রাজনৈতিক দলের অভ্যন্তরীন ব্যবস্থাপনা: কিছু প্রস্তাব

বাংলাদেশের রাজনৈতিক দলগুলির অভ্যন্তরীন ব্যবস্থাপনা কতটা কার্যকরী? এই প্রশ্নটা বেশি করে সামনে এসে পড়ে যখনই দেশে কোনো নির্বাচন লাগে। আর নির্বাচন মানেই প্রার্থী বাছাই ও তা নিয়ে কনফ্লিক্ট।

এই কনফ্লিক্টগুলি সময় সময় এমনই তিক্ততার পর্যায়ে গিয়ে পৌঁছে যে, প্রায়ই মনে হয়, দলগুলিতে সত্যিই কি কনফ্লিক্ট রিজলুশনের (যাকে বিরোধ-নিষ্পত্তি বলে ডাকা হয়, যদিও বিরোধ আর কনফ্লিক্ট শব্দ দুটি সমান তীব্রতাসম্পন্ন নেতিবাচক অবস্থান নির্দেশ করে না) কোনো পদ্ধতি আছে, না কি নেই?

সংগঠন হিসেবে রাজনৈতিক দলগুলি অনেক দিক দিয়েই আর দশটা অরাজনৈতিক সংগঠনের মতোই এমন একটি প্রতিষ্ঠান যার একটি প্রোডাক্ট আছে (রাজনৈতিক মতবাদ), সেই প্রোডাক্টের গ্রাহক আছে (সমর্থক, ভোটার), গ্রাহক বাড়াবার চাপ ও প্রত্যাশা আছে (মার্কেটিং, সেলিং) আর আছে আয়-ব্যয় (অর্থায়ন বিকল্প), হিসাব-রক্ষণ (অ্যাকাউন্টিং), বৈতনিক-অবৈতনিক কর্মীবাহিনী ব্যবস্থাপনা (এইচআর)।

একটি সুসমন্বিত (ওয়েল কো-অর্ডিনেটেড) অভ্যন্তরীন ব্যবস্থাপনা ছাড়া যে কোনো প্রতিষ্ঠানের মতোই সুষ্ঠুভাবে দল পরিচালনা সহজ নয়। নিশ্চয়ই দলসমূহে কোনো না কোনো অভ্যন্তরীন ব্যবস্থাপনা আছেও। কিন্তু দলের সবচেয়ে ক্রুসিয়াল সময়, মানে, নির্বাচনের সময়ে দৃশ্যমান হওয়া অনিস্পন্ন বিরোধের চিত্র থেকে তার কার্যকারিতা প্রশ্নবিদ্ধ হওয়ারই কথা।

“আমাদের দলে কোনো কনফ্লিক্ট ননেই”-– এটা বলে এই দেশে কেউ কেউ আত্মপ্রসাদ পেতে চাইতেই পারেন, কিন্তু যে দলে সত্যিই কনফ্লিট নেই, সেটা কি কোনো গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল হবার যোগ্যতা রাখে? গণতন্ত্র মানেই যেখানে নানা মত, নানা পথের মানুষের ইউনিয়ন বা একতাবদ্ধ হওয়া। সেখানে ‘কনফ্লিট নেই’ কথাটা কি গণতন্ত্রচর্চ্চা বিবর্জিত একটা ধারণা নয়?

সঠিক বর্ণনা হতে পারত এ রকম– “আমাদের দলে কনফ্লিক্ট রিজলুশনের জন্য স্বচ্ছ একটি প্রক্রিয়া আছে যে জন্য বিরোধ প্রায় নেই বললেই চলে”– আর তা হতে পারত খুবই প্রশংসনীয় একটি অবস্থা।

এইসব অভিজ্ঞতা থেকে দেখা যাচ্ছে যে, সাধারণভাবে এদেশের রাজনৈতিক দলসমূহে কনফ্লিক্ট রিজলুশনে দৃশ্যমান কোনো স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতামূলক পদ্ধতির বড় রকমের ঘাটতি হয়তো রয়েছে। আর যে কারণে বড় বড় বিরোধ পুষে রেখেই তাদেরকে এগিয়ে যেতে হচ্ছে। এই অবস্থার মধ্যে দলসমূহে অভ্যন্তরীন ব্যবস্থাপনা আদৌ আছে কিনা, থাকলেও তা কার্যকরী কিনা, সে প্রশ্ন সামনে আসাটা খুবই যৌক্তিক।

