খয়েরি রঙের ব্যাথা …

যদিও আমি কখনও পোস্ট উৎসর্গ করিনাই তাও এই পোস্টটা ফয়েজ ভাইকে …

১…

একটা মেডেল পাওয়ার লক্ষ্যে ঢুকেছিলাম কলেজ বাদক দলে। দুইবছর প্যাঁপু প্যাঁপু করতে হবে তারপর অবসর। অবসরের আগে গলায় ঝোলানো হবে মেডেলখানা। সোনার না। মহাখালির এমিকন থেকে বানানো খুব বেশি হলে পঞ্চাশ টাকার জিনিস। তাও মেডেল নামটার মধ্যে একটা ব্যাপার আছে এবং ব্যাপার স্যাপারের দিকে আমার সর্বদাই লোভ আছে, ঢুকে পড়েছিলাম।

শুরু হলো পাইপ বাজানো শেখা। সারেগামা, মাগারেসা। আংগুল চালনায় দক্ষতা অর্জন শুরু। তারপর শিখলাম সুর। জলদি চলের এক সুর, ধীরে চলের আরেকটা। সুর শেখার পর বিশাল বড় ব্যাগপাইপে আওয়াজ বের করার চেষ্টা। তারপর প্যারেডে নেমে যাওয়া। সবাই মার্চ করে আমরা বাজাই।

তারপর একদিন আমরা বিরক্ত হয়ে গেলাম। তখন সকালে প্রাকটিস সেশনে “হার দিল যো পেয়ার করেগার” স্টার্টিং সুর কিংবা “সুরাজ হুয়া মধ্যম” এর সুরটা বাজানো শুরু হলো। কলেজের সবাইকে দেখিয়ে দেওয়া, দেখ তোরা হিন্দী গান শুনোছ, আর আমরা বাজাই …

আমার সব কিছুর শুরুই একটু দেরিতে। হালকা- পাতলা দুই- একটা গান নাম না জেনে শুনেছি ঠিকই কিন্তু করস্‌ এর গান আমি সিরিয়াসলি প্রথম শুনি দৃশা আপার পোস্টের পর থেকে।

যাই হোক আমার সেই ব্যাগ পাইপটার কথা ভুলেই গেছিলাম। কিন্তু সেদিন কোরস এর “টস দ্য ফেদারস” শুনার পর মনটা আনচান করে উঠলো আবার। মনে হলো পাইপটা পেলে মন্দ হতোনা। বাজানোর চেষ্টা করতে পারতাম। লম্বা স্কেলকে পাইপের ডান্ডা ভেবে কিছুক্ষণ আংগুল নাড়াচাড়ার পর বুঝলাম ভুলি নাই এখনও। যেহেতু একজন কথা দিসে বাঁশী কিনে দিবে, এখন দরকার কর্ড। তাহলে বাজানোর চেষ্টা নেওয়া যেতো। কিন্তু নেট ঘেটে পাইলাম না।

এখন আপনাদের টস দ্য ফেদারস পরিবেশন করবে Corrs। ওরা আয়ারল্যান্ডের বন্ধু।

২…

এইভাবে দুই তিন করে আমি বহু নম্বর পর্যন্ত লিখে যেতে পারতাম। কাইয়ুম ভাইয়ের ভাষায় বলতে গেলে, সেই সময়গুলো ছিল আমার জীবনের স্যাড রোমান্টিক পার্ট। ঘটনাচ্ছলে এখন আর সেই দিন নাই। এখন আমার হ্যাপি রোমান্টিক পার্ট চলতেছে। এবং দেখতে পারছি আমি যাই লিখি না কেন, একটা লুপে পড়ে যাই। একি কথা বারবার ঘুরে ফিরে আসে। সুখে থাকার অসুবিধা।

