মানুষ যেনো কোরো না আমায়!

‘মানব’ ও ‘অধিকার’। এই শব্দ দু’টো কেন যেন আমায় টানে না। অনেকদিন ধরে মানবাধিকার নিয়ে প্রতিবেদন লেখা এবং বিশ্লেষন করার পরও ‘মানবাধিকার’ শব্দের কোন অর্থ মালুম হয়নি। আসলে মানবকে মানব না মনে করলে এই শব্দটির আভিধানিক অর্থ খোঁজার অর্থ আমি দেখি না। প্রায় সাতাত্তর বছর ধরে এ পৃথিবীর মানুষ অধিকারের কথা শুনে আসছে। মানবাধিকারের ঝান্ডাবাহী অনেক দেশ ও সংস্থা প্রতিনিয়তই শুনিয়ে আসছে যে মানুষের অধিকার থাকতে হবে এবং তা সমুন্নত রাখতে হবে।

বিস্তারিত»

প্রতিকার

হাত বাড়ালেই যদি মেলে
গণিকা বা গঞ্জিকা
এমন হলে খবর খারাপ
তোলা তোলে রাজ পেয়াদা।
মানি লোকের মান থাকে না
সত্য বলে বোকা হয়
ধান্দাবাজে ফন্দী খোঁজে
সাদা মগজ ধোলাই হয়।
অল্প বিদ্যা চরম ভাবে
সত্য মিথ্যা জড়িয়ে ভবে
বর্ষে শুধুই বিপর্যয়।
নইকো মোরা আলাদা কেউ
বিশ্বমানব দল থেকে
বাঁচতে এবং বাঁচাতে হবে
বিপদ থেকে বিশ্বকে।

বিস্তারিত»

বাবাদিবস নিয়ে আজ বিডি নিউজ২৪-এ প্রকাশিত আমার অপ-এড

অনেকদিন পর বিডিনিউজ২৪-এর জন্য লিখলাম। এখানকার পাঠকদের জন্যেও তুলে দিচ্ছি। দেখুন দেখি কেমন পান… 🙂

অনানুষ্ঠানিক দিবস পালন নিয়ে কথকতা

১.

বিতর্ক করা খুব ভালো, এমনকি অকারণ বিতর্কও। এটা আরও ভালোভাবে টের পাই যখনই কোনো দিবস পালিত হয়। একদঙ্গল মানুষকে খড়গ হাতে নেমে পড়তে দেখি সেই আচারের বিরুদ্ধাচরণে। এই যেমন ২১ জুন পালিত হয় বাবা দিবস হিসেবে।

বিস্তারিত»

শুভ জন্মদিন কবি

কবিতা কি?
কবি কে?
নির্মলেন্দু গুণ

সেই সুদূর শৈশব থেকে শুরু করে আজ অবধি যাদের কবিতার আবেদন আজো ম্লান হয়ে যায়নি আমার কাছে তাদের অন্যতম নির্মলেন্দু গুণ।
আজ প্রিয় কবির জন্মদিন। শুভ জন্মদিন কবিকে।
কবির পুরো নাম নির্মলেন্দু প্রকাশ গুণ চৌধুরী। ১৯৪৫ সালের ২১ শে জুন তারিখে  কাশবন, বারহাট্টা, নেত্রকোণায় সুখেন্দু প্রকাশ গুণ এর ঔরসে বিনাপানির গর্ভে কবির জন্ম হয়।

বিস্তারিত»

সহজ কথা যায় না বলা সহজে…

রোজা রেখে বিকেলবেলা কি সবার মেজাজ খারাপ? নাকি রোজার প্রথম দিন ছুটি হওয়ায় সবাই একটা হেভি ইফতারির প্রিপারেশন নিচ্ছেন? যার যে অবস্থাই হোক না কেন, চলুন, একটু আপনাদের মাথাটা খারাপ করে দেয়া যাক! 😀

1+1 = 2 সহজ একটি হিসাব, তাই না? অথচ দেখুন, একে কতটা জটিল করা যায়। i একটি জটিল সংখ্যা, যার মান √-1. অর্থাৎ i ^2 = -1 এবং অনুরূপভাবে i^4 = (i^2)^2= (-1)^2 = 1

অতএব 1+1 কে আমরা 2 না বলে,

বিস্তারিত»

