জয়তু ক্রিকেট!জয়তু বাংলাদেশ!!

৯৩ বলে দরকার ৬৬ রান,হাতে ৬ উইকেট। পরিসংখ্যান,পরিস্থিতি নিয়ে মাথা ঘামালে প্রবল সন্দেহবাতিক লোকও জয় মেনে নিতে বাধ্য! কিন্তু খেলাটা যে ক্রিকেট,সে যে মহান গৌরবময় অনিশ্চয়তার খেলা! ভাগ্যবিধাতাও যেন মুচকি হাসছিলেন একটু পরেই মানবসম্প্রদায়কে নাচানোর জন্য! নাহ,এত বিশাল শব্দ ব্যবহার করা ঠিক হয়নি। মানবসম্প্রদায় বলতে তো আমরা ‘কিছু-কতিপয়’ বাঙ্গালী-ই! কিন্তু ১৬ কোটি বাঙ্গালী একসাথে খেললে ঠেকানোর সাধ্য কার??

হাহ! এরপরই কাহিনীর শুরু। অবাক স্লগসুইপ খেলে চলে গেলেন সাকিব,তারপর আউটসুইং এর পসরা মেলে ব্রিটিশ পেসাররা তুলে নিল আরও তিন উইকেট। রানের সাথে পাল্লা দিয়ে বল কমতে থাকল। ৫৮ বলে দরকার ৫৮ রান,হাতে ২ উইকেট! একে একে সবাই টিভিরুম থেকে চলে যাচ্ছে। কিন্তু আমি ভাবছিলাম, মিরাকল চাই,আল্লাহ প্লিজ কিছু একটা কর!!….শেষ পর্যন্ত তাই হল, কিন্তু এভাবে যে হবে কল্পনাতেও আসেনি!

মাহমুদুল্লাহর চারে জয় এলো। মুহূর্তেই বিজয় মিছিল করতে করতে টিএসসি গেলাম। সেখান থেকে শার্ট খুলে ঘুরাতে ঘুরাতে রিকশায় চড়ে গোটা ভার্সিটি এলাকা চক্কর দিলাম। এমন অনুভূতি প্রতিদিন আসেনা।। এজন্য ধন্যবাদ পুরো ক্রিকেট দলকেই। টিম এফোর্টেই এই জয় এসেছে। তবে কিছু কথা থেকেই যায়….

নায়ক সবাই হয় না, আবার একবারের নায়ক সবসময় ‘নায়কোচিত’ কাজও করে না।।..এই বিশ্বকাপে ২টা ম্যাচেই যার নায়কোচিত অবদান,তার নাম না বললেও সবাই বুঝে নিবেন আশা করি! হুম,ঠিক ধরেছেন……পোলা তো নয়,সে যে আগুনেরই গোলা, ২১ বছর বয়সী সুকান্তের কল্পনার সেই তরুণ-শফিউল ইসলাম!

পাম কী বেশি দিয়ে ফেললাম? মোটেও না,সে এই প্রশংসার যোগ্য। পরপর দুই ম্যাচে সে যেভাবে দলকে ম্যাচে ফিরিয়ে এনেছে, তাতে এই অল্প বয়সে সে যথেষ্ট প্রজ্ঞা আর বীরত্বের সাক্ষর রেখেছে। প্রাণভরে আমি তার উজ্জ্বল ক্যারিয়ার কামনা করছি। বাংলাদেশের জন্য সাকিব,তামিম ছাড়াও আরও ম্যাচ উইনার দরকার ছিল,শফিউলের মধ্যে সে গুণ আছে।

সমালোচনার আছে অনেক কিছু। কিন্তু আজ সমালোচনা নয়। বিশেষজ্ঞরাই তা করুক। আমরা সাপোর্টার,আমাদের কাজ দলের পাশে থাকা। আসুন আমরা এই দলকে সাপোর্ট দেই, শুধু জয়ের সময়ই না, সবসময়ই! ওরাই আমাদের সেরা, ওরাই আমাদের ভরসা। বিশ্বে আমাদের যতটুকু খ্যাতি, ক্রিকেট থেকেই বেশি প্রাপ্ত। তাই বিপদে আপদে আসুন আমরা তাদের পাশে থাকি।

১,১৯২ বার দেখা হয়েছে

১০ টি মন্তব্য : “জয়তু ক্রিকেট!জয়তু বাংলাদেশ!!”

