আমিও লিখলাম অনুকবিতা কিংবা হাবিজাবি

সবাই কবিতা লেখে। কেউ বড় কবিতা আবার কেউ অনু কবিতা। ভাবলাম আমিও চেষ্টা করি। কাজ হইলো না। তবে চেষ্টা একেবারেই বৃথা গেছে বলা যাবে না। বরং কয়েকটা সংগ্রহ করতে পারছি।
সংবিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ: এইগুলা একটাও আমার লেখা না

১। আমি লিখলাম সম্ভাবনা 😡
তুমি পড়লে সম্ভব না। =((

(ইস্তেকবাল ভাই নামে একজন বড় ভাই ছিলেন। আমরা যখন আবৃত্তি সংগঠন করি তিনি তখন স্বরিত নামের একটি সংগঠনে কবিতা পড়তেন। লিখতেনও। আমাদের সময়ে এই পিচ্চি কবিতাটা মোটামুটি জনপ্রিয় হয়। বহুদিন পর মনে পড়েলা।)

২। এই বার একটা শের শায়েরি
ম্যায় তুজকো দিল দিয়া নাদান সামাজকে
তু মেরা দিল খা লিয়া বাদাম সামাজকে :((

(প্রেমিকারা কতো নিষ্ঠুর :gulli:

৩। যাচ্ছো যাও ফোবানা
কিন্তু কারো সঙ্গে শোবানা 😮
(এইটা দন্তস্য রওশন ভাইয়ের লেখা, কিন্তু অপ্রকাশিত। ফোবানা কি সবাই জানেন। এইটা হইলো যুক্তরাষ্ট্রে থাকা বাঙ্গালিদের দলাদলির একটা বিষয়। কে যাবে আর কে যাবে না এইটা নিয়া অনেককিছুই হয়। )
৪. **কিতে ঝিলিমিলি
আকাশেতে পাও
যে কাজ পারো না বন্ধু
কেন করতে যাও? :no:
(এইটার বিশাল এক গল্প আছে। গল্পটা বলি……জরুরী অবস্থার সময়কার ঘটনা। ডেইলি স্টারে যেদিন লাত্থি দেওয়ার ছবি ছাপা হলো সেই রাতের ঘটনা। কার্ফু, সাংবাদিক পেটানোসহ অনেককিছুই হলো। আর হলো ছবি যে তুলেছিল সেই ফটো সাংবাদিকের ঘুম হারাম। রীতিমত ঝড় গেলো ডেইলি স্টারের উপর দিয়ে। প্রথম আলোও বাদ গেলো না, কেননা মূল ছবিটা প্রথম আলোর এক ফটো সাংবাদিকের তোলা। ছবিটা ছাপা হওয়ার পর বিকাল পর্যন্ত ডেইলি স্টারের লম্ফ ঝম্প দেখা গেলেও সন্ধ্যায় তারা চুপসে গেলো। শুরুতে তাদের ধারণা ছিল বড় একটা কাজ করছে তারা। পরে বুঝলো গন্ডগোলটা কোথায়?
তখন প্রথম আলোর এক রসিক সংবাদকর্মী চার লাইনের এই ছড়া লিখে উপহার দিলো ডেইলি স্টারকে। সেই ছড়া ডেইলি স্টার কপি করে সবাইকে বিলি করেছিল।
তারপর হলো প্রথম আলোর আলপিন কাহিনী। ক্ষমা চাওয়া, গ্রেপ্তারের ভয় এবং বিখ্যাত সেই হাত মেলানো- অনেক কিছুই হল। এইবার সুযোগ পেলো ডেইলি স্টার। তারা সেই ছড়া ফেরত পাঠালো প্রথম আলোকে।
তারপর থেকেই সেই ছড়া প্রথম আলোর কাছে। কাউকেই দেওয়া যাচ্ছে না। ছড়াটা নিয়া এখনো বসে আছে প্রথম আলো। কাকে দে দেয়?)

৫,৬০১ বার দেখা হয়েছে

৫৭ টি মন্তব্য : “আমিও লিখলাম অনুকবিতা কিংবা হাবিজাবি”

  1. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    ব্যাপক উৎসাহ পাইয়া আমিও একটা লিখলামঃ

    তুমি আমার :just: ফ্রেন্ড , আমার খুব dear
    আমাকে রেখো তুমি হৃদয়ের near

    আরে মিলছে তো 😉


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  2. টিটো রহমান (৯৪-০০)

    অন্যের টা যখন দিলেনই বস তাইলে আমিও কয়টা দেই

    ১.
    আগে অনেক ফুল কিনিতাম
    এখন অনেক ডাল কিনি
    খুব সুখে আছ তুমি
    মাদারীপুর কালকিনি

    ২.
    আপামনি দয়া করে খোপা বাধবেন
    দূর থেকে মনে হয় বনলতা সেন

    ৩.
    .................সাদিয়া
    ভালবাসা নাইবা দিলি
    ফুলের দামটা যা দিয়া


    আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই

    জবাব দিন
  3. শওকত (৭৯-৮৫)

    তুমি আমার :just: ফ্রেন্ড , আমার খুব dear
    আমাকে রেখো তুমি হৃদয়ের near
    অন্য কাউকে পেয়ে গেলে
    change করবো gear
    এক সাথে খাবো beer?
    কথাটা কি clear?
    তারপর আমি হবো বাঘ
    তোমারে বানাবো deer 😀

    জবাব দিন
  4. রবিন (৯৪-০০/ককক)

    তুমি আমার :just: ফ্রেন্ড , আমার খুব dear
    আমাকে রেখো তুমি হৃদয়ের near
    অন্য কাউকে পেয়ে গেলে
    change করবো gear
    এক সাথে খাবো beer?
    কথাটা কি clear?
    তারপর আমি হবো বাঘ
    তোমারে বানাবো deer
    তখন তুমি ফেলোনা Tear

    জবাব দিন
  5. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    ওক্কে নেক্সটঃ 😀

    আমাকেও নাও সখি
    আমি বড় একাগো,
    তুমি ছাড়া সোজাপথ
    লাগে বড় বাঁকাগো । 😉

    ধন্যবাদ। :hatsoff:


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  6. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    পরবর্তীঃ

    আমি ছিলাম লালগুড্ডি
    তুমি বাঁশের লাটাই
    ও প্রিয়া তুমি কোথায়?
    একলা দিন কাটাই 🙁


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  7. মাহফুজ (৯২-৯৮)

    ১৫৬৬ তম পোস্ট - আমার ক্যাডেট নম্বরও ১৫৬৬। ইচ্ছে ছিল ১৫৬৬তম পোস্ট আমি দিব 🙁
    তবে শওকত ভাইয়ের এই সুন্দর পোস্ট পড়ে নিজের বেশ খুশী খুশী লাগতেছে। :awesome:

    জবাব দিন
  8. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)

    রেটিং, তারপর প্রিয়তে.........

    এই পোষ্টটা আজ আমার সকালটাই বদলে দিয়েছে।

    শওকত ভাইকে আগে :salute:

    তারপর বিচ্ছুগুলার জন্য ...নাহ, এখন থাক। ক্লাস থেকে আসি আগে।

    ..................আবার ক্লাস! :grr: :grr:


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।