সিসিবির আজকের প্রথম পাতা

আজে বাজে কাজে বেশি ব্যস্ত থাকায় আজকাল সিসিবি পড়ি মোবাইলে। এই যন্ত্রে মন্তব্য করার ক্ষেত্রে আমার কিছু সীমাবদ্ধতা আছে।যন্ত্রের ভাষা ঠিক আয়ত্ব করতে পারিনি।অল্পবিদ্যা ভয়ঙ্করী কথাটা মুঠোফোনে লিখতে গিয়ে টের পাই। আমার শব্দগুলিকে পাত্তা না দিয়ে, সে নিজের মত করে শব্দ সাজায়।মন্তব্য হয়ে ওঠে অবোধ্য। আজ ঠিক করেছি আগে সিসিবির সব লেখা গুলোর একটা জবাব একবারে দিয়ে তারপরে অন্য কাজ।
৭টি কবিতা, একটি গল্প,

বিস্তারিত»

সিসিবির ইন্টার কন্টিনেন্টাল আড্ডার প্রি এনাউন্সমেন্ট + ফ্রী কবিতা

এইটা মূল এনাউন্সমেন্ট না।
তাই এটাকে প্রি-এনাউন্সমেন্ট নাম দিলাম।
এরকম একটা অনুষ্ঠানের হোস্ট হতে CCCL-এর সক্ষমতা ও ইচ্ছার ব্যাপারে খোঁজ নিলাম।
বুঝলাম, ওরা এতে আপত্তির কিছু দেখছে না।
আজ রাতে বাকি ফর্মালিটিটা শেষ করা সম্ভব হলো না।
তাছাড়া সিসিবির দীর্ঘ্যদিনের অভিভাবক লাভলু ভাই-এর সম্মতিও এখনও নেয়া হয় নি।
ওগুলোর পর, চুড়ান্ত ঘোষণা দেবো।
আর তা খুবই শীঘ্রই।

আপাততঃ আমি যেভাবে ভাবছি,

বিস্তারিত»

পিঙ্ক ফ্লয়েড এর দেয়াল : একখানা মুভি

গানের ব্যাপারে নিজেকে আমি সর্বভুক বলেই দাবি করি.. তবুও কেউ যখন ফেভারিট আর্টিস্ট বা ব্যান্ড এর ব্যাপারে তখন আমি চোখ বন্ধ করে বলে দেই Pink Floyd এর কথা। পিঙ্ক ফ্লয়েড ইজ পিঙ্ক ফ্লয়েড। পিঙ্ক ফ্লয়েড এর নাম প্রথম শুনি পত্র পত্রিকায় আমাদের দেশের বিভিন্ন ব্যান্ড এর ইন্টারভিউএ । তখন আমি স্কুলে পড়ি আরকি। সাংবাদিকরা যখন আমাদের দেশের বিভিন্ন আর্টিস্ট দের জিজ্ঞেস করে যে দেশের বাইরে তাদের ফেভারিট ব্যান্ড কি তখন সবাই কয়েকটা ব্যান্ড এর নাম বলে..

বিস্তারিত»

আর্ট এগজিবিশন : লেসনস এন্ড টিপস্‌

এই লিখাটা আদৌ লিখবো কি লিখবো না, তা নিয়ে নিজের সাথে ভালোই যুদ্ধ করে কাটালাম বেশ কয়েকটা সপ্তাহ।
কিসের যুদ্ধ? কেন যুদ্ধ??

না লিখার পক্ষে প্রধান নিয়ামক ছিল, মটিভেশনের অভাব।
– ডাইরেক্ট ইন-ডাইরেক্ট মিলিয়ে অলরেডি ৩টা ব্লগ লিখেছি এই এক ইভেন্ট নিয়ে। সেগুলোর ট্রাফিক ও কমেন্ট দিনে দিনে কমে এসেছে। বোঝা যাচ্ছে, পাঠকরা এই এক বিষয়ে বেশী কচলানো পছন্দ করছেন না।

বিস্তারিত»

হ্যাটস অফ টু এমেক সিস্টারস – সাথে কিছু প্রস্তাব

কত কিছু নিয়েই না ব্লগ লিখার তাগিদ থাকে।
কখনো নিজের দিক থেকে আবার কখনো অন্যদের কাছ থেকেও।
অথচ এক এক সময় এমন এক একটা বিষয়ের মুখোমুখি হই যে সব তাগিদ পিছনে ফেলে সেটা নিয়েই বসে যেতে হয়।

এই রকমের একটা পরিস্থিতির মুখোমুখি হলাম আজ আবার।
বলছিলাম এমেকের বোনদের আয়োজনে আজ অনুষ্ঠিত ও আমার অংশ নেয়া “জরায়ু মুখ ক্যান্সার” সম্পর্কিত এওয়ারনেস জাগানো প্রোগ্রামটির কথা।

বিস্তারিত»

ভাল ধারাভাষ্যকার হবার কিছু দিকনির্দেশনা!

