জীবন থেকে নেয়া……

১।

আমি আর আমার বউ কয়েকদিন আগে গেছিলাম সুন্দরবন। সেইখানে অপথালমোলজিস্ট তৌহিদ ভাই একটা চুটকি শুনিয়েছিলেন। চুটকিটা যেহেতু উনি শুনাইছিলেন, ফাটা কেউ দিতে চাইলে উনারে প্রতি নিয়ত কইরা দিয়েন, আমার কোন দায়-দায়িত্ব নাই।

এক লোক একবার কোথায় যেন যাবে, তাই বাস স্ট্যান্ডে গিয়ে কাউন্টারে টিকিট চাইল। কাউন্টারম্যান তারে বলল, ফার্স্ট ক্লাস, সেকেন্ড ক্লাস আর থার্ড ক্লাসের টিকিট আছে। কোনটা চান? ভদ্রলোক নিজেকে সুশীল ভাবতেন, ফার্স্ট ক্লাস ছাড়া তাকে ঠিক মানায় না। অতএব তিনি ফার্স্ট ক্লাসের টিকিট কেটে বাসে উঠলেন। কোথায় ফার্স্ট ক্লাসের সিট বুঝতে না পেরে হেলপারকে জিজ্ঞেস করলেন ফার্স্ট ক্লাসের লোকজন কোথায় বসবে। হেলপার বলল, যেইনে খালি পান, ওইনেই বইয়া পড়েন। ভদ্রলোক একটু মনক্ষুন্ন হলেন, কাউন্টার ম্যান তার সাথে এইরকম বাটপাড়ি করল! সিটের ঠিক ঠকানা নাই আবার ফার্স্ট ক্লাসে ডবল দামের টিকিট। দুইন্নাতে কোন ইন্সাফ নাই – এই সিদ্ধান্তে উপনীত হয়ে তিনি বেজারমুখে একটা খালি সিটে গিয়ে বসলেন। যথারীতি বাস ভরে উঠলে বাস ছেড়ে দিল। একটু কিছুদূর যাওয়ার পরেই বাস নষ্ট হয়ে গেল। ভদ্রলোকের মেজাজ তখন সপ্তমে, একে তো ফার্স্ট ক্লাসের টিকিট বলে জোচ্চুরি করেছে, এখন আবার বাস নষ্ট। সুশীলরা নেহায়েত রাগ-ফাগ বেশি দেখান না, অর্ধশিক্ষিত হেলপার-ড্রাইভারদের সাথে তো নয়ই। তাই নিজের সিটে বসেই ফুঁসতে লাগলেন। তার মেজাজ অবশ্য একটুক্ষণ পরেই ঠান্ডা হয়ে গেল যখন শুনলেন হেলপার চিৎকার করে বলছে, যারা থার্ড ক্লাস তারা নিচে নাইমা আমার সাথে বাস ঠেলেন। যারা সেকেন্ড ক্লাস তারা নিচে নাইমা গাবগাছটার তলায় খাড়ান। আর যারা ফার্স্ট ক্লাস তারা টাইট কইরা সিটে বইয়া থাহেন।

২।

আজকে আটটা বাজার পাঁচ মিনিট আগে জাতীয় জাদুঘরের সামনে গিয়ে হাজির হইলাম। কামরুল ভাই নির্দেশ দিছেন বাসওয়ালাকে ফোন করে বাসটা ঠিক জায়গায় এনে পার্ক করাতে হবে। বাসওয়ালা আগে থেকেই ঠিক জায়গায় বসে ছিল, তাই কিছুই করতে হল। যদিও বাস ছাড়ার কথা সাড়ে আটটায়, বাসের হেলপার-ড্রাইভাররা সাড়ে সাতটাতেই নাকি চলে এসেছেন। অপেক্ষার সময়টা একটু আনন্দময় করতে তারা বাসের টিভিতে মোচুয়া এক নায়কের কি জানি একটা ছবি দেখছিলেন। ক্যাডেটরা খুব পাংচুয়াল আমরা সবাই জানি, তাই নির্ধারিত সময়ের মাত্র আধঘন্টা পর যখন যাত্রা শুরু করা হল। কিন্তু একি! বাস স্টার্ট নেয় না! ড্রাইভার হেলপাররা এটা ওটা টিপেটুপে শেষে বললেন সিডি দেখে ব্যাটারি ডাউন, তাই বাস ঠেলতে হবে। হাজার হলেও সিসিবি পিকনিক বলে কথা। তাই একপাশে রায়হান আবীর, অন্যপাশে আমিনকে নিয়ে ঠেলা শুরু করলাম বাস। আহসান আকাশও মনে হয় ছিল বাস ঠেলা পার্টিতে। আমাদের সম্মিলিত শক্তিতে বাসটা স্টার্ট নিয়ে নিল।

জীবনে এখন পর্যন্ত অনেক কিছু করি নাই। তিন প্রহরের বিল দেখি নাই, বোষ্টমের গানের অন্তরা শুনি নাই, দুরন্ত ষাঁড়ের চোখে লাল কাপড় বাঁধি নাই। মাগার বাস তো ঠেলছি 😀 সবাই তো আর এইটা পারে না… ;;;

২,০৩৫ বার দেখা হয়েছে

৩৩ টি মন্তব্য : “জীবন থেকে নেয়া……”

  1. শাওন (৯৫-০১)

    প্রথম...


    ধন্যবাদান্তে,
    মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শাওন
    প্রাক্তন ক্যাডেট , সিলেট ক্যাডেট কলেজ, ১৯৯৫-২০০১

    ["যে আমারে দেখিবারে পায় অসীম ক্ষমায় ভালো মন্দ মিলায়ে সকলি"]

    জবাব দিন
  2. শাওন (৯৫-০১)

    সিরাম বাস ঠ্যালা হইছে মনে হয়...। 😀


    ধন্যবাদান্তে,
    মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান শাওন
    প্রাক্তন ক্যাডেট , সিলেট ক্যাডেট কলেজ, ১৯৯৫-২০০১

    ["যে আমারে দেখিবারে পায় অসীম ক্ষমায় ভালো মন্দ মিলায়ে সকলি"]

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।