তাই একটা প্রেমের গান।

Get this widget | Track details | eSnips Social DNA

৩…

যেহেতু আমার বাসায় একটা হাই- ফাই সাউন্ড সিস্টেম থাকবে এবং সেই সাউন্ড সিস্টেমে অবশ্যই সবচে বেশি বাজবে সুমন। কিন্তু কোন গানটা? এই নিয়ে চিন্তা করাটা বেশ রোমান্টিক। আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি- আমার না বলা কথা। যদিও এই গানটা স্যাড রোমান্টিক, তারপরও এইটাই সেরা।

Get this widget | Track details | eSnips Social DNA

৪…

আচ্ছা। সবকিছু যদি একটা ভুল হয়ে থাকে তাহলে সেই ভুলের সূচনাটা কয়েকবছর আগে। আমি প্রথমবারের মতো তাকে একটা এসএমএস করেছিলাম, অর্থহীনের একটা গান। কুচক্রীমহলরা বলেন, তার পক্ষ থেকে আমার সেই এসএমএসের উত্তর দেওয়াটাই ছিল সবচে বড় ভুল। ফান্দে পড়ার শুরু।

তারমানে এইগানটাও অনেক বাজাতে হবে। হাজার হোক গানটাই তো সবকিছু শুরু করলো।

Get this widget | Track details | eSnips Social DNA
৬,৪৮৩ বার দেখা হয়েছে

৬৫ টি মন্তব্য : “খয়েরি রঙের ব্যাথা …”

  1. জিহাদ (৯৯-০৫)

    শেষের গানটা দিয়া দিলমে চাক্কু বসাইয়া দিসিস। আবেগে ইমোশনাল হয়া গেসি। আর কিছু কইতে পারতেসিনা। 🙁

    অফটপিক: চার বছর বাদক দলে ছিলাম। কিন্তু কোন মেডেল পাইনাই :((


    সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

    জবাব দিন
  2. জিহাদ (৯৯-০৫)

    করস্ এর গানের পাঙ্খা আমি ফার্স্ট ইয়ার থিকা। আর এই মিউজিক কম্পোজিশনটাই সবার আগে শুনসিলাম। শুনে এত মুগ্ধ হইসিলাম বলার মত না।


    সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

    জবাব দিন
  3. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    একটা গানও শুনবো না। শুনতে ইচ্ছা করতেসে না।
    খবরদার, আমাকে কোনদিন কিছু উৎসর্গ করিস না।


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  4. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    চমৎকার একটি সংগীত সন্ধ্যা আয়োজনের জন্য রায়হানকে ধন্যবাদ... আর গানের সিলেকশনও আমার পছন্দ মত হওয়ায় পুরা সোনায় সোহাগা...

    অফটপিকঃ সুমন ক্যামনে ওর শরীর কমাইলো :-/ :-/ :-/


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  5. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    কোরস এর মিউজিকটা অনেক দিন ধরে খুজছিলাম। আমিও এই গ্রুপটার ফ্যান যদিও এখন enya শুনি বেশী।
    তবে ভাই, শেষের গানটা দিয়া শুধু চাক্কু মারো নাই, চাক্কু দিয়া বুকে গর্ত করে ডিনামাইট ভইরা আগুন জ্বালায়া দিছো। অনেক পুরান স্মৃতি মনে পরে গেলো।
    অনেক ধন্যবাদ রায়হান।

    জবাব দিন
  6. 'কোরস' আমার খুবই পছন্দের। পছন্দের কোনকিছু সম্পর্কে কোথাও কিছু দেখলে বা পড়লে ভাল লাগে।

    লেখাটাও পছন্দ হয়েছে অনেক, বরাবরের মতোই। ধরণটা খুব চমৎকার।

    জবাব দিন
  7. তানভীর (৯৪-০০)