কয়েক বছর আগেও ধারাভাষ্যকারদের গুরুত্বের ব্যাপারে অনেককেই হয়ত অনেক কিছু বুঝিয়ে বলতে হত। তবে, বর্তমানে ধারাভাষ্যকারদের তারকা খ্যাতি এবং জনপ্রিয়তা এটাই প্রমাণ করে যে এখনকার দর্শকেরা এঁদের অবদানের ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন। সত্যি কথা বলতে কি- যে কোন খেলাকে আকর্ষণীয় ও উপভোগ্য করতে খেলোয়াড়, খেলার মান, মাঠের দর্শক, সম্প্রচারের পাশাপাশি দক্ষ ধারাভাষ্যকারের গুরুত্ব কোন অংশেই কম নয়, বরং কিছু কিছু ক্ষেত্রে বেশিই! বাংলাদেশে এখনো তেমন সাড়া ফেলতে না পারলেও পৃথিবীর অনেক দেশেই ক্রীড়া ধারাভাষ্যকার বেশ লোভনীয় পেশা!

বিস্তারিত»

চলমান সময়টাকে জানতে হলে ……..

আমার লেখার কিছু নেই। যশমান লিখিয়ে+বলিয়েরা কিভাবে বাংলাদেশের চলমান সময়টাকে তৈরী করছেন, তা’ রেকর্ড করে রাখার জন্য প্রথম আলো থেকে একটা সংবাদের লিঙ্ক যোগ করে নিলাম আমার ব্লগে………

সময়ের চিহ্ন

বিস্তারিত»

এখানে মূত্রদান করিবেন না

কোন এক কালে আমাদের এক শিক্ষক ছিলেন; পড়াতেন সিভিকস । তো তিনি ক্লাসে এসে প্রায়ই আমজনতার সিভিক সেন্স নিয়ে কথা বলতেন। আমরা যে তার সিভিক সেন্স বিষয়ক লেকচার উপভোগ করতাম না তা নয়। কিন্তু আমাদের জন্য বেদনাদায়ক দৃশ্য ছিলো এই যে লেকচার দিয়ে তিনি ক্লাসের কোণায় থুথু ফেলতেন থু করে।

একটি কৌতুক বলে নিই এই যাত্রা।
*** একজন চাষা আর ভদ্রলোকের তফাৎ কি?

বিস্তারিত»

বাঙলাদেশের টিভি বিতর্কের রূপ

টকশো কি এবং ক্যানো?
বাঙলাদেশের টিভি টকশো গুলোতে কি হয়?
দলীয় প্রপাগান্ডা ছড়ানো ছাড়া আর বেশি কি কিছু হয়!
এমনকি টকশোতে যারা অংশ নেন তাদের সম্পর্কে চলতি একটা নাম পর্যন্ত বাজারে চালু আছে, টকমারানী। হুমায়ুন আজাদ একদা বলেছিলেন, “বাঙলাদেশের প্রধান মূর্খদের চেনার সহজ উপায় টেলিভিশনে কোনো আলোচনা-অনুষ্ঠান দেখা। ওই মূর্খমন্ডলিতে উপস্থাপকটি হচ্ছেন মূর্খশিরোমণি।” (৫৩, প্রবচনগুচ্ছ)

এইতো ২ দিন আগের নিউজ

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মার্কিন নাগরিক ব্লগার ও বিজ্ঞানমনস্ক লেখক অভিজিৎ রায় হত্যার দায় স্বীকার করেছে আল কায়দার উপমহাদেশীয় শাখা ‘আল কায়দা ইন দি ইন্ডিয়ান সাবকন্টিনেন্ট’

বিস্তারিত»

এইবার দুই এক্সক্যাডেটের “প্রয়াস” নিয়ে পুর্নাঙ্গ ব্লগ……

১৪ মার্চ ইভেন্ট নটিফিকেশন পেলাম, প্রয়াস নামে একটা যৌথ আর্ট এগজিবিশন হবে দুই এক্সক্যাডেটের।
একজনকে চিনি, সাবিহা জিতু – কিন্তু দীর্ঘ্যদিন যোগাযোগ নাই। অন্যজন ম্যাক্স মাজেদ চিনি তো না ই, চেনার কোন সুযোগও ছিল না।

তারপরেও এই নটিফিকেশনটা আমাকে ছুঁয়ে গেল।
দারুন ছুঁয়ে গেল।
মুহুর্তের মধ্যে আমি আমার ক্যাডেট কলেজ জীবনে ফিরে গেলাম। চোখে ভেসে উঠলো কত কত অসাধারন গুনি আঁকিয়ের মুখ।

বিস্তারিত»