সিসিবিতে আমি শুধুই ক্যাডেট

সিসিবিতে এই ২০১৪ বছরটা কি দূর্দান্ত ভাবেই না শুরু হলো! প্রতিদিন এতো এতো পোষ্ট আসা শুরু হলো যে, আপডেট থাকাই কঠিন হয়ে পড়েছে- ৪ঠা জানুয়ারী ৭টা, ৫ই জানুয়ারী ৮টা, ৬ এ ৫টা, ৭এ ৩টা, ৮এ ২টা, ৯এ ৬টা। অ-নে-ক দিন পর সিসিবি বুঝি নতুন প্রাণ পেল। বহু দিন, সপ্তাহ, মাস পর সিসিবিতে এসে ভালো লাগছে, খুবই।

অন্তর্জালে বাংলা ব্লগের ছড়াছড়ি। তারপরেও সিসিবি ছাড়া আর কোথাও সক্রিয়ভাবে অংশ নেই না। ব্লগগুলো মনে হয় যুদ্ধক্ষেত্র যেখানে অধিকাংশ ব্লগার যায় জিততে, তা’ যুক্তি দিয়ে হোক, কুযুক্তি দিয়ে হোক, আর ব্যক্তি/গোষ্ঠীগত ভাবে আক্রমণ করেই হোক। আমাদের সিসিবি সেই ধারা থেকে অনেক দূরে। এর অন্যতম কারণ আমরা নামের পাশে কলেজে অবস্থানের সাল যুক্ত করে রাখি, সেই অনুযায়ী সম্মান+আদর+স্নেহ+ভালোবাসা দিয়ে আমাদের পারস্পরিক সম্পর্কগুলোকে ক্যাডেট জীবনের আবহে বেঁধে রাখি। এজন্যই সিসিবিকে নিজের বাড়ি মনে হয়। জানি, সিসিবিতে এসে বড়দের স্নেহ পাবো, বন্ধুদের ভালোবাসা পাবো, আর ছোটদের কাছে সম্মান। ২০০৯ সাল থেকে সিসিবিতে আছি, নিয়মিত। মাঝেমধ্যে নানান বিষয়ে দ্বিমত হতো কারো কারো সাথে, আবার সেটা মিটমাটও হতো ক্যাডেটদের মাঝে যেভাবে হওয়ার কথা সেভাবেই। সিনিয়র/জুনিয়র সকলেই তাদের নিজ নিজ অবস্থান অনুযায়ী সেইসব বিতর্কে অংশ নিত। ভুল বুঝতে পারলে তা’ মেনে নিয়ে ক্ষমা চাইতেও কোন কার্পণ্য ছিল না বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই, জুনিয়রদের মধ্যে, সিনিয়রদেরও। (বেশ কয়েকবার আমি নিজে সিনিয়র এবং জুনিয়র উভয়ের কাছেই ভুল বোঝার জন্য ‘সরি’ বলেছি)। ৪ঠা জানুয়ারী বন্ধু রাজীবের তারেক জিয়া সম্পর্কিত পোষ্টে এই ব্যাপারটিই আরেকবার দেখলাম। অশেষ ধন্যবাদ নূপুর ভাই আর প্রতীককে।

নূপুর ভাই বলেছেন “যে কথা বলা যাবেনা বা বলা উচিত হবেনা সেটা কাউকেই বলা উচিত নয়; আমি সিনিয়র হয়েও তোমাকে বলতে পারিনা।”- শতভাগ সহমত এই অবস্থানের সাথে। ইনফ্যাক্ট, আমি সব সময় এই অবস্থান ধরে রাখার চেষ্টা করি। তারপরেও কখনো যদি এখান থেকে বিচ্যুত হই (মানুষ হিসেবে যেটা হওয়া স্বাভাবিক), নিজের ভুল স্বীকার করতে দ্বিধ্বা করি না। গত চার বছরে সিসিবিতে এরকম অনেক দৃষ্টান্ত আছে। এটা শুধু আমার বেলায় নয়, সিসিবির অধিকাংশ সদস্যের ক্ষেত্রেই এটা প্রযোজ্য। আমাদের মাঝে বিদ্যমান এই যে অন্তরিকতা, এর মূলেও আছে আমাদের ভ্রাতৃত্ববোধ। এখানে আমরা যুদ্ধ জিততে আসি না, আসি নিজেদের মন খুলে কথা বলতে। এখানে আসি নিজের জানাটাকে প্রিয়জনদের মাঝে শেয়ার করতে, সম্ভব হলে না-জানাটাকে অন্যদের কাছ থেকে জেনে নিতে। আর একারণেই অন্তর্জালে ডজন ডজন বাংলা ব্লগের মধ্যেও সিসিবি অনন্য।

