জন্মদিন বিভ্রাট, ছড়াহামলা, অতঃপর একটি প্রায় হৈতে চলা সম্পর্কের(প্রায়) অপমৃত্যু

ব্লগে চা বিক্রি করি প্রায় বছরখানেক। সততা আর নিষ্টার সাথে ভেজাল মুক্ত খাঁটি গরুর দুধ (দুধ খাঁটি এইটা কই নাই) দিয়া চা বানায়া ভালোই টু-পাইস কামাচ্ছি। দোচালার টিনের বেড়া দেয়া দোকানটাও বেশ সিমেন্টের বেড়া পেয়ে গেছে। মাঝখানে আবার কামরুল ভাইয়ের অনুরোধে একখান সিনেমায় নায়কের ভূমিকায় অবতীর্ণ হইছিলাম, বছর শেষে ঐটারে নাকি অস্কার না বহিষ্কার কি যেন একটা দিছে। যাই হোক নিজের প্রশংসা করতে চাই না।
ইচ্ছা ছিল, জীবনে বান্ধা গরু হমু না, :just: ফ্রেন্ডদের খপ্পরে পড়া যাবে না। কিন্তু কথায় আছে না, অনেকগুলা জিনিস আল্লাহর হাতে; এই যেমন ধরেন প্রেম, মোহাব্বত, বান্ধা পড়া। কী হইতে কী হলো। একদিন সাত সকালে চা দিতে গিয়ে মাসরুফ ভাইয়ের কাছে শুনলাম উনার :just: শ্যালিকার গপ্পো। সেই দিন থেকেই শয়নে -স্বপনে, কারণে অকারণে শুধু তারেই দেখি। চা বানাইতে গেলেই উদাস হইইয়া চিনির বদলে লবণ, জেট পাউডার ঢাইলা দিছি ২-৩ দিন। কেটলি থেইকা যখন ধোয়া উঠে ঐ ধোয়ার মেঘে আমি বড়ই সোন্দর্য মাখা তার মুখের ছবি কুইজা পাই। দুই-একখান কবিতাও লিখছিলাম, কেউ বেইল দিলো নাঃ

একবার ডাক দিয়ে দেখো আমি কতোটা কাঙাল,
কতো হুলুস্থূল অনটন আজম্ন ভেতরে আমার।

তুমি ডাক দিলে
এটো সব চায়ের কাপ ঝেড়ে মুছে
কেটলীর শিসের শব্দের অধিক দ্রুত গতিতে পৌছুবো
পথে এতোটুকু দেরিও করবো না।
তুমি ডাক দিলে
চায়ের দোকান খালি পড়ে রবে,
তুমি রাজি হলে
যুগল আহলাদে এক মনোরম রেস্টুরেন্ট বানাবো।

একবার আমন্রণ পেলে,
(না পেলেও)
সব কিছু ফেলে
তোমার উদ্দেশে দেবো উজাড় উড়াল,
অভয়ারণ্য হবে কথা দিলে
লোকালয়ে থাকবো না আর
আমরণ তোমার হাতের চায়ের কাপ হয়ে যাবো,
-রবো টি-বয় তোমার।

জিগরি দোস্ত মিচকা মিয়ারে দেখাইতে ও কইলো এইটা নাকি কই যেন দেখছে আগে; শালার বাঙ্গাল, ওর আবার এট্টু মেমেন্টো রোগ আছে।

কিন্তু সুখের স্বপ্নের আয়ুকাল এট্টু কম ছিল। আর তাই বাংলা সিনেমার ভিলেনের মতো স্টিমার এম ভি ঠাইঠানিক নিয়া একদিন পদ্মা পাড়ের দেশ থেইকা আগমন ঘটলো পাশের রাজ্যের সওদাগারপুত্র মাহমুদ মিয়া(ভাই) আর মির্জা বাড়ির বড় পোলা ভটভটিম্যান রেজওয়ান ভাইএর। পত্থমদিনই আমার চায়ের দোকানে চাদাবাজি কইরা আমার একশত পঁচপাত্তর ট্যাকা টেরানব্বই পয়সা রাইখা নতুন কেনা শরীফ মেলামাইনের চায়ের পিরিচটা নিয়া গেলেন দুইজন। আমি কিছুই কইতে পারলাম না। মেহেদী ভাইরে ফোন দিয়া সাহায্য চাইছিলাম, উনি উলটা জিগায় আগের মাসের বখরা কই 😕 😕 ।