বিষয়টা একটু বিশ্লেষণ করা যাক।

মোটা দাগে প্রায় সব প্রধান রাজনৈতিক দলসমূহে দুই ধরনের সাংগঠনিক কাঠামোর বিভাজন চোখে পড়ে–

১. জিওগ্রাফিক ডিভিশন বা এলাকাভিত্তিক ভৌগোলিক সাংগঠনিক কাঠামো; যেমন, বিভাগীয়, জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন, পৌরসভা, ওয়ার্ড পর্যায়ের সংগঠন;

২. স্ট্র্যাটা-ভিত্তিক হোমোজিনিয়াস ডিভিশন বা পেশা/ লিঙ্গ/ বয়স/ লক্ষ্যভিত্তিক সাংগঠনিক কাঠামো; যেমন, মহিলা, ছাত্র, যুব, স্বেচ্ছাসেবক, বিবিধ পেশা ভিত্তি করে গড়ে তোলা সাংগঠনিক কাঠামো।

এই দুই ধরনের সাংগঠনিক বিভাজনের কারণে বিরোধের একটা বীজ শুরুতেই বপন হয়ে থাকে। কীভাবে, তা খোলাসা করে বলছি।

একটু লক্ষ করলেই দেখা যাবে, একজন কর্মী দুভাবে বিভাজিত সংগঠনগুলোতেই অংশগ্রহণ করতে সক্ষম। এই দ্বৈত-সক্ষমতা তার জন্য সুবিধার চেয়ে অসুবিধাই বেশি সৃষ্টি করে।

প্রথমেই এটা তার জন্য একটা সেলফ-কনফ্লিক্টের বা স্ব-বিরোধের কারণ হতে পারে যে, আমি কোথায় যাব, কোথা থেকে শুরু করব, কোনটা নিয়ে লেগে থাকব? যেটাকে ‘ইউনিটি অব গোল’-এর অভাব হিসেবে চিহ্নিত করার সুযোগ আছে। একই সঙ্গে তার সামনে দ্বৈত-নেতৃত্ব এসে দাঁড়ানোরও সুযোগ সৃষ্টি হয়। একটি পেশাগত/ডেমোগ্রাফিক বিভাজন থেকে অন্যটি ভৌগোলিক বিভাজন থেকে।

প্রকৃত ঘটনা আরও জটিল রূপ ধারণ করতে পারে কারও কারও জন্য। ধরা যাক, একজন পেশাজীবী যুব-মহিলা রাজনীতিতে সক্রিয় হতে চাচ্ছেন। তার সেলফ-কনফ্লিক্ট হবে কোথা থেকে শুরু করবেন তা নিয়ে। তিনি স্ট্রাটাভিত্তিক, মহিলা সংগঠন, যুব সংগঠন, বা পেশাজীবী সংগঠন থেকে উপযুক্তটা বেছে নেওয়ার পাশাপাশি ভৌগোলিকভাবে বিভাজিত নিজের স্থায়ী বা স্বামীর স্থায়ী বা বর্তমান ওয়ার্ড বা ইউনিয়ন সংগঠনে অন্তর্ভুক্ত হওয়া নিয়েও দোটানায় পড়তে পারেন।

দোটানাটা এই জন্য যে, এই প্রত্যেকটি সংগঠন তার জন্য ভিন্ন ভিন্ন সুযোগ দিচ্ছে যা তার রাজনৈতিক লক্ষ অর্জন ও সাংগঠনিক দক্ষতা দেখানোর জন্য সমান ভূমিকা রাখে না। আর এ সব ক্ষেত্রে তার পছন্দের সংগঠন থেকে তার উপরে বাড়তি চাপ আসাটাও বিরল নয়। ‘এইটা তো উনার নিজের এলাকা নয়’, ‘উনি তো এখানে থাকেনই না’, ‘উনি তো অস্থানীয়’ — এই সবই উল্লিখিত চাপের উদাহরণ।

এই পরিস্থিতির উন্নয়নে এমন ব্যবস্থা থাকা জরুরি যেন বেছে নেওয়া সংগঠনে কাজ করতে ইচ্ছুক কেউ কোনো চাপ বোধ না করেন বরং চাপ প্রদানকারীকে চিহ্নিত করা ও বিভেদসৃষ্টিকারী হিসেবে শৃংখলার আওতায় আনা সম্ভব হয়।

