পুরোনা কিন্তু সোনালি স্মৃতি(পর্ব ২)

মনে পড়ে যায় আমাদের একনায়ক ফর্ম লীডার রনির কথা।ও যে তিন মাস ফর্ম লীডার ছিল একনায়কতন্ত্র চালিয়েছিল আমাদের ওপর।আরো মনে পড়ে আরিফ কিংবা খালেক এর জ্ঞানী কথা,আসিফ এর না বুঝেই হাসি,সাগর এর মাহিন ম্যাডামের প্রতি দূর্বলতা,অনিক এর নিজের জোকস এ নিজেই হাসা।মনে আছে একবার ক্লাস সেভেন এ রাইস স্যার ছিলেন আমাদের ফর্ম মাস্টার। এক দিন সাগরকে ধরে কি মারটাই না দিলেন।ওর ফল্ট ছিল ও মারুফকে জড়িয়ে ধরেছিল।মনে পড়ে, অনিক ঘুমটাকে একটা আর্ট এর পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছিল।ওড় একদম কাছে গিয়েও ঠিকমত না দেখলে বোঝা যেত না ও ঘুমাচ্ছে কীনা।আরেকটা মজার জিনিস হতো ক্লাসে যখন কুমিল্লা বনাম এন্টি কুমিল্লা ডিবেট হতো।

মনে পড়ে হাউসএর ১৮ জনের কথা।নানাসময়ে রুম,করিডোর অথবা কমনরুমে টেস্ট,ওয়ান ডে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট এর কথা।তমাল এর সাথে প্রায় ছয় বছর রুমমেট ছিলাম।মনে পড়ে নানা টিভি প্রোগ্রাম এর সময় ডাইনিং হল থেকে কি দৌড়টাই না দিতাম।তখন খালি চারিদিক থেকে শোনা যেত-“তোর পাশে আমি”।কেউ কোন গল্পের বই আনলে মুহূর্তেই সিরিয়াল হয়ে যেত।ভুলতে পারবোনা-“মুই তোরে কুচপাং”। চাকমা বন্ধুর কাছে থেকে শেখা একমাত্র চাকমা ভাষা।বাংলাতে যার অর্থ দাঁড়ায়- “আমি তোমাকে ভালোবাসি”

আরেকটা মজার লাইফ ছিল ক্যান্ডিডেটস লাইফ।লাইফ এ ফার্স্ট পাবলিক পরীক্ষা।সে কী পড়াশুনা,রাত জেগে পড়ার চে যেন গরম পানি করে হরলিক্স খাওয়াটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ।পড়াশুনা বাদ দিয়ে কার্ড খেলা আর কয়টা স্ট্যান্ড করবো তার হিসাব নিকাশ করা।আরেকটা মজা হতো কার রুম কত অপরিস্কার সেই কম্পিটিশন করা।তবে এই ব্যাপারে ৩৪ নাম্বার এর সাথে কেউ পারতোনা।

কখনো ভুলবোনা কলেজ এর pac-08 অথবা শেল এর কথা।কলেজে যেদিন ফার্স্ট শেল আসে সেদিন আমিই প্রথম ইডি খেয়েছিলাম।

যাবার বেলায় সবকিছুই মনে পড়ছে।আর কয়েকদিন পর আর কখনো সবাই একসাথে হবোনা।কেউবা বিদেশে চলে যাবে,কেউ যাবে আর্মড ফোর্সে, আবার কেউ ভার্সিটির রোমান্টিক হিরো হবে।এই হাউস বা রুম এ আমরা থাকবোনা আবার এগুলো খালিও থাকবেনা।আসলে জেলে থাকতে থাকতে জেলের জন্যও মায়া হয়ে যায়।তাইতো যাবার বেলায় সবকিছুই মনে পড়ে।যাবার সময় কষ্ট হবে,হয়তো কাঁদবো।তারপর ব্যস্ত হয়ে যাবো অন্য জীবনে।তাইতো এই মুহুর্তে রুম মেটের ঘুম বা পাশের রুম এর ক্রিকেট খেলাটাকেও পড় আপন লাগছে।বড় মায়া লাগছে এই বিছানা আর লকারটাও জন্যও।

৭৫৭ বার দেখা হয়েছে

৮ টি মন্তব্য : “পুরোনা কিন্তু সোনালি স্মৃতি(পর্ব ২)”

  1. প্রিন্স ভাই, আমরা এই ব্লগে লেখার জন্য বাংলা ছাড়া আর কিছু অনুমোদন করছিনা।দয়া করে বাংলা টাইপিংটা ঝটপট শিখে ফেলুন।এটা মোটেও কোন কঠিন ব্যাপার নয়।দুই একদিন প্র্যাকটীস করলেই হয়ে যাবে।

    এরপর কোন ব্লগ দিলে কাইন্ডলি সেটা বাংলাতে টাইপ করে দিন।নাহলে তা অনুমোদন করা হবেনা।ধন্যবাদ।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।