কেমনে কেমনে জানি উনারা দুইজনই একদিন মাসরুফ ভ্রাতার(প্রায় সাবেক ভায়রা ভাই) কাছে থেকে জাইনা গেলো আমার রাজকন্যার কথা। আর যায় কই, পারলে ভটভটি আর ঠাইঠানিক লইয়া তখনি উড়াল দেয়। বহুত কষ্টে বুঝাইয়া রাজি করাইলাম দুইজনরে। শান্তিচুক্তি হইলো; মাহমুদ ভাইরে দিতে হইবো শাবনূর আর রেজওয়ান ভাইরে মল্লিকা আপা। জানি অনেকের দিলে চোট লাগবো তাও মাইনা লইলাম নিজের দিলরুবার কথা ভাইব্যা। তারপর সব ঠিকঠাক চলছিল। কিন্তু বিধাতার আর এই সুখ যেন সহ্য হইলো না। ফেসবুক নামের এক আজাইড়া জায়গায় চা ডেলিভারি দিতে গিয়া দেখি কামরুল ভাইয়ের জন্মবার্ষিকী থুক্কু জন্মদিন সমাগত প্রায়। অতঃপর ভায়রা ভাইরে জিগাইলাম, “দু’দিন পর ডাইরেক্টর সাহেবের জন্মদিন, একখান পুষ্ট নামান।” কিন্তু তাড়াহুড়ায় ২ দিনের জায়গায় ২ ঘন্টা উইঠা গেলো মেসেজে। ফেসবুকরে :gulli2: :gulli: তারপরের কাহানী টি-স্টল কি তো সবার জানা।ফুলের তোড়া লইয়া শুভ ইচ্ছা দিতে গিয়া মাস্ফ্যু ভ্রাতা (ভায়রা ভাইয়ের লাইসেন্স সিজ হইছে) খাইলেন ধামাক্কা। কামরুল ভাই উনারে নাকি ক্যামেরার ট্রাইপড নিয়া তাড়া করছিলো আর কইছে, “তেরা ক্যায়া হোগারে কালিয়া, মেয়নে দো দো নিঠুরিয়া কাঠুরিয়া রেন্ট কারলিয়া তুঝে কাট ঢালনে কে লিয়ে।”

এরপরের ঘটনা আরো নির্মম, হাতের কাছে রুমাল রাইখেন, চোক্ষের পানি ঠেকাইতে পারবেন না (যারা পানি সঙ্কটে আছেন উনারা বদনা, বালতি, বোতলে পানি মজুদ কইরা রাখতে পারেন প্রয়োজনে ব্যবহারের জন্য)। কামরুল ভাইয়ের থ্রেটে মাস্ফ্যু ভাইয়ের কি হইবো তা তো জানি না, কিন্তু আমার তো যো হোনা থা, ও হো গ্যায়া। বিশাল বিশাল দুইখান ছড়া-কুড়াল লইয়া দুই সুপুরুষ আসিয়া মাস্ফ্যু ভাইয়ের সামনে খাড়াইলো। তারপর ইয়া আলী বইলা উনার ইজ্জতের ফালুদা বানাইয়া আমার চায়ের দোকানের সামনে রেস্টুরেন্ট দিয়া বেচতে শুরু করলো। আর মাস্ফ্যু ভাইয়ের কাটা দেহটা গিয়া পড়লো আমার মাথার উপর :(( :(( । জনসমুক্ষে ঘোষণা দিয়া উনি আমারে প্রায় হয় হয় সম্পর্কের বাধন (দুইদিন আগেই উনি কইছিলেন- এ বাধন যাবে না ছিড়েএএএএ) থেইকা নিষ্কৃতি দিয়া দিলেন :no: :no: :no: ।
এই দুষখে অলরেডি একখান কবিতা লেইখা ফেলছিঃ

ইচ্ছে ছিলো তোমাকে সম্রাজ্ঞী করে সাম্রাজ্য বাড়াবো
ইচ্ছে ছিলো তোমাকেই সুখের পতাকা করে
শান্তির কপোত করে হৃদয়ে উড়াবো।