একই সঙ্গে, এ রকম একজন কর্মীকে একাধিক নেতার কাছে দায়বদ্ধ থাকার প্রয়োজনও দেখা দিতে পারে, যদি তিনি একই সঙ্গে দু’ধরনের বিভাজনে সক্রিয় হতে চান। বেশিরভাগ কর্মীকেই সেটা হতে দেখা যায়ও। এই দ্বৈত-দায়বদ্ধতা কোনো সুস্থ ব্যবস্থাপনার চর্চ্চা হতে পারে না। দুই ধরনের সংগঠনে কর্মীর ভূমিকা কতটা লাইন আর কতটা স্টাফ/টেকনিকাল সেটা নির্দিষ্ট করে এই সমস্যা নিরসন করা সম্ভব।

দলগুলিতে যদি এই রকমের ভিন্নমুখী কাঠামো রাখার প্রয়োজন থাকেই, তা বিন্যস্ত হওয়া উচিত খুবই দক্ষভাবে ম্যাট্রিক্স অর্গানাইজেশনের আদলে। আর ম্যাট্রিক্স সংগঠনগুলিতে যে রকম সচেতনভাবে কনফ্লিক্ট রিজলুশন টেকনিক ব্যবহার করা হয়, দ্বৈত নেতৃত্ব-পরিহারের প্রচেষ্টা থাকে (ভূমিকা ও দায়িত্ব সুনির্দিষ্ট করার মাধ্যমে)– এখানেও তা প্রয়োগ করাটা জরুরি হয়ে দাঁড়াবে।

আর সেটা করতে যা করণীয় তা হল, লেভেলগুলির ভূমিকা এমনভাবে সুনির্দিষ্ট করা যেন কে লাইন রোলে আছে আর কে স্টাফ বা টেকনিকাল রোলে আছে তা যেন পরিস্কারভাবে বোঝা যায়। এর সঙ্গে সুপারভাইজরি রোলগুলিও স্পষ্ট করা জরুরি।

এ সব শুরু করার আগে প্রথমেই নির্ধারণ করে নিতে হবে রাজনৈতিক ইউনিট বা একক কী। যেহেতু দিনের শেষে লক্ষ্য হল প্রত্যেক কনস্টিটিউয়েন্সি থেকে কনফ্লিক্ট রিজলভ করে স্বচ্ছ ও জবাবদিহিতামূলক পদ্ধতিতে একজন নেতা বের করে আনা– তাই এক একটি কনস্টিটিউয়েন্সিকে এক একটি ইউনিট বিবেচনা করাই সবচেয়ে যৌক্তিক। এরপরে ওই ইউনিট (বা কনস্টিটিউয়েন্সি)-এর অভ্যন্তরীন উপসংগঠন (সাব-ইউনিট) গুলিকে চিহ্নিত করে তাদের স্বীকৃতি দেওয়া প্রয়োজন।

m

মনে রাখতে হবে, এই ইউনিটগুলোই মূল লাইন অর্গানাইজেশন। আর সাব-ইউনিটগুলি তার ফিডার অর্গানাইজেশন।

ধরা যাক, আমার বর্তমান কনস্টিটিউয়েন্সিটি ভৌগোলিকভাবে ৪ টি ওয়ার্ডে বিভক্ত। তাহলে এখানে সাব-ইউনিট হিসেবে চারটি ওয়ার্ড কমিটি থাকতে পারে যা থেকে এক বা দুজন পদাধিকার বলে ইউনিট কমিটির সদস্য হবেন। বাকি থাকছে মহিলা/ যুব/ ছাত্র ইত্যাদি সমন্বয়ে গড়া ডেমোগ্রাফিক স্ট্র্যাটা ও বিভিন্ন পেশাভিত্তিক প্রফেশনাল স্ট্র্যাটাগুলোর প্রতিনিধিত্ব।

এরা সব সাব-ইউনিটেই বিদ্যমান। তাদের নিয়ে যে ইউনিট পর্যায়ের সংগঠন তা করা যেতে পারে নিচের ম্যাট্রিক্স-এর মতো করে। আর হ্যাঁ, তারাও ইউনিট কমিটিতে পদাধিকার বলে এক বা দুজন করে অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারেন। তাদের ভূমিকাও সুনির্দিষ্ট করা প্রয়োজন যা থেকে বোঝা যাবে ইউনিট কমিটিতে তারা কতটা লাইন রোলে থাকবেন বা ভূমিকা রাখবেন অথবা কতটা স্টাফ বা টেকনিকাল রোলে থাকবেন।