    এমন একটা অফিসে কাজ করি যেখানে বিনোদনের যাবতীয় ওয়েবসাইটই ব্লক করা! 🙁 দুঃখিত, ইউটিউবের ভিডিওটা ছাড়া আর কিছু দেখতে বা শুনতে পারলাম না। তবে যতদূর মনে হল, শেষ গানটা মনে হয় সুমনের "প্রতিচ্ছবি"। দারুণ একটা গান, আমার খুব প্রিয়। আর Corrs এর এই কম্পোজিশনটাও আমার পছন্দের।
    চন্দ্রবিন্দুর "মন" গানের লিঙ্ক দিছ কি? ঐ গানটা তো আমার অসম্ভব রকমের প্রিয়।

    গানগুলা শুনতে না পারায় লেখা নিয়ে খুব একটা কিছু বলতে পারলাম না, তবে স্টাইলটা ভাল লেগেছে।

    জবাব দিন
  8. রায়হান আবীর (৯৯-০৫)

    আমি যাকে ভালোবাসি, তার গল্প শোনাবো
    তার কাহিনী শোনাবো
    যেমন সন্ধ্যে গল্প শোনায়,
    ক্লান্ত আকাশকে শোনায় রাত্রির গল্প
    আমি যাকে ভালোবাসি, তার কাহিনী রাতের মতো ...

    ধন্যবাদ তারেক ভাই, গানটার জন্য। হেব্বি একটা ধন্যবাদ। শানেনযুল সমৃদ্ধ ...

    জবাব দিন
  9. ফয়েজ (৮৭-৯৩)
    যদিও আমি কখনও পোস্ট উৎসর্গ করিনাই তাও এই পোস্টটা ফয়েজ ভাইকে

    দূর বেটা বেকুব, লাইটা উঠাই ফালা।

    আর কি গুলা কি গান দিছ তুমি, ভকি-জকি সব।


    পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

    জবাব দিন
  10. আরিফ (১৯৯৪-২০০০)
    আর প্রেমের পোস্ট যদি প্রেমিকরে উৎসর্গ না করি, তাইলে ক্যাম্নে কী?

    ফয়েএ্‌এ্‌এ্‌এ্‌এজ ভাই ............... ???!!!! কি জানি একটা টার্ম শুনছিলাম মিড এজ কমপ্লিক্যাসি......।
    তার আগে আপনারে মধ্যবয়স্ক কওয়ার জন্য :frontroll: :frontroll:

    জবাব দিন
  11. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    ১. আন্দ্রিয়ারে দেইখা এদের প্রেমে পিড়ছিলাম, ডাব্লিনের একটা কন্সার্ট ভিডিওতে ভার্সিটি লাইফের শুরুতে 😡 কালো চুল আর কালো চোখের মায়াই আলাদা 😡 এরপরে গানও সেরকম, ক্যামন জানি জিপ্সি আর ইস্টার্নের একটা চমৎকার মিক্সচার মনে হইতো :thumbup: খালি অপছন্দ ছিলো ভাইটারে (এইটা এখোনো জারি আছে 😡 )
    ২. কলেজের প্রথম কালচারাল ফাংশানে আমাদের সিদ্দিকী গাইছিলো 'স্ট্রবেরি চেরি ফুলে ছেয়েছিলো বন' , অনেকদিন পর ভার্সিটিতে গিয়া দেখলাম ডার্লিং আর বনো মিইল্যা অরিজিন্যাল 'সামার ওয়াইন' গাইতাছে 😡 আহারে কি আবেগ আছিলো 😡 আবার মেজাজ খারাপ হইছিলো বদমাইশ বনোর উপ্রে, হালায় গানের শেষে ডার্লিং এর কোমর জড়ায়া কি একটা নাইচ দিলো 😡
    ৩. স্যাড রোমান্টিক পর্ব উত্তরাধুনিক যুবকদের পার্ট নেয়ার একটা এলিমেন্ট 😀 এইটা যত কম থাকে ততই মঙ্গল ;;;
    ৪. সবধরণের সম্ভাব্য বৈপরিত্যের ভিত্রেও হ্যাপি রোমান্টিকের আনলিমিটেড 'পাই' লুপ কন্টিনিউ থাকুক 🙂


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।