ফ্যান্টাসী লীগ- সিসিবি ম্যানেজারদের আমলনামা ০৬

ঈদের কেনাকাটা আর ঈদের আনন্দের মাঝে কেটে গেলো ফ্যান্টাসী লীগের আরেকটি হাই ভোল্টেজ সপ্তাহ। এই সপ্তাহে সব খেলাই বেশ উপভোগ্য আর গোলদায়ক হয়েছে। আর যাদের প্লেয়াররা গোল দিয়েছে তাদের তো পোয়া বারো। বিগ ফোর সবাই জয় পেয়েছে। চেলসি ৩-০ গোলে টোটেমহ্যাম কে, আর্সেনাল ৪-০ গোলে উইগান কে হারিয়েছে। অপরদিকে লিভারপুল ৩-২ গোলে ওয়েস্টহ্যাম কে আর ম্যান ইউ ৪-৩ গোলে ম্যান সিটিকে পরাজিত করেছে। এই সপ্তাহে যেমন অনেক গোল হয়েছে তেমনি আমাদের অনেকেই ঝোলা ভরে পয়েন্ট পেয়েছেন।
আমাদের সিসিবি লীগের পজিশনের দিকে এইবার তাকাই। এই সপ্তাহে ৮২ পয়েন্ট পেয়ে আবারো ১ম পজিশনে উঠে এসেছে আমাদের রুমকির বাবা, তানভীর। :thumbup: ১ম দিনেই বুঝেছিলাম যে এইবার রুমকির বাবা বাম্পার মারতে যাইতেছে। কারন ১ম দিনের খেলা শেষে তানভীর এর সংগ্রহ যেখানে ৬৭ সেখানে আমার মাত্র ১৯ 😡 । তাই ২য় দিন শেষে ওর টোটাল পয়েন্ট গিয়ে দাড়িয়েছে ৩৬৩। ২য় পজিশনে উঠে এসেছেন আমাদের গোলাপজান ভাবী। উনার সংগ্রহ ৩৫২।

শীর্ষ পজিশন থেকে ছিটকে ৩য়তে চলে এসেছে আমাদের ফ্যান্টাসী লীগ এক্সপার্ট কামরুল। তার ঠিক পরেই ৪র্থ তে আছেন সিসিবি ফ্যান্টাসী লীগ শুরু করা এহসান ভাই। উনাদের সংগ্রহ যথাক্রমে ৩৪৯ ও ৩৪১। ৫ম এ উঠে এসেছে ক্রমাগত উঠে আসা আহসান আকাশ। ওর সংগ্রহ ৩৪০।
আসুন এক নজরে দেখে নেই এইবারের তালিকা।

Fantasy-Premier-League-a-Fantasy-Football-Game-for-the-Barclays-Premier-League_1253651569795

৬ নং পজিশন ধরে রেখেছে হাসান ৩৩৩ পয়েন্ট নিয়ে। তার পরেই আছে গত সপ্তাহে ৪র্থতে থাকা হাসনাত ৩৩১ নিয়ে । তারপর আছে নীচে নামার ধারাবাহিকতা বজায় রাখা কিংকং ৩০৯ নিয়ে ৮ম এ। গত সপ্তাহে ৯নাম্বারে নেমে আসা মোস্তফা এই বারো সেই পজিশনেই আছে ৩০৮ নিয়ে। ১০ নাম্বার পজিশনে উঠে এসেছি আমি ৩০০ নিয়ে 😉 । ১ম দিন শেষে ১৯ পেয়ে আশা করি নাই ২য় দিন শেষে ৫৭ হবে। যাক অবশেষে ১০ এর ভিতর চলে এসেছি।
আরেকটি লক্ষ্যনীয় বিষয় হলো ১০ এর ভিতর ৯৪ এর আছে ৫ জন (৯৪ পাথরায়)। ১১ নাম্বারে উঠে এসেছে রকিব ২৯২ নিয়ে। একই পয়েন্ট নিয়ে ১২ নাম্বার পজিশনে উঠে এসেছেন মইনুল ভাই। আনলাকি ১৩ নাম্বারে আছে ১ম সপ্তাহে ১ম পজিশনে থাকা =)) নয়া জামাই ২৯১ নিয়ে। ১৪ তে আছে কামরুল তপু ২৮৭ এবং ১৫ তে আছে টীম champions.
ফয়েজ ভাই তার ১৯ নাম্বার পজিশন ধরে রেখেছেন ২৬৭ নিয়ে।কাইয়ূম ভাই ২১ তম তে আছেন ২৬২ নিয়ে।
আমাদের আজকের বার্থ ডে বয় তাইফুর ভাই কিন্তু এক ধাপ এগিয়ে উঠে এসেছেন ২৬ এ। এই সপ্তাহে ২ জনের নতুন আগমন ঘটেছে। তাদের জন্য রইলো শুভ কামনা।

সবশেষে আবারো বলতেই হচ্ছে, ‘৯৪ ব্যাচ পাথরায়। :party:
সামনের সপ্তাহে আবার কথা হবে, সেইম টাইম , সেইম চ্যানেল।
ততক্ষণ পর্যন্ত সবাই ভালো থাকুন, সুস্থ থাকুন। বাই বাই। (মিউজিক স্টার্ট )

১,৬৯০ বার দেখা হয়েছে

২৫ টি মন্তব্য : “ফ্যান্টাসী লীগ- সিসিবি ম্যানেজারদের আমলনামা ০৬”

  1. এহসান (৮৯-৯৫)

