ডায়লগ মেলোডি ৩.০ (মির্জাপুরিয়ান ভার্সন)

(বহুদিন পরে আবার লিখতে বসলাম।লিখা বললে ভুল হবে বলা চলে স্মৃতিচারণ।)

ঘটনা ১ :

বাথরুমে আমার এক ব্যাচমেট দাঁড়িয়ে জলবিয়োগ করছিলো।সে দেখতে আবার বিশাল(প্রায় ৬’-২”)।এই সময়ে এক জুনিয়রও তার কাজে পাশে এসে শুরু করে দিলো।হঠাৎ কি মনে করে সেই জুনিয়র পাশে দাঁড়ানো আমার সেই বন্ধুকে বলে বসলো
“কাইন্ডলি ……. ভাই উকি দিয়েন না”
(সেই বন্ধু আজও বলে যে সে নাকি কোনো দিকে তাকায় নাই।জুনিয়র এম্নিতেই ভয় পেয়ে গিয়েছিলো)

ঘটনা ২:

এই শিক্ষককে নিয়ে আমার ব্যাচমেট জিহাদ আগেও একটা পোস্টে বলেছিলো।আজ তার অন্য এক কাহিনি।
একবার আমরা সবাই ফ্রেঞ্চকাট নিয়ে বেশ আগ্রহী হয়েছিলাম।এবং কেউ একজন এই স্যারকে বলে বস্লো

-“স্যার আপনি ফ্রেঞ্চকাট রাখলে সেই রকম লাগবে”

তো উত্তরে উনি বলেছিলেন
-“কোথায় রাখবো?উপরে নাকি নিচে?”

ঘটনা ৩:

এই ঘটনাটা সম্ভবত ক্লাশ সেভেনের।একবার পাক্ষিক পরীক্ষায় আমাদের একজন আশানুরুপ নাম্বার না পেয়ে স্যারের কাছে গেলো।তো উত্তরে উনি বললেন যে

“দো ইঊ আর এ্যা হিয়ারো
ইঊ উইল গেট জিয়ারো
বিকজ ইউ আর নট সিয়ারিয়াস
ডিউরিং মাই পিয়ারিয়াড”

ঘটনা ৪:

আমরা তখন ক্লাশ টেনে পড়ি।টেন বি ফর্মে আব্দুল মালেক স্যার ইসলাম শিক্ষা পড়াচ্ছিলেন।তো পিয়ন রহিম ভাই একটা নোটিস নিয়ে আসলেন যেটা ছিলো আইসিসিএলএম এর।মালেক স্যারের দায়িত্তে পড়েছে ক্বিরাত।আমাদের জিজ্জাসা করলেন যে আমরা কেউ পারি কিনা?আমাদের মাঝে একজন হঠাৎ করে হাত তুলে বললো যে সে আগ্রহী।কিন্তু আমরা তার ক্বিরাত প্রতিভার কথা আগে কোনোদিন শুনি নাই !!! আমরাও অবাক আজ এই সুপ্ত প্রতিভার বিকাশ দেখে।স্যার নিজে সেই আগ্রহীকে বেশ ভালো ছেলে বলেই জানতেন বলে তাকে সুযোগ দিলেন।সে গেলো সামনে একটু ডেমো দিবে।খুব ভাব নিয়ে শুরু করলো এইভাবে
(আগেই ক্ষমাপ্রার্থী যে এটা কিন্ত কোনো কিছুকে কটাক্ষ করে নয়)
“আউযুবিল্লাহি রাব্বিল আলামীন”
বুঝেন অবস্থা।

২,২৩২ বার দেখা হয়েছে

৪৮ টি মন্তব্য : “ডায়লগ মেলোডি ৩.০ (মির্জাপুরিয়ান ভার্সন)”

  1. মুহাম্মদ (৯৯-০৫)

    সাইফুল আলম স্যারের ডায়লগের উপরে কিছু নাই। আরও যে কিসব বের হতো উনার মুখ দিয়া... গ্রেট... এমনে খুব একটা পছন্দ না করলেও উনার পড়ানোটা খারাপ লাগতো না।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।