কোন এক প্রেমিকের তরে তার মৃত প্রেমিকার চিঠি………

** মাহমুদ ফয়সালের ক্রমাগত দারুণ দারুণ চিঠি পড়ে এই লেখাটা শেয়ার করতে ইচ্ছা হলো । এই লেখা উৎসর্গ প্রেমিকা হারানো প্রেমিক পুরুষ এবং আমার মত ট্রাজিক ফ্যান্টাসিতে ভোগা সকল দুঃখবিলাসিদের ।

বাদল,
কেমন আছ জানতে চাই না, শুধু জানতে চাই , তুমি কি দেখতে পাও তোমার কথা ভেবে আমার বুকের ভেতর বয়ে চলা কষ্টের নীল স্রোতধারা। তোমার কথা ভেবে আমার দিন শুরু হয় আর শেষ হয় তোমার কথা ভেবে। আর দিনের হিসাব করছি কেন? এখানে তো দিন নেই,নেই রাত । এখানে সময় নেই , সীমা নেই, আছে শুধু অসীমের মাঝে ছুটে চলা। সেই অসীমের দৃষ্টিসীমায় আমার চোখের দৃষ্টির মাঝে জেগে থাকো তুমি। আমাকে হারিয়ে তুমি যখন তোমার ঐ নীল চোখকে ভেজা স্যাতস্যাতে করে অশ্রু বর্ষণ কর তখন আমার হৃদয়ের চাপা কান্না মিশে যায় শরতের নীল আকাশের দু পশলা মৃদু বৃষ্টিতে। যখন তুমি আমার বিরহে মুখ কালো করে নির্জন নিস্তব্ধ রাতে বসে থাকো একা একা তখন আমি রাতের কালো আকাশ হয়ে তাকিয়ে থাকি নিষ্পলক দৃষ্টিতে। তোমার নীল চোখের তারা রাতের আকাশের তারাদের সাথে মিশে গিয়ে আমাকে খুজে। কিন্তু তুমিই বলো রাতের আকাশের তারারা কি খুজে পায় আকাশকে যার মাঝে তার বসবাস? তাই তো তুমিও আমাকে খুজে পাও না কেননা, আমার হৃদয় তো বাস করে তোমার মাঝেই। তুমি যখন কোন এক বিষন্ন অপরাহ্ণে আমার স্পর্শ অনুভবের ব্যাকুলতা নিয়ে আমার পরশ পাবার চিন্তায় তোমার ব্যালকনিতে বসে থাক আমি তখন মৃদু হাওয়া হয়ে তোমাকে ছুয়ে যাই। চলে যাই দুরে আবার তোমার পরশ পেতে ছুটে আসি। সত্যি করে বল, তুমি কি পাওনা আমার হৃদয়ের ছোয়া?তোমার কষ্ট আনন্দে সবসময়ই আমি তোমার সাথে আছি। তুমি কি আমাকে খুজে পাওনা; কোন পঞ্চমীর রাতে যখন তুমি আমার ভালবাসার ছোয়ায় ব্যাকুল হয়ে খুশিতে মনটাকে ভিজিয়ে তোল তখন তো আমি তোমার দিকে তাকিয়ে হাসি বাকা চাদটার মাঝে হারিয়ে গিয়ে। আর কোন গোধূলিতে যখন তুমি তোমার মনের তুলিতে সযতনে বারে বারে সাজাও আমার মুখচ্ছবি তখন আমি গোধূলি সূর্যের মত রাঙা লালা হয়ে যাই লজ্জায়। আর তোমার বিষন্নতাভরা দুপুরে আমি তোমার পাশে বসে থাকি তোমার চারদিককার ভয়াবহ নির্জনতা হয়ে। দুই ভুবনের বাসিন্দা হয়েও তো আমরা আলাদা হয়ে যাইনি, যাব না। মরণে জীবনে মিশে থাকব একে অন্যের মাঝে।

তোমারই
বন্যা

৭,৩৩৮ বার দেখা হয়েছে

৩৫ টি মন্তব্য : “কোন এক প্রেমিকের তরে তার মৃত প্রেমিকার চিঠি………”

  1. মাহমুদ ফয়সালের ক্রমাগত দারুণ দারুণ চিঠি পড়ে এই লেখাটা শেয়ার করতে ইচ্ছা হলো

    :shy: :shy: :shy:
    কেমুন য্যান লজ্জা লজ্জা লাগে ...

    ভাই, পুরা সাহিত্যিক প্রেমিকা... প্রত্যেকটা লাইন লেখার আগে ইমোশনের বালতিতে ডুবায়া নিছে মনে হইলো 😀

    জবাব দিন
  2. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    কাম সারছে। প্ল্যানচেট আসে ক্যান? ভয় পাই।
    এই লেখাটার প্রেক্ষাপট আমি একটু বলি, সেটা হলো, আমাদের এক বন্ধু কলেজে থাকতে নিজেই নিজের কাছে চিঠি লিখত মেয়ের নাম দিয়ে আবার পোস্টও করত। সবাই তার প্রেম পত্র দেখতে গিয়ে প্রেমিকার হস্তলেখা তার সাথে বিরাট মিলে যায়। এই ব্যাপারটা আমাকে বেশ মজা দেয়। আমি লেভেল আরেকটু আপ করে মৃত প্রেমিকার তরফ থেকে চিঠি আমদানি করি। সে চিঠি ডাকে পোস্ট করা না হলেও সিসিবিতে পোস্ট করার সাহসটুকু দেখানো ই যায়। 😀 😀 😀

    জবাব দিন
  3. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)
    এই লেখা উৎসর্গ প্রেমিকা হারানো প্রেমিক পুরুষ এবং আমার মত ট্রাজিক ফ্যান্টাসিতে ভোগা সকল দুঃখবিলাসিদের ।

    আমরা লিস্টিতে নাই দেখি 😀
    তয় চিঠি সেইরকম রোমান্টিক হইছে :thumbup: :thumbup:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  4. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    চমৎকার লেখা আমিন ...... :boss: :boss: :boss:
    তবে কেমন জানি প্রেমিকের প্রতি মৃত প্রেমিকার চিঠির চাইতে জীবিত প্রেমিকের প্রতি জীবিত প্রেমিকার চিঠি (যেখানে পরিস্থিতির কারনে দুজনকে দুপথে চলে যেতে হয়েছে), সেই রকম লাগল।

    জবাব দিন
  5. ফয়েজ (৮৭-৯৩)

    আহারে নীল হলুদ খামের চিঠি। কত্তদিন চিঠি পাইনা? পিওন আসে না বাড়িত? হালার খালি খটোমটো মেইল পড়ি :thumbdown:

    চিঠি পাংখা হইছে। :thumbup:

    সিসিবিতে দেখি চিঠি সপ্তাহ শুরু হই গেছে B-)


    পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

    জবাব দিন
  6. সামি হক (৯০-৯৬)

    এখন খালি ব্যাংকের চিঠি পাই আর নাহলে এই বিল সেই বিল...বউ রে বলতে হবে চিঠি লিখতে তারপর তা পোস্ট করতে।

    আমিন তোমার ব্যান চাই মিয়া এখন চিঠি পাবার জন্য মন কানতাছে :((

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।