দিনলিপি ০৫: হাবিজাবি

১।
সিসিবি ইদানিং খুব জমে উঠেছে। নতুন নতুন লেখক, বিভিন্ন ধরনের লেখা, জমজমাট কবিতার পোষ্ট, সানা ভাই এর অসাধারন ক্যাপশন সহ ছবিব্লগ ইত্যাদি পাচ্ছি প্রতিদিন। কোন পোষ্টের কমেন্টে যেনো দেখলাম রকিবের চায়ের দোকানেও নাকি ভালো আড্ডা হয়। কোনো কারন ছাড়া আমাদের অফিস থেকে আমি, তানভীর, টুম্পা কেউই চায়ের দোকানে আসতে পারি না। আরো জমে উঠেছে ফ্যান্টাসী লীগ। প্রথম সপ্তাহে দেখলাম নয়া জামাই খুব চমকের সাথে ১ম পজিশনে, এই সপ্তাহে আবার রুমকির বাবা তানভীর ১ম। গেমস প্রিফেক্ট এহসান ভাই ২য়। মনে হচ্ছে ভালো জমবে এইবার লীগ যদি সবাই শেষ পর্যন্ত এই উতসাহ ধরে রাখতে পারে। কিছুটা কঠিন। গত বার আমি ১১তম সপ্তাহের পর আর খেলার টাইম করতে পারি নাই। দেখা যাক এইবার।

কিছুদিন নীরবে থাকার পর তাইফু ভাই আবার ফর্মে ফিরে এসেছেন সিসিবি তে। ইদানিং কাইয়ূম ভাই মনে হয় কিছু নিয়ে ব্যস্ত। সিসিবি তে একটু কম দেখি। অবশ্য উনি এই বছরের কোটা পূর্ন করে ফেলেছেন লেখার। তানভীর যথারীতি সকাল এ অফিসে এসেই সব পোষ্ট এ কমেন্ট করে। অনেকদিন জুনা রে দেখি না। মাস্ফ্যুও মনে হয় পড়ালেখা নিয়ে ব্যস্ত। আরো দেখি না কামরুললতপুকে। দিহান ভাবি শুরু থেকেই ফর্মে, এখনো আছেন। আর মইনুল ভাই কই ইদানিং?

আমিও অনেকদিন লিখি না। আবার যখন গল্প লিখবো সিউর তাইফু ভাই আর কাইয়ূম ভাই বলবে নীল কে? নীলিমা কে? অনীতা কই?

২/
সকাল ০৭১৫। ঘুম থেকে উঠে রেডি হয়ে বের হওয়া, বের হয়ে সিএনজি ওয়ালাদের প্রায় পায়ে ধরে ডাবল ভাড়া দিয়ে অফিসে আসা, তারপর কোডিং, কোয়েরি আর ডাটাবেস নিয়ে কাজ। এ এক অদ্ভুত লুপ। এ থেকে মনে হয় মুক্তি নাই। তাও চেষ্টা থাকে শুক্র, শনি তে কোথাও থেকে ঘুরে আসার। আর নাইলে সপ্তাহে ২/১ দিন ক্লাবে আড্ডা। সেটাও আবার আগামী একমাস হবে না রোজার জন্য। রোজার আগে শেষবার বসলাম কালকে।

৩/
এই সপ্তাহে ছিলো ৩ দিন ছুটি। আবার গেলাম কক্সবাজার। সমুদ্র যতো দেখি ততোই ভালো লাগে। কখনো বোরিং লাগে না। ব্যাক করার আগের রাত এ আমরা রাত ১১টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত সমুদ্রের পাড়ে বসে আড্ডা দিছি। জোস লাগছে। আর সমুদ্র আর সুইমং পুলের পানির কারনে চেহারা যেই দেখে আতকে উঠে। আরো কয়েকদিন মনে হয় লাগবে ঠিক হতে। ঈদের পর সিসিবি এর একটা কক্সবাজার ট্যুর করতে চাই। কি বলেন কাইয়ূম ভাই?

