিলাম অজানায়
আহা! আহা!

শ্রাবনের বৃষ্টি কনায় মুছে যায় রাজপথ,
আকাশের কান্নাগুলো বড় অশ্রুময়,
আমি বসে আছি একা, নিঃসঙ্গতায়
আহা!আহা!

বিকেলের রৌদ্র-ছায়া কানে কানে বলে যায়
জীবনের স্বপ্নগুলো বড় গীতিময়
আমি হয়ে গেছি একা,

বিস্তারিত»

মনোক্ষুন্ন মন

মনোক্ষুন্ন মন

লজ্জা এখন হয়না লজ্জিত,
সব কিছু আজ অতি রঞ্জিত।
সত্য এখন আঁটকে গেছে ফাঁসে,
মিথ্যা এখন তুমুল প্রকাশ্যে।

সঠিক ভাষন পেটের মধ্যে পচে,
অসহায়ের দুঃখ নাহি ঘোচে।
হাসি এখন তাপদাহে ভাসে,
কান্না এখন চিৎকার করে হাসে।

শিয়ালের ঘরে মুরগি হচ্ছে জমা,
মহাকাল কি করবে মোদের ক্ষমা?
অসভ্যতা মিলছে অনায়াসে,

বিস্তারিত»

ফিক্সড! ক্যাশ এন্ড করাপশন ইন ক্রিকেট (২য় পর্ব)

বাজির সকল কর্মকাণ্ড অত্যন্ত গোপনীয় এবং জটিল নেটওয়ার্কের সমন্বয়ে গঠিত। উদাহরণ হিসেবে তাদের কর্মস্থলের কথা বলা যায়। পুলিশের চোখে ধুলো দেয়ার জন্য ভারতীয় বুকিরা সব সময় চরম বিলাসবহুল এবং ব্যতিক্রমধর্মী স্থান নির্ধারণ করে। কেউ প্রত্যন্ত গ্রামীণ পরিবেশে স্যাটেলাইট ফোনের মাধ্যমে ব্যবসা পরিচালনা করে, আবার কেউ পুলিশকে ঘুষ দিয়ে ম্যানেজ করে একেবারে স্টেডিয়ামের পাশেই অফিস খুলে বসে। আবার অনেকে আছে যারা বিলাসবহুল ফাইভ স্টার হোটেলের টপ ফ্লোরে বসে কর্মকাণ্ড পরিচালনা করে,

বিস্তারিত»

ফিক্সড! ক্যাশ এন্ড করাপশন ইন ক্রিকেট

ক্রিকেট ছিল আমার প্রথম প্রেম। ক্রিকেটের কারণে যত সময়, মেধা ও শ্রম নষ্ট করেছি সেসব অর্থনীতি বিষয়ে ব্যয় করলে এত দিনে আমি হয়ত দু’টো নোবেল প্রাইজ জিততে পারতাম। কিন্তু ইদানিং সেই প্রেমে ভাটা পড়েছে। আসলে কিছুই নেই। এর প্রথম ও প্রধান কারণ আমাদের অযোগ্য ও দুর্নীতিপরায়ন ক্রিকেট বোর্ড। এ রকম সুইসাইডাল বোর্ড ওয়েস্ট ইন্ডিজ ছাড়া পৃথিবীর কোথাও দেখতে পাওয়া যাবে না। তথাকথিত এই অভিভাবকের কারণে দেশের ক্রিকেট নিয়ে আমি ভীত ও শঙ্কিত।

বিস্তারিত»

যে প্রজেক্টটি বদলে দিয়েছিল আধুনিক তুরস্কের শিক্ষা ব্যাবস্থার মোড়

Köy Enstitüsü (Village Institute), যে প্রজেক্টকে আজকের উন্নত তুর্কী শিক্ষা ব্যাবস্থার মেরুদন্ড বলে অভিহিত করেন অনেক শিক্ষাবিদ্গণেরা। 

সালটা ১৯২৬, তুর্কী প্রজাতন্ত্র গঠনের কেবল মাত্র তিন বছর হয়েছে, তখনই এক যুগান্তকারী উদ্যোগ গ্রহণ করে আধুনিক তুরস্কের জনক মুস্তাফা কামাল আতাতুর্ক এর গঠিত সরকারের শিক্ষা মন্ত্রনালয়। প্রথমে এটি ছিলো কেবলই গ্রামাঞ্চলের শিক্ষকদের ট্রেনিং দেওয়ার একটি প্রজেক্ট; পরে এটি বৃহদাকার ধারণ করে। এই প্রজেক্টটি মূলত মার্কিন দার্শনিক তথা শিক্ষাবিদ জন ডিউই এর “উপযোগবাদী শিক্ষা দর্শন” এর উপর ভিত্তি করে সাজানো।

বিস্তারিত»

