কিংকর্তব্যবিমূঢ় …

টুশকি আর পুশকিকে দেখে আমিও এট্টু দুঃসাহস দেখানোর ট্রাই দিলাম 😡

১। ডাইনিং হলে অনেকবার বলার পরও টেবিল লিডারের পারমিশন ছাড়া খাবার নষ্ট করায়, কোন এক জুনিয়রকে আধাঘন্টা পাঙ্গা এবং উপদেশ শুনতে হলো। অতঃপর ওর লকার পার্টনার (গাইড) বিরক্তি সহকারে জিজ্ঞেস করলেন, “এক কথা কতবার বলতে হয়, তুমি কোন কথা একবারে বুঝো না?” জুনিয়রের সরল প্রত্যুত্তোর, “বুঝতে পারলাম না, ইয়েস প্লিজ। 😮 (ঝকক এর রীতিতে সব বাক্যের শেষে ইয়েস প্লিজ বলতে হয়)

২। ক্লাস ১২ এ থাকতাম ২তলায়। আমাদের রুমে আমি আর শাকিল। তো একদিন লাইটস অফের পর শাকিল বাথরুমে গোসল করছে আর হেড়ে গলায় সঙ্গীতের অপচর্চা চালাচ্ছে (যদিও আমার থেকে ওর গলা ভালো), আর আমি ব্যালকনিতে দাঁড়িয়ে। হঠাৎ নিচে থেকে হাউস মাষ্টার আহসানুল কবীর স্যারের হাক শোনা গেল, ” কী ব্যাপার রকিব, লাইটস অফের পর জু্নিয়ের পানিসমেন্ট দিচ্ছো নাকি, জুনিয়র কাদছে কেন?” :-/

৩। এস,এস,সি ক্যান্ডিডেট থাকা অবস্থায় কলেজে নতুন ক্লাস সেভেনের আগমন ঘটলো। তাদের প্রথম ডিনারেই দিয়েছে খাসির মাংস। আমাদের খাসির মাংসের ইলাস্টিসিটি খুব প্রবল ছিল। ডিনার শুরু হবার পর টেবিল লিডার খালিদ ভাইকে (১৯৯৯-২০০৫) বলছি, “এটাকেই মনে হয় টাইমিং বলে, ক্লাস সেভেন-এর প্রথম ডিনারেই রাবার দিয়েছে, কখন যে ওদের প্লেট থেকে ছিটকে এদিক সেদিক পড়বে।” হঠাৎ আবিষ্কার করলাম টেবিলের সবাই আমার দিকে কৌতুক-মিশ্রিত দৃষ্টিতে তাকিয়ে আছে। তাকিয়ে দেখি কখন যেন আমার এক টুকরা মাংস লাফ দিয়ে খালিদ ভাইয়ের প্লেটে জমা পড়েছে। :bash: ~x(

৪। সাবওয়েতে করে ভার্সিটি থেকে আসতেছি। আমাদের উলটো পাশের সিটে দুই ভদ্রমহিলা বসে আছেন। সঙ্গের বন্ধু আস্তে আস্তে জিজ্ঞেস করল, “দোস্ত, এরা কী বাঙ্গালি?” কেন যেন মনে হল না। তো কিছুক্ষণ পর ও আর আমি একটা সেন্সরড বিষয় নিয়ে আলাপ করা শুরু করলাম, এবং যথারীতি বন্ধুপ্রবর তার খাটি ঢাকাইয়া ভাষায় সুধাবর্ষন চালাতে লাগলো। আমাদের গন্তব্যে নেমে যাবার জন্য যেই দাড়িয়েছি, ওমনি মহিলাদ্বয়ের একজন আরেকজনকে উদ্দেশ্য করে স্পষ্ট বাংলায় বলছেন, “আজকালকার ছেলেপিলেগুলো কোন মুরুব্বীই মানে না!!!!” :chup: :chup:

৫। কলেজ থেকে ছুটিতে ঢাকায় যেতে আমাদের ফেরীতে পদ্মা পাড়ি দিতে হতো। একবার ফেরীর ৩ তলায় উঠে খুব ভাব নিয়ে ঝালমুড়ি আর ডিম খাচ্ছি, এমন সময় শুনি পাশ থেকে এক পিচ্চি তার বাবাকে জিজ্ঞেস করছে, “আব্বু, ওরা কে?” বাবার জবাব, “ওরা ছোট পুলিশ (এক্কারে সিভিলিয়ন বানায় দিল :thumbdown: )।” সাথে সাথে পিচ্চির পোংটা উত্তর, “না বাবা, তুমি চেনোনি, ওরা দারোয়ান আঙ্কেল।” :bash: :chup:

৩,৭৯৭ বার দেখা হয়েছে

৬২ টি মন্তব্য : “কিংকর্তব্যবিমূঢ় …”

  1. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)