  1. রায়েদ (২০০২-২০০৮)

    কলেজে থাকতে আমার এক বন্ধু বলেছিল আমি নাকি অতি আশাবাদী। কারণ নিশ্চিত হার জেনেও আমি জয়ের আশায় শেষ পর্যন্ত বসে থাকি। খেলা শেষ জেনেও আমি চ্যানেল পরিবর্তন করতে দেই না। কালকে ছিল আমার মত অতি আশাবাদীদের জন্য আরেকটি আনন্দের দিন। যারা ৮ উইকেট পরে যাওয়ার পর stadium থেকে বের হয়ে গিয়েছিল তাদের কথা ভেবে মজা লাগছে।
    =)) =))

    ৮ উইকেট পরার পর আমার মনের মধ্যে প্রথম যেই কথা তা এসেছিল তা হচ্ছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ এর একবার ৭০ এর উপর রান দরকার ছিল। হাতে ছিল ২ উইকেট। বল ছিল ৯০ এর কাছাকাছি। এই ইংল্যান্ডের সাথেই। চ্যাম্পিয়নস ট্রফির ফাইনালে। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ম্যাচ টা জিতেছিল।

    আবার নিউজিল্যান্ডএর ও এরকম ম্যাচ জেতার রেকর্ড আছে। শ্রীলংকা ও কয়েকদিন আগে এই নবম উইকেট জুটিতেই ম্যাচ জিতেছে। এখন বাংলাদেশ ও সেখানে যুক্ত হলো।

    গত ম্যাচের ৫৮ রান কলঙ্ক নিয়ে এসেছিল। এই ম্যাচ এ ৫৮ রান গৌরব নিয়ে এলো।

    কালকে রাত থেকে বারবার সিসিবি তে ঢুকছি শুধু এই ব্লগটার জন্য। ধন্যবাদ আছিব ভাই।

    জবাব দিন
  2. রেজওয়ান (৯৯-০৫)

    আমরা তোমাদের পাশে আছি......
    শুধু জয়ের আনন্দে নয়, পরাজয়ের বেদনাতেও......

    সমালোচনার আছে অনেক কিছু। কিন্তু আজ সমালোচনা নয়। বিশেষজ্ঞরাই তা করুক। আমরা সাপোর্টার,আমাদের কাজ দলের পাশে থাকা

    :clap: :thumbup:

    জবাব দিন
    • আছিব (২০০০-২০০৬)

      ধন্যবাদ ভাই।
      এখন লেভেল-৪,টার্ম ১ এ আছি। ৩য় সপ্তাহের ক্লাস চলছে।
      ব্লগে ঢুকি,টুকটাক পড়ি,আবার বের হয়ে যাই।

      একদম খোলাখুলিভাবে বলছি ভাই, ব্যস্ততা আসলে থাকেই। দরকার হল ব্যালান্সের। ব্লগ পড়াটা ৩০মিনিটের মধ্যে শেষ করা যায়। কিন্তু লিখতে গেলে সময় বেশি লাগে। টিউশনি করছি, GRE দিব বলে ঠিক করেছি তাই কোচিং করছি, গজগজ করে আবোলতাবোল সব শব্দ মুখস্থ করছি, এদিকে ফাইনাল ইয়ারের থিসিস এর জন্য গুগলিং করি......নরমাল পড়াশুনার কথা আর না-ই বললাম। এসব কারণে ভার্চুয়ালি একটু ইন্যাক্টিভ আছি।

      দোয়া করবেন ভাই,.....যত চিন্তা সব আগামী নিয়ে 🙁

      জবাব দিন
  3. আমরা যদি আবেগটাকে extremism এর পর্যায়ে না নিয়ে যাই, তাহলে পৃথিবীতে বোধহয় আমাদের মতো অন্তপ্রাণ সমর্থক খুব কমই আছে।
    শেষ কথা একটাই, ঘটন-অঘটন যাই হোক, বাংলাদেশের পাশেই আছি।
    সাব্বাশ বাংলাদেশ!!

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।