ইউনিট কমিটির প্রধান নির্বাচিত হতে পারেন ওয়ার্ড কমিটগুলোর রিপ্রেজেন্টেটিভদের মধ্য থেকে অথবা অন্যদেরকে নিয়ে অন্য কোনো পদ্ধতিতে যা অবশ্যই গণতান্ত্রিক বা অন্য কোনো জানা উপায়ে। তবে যেভাবেই তা ঘটুক, পুরো পদ্ধতি স্বচ্ছ ও পূর্বঘোষিত পন্থায় ঘটা বাঞ্ছনীয়। আর তা করা গেলে বিরোধের উৎস গোড়াতেই একেবারে নির্মুল করা না যাক, সীমিত করে আনা সম্ভব হবে।

আর স্ট্র্যাটা কমিটির সদস্যরা কেবলই টেকনিকাল বা পেশাগত উপদেষ্টা হবেন, নাকি কিছু লাইন রোলও প্লে করবেন সেটাও পরিস্কার থাকতে হবে। এভাবে সদস্য ভোটে বা অন্য কোনো পদ্ধতিতে কন্সটিটিউয়েন্সি-ভিত্তিক ইউনিট সংগঠন তৈরি করা হলে কনফ্লিক্ট বন্ধ হবে না ঠিক, কিন্তু তা সমাধানের দৃশ্যমান স্বচ্ছ একটা পদ্ধতি চালু করা যাবে।

এই ইউনিটগুলি যথাযথভাবে নিয়ম নেমে পরিচালিত হচ্ছে কিনা তা দেখাশুনার জন্য বিভিন্ন পর্যায়ের সুপারভাইজরি কমিটি থাকতে পারে। যেমন, জেলার সবগুলি ইউনিট কমিটির উপরের দিকের এক বা দুজনকে নিয়ে জেলা কমিটি হতে পারে। এই জেলা কমিটির ভূমিকা হবে ইউনিট কমিটির বিরোধ নিষ্পত্তি করা ও নিয়মানুযায়ী সংগঠন পরিচালিত হচ্ছে কিনা তা তদারকি করা। পাশাপাশি তারা গ্রিভান্স হ্যান্ডেলিং-এর কাজও করতে পারেন।

আরও উচ্চ পর্যায়ের ভৌগোলিক সুপারভাইজরি কমিটিও থাকতে পারে। তবে তাদের ভূমিকা সুপারভিশনেই সীমিত থাকা বাঞ্ছনীয়। লাইন রিলেশনটি হতে হবে কেন্দ্রীয় কমিটির সঙ্গে ইউনিট কমিটির সরাসরি। তবে কেন্দ্রীয় কমিটিতে সর্বোচ্চ সুপারভাইজরি কমিটির প্রতিনিধিত্ব থাকাটাও উচিত।

 

এভাবে সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ে ভূমিকা, দায়িত্ব ও দায়বদ্ধতা সুনির্দিষ্ট করা গেলে দলের মধ্যে অধিক গণতন্ত্রের চর্চ্চা, স্বচ্ছ বিরোধ নিষ্পত্তি, গ্রিভান্স হ্যান্ডেলিং, সর্বোপরি শৃঙ্খলা আনা সম্ভব। স্ট্র্যাটা-ভিত্তিক সংগঠনগুলির মধ্যেও একইভাবে উর্ধতন সুপারভাইজরি সংগঠন তৈরি করা সম্ভব। তবে তাদের ভূমিকা ও দায়িত্ব খুবই পরিস্কারভাবে বর্ণনা করা প্রয়োজন।

রাজনৈতিক দলগুলি কীভাবে পরিচালিত হবে, তা তারা নিজেরাই ঠিক করুন। তবে তা করতে গিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হবার সুযোগ, স্পয়েলার ক্যান্ডিডেট তৈরির পথ রাখা, বিরোধ জিইয়ে রাখা, কারও জন্যই কাম্য নয়। না জনগণের, না নেতৃবৃন্দের, না দলের।