    স্লামডগ,
    ব্যাপক ভালো হইসে... :thumbup:
    এখন শুধু 'টুশকি' অথবা 'পুচকি' টাইপের একটা ঝাক্কাস নামকরণ দরকার... 😀


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন
  2. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)

    "ছোট পুলিশ"

    :pira:

    আমারও এই কাহিনী আছে। গ্রামে বাড়ি, মাতির রাস্তা দিয়ে রিক্সায় করে যাচ্ছিলাম বাহাদুরাবাদ ঘাটে, ওখানে থেকে ফেরিতে করে রংপুর। ঘাটের কাছাকাছি গেছি। এমন সময় এক বাড়ি থেকে এক লোক ট্যা ট্যা করে কান্নারত এক বাচ্চা কোলে করে বের হএ আসল। আমারে রিক্সায় দেখেই সেই লোক পিচ্চিরে বলল, 'ওই যে পুলিশ'!- অবাক হয়ে দেখি, পিচ্চি কান্না থামায়ে দিছে :))


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন
  3. কামরুলতপু (৯৬-০২)
    ক্লাস ১২ এ থাকতাম ২তলায়। আমাদের রুমে আমি আর শাকিল।

    তুমিও ১২ এ পড়তা ? কেমনে কি তোমাকে তো পিচ্চি বইলা ভাবতেছি এতদিন। (চামে একটু সিনিয়রের ভাব নিলাম)
    মজা পাইছি বেশ। দারোয়ান তো তাও ভাল আমাদের এক ক্লাসমেটকে এসে ট্রেনে এক মহিলা বলতেছিল এই যে আপনাদের ট্রেনের টয়লেটে বদনা নাই কেন?

    জবাব দিন
  4. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    রকিব, লেখায় এত ইমো দিছস...এডু কিছু কয় নাই??? ;;;

    লেখা পইড়া মজা পাইছি, বেশি বেশি লিখছ না কেন??? :chup:
    আর মুরব্বিদের মানিস না, এইডা তো ঠিক না... :thumbdown:


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
    • রকিব (০১-০৭)
      মুরব্বিদের মানিস না, এইডা তো ঠিক না… :thumbdown:

      হায় হায়, এখন এই বদনাম !!! :(( :((

      রকিব, লেখায় এত ইমো দিছস…এডু কিছু কয় নাই???

      মডারেশনের জন্য জমা দেওয়ার আগে এট্টু ফ্রি চা-বিস্কুট খাওয়াইছিলাম তো... 😀 😀


      আমি তবু বলি:
      এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

      জবাব দিন
  5. ইউসুফ (১৯৮৩-৮৯)

    নাহ! আর পারলাম না। এত মিজা পিলাম।

    রকিব, আমি নিজে তোমার জন্য আলগা পাত্তি দিয়ে চা নিয়ে এলাম। খেয়ে নাও তাড়াতাড়ি।

    খবরদার! আর কেউ আমার কাছে চা চাবে না....(কেউ কেউ এই কমেন্টের পর "ইয়ে মানে ইউসুফ ভাই....আমার জন্যও এককাপ" এই টাইপের কিছু লেখার সাহস পেতে পারে এই জন্য ওয়ার্নিং দিলাম)

    জবাব দিন
  6. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    জটিল জটিল :)) :))
    হাসতে হাসতে পিরা গেলাম বহুদ্দিন পর, মিরা প্রায় গেছিলাম আরেকটু হইলেই =)) =))
    সেইরকম মিজা পাইছি :thumbup: :thumbup:
    লেখাটার জন্যে সিনিয়র মহল থেকে চা পাওনা হইয়া গেলো রকিবের 😀 ইয়ে মানে ইউসুফ ভাই….রকিবের জন্যও ;;; ......... বস্‌ নিজের জন্যে চাইনাই কিন্তু :no: :no:
    আগেই শুরু করে দিলুম :frontroll: :frontroll:

    :thumbup: :thumbup:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  7. রাব্বি (১৯৯৮-২০০৪)

    ক্লাস ১২ এর কাহিনি। আমার এক দোস্ত সহকারি হাউস লিডার হইসে। আমাদের ভাসানি হাউসের রঙ ছিল নিল। আর সহকারি হাউস লিডার এর জন্য একটা তারা। তো দোস্ত তার লিডার হবার ছবি বাড়ী আইসা তার মনের মানুষ রে দেখাইলো। পরের দিন তার জান পাখি রে নিয়া ভালই ভাব মিরা এপারট'মেন্ট এ ডুক্তে গিয়া দেখে দারোয়ান খাকি জামার সাথে কাধে নীল এপুলেট এ তারা নিয়া খারাইয়া আসে।
    ভাইএরা বুইসছেন তো জান পাখি তখন কোকিল কন্ঠে কি ডাকটাই দিসিলো।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।