উল্লিখিত পোষ্টে সাময়িক ক্যাচালের শুরু হয়েছিল আমার একটা কমেণ্টের জের ধরে যেখানে আমি পোষ্টটিকে দলকানা পোষ্ট বলেছিলাম এবং আবেদন করেছিলাম এই ধরণের পোষ্ট সিসিবিতে নিরুৎসাহিত করতে। এর উত্তরে প্রতীক জিজ্ঞেস করেছিল- “এতো পুড়ে কেন?” আমার মনে হয়েছে তার এই মন্তব্য অশালীন এবং তাই অগ্রহনযোগ্য। কারণ, আমি ওর ১৫ বছরের সিনিয়র ক্যাডেট, যা’র সাথে বিতর্কে এভাবে কথা বলা ক্যাডেটসূলভ নয়। আর নূপুর ভাই ধরে নিলেন যে, আমি জিয়া পরিবারের সমালোচনাকে দলকানা বলে আসলে নিজেরই দলকানা পরিচয় দিছি। এরপর নূপুর ভাইয়ের সাথে মন্তব্য+প্রতি-মন্তব্যে আমাদের অবস্থান পরিস্কার হয়েছে, মতভেদও দূর হয়েছে। কিন্তু প্রতীকের সাথে একটা দ্বিমত থেকেই গেল। প্রতীক বলেছে-

এইখানে কারোর সাথে বেয়াদবি করা বা কাউকে হেনস্থা করতে আমি কমেন্ট করিনি। আমার মনে হয়েছে,আপনি অযথাই এই পোস্টকে নিয়ে বিতর্ক করছেন,তাই আমার মত করে প্রতিবাদ করেছি। এই প্রতিবাদের ভাষা আমি যতদূর সম্ভব শালীন ও সিনিয়রদের প্রতি ক্যাডেট কলেজীয় সম্মান রেখেই করার চেষ্টা করেছি। এরপরেও আপনার কাছে এটার ভাষা “বোল্ড” মনে হলে আমি দুঃখিত। তবে,আমার কমেন্টের কন্টেন্ট দ্বারা আমি আমার বক্তব্য দিয়েছি,যেইটার অধিকার এখানে আমার আছে বলে মনে করি

– প্রতীকের কাছে উল্লিখিত পোষ্ট নিয়ে আমার বিতর্ক করাটা ‘অযথা’ মনে হতেই পারে, যেকারোই এরূপ মনে হতে পারে; ফলশ্রুতিতে সে তা’র বক্তব্যও কমেন্টে প্রকাশ করতে পারে, এটা ছোটবড় সকলেরই অধিকার। এ নিয়ে আমার কোন দ্বিমত নেই। সিসিবিতে সিনিয়র+জুনিয়রদের সাথে বিতর্কে আমার উল্লেখযোগ্য সংখ্যক উদাহরণও আছে। কিন্তু আমার কাছে প্রতীকের আপ্রোচ শালীন মনে হয়নি, ক্যাডেটীয় ত অবশ্যই নয়। আমি কোনদিন ভাবতেও পারি না যে, আমার এক বছরের সিনিয়রকেও আমি বিতর্কের মধ্যে “পুড়ে কেন” বলতে পারবো, এটাকে আমার অধিকার বলে দাবী করতে পারবো। জুনিয়রদের বেলায়ও আমার একই অবস্থান। দ্বিমত করাটা যেমন ব্যক্তির অধিকার, অন্যের প্রতি সম্মানবোধ থাকাটাও একটা দায়িত্ব। অধিকার আমাদেরকে নিজ নিজ মত প্রকাশের সুযোগ দেয়, আর ভিন্নমতের প্রতি সম্মনাবোধ সেই অধিকারকে সুরক্ষা করে (তা’ সে সিনিয়র/জুনিয়র যার’ই হোক)। সিসিবি এই অবস্থানটা ধরে রেখেছে বলেই আজ সিসিবি আমাদের সকলের বাড়ি, সব ধরণের মত আর পথকে স্বীকৃতি দিয়েই। এখান থেকে বিচ্যুত হলে সিসিবি তার বিশিষ্টতা হারাতে বাধ্য। আর এটাই আমার একমাত্র কারণ প্রতীকের আপ্রোচের সমালোচনা করার। এই বিতর্ক থেকে যদি কারো লাভ হয় ত সেটা হবে সিসিবির।

সমস্ত বাঁধা-বিপত্তি পিছে ফেলে সিসিবি এগিয়ে যাক তা’র স্বকীয় বৈশিষ্ট্য নিয়ে, বেঁচে থাকুক সকল ক্যাডেটদের কাছে “নিজেদের বাড়ি” হয়ে।