একইভাবে, সোজা বা বাঁকা, কোনো একভাবে মনোনয়ন জিতে নিয়ে এটা বলে বেড়ানোও শোভন বা রাজনৈতিক শিষ্টাচারভুক্ত নয় যে ‘ওমুক না-পাওয়ার বেদনা থেকেই এই রকম বলে বেড়াচ্ছেন বা বিরোধিতা করছেন বা বিদ্রোহী প্রার্থী হয়েছেন’।

দিনের শেষে এইসব কর্মকাণ্ডই দলের দুর্বলতা নির্দেশক। একটু তুলনা করে ব্যাখ্যা করি।
এমন একটি সিলেকশন প্রক্রিয়ায় বা পরীক্ষায় কথা ভাবুন যেখানে একজনই নির্বাচিত বা প্রথম হবেন। কখন আমরা তা মেনে নিই? যখন পদ্ধতিটা থাকে স্বচ্ছ ও প্রেডিক্টেবল। তথ্য থাকে উন্মুক্ত। আর এর ব্যত্যয় ঘটলে, শুধু পদ্ধতি নয়, যারা তা চালাচ্ছেন সেই পুরো সংগঠনটিকেই সেই দুর্বলতার দায়ভার বইতে হয়।

রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সময় এসেছে সিদ্ধান্ত নেবার, তারা কতদিন আর নিজেদের দলকে এই দুর্বলতার মধ্যে রাখবেন, এই দায় বয়ে বেড়াতে বাধ্য করবেন, সেটা ঠিক করার। এ থেকে উত্তরণে তারা কি একটি শক্তিশালী অভ্যন্তরীন ব্যবস্থাপনা চান, নাকি “যা চলছে যেভাবে চলছে, চলুক না” এই মত ধরে রাখতে চান, সেটা প্রকাশ্য হওয়ার দাবি কিন্তু দিন দিন বাড়তেই থাকবে।

বিডি নিউজ ২৪-এ প্রকাশিত

ধারনাটা পছন্দ হলে মূলপাতায় গিয়ে লাইক/শেয়ারেরও সুব্যবস্থা আছে…

১,১৪৬ বার দেখা হয়েছে

১৭ টি মন্তব্য : “রাজনৈতিক দলের অভ্যন্তরীন ব্যবস্থাপনা: কিছু প্রস্তাব”

    • পারভেজ (৭৮-৮৪)

      অনেকদিন ভাবনা চিন্তা করে একটা লিখা লিখলাম, পোস্ট করলাম। বারো ঘন্টা হয় হয় অথচ ইট রাখার জন্যে হলেও কেউ আসছে না।
      ব্যাপারটা লেখকের জন্য একদিকে হৃদয় বিদারক, অন্যদিকে এই লিখার স্পিরিটের সাথে সামঞ্জস্যপূর্ন।
      সেই স্পিরিটটা হলো, এদেশে রাজনীতি এখন দলের পৃষ্টপোষকতায় জনবিচ্ছিন্ন।
      তার চেয়েও খারাপ খবর হলো, দলগুলোতে যেমন উদ্যোগ নেই জনসমপ্রিক্ততার, জনগনেরও কোন আস্থা নাই দলগুলির আহ্ববান বা প্রতিশ্রুতিতে।

      এইবার তোমার মন্তব্য সম্পর্কে প্রতিক্রিয়া:
      একটি প্রজাতন্ত্রের গনতান্ত্রিক ব্যবস্থায় যদি গনতন্ত্রের অনুশীলন না হয়, তা হলে হচ্ছেটা কী? একটা কিছু কিন্তু হতেই হবে, কারন এটা একটা ডাইকটোমাস সিচুয়েশন।
      আর গনতন্ত্রের উল্টোটা যেহেতু একনায়কতন্ত্র তাই তা ছাড়া অন্য কিছু হবার সুযোগ নাই।
      তাই, "রাজনৈতিক দলে গণতন্ত্রের চর্চা নাই" আর "রাজনৈতিক দলে একনায়কতন্ত্রের চর্চা চলছে" এই দুইটা সমার্থক।
      ডঃ রওনক জাহানের পিএইচডি থিসিসে জনবিচ্ছিন্ন সরকারের (তা যতই জন কল্যানকর হোক না কেন) সম্ভাব্য পরিনতি নিয়ে পূর্বাভাস ছিল। আমি অবাক হয়ে দেখলাম চার দশক পরেও সেটা লিবিয়ার ক্ষেত্রে সঠিক বলে প্রমানিত হয়েছে।
      আমাদের বুঝতে হবে: নো-গনতন্ত্র = একনায়কতন্ত্র >(লীডস টু) ফিউচার এনার্কি >(লীডস টু) সাফারিং >(লীডস টু) রি-ইনস্টলেশন অফ ডেমোক্রাসি।
      আর এইটা বোঝার পরে সিদ্ধান্ত নিতে হবে যে আমরা কি এই প্রক্রিয়ার মধ্যে দিয়ে গিয়ে গনতন্ত্র-পুনরুদ্ধার করবো, নাকি নো-গনতন্ত্র থেকে বের হয়ে আসবো যেন এই সাইকেলটার মধ্য দিয়ে আমাদের যেতে না হয়।
      আমার এই লিখাটা এই দৃষ্টকোন থেকে লিখা।