    কে কোথায় উঠে আশ্ছে এইগুলা তো পয়েন্ট তালিকা থেকেই দেখা যায়, কেম্নে রুমকির বাবা ফার্স্ট হইলো... মানে ভারমিঊলেন অর ডিফেন্ডার ছিলো আর অই ব্যাটা দুই গোল দিসে তেমনি টরেসরে ক্যাপ্টেন রাইখা আহসান আকাশ দান মারসে এইগুলা লেখা উচিত। জেরার্ডরে ক্যাপ্টেন রাখায় কাম্রুল ধরা খাইসে আর প্রতি সপ্তাহে ট্রান্সফের মার্কেটে পয়েন্ট মাইনাস খাইয়াও গোলাপজান ভালোই করতেসে এইসব পয়েন্ট উঠে আসা উচিত।

    ফাকিবাজি পোস্ট। আগের পোস্ট কপি পেস্ট কইরা দেয়া হইসে প্রায় 🙁

    জবাব দিন
    • আমিন (১৯৯৬-২০০২)

      এহসান ভাই, বিপদে পইড়া গেছি। আমি তো দুপা এগুলে তিন পা পেছাই।
      প্রথমদিন দেখি ১৩ থেকে ১১ তে উঠছিলাম। পরেই আবার স্পারসের দুর্ধর্ষ ফুটবলে আস্থা রাইখা নিচে। লারসেনরে টিমে রাখছিলাম সবস্বময়ে খেলে এই জন্য। এইবার সে খেলেই নাই। ফুলহাম বেকুবের মতো দু গোল খাইল উলভসের কাছে। আর বোল্টন গাধার বাচ্চা গো কথা কি কমু? জিততে পারলো না কিন্তু আমার পয়েন্টের বারোটা বাজায়া দিয়া গেলো ৯০ মিনিটের গোলে। জোন্স তো খেললো ৩০ মিনিট!!! গোল দূরে থাক গোলে শটই নিতে পারলো না। টরেসরে ক্যাপ্টেন কইরা আগাইছিলাম যা, এইসব একটু একটু অঘটনে আবার পিছায়া গেলাম।

      জবাব দিন
  2. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    আমার মেইন টিমের ৩ জন খেলে নাই। রিজার্ভ বেঞ্চে যে ৩ জন ছিল তাদের দুই জনও টিমে ছিল না। আমি দুই প্লেয়ারের পয়েন্ট ছাড়া এই সপ্তাহ কাটাইছি। কপাল। ওয়াইল্ড-কার্ড মাইরা পুরাই ধরা খাইলাম। তাও ক্যাপ্টেন ঠিকমতো সিলেক্ট করতে পারলে বাইচা যাইতাম, কিন্তু বারবার ভুল করতেছি।

    লিভারপুল আর চেলসির প্লেয়ার কমাইতে হইবে টিম থেইকা, ওগো কঠিন খেলা আসতেছে সামনে।

    টটেনহ্যামের আগামী ৩ সপ্তাহ একটু লুজ শিডিউল। লেলন, ডেফো এইগুলিরে নিতে হইবে।

    আপাতত সাম্নের সপ্তাহের জন্যে বার্মিঙ্ঘ্যামের একটা ডিফেন্ডার নিছি।


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  3. তানভীর (৯৪-০০)

    ধুর! জেরার্ডরে ক্যাপ্টেন বানাইয়া ধরা খাচ্ছি। x-( এরপর টরেসরে ক্যাপ্টেন বানামু কিনা চিন্তা করতেছি।
    সামনে দুঃসময় আসতেছে। স্টোক সিটি আর হাল সিটির খেলা খুবই কঠিন আর আমার বেশ কয়েকটা প্লেয়ার এই দুই টিমের।
    দেখা যাক, আল্লাহ ভরসা। 😀

    জবাব দিন
  4. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    এই সপ্তাহ পুরা ভাগ্যের জোরে বেঁচে গিয়েছি। আগেই বুঝতে পেরেছিলাম ঈদের আগ মুহুর্তে নেটে হয়তো সময় দিতে পারব না, তাই আগের সপ্তাহে এক সাথে দুই সপ্তাহের কথা মাথায় রেখে দল করেছিলাম, সেটা কাজে লেগে গিয়েছে। দেখা যাক সামনে কি আছে।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  5. প্রবাবিলিটির রুল বলে একটা ভালো প্লেয়ার পরপর তিনটা ম্যাচ ভালো খেলবে না, কিন্তু তিনটার মধ্যে অন্তত দুইটা ভালো খেলবে ... আমি এই রুলটা মানতেসি না, একটা প্লেয়ার এক ম্যাচ খারাপ করলেই সরায়ে দিচ্ছি; আল্টিমেটলি সে পরের সপ্তায় ভালো খেলতেসে আর আমি বাঁশ খাচ্ছি ...

    আগের সপ্তায় টরেস ছিল আমার টিমে, এই সপ্তায় বাদ দিয়ে ধরা খাইলাম ... একই কেইস হইসিল ল্যাম্পার্ডরে নিয়ে ...

    আবার নিউ সাইনিংগুলিও কাজ করে নাই এই সপ্তায় ... জনসন ফ্লপ খাইলো, আগের দুই সপ্তায় ড্রগবা ক্যাপটেন ছিল কিন্তু পয়েন্ট বেহসি আনছে রুনি, এই সপ্তায় রুনিকে ক্যপ্টেন করে দিলাম পয়েণ্ট বেশি পাইলো ড্রগবা 😀

    এনিওয়ে, আমি চেঞ্জ করলেই ধরা খাচ্ছি; তাই আগামী দুই তিন সপ্তা কোন চেঞ্জ আনবো না টীমে, দেখি কি হয় ...

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।