৪/
রোজার মাসে আমরা একদিন একসাথে ইফতার করবো আশা করি। সেহেরিও করা যেতে পারে উইক এন্ডে।সবার মতামত দরকার।

১,৮৮৮ বার দেখা হয়েছে

৫০ টি মন্তব্য : “দিনলিপি ০৫: হাবিজাবি”

  1. এহসান (৮৯-৯৫)
    ঈদের পর সিসিবি এর একটা কক্সবাজার ট্যুর করতে চাই।

    কক্সবাজার না, কিন্তু একটা ট্যুর হবে ইনশাল্লাহ। যাক আগে ভাগেই এত ফাল পাইরা লাভ নাই। সেহেরী
    পার্টিতে সব কনফার্ম করবো নে।

    জবাব দিন
  2. তানভীর (৯৪-০০)

    ধুর! তোর, নীল, নীলিমা, অনীতা (না থাক অনীতা না)- সব কয়টার ব্যাঞ্চাই। 😡 😡
    ফাউল- খালি ঘুরাঘুরি করস্‌- একটু গল্প লেখালেখি করলে কি হয়?
    ফ্যান্টাসী লিগে এত টিম নামাইয়া কি হইব বল...একটা টিম রাখ, ঐটা সলিড হইলেই হইব ;;;

    জবাব দিন
  3. টুম্পা (অতিথি)
    রুমকির বাবা তানভীর ১ম

    😮 :khekz:
    তানভীর, ২টা খাওয়া পাওনা হইলো!

    আবার যখন গল্প লিখবো সিউর তাইফু ভাই আর কাইয়ূম ভাই বলবে নীল কে? নীলিমা কে? অনীতা কই?

    😛
    আমি ও তাই বলি, রবিন কই? কক্সবাজারে?? :-/

    জবাব দিন
  4. তারপর কোডিং, কোয়েরি আর ডাটাবেস নিয়ে কাজ। এ এক অদ্ভুত লুপ।

    অদ্ভুত + পৈশাচিক + ভয়ঙ্কর + মজার + শান্তির

    সবগুলো শব্দই অ্যাপ্লিকেবল ডাটাবেজ নিয়ে কাজ করাতে........ আমি যখন কাজ করি, অর্ধেক সময় ডিজাইনারকে গালি দেই ( যদিও ডিজাইনারটা আমি নিজেই ) , বাকি সময়টা ডিজাইনারকে কনগ্রাটস দেই সঠিক ডাটাবেজ বানানোর জন্যে.......

    মোবাইল কোম্পানীগুলোতে কাজটা আরো ভয়ংকর হওয়া উচিত, কারণ ওখানে নিশ্চয়ই ভুলের কোন স্থান নাই.......

    সবশেষে বলব, বেশী ব্যস্ত থাকা ভাল...... এতে ছুটির দিনগুলোর আমেজ বুঝা যায়, নয়তো সবদিনই ছুটির দিন হলে মজা নাই.....

    জবাব দিন
  5. রকিব (০১-০৭)

    ফ্যান্টাসী লীগ নিয়া আর কুনু ফ্যান্টাসী করমু না, আমারে পুরা মাটির তলে গাইড়া ফেলাইছে।
    বড় হইয়া আমি সিএনজিওয়ালা হমু। 😀


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
  6. কামরুলতপু (৯৬-০২)

    ভাইয়া আমার কথা থাকাতে লেখাটা বেশি ভাল লাগল। সিসিবি তে দিনে খুবই অল্প সময় থাকা হয় সব লেখাও পড়া হয়না। নিজের নাম থাকার জন্যই কিনা এই লেখাটা চোখ এড়াল না। মাস্টার্স এর ভর্তি পরীক্ষা নিয়ে ব্যস্ত ভাইয়া। মাঝে অনেকদিন পড়ালেখা থেকে দূরে থাকার জন্য একদম হিজিবিজি অবস্থা। ধন্যবাদ ভাইয়া আমাকে মনে করার জন্য

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।