পিলখানা বিডিআর সদর দপ্তর-সর্বশেষ বধ্যভূমি।

বধ্যভূমির শব্দটির উচ্চারণ কেউ করলে প্রথমেই মাথায় চলে আসে রায়েরবাজার বদ্ধ ভূমির কথা। কিন্তু স্বাধীনতা অর্জন করার পরেও স্বাধীন বাংলাদেশের মাটিতে আরেকটি বদ্ধভূমি হবে তা কি কল্পনা করেছে কেউ? তাও আবার বিডিআর এর পিলখানা সদর দপ্তরে? ইউনিফর্ম পরিহিত নিরস্ত্র সামরিক কর্মকর্তাদের নিশংসভাবে হত্যার মাধ্যমে? একাত্তরের স্বাধীনতার পর রায়বাজারের বদ্ধভূমিতে আমরা পেয়েছিলাম অসামরিক বুদ্ধিজীবীদের লাশ আর স্বাধীনতার পরে আমাদেরকে পিলখানার বধ্যভূমিতে পেতে হলো সামরিক পোশাক পরিহিত সামরিক কর্মকর্তাদের লাশ।

বিস্তারিত»

ফাগুন মনে

ফাগুন মনে।
মো ও খা ও

পলাশ ডালে বহ্নিলালে সেজেছে দিন
আজ যে ফাগুন বনে
শিমুল শাখা আগুন মাখা রঙ অমলিন
বসন্ত বহিছে যে মনে ৷
কোকিল ভোরে কুহু সুরে উদাস বাউল
পরাণ পাগল প্রায়
শালিক চিলে নভোনীলে মনটা আউল
জোয়ার হৃদয় যমুনায় ।

হলদে শাড়ী পরনে নারী দয়িত বাসনা
উন্মনা স্বপ্ন ভাবনায়
খোপায় ফুল কানের দুল বক্ষে দ্যোতনা
হিয়া কাঁপল যাতনায়।

বিস্তারিত»

২১ (বিশ্ব মাতৃভাষা দিবস)

২১ (বিশ্ব মাতৃভাষা দিবস)
শিল্পী: বাপ্পী খান, মেহেদী, অংশু, তরুণ, দূরে ও সুমন।
কথা: বাপ্পী খান
সুর: নিয়াজ আহমেদ অংশু
সঙ্গীত: বাপ্পী খান-নিয়াজ আহমেদ অংশু-টিটো
লেবেল: সাউন্ডটেক

গর্বে আমার হৃদয় হাসে,
সুখের জোয়ার অশ্রুজলে।
বাংলা আমার মায়ের ভাষা,
বিশ্বজনীন মাতৃভাষা।
উল্লাসে আজ আকাশ কাঁপে,
দোয়েল পাখির গানে।
আমরি বাংলা ভাষা,
চেনে বিশ্বের সবখানে।

বিস্তারিত»

ছোটগল্প: আলো অন্ধকারে যাই

[এই গল্পটি মাস তিনেক লিখেছিলাম ব্লগ সূত্রে পরিচয় হওয়া (সিসিবি না) এক বন্ধুর প্রয়ান দিবসে। সেটাকে একপাশে সরিয়ে আলাদা গল্প হিসাবেও এটাকে পড়া যায়। সত্যিকার অর্থে গল্পটা লিখার জন্য আরও সময় আর মনযোগ দাবি করে। অনেককাল ধরে কিছু লিখি না বলে সবটুকু দেয়া গেল কিনা বলা মুশকিল। ভাবলাম গল্পটি আমার সিসিবির পাতায়ও থাক। সময় পেলে আবার এডিট কোরা যাবে। গল্পটিতে সময়ক্রম ইচ্ছা করেই ডিসরিগার্ড করা হয়েছে।]

বরফের কৃষ্ণচূড়া

আরেকটু উঠলেই চূড়ায় পৌঁছে যাব আমরা।

বিস্তারিত»

বিয়ে আর ভালবাসা

পুরুষ আর স্ত্রীলিঙ্গ প্রভেদ সকল প্রাণীতেই আছে,
দুয়ের মাঝে বিয়ে-বন্ধন হয় শুধু মানব-মানবীতে।
অন্য প্রাণীদের মাঝে নেই বিয়ের প্রচলন,
তাদের মাঝে আছে শুধু ভালবাসার অদৃশ্য বন্ধন।

একটি বিয়ে ব্যর্থ হলে দুটো হৃদয় পোড়ে,
প্রেমহীন শুষ্ক হৃদয় শুধু শূন্যবৃত্তে ঘোরে।
দ্বিপাক্ষিক, নিরন্তর ভালবাসায় বিয়ে পয়মন্ত হয়,
এমন দম্পতি থেকে সৃষ্ট পরিবারে সুখ বহমান রয়।

ঢাকা
২৮ জানুয়ারী ২০২৩

বিস্তারিত»