পুনশ্চঃ মোকাব্বির একটা মন্তব্যে বলেছে “আর কত নিউট্রাল গীয়ারে গাড়ি চালাবেন ভাই? আর কত? জায়গা মত কথা বললেই গীয়ার নিউট্রালে ফালায় দেন।”- ভাই, আমি কোথাও প্রকাশ্যে বা অপ্রকাশ্যে দাবী করি নাই যে আমি নিরপেক্ষ। আমার সুস্পষ্ট একটা পক্ষ আছে- আমি সিসিবি’র লোক, আওয়ামীলীগ/বিএনপি/জাতীয়পার্টী/জামাত/কম্যুনিষ্ট কারো না। সিসিবিতে আমি শুধুই ক্যাডেট। আর তাই কোথাও সিসিবি’কে এইসব দলীয় প্ল্যাটফরমের মতো দেখলে আমার “পুড়ে/লাগে” (এখানে একচোখ টিপার ইমো হবে)।

১,৪৬৭ বার দেখা হয়েছে

১১ টি মন্তব্য : “সিসিবিতে আমি শুধুই ক্যাডেট”

  1. নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

    যে পোস্ট নিয়ে আলোচনা তার লিঙ্কটা জুড়ে দিলে পারতে।
    আমার মতে, সিসিবিতে কেউ যদি তার দলের কথা বলেই -- সেটা রাজনৈতিক বা অন্য কিছু তাহলে সমস্যা কি। সবাই তো কোন না কোন পক্ষের। রাজনীতি -- আর তার পক্ষ-বিপক্ষের কথা এত অচ্ছ্যুত হবে কেন?
    আর কোন পক্ষের লোক না হয়েও মানুষ সময়ে যে কোন দলের পক্ষে বা বিপক্ষে কথা বলতে পারে তো, তাই না? যদি 'দলকানা' পোস্ট হয়েই থাকে তাহলে যে এটাকে দলকানা মনে করছে (এক্ষেত্রে তুমি) তার সেই পোস্টকে দলকানা ট্যাগ করে নিরুৎসাহিত করাই যথেষ্ঠ, নয় কি?পুরো সিসিবিকে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে তা করতে হবে কেন। রাজীবের পোস্টটির কথাই যদি ধরি, সেটি কি সিসিবির পরিবেশ এতটাই খারাপ করলো যে, এধরণের কথা আর বলাই যাবেনা -- আজকের প্রেক্ষাপটে খুব অপ্রাসঙ্গিক ওর ব্লগটা? তোমার মনে হলেও আমার মনে হচ্ছেনা একটুও। ব্লগে কি তাহলে সব বলতে পারবো, কিন্তু ভাসুরের নাম নিতে পারবনা পাছে দলকানার ট্যাগ লেগে যায়?
    রমিতভাইও তো জিয়াপ্রশস্তি নিয়ে বসেছিলেন - আমার তো মনে পড়ছেনা তাঁকে কেউ 'দলকানা' বলেছিলো -- যদিও অনেক আক্রমণের মুখে পড়েছিলো সেই ব্লগটি।

    জবাব দিন
    • প্রতীক(২০০৫-২০১১)

      এইখানে কোন মন্তব্য করার ইচ্ছে হচ্ছিলো না,তবে যেহেতু আমার নাম ৪/৫বার এই পোস্টে আসছে,কিছু না বলেও উপায় নেই।আমি আমার অবস্থানে পরিস্কার।কারোর কাছে আমার প্রমাণের কিছুই নেই।এরপরেও আপনার খারাপ লাগলে আমি দুঃখ প্রকাশ করেছিলাম।ক্যাডেট কলেজের ৬ বছরে বহুবার বিনা অপরাধে সরি বলা,ইডি খাওয়া এমনকি প্যারেন্টস কল খাওয়ার ও অভিজ্ঞতা আছে।যেহেতু আপনি আমার সিনিয়র,তাও আবার ১৫ বছরের,অপরাধ করে থাকলে,অথবা না করলেও আপনার কাছে হাজারবার মাফ চাইতেও আমার দ্বিধা নেই,বা ছিলোও না।কিন্তু ভাই,আপনি যেইটা করতেছেন,সেইটা আমার কাছে মোটেও ম্যাচিওর বলে মনে হচ্ছে না।
      উপরোক্ত কমেন্টের ভাষা বোল্ড হয়ে থাকলে আমি দুঃখিত।


      যাহা বলিব,সত্য বলিব,সত্য বৈ মিথ্যা বলিব না

      জবাব দিন
  2. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)
    যদি 'দলকানা' পোস্ট হয়েই থাকে তাহলে যে এটাকে দলকানা মনে করছে (এক্ষেত্রে তুমি) তার সেই পোস্টকে দলকানা ট্যাগ করে নিরুৎসাহিত করাই যথেষ্ঠ, নয় কি?