      এই বিষয়টা নিয়ে আরো লিখা লিখির পরিকল্পনা আছে।
      তা কেউ পড়ুক আর না পড়ুক।
      লিখবো এই মটিভেশন থেকে যেন ভবিষ্যতে কেউ বলতে না পারে, "ও তাই নাকি, জানতাম না তো, কেউ বলে নাই বা লিখে নাই তো যে এমনটা হবে"।
      আর কেউ যদি তা বলেও, এই লিখাগুলি তাদের দেখানো যাবে তখন।


      Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

      জবাব দিন
      • টিটো মোস্তাফিজ

        ভাই, গণজাগরণ মঞ্চের উত্থানে আশাবাদী হয়েছিলাম, এরশাদ সাহেবের পতন এবং সংসদীয় গণতন্ত্রের আগমনেও। কিন্তু :no: 😮 কিছুই হয়না :bash:
        ভালো লিখে সাড়া না পাওয়া সত্যি খুব দুঃখজনক 🙁
        তবু লিখতে হবে। নৈতিক দায় তো থাকেই :boss: :boss: :hatsoff: :hatsoff:


        পুরাদস্তুর বাঙ্গাল

        জবাব দিন
      • রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

        ভাই একটু দৌড়ের উপর ছিলাম।
        না হইলে ইটা রাখার জন্য আমি :))

        আপনি যে রাজনৈতিক বিষয়ে লিখে যাচ্ছেন এজন্য আপনাকে অনেক অনেক শুভেচ্ছা।

        আমরা খুব সহজেই বলে ফেলি নোংরা। কিন্তু নিজেরা কেউ কাদা পরিষ্কার করতে রাজি নই।
        আবার দেখবেন আমরাই কিন্তু তথাকথিত দুষ্ট রাজনৈতিক নেতাদের কাছে যাই সুবিধা আদায়ের জন্য।

        আপনার রাজনৈতিক বিষয়ে ভাবনা জারি থাকুক।

        আরেকটা রিকোয়েষ্ট আছে।
        পত্রিকায় যাবার/প্রকাশের প্রায় সাথে সাথেই সিসিবি তে দিয়ে দিলে খুব খুশি হবো।

        কেউ কেউ অনুযোগ করতে পারে পত্রিকার লেখা এখানে কেনো!
        আমি বলবো কেনো নয়!

        লেখকের মূল লক্ষ্য পাঠক।
        পত্রিকাগুলোর পাঠকসংখা ঢের বেশি ব্লগের চাইতে।
        তাহলে কষ্ট করে দু ধরণের লেখা লিখবে কেনো লেখক, ব্লগ ও পত্রিকার জন্য।

        আপনাকে আবারো শুভেচ্ছা ভাই। :teacup:


        এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

        জবাব দিন
        • পারভেজ (৭৮-৮৪)

          এই লিখাটা প্রকাশের ঘন্টাখানেকের মধ্যেই এখানে পোস্ট করেছি। কিন্তু ঐ যে, রাজনীতি দেখেই মানুষের বিল্ট-ইন বিরক্তি...
          তোমাদের উৎসাহে লিখে যাচ্ছে।
          পত্রিকা আলারাও খুব এনকারেজ করে দেখলাম। হয়তো গতানুগতিক ট্রেন্ডের থেকে একটু ভিন্ন এপ্রোচ।
          আমি চেষ্টা করি ব্যক্তি বিশেষকে দোষারোপ না করে লিখতে। আমার মনে হয় সেটাই ঠিক এপ্রোচ।
          দোষ যাকে দিচ্ছি, তার কাছ থেকেই তো সংশোধনটা আশা করছি।
          দোষারোপ করে কি সেটা সম্ভব? কারন তখন তো তিনি ডিফেন্স নিতে ব্যস্ত হয়ে পড়বেন।
          শিঘ্রীই আরেকটা পাঠাবো। লিখা শুরু করেছি।
          ইউ পিপল আর গ্রেট ইন্সপায়ারার...


          Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

          জবাব দিন
  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    ভাল লাগলো পারভেজ ভাই, আমাদের রাজনৈতিক দলগুলো যত তাড়াতাড়ি নিজেদের সংস্কারে মন দেয় ততই আমাদের জন্য মঙ্গল কিন্তু সেটা অদূর ভবিষ্যতে হয় কি না সেটা নিয়ে যথেষ্ঠ সন্দেহ আছে।

    আর মন্তব্য নিয়ে যা বললেন তার কারন মনে হয় আমার মত অন্যরাও আর সব বিষয়ের মত গ্যালারীতে বসে রাজনীতি আর রাজনীতিবিদদের শুধু সমালোচনা করে যেতেই বেশি আগ্রহী, সমস্যা থেকে উত্তরনের উপায় নিয়ে চিন্তা ভাবনা/আলোচনা করার সময়/আগ্রহ কারো নেই।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
    • পারভেজ (৭৮-৮৪)

      মাস পপুলেশনের মধ্যে এই আগ্রহহীনতাটা খুবই যত্নে তৈরী করা হয়েছে।
      এর ফসল তাঁরা (সবাই জানি কারা) এখন তুলছেন বলে তা লালনও করে যাচ্ছেন।
      কিন্তু তাঁরা এর সম্ভাব্য পরিনতি কি ভাবছেন?
      মনেহয় না।
      ভাবা উচিৎ। তাদের, আমাদের, সবার।
      কারন সাফারিংটা কিন্তু সবারই হবে।
      কার বেশি কার কম, সেই প্রশ্ন করা যায়, কিন্তু হবেই যে সেটা কিন্তু নিশ্চিত।
      কারন থিওরি তাই-ই বলে।


      Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

      জবাব দিন
  2. মোকাব্বির (৯৮-০৪)

    মাস্টার্স থিসিস নিয়ে দৌঁড় ঝাপের মাঝে আছি। এই বিষয়গুলো নিয়ে জানার ইচ্ছা অনেক। শুধু পলিসি সায়েন্স পড়ে আঁশ মিটছে না। এটা আজকে ফ্রাইডে নাইটের জন্য রাখলাম।


    \\\তুমি আসবে বলে, হে স্বাধীনতা
    অবুঝ শিশু হামাগুড়ি দিল পিতামাতার লাশের ওপর।\\\

    জবাব দিন
  3. নূপুর কান্তি দাশ (৮৪-৯০)

    আমার মন্তব্য না করার দুটো কারণঃ
    ১। এধরণের লেখার ভেতরে চলে গেলে একধরণের হাহাকার তৈরী হয়। 'হেরে গেছি' বোধে আক্রান্ত হয়ে থাকা আমার ভেতর থেকে কোন কথা বের হতে চায়না।

    ২। 'কোথাও একটা শুরু করতে হবে' - এ আপ্তবাক্যে আজীবন বিশ্বাসী আমি নিজেই আর শুরু করে উঠতে পারলামনা। নিজেকে দর্পণের মুখোমুখি দাঁড় না করিয়ে তাই পলায়নপরতায় মত্ত থাকা।

    জবাব দিন
    • পারভেজ (৭৮-৮৪)

      "নিশ্চিত পরাজয় জেনেও যে যুদ্ধ করে সেই তো সংশপ্তক"
      কেউ সংশপ্তক হতে চায় না। আমিও না।
      জানি, কিছুই হয়ত হবে না এইসব লিখালিখিতে, তারপরেও লিখে যাই, এই আশায়, কেউ কেউ তো ভিন্ন কিছু ভাবতে শুরু করতেও পারে।
      দেখি না লিখে, যদি কেউ অন্যরকম কিছু ভাবনার খোরাক পায়?
      আজ না হোক, একদিন হয়তো তা থেকেই বড় কিছুর সুত্রপাত হবে।
      কি জানি?


      Do not argue with an idiot they drag you down to their level and beat you with experience.

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।