    নূপুর ভাই,

    সেটাই ত করেছিলাম, শুধুমাত্র পোষ্টটাকে দলকানা বলেছিলাম। আর তাতেই প্রতীক অশালীন প্রতিবাদ জানিয়ে দিল। আর আপনিও তাকে সমর্থন দিলেন! !! পুরো সিসিবি'কে কখন দলকানা বলেছি? দেখাতে পারলে বলবেন, ভুল স্বীকার করতে দ্বিধ্বা করব না এক মুহুর্তও।

    আর রমিত ভাইয়ের জিয়ার প্রশস্তি-গাওয়া পোষ্ট অনেক আক্রমণের শিকার হয়েছিল মনে করিয়ে ভালোই করেছেন। আচ্ছা, বলেন ত' তাইলে রাজীবের পোষ্টকে আমি দলকানা বললে সমস্যাটা কোথায়? আর আমি এইটাও ব্যাখা করেছি কেন এটাকে দলকানা বলেছি। আমার যুক্তি আপনাকে মানতেই হবে, এমনটা আমি কখনোই আশা করি না। এইটাও আশা করি না যে, আমার রাজনৈতিক মত/পথও অনুসরণ করতেই হবে। কারণ, সেটা হবে ফ্যাসিবাদের বাস্তব প্রতিফলন। বিরুদ্ধ মতের সাথে আমি যুক্তিপূর্ণ বিতর্ক করবো পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধ নিয়ে, একটা সমাধানে পৌঁছাবো- সেটা মতৈক্য বা আরো দ্বিমত যা'ই হোক।

    যা'র যা'র ভাসুরের নাম সেই সেই নিক, তা'তে আমার ব্যক্তিগত ভাবে কোন আপত্তি নেই, থাকা উচিতও নয়। কিন্তু একজন ক্যাডেট হিসেবে সিসিবি'কে যেহেতু "নিজেদের বাড়ি" মনে করি, তাই সেখানে আরেকজন তার পছন্দের ভাসুরের নাম জপ করলে ত' সমস্যা। সেটা আওয়ামী ভাসুর হোক, বিএনপি ভাসুরই হোক। এই ব্লগে ঠিক একথাটাই বলতে চেয়েছিলাম। বলতে চেয়েছিলাম যে, ক্যাডেটদের বাড়ি হিসেবে সিসিবি'র একটা স্বকীয় বৈশিষ্ট্য আছে অন্যান্য বাংলা ব্লগের থেকে, কারণ এখানে আমরা ক্যাডেট কলেজের আবহের মধ্যে থাকি। কথাগুলো মনে হয় ঠিক বোঝাতে পারলাম না।

    কি আর করা।......বিতর্কের মধ্যে কাউকে যদি মনে আঘাত দিয়ে থাকি, সে সিনিয়র, জুনিয়র যে'ই হোক, তার কাছে আমি ক্ষমা প্রার্থী।

    শুভ ব্লগিং।


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন
  3. শাফি (০৬-১২)

    অপ্রাসঙ্গিক মন্তব্যঃ বাঙালী প্রথম প্রেমের প্রেমিকের ন্যায় হুদাই ফালাফালি করা একটা জাতিতে পরিণত হয়েছে। আমরা "কাজ নয় কথা" (এফসিসি নো অফেন্স প্লিজ) নীতিতে বিশ্বাসী।


    তোমাকে সালাম ^:)^

    জবাব দিন
  4. শাহীন (৯৬-০২)

    এটা আমার সম্পূর্ন ব্যক্তিগত অভিমত।
    রাজনীতি এমন একটা জিনিস যেখানে চাইলে হাজার দ্বিমত পোষন করা যায়।
    তাই যে যার অভিমত প্রকাশে স্বীমাবদ্ধ থাকলে দ্বীধাদ্বন্দ হবার সম্ভাবনা কম থাকে।


    The Bond Cadet

    জবাব দিন
  5. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    অনেকদিন সিসিবিতে এমনকি অনলাইনেই সেইভাবে সক্রিয় না। আর অনলাইনে যতক্ষণ থাকি ততক্ষণ ফেবুতে খালি সার্কাস দেখি। এখন সার্কাসের হাওয়া সিসিবিতে লাগুক সেটা আমি চাই না। তবে ভাসুরের নাম মুখে নেয়ার মত রাজনীতি ধর্মরে ট্যাবু বানাইয়া (বহুত ফেবুর কমুনিটিতে দেখি) সেইটা নিয়া কিছু কওন যাইবো না এই ব্যাপারগুলো অস্বাস্থ্যকর লাগে।
    তবে স্পেসিফিক ব্যাপারটা যেহেতু আমি জানি না আপাতত কিছু বলতে পারছি না, পরে ডিটেইলস মন্তব্য করবো।

    তবে অনেস্টলি বলি ড রামিত আজাদ সাহেবের সার্কাস দেখে আমি এত বিরক্ত হওয়ার পরেও কিছু বলি না শুধু ক্যাডেটিয় সিনিয়র জুনিয়রির জন্যই।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।