ইচ্ছে ছিলো সুনিপূণ সেলসম্যানের মতো
চায়ের কাপে সাজাব তোমার ঘরের কোণা।

ইচ্ছে ছিলো চামচের ঠন ঠন শব্দ তুলে
ছোট্ট কাপে ঝড় তুলবো,
জন্মাবধি জ্বলতে থাকা
কেটলির তলার আগুন
তাপ নেবে তোমার দু’চোখে।

ইচ্ছে ছিল রাজা হবো
তোমাকে ম্যানেজার করে পাচতারা হোটেল বানাবো,
আজ দেখি হোটেল আছে
ম্যানেজার আছে
ইচ্ছেও আছে,
শুধু তুমি অন্যের ঘরে।

আমি শিউর, মিচকা হালায় এইটা দেইখাও কইবো আগে কই যেন দেখছে, পুরাই আউলা মাথা।

যাই হোক, ভাবতেছি জীবন আর রাইখা কি হইবো। কই ভাবছিলাম, দুইদিন পর ঘরে বউ আনমু, আপনাদের দাওয়াত দিমু; কীসের কী। কয়দিন আগেও মনিকা বেলুইচ্ছি (লিউনাস্কি না) আমারে কইছিল ওর সাথে ডেটে যাইতে। সাফ মুখের উপর না কইরা দিছিলাম মাস্ফ্যু ভাইয়ের কথা ভাইবা। আফটার অল, উনার ভায়রা ভাই, স্ক্যান্ডাল ছড়াইলে উনার হাতেও স্যান্ডেল খাইতে হইতে পারে। আর উনি একবারো আমার কথাটা ভাবলো না। যাই হোক যদি এই পুষ্ট পইড়া উনার এট্টু দয়া হয় (উনি দয়ার সাগর, এখন প্রচন্ড গরমে সাগর শুকাইয়া না গেলেই হয়), অগাছার মতো উনার মহীরূহের মতো বিশাল কায়ার ছায়ায় বেড়ে ওঠা এই বিরুৎ শ্রেণীর উদ্ভিদটার প্রতি যদি এট্টুও মন গলে তাইলে আপনারা এট্টা পাট্টি পাইতে পারেন সিসিবিতে। কসম কইরা কইতেছি জীবনেও আপনার স্ক্যান্ডালের কাহানী কাউরে কমু না, ভাবীরেও না। আর নাইলে, নাইলে, নাইলে কিন্তু আগের ছয়বার যেমন নতুন একজনরে ধরছিলাম এইবার কিন্তু তা করুম না, সিধা চুইচাইড খামু। আমি মইরা যাওয়ার আগেই জিহাদ ভাই, মাহমুদ ভাই আর ডেলোয়াড় ঝাহান জন্টু ভাই থুক্কু কামরুল ভাই উনারে এট্টু বুহজান। গুণতে শুরু করলাম কিন্তু। এএএএ………ক, দুউউউউউউউই, সোয়া দুইইইইইইইইইইই, সাড়ে দুইইইইইইইই, সাড়ে দুইইইইইইইইইই পয়েন্ট পাঁচ, পৌনে তিইইইইইইইইইইই…ন………… (টাইপিং বিভ্রাটের জন্য পরের সংখ্যা আর গুনতে পারতেছি না… :gulti: মাস্ফ্যু ভাই কি আইছে? :-/ :-/

মাস্ফ্যু ভাই আসতে আসতে আপনারা গান শুনেন :guitar:

Get this widget | Track details | eSnips Social DNA

(ডিসক্লেইমারঃ হেলাল হাফিজের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি উনার কবিতাকে ব্যাড়াছেড়া করার জন্য।
বিরক্তি উদ্রেক করার জন্য ক্ষমাপ্রার্থী সবার কাছে। 😀 😀 )

৬৯ টি মন্তব্য : “জন্মদিন বিভ্রাট, ছড়াহামলা, অতঃপর একটি প্রায় হৈতে চলা সম্পর্কের(প্রায়) অপমৃত্যু”

  1. তৌফিক (৯৬-০২)

    :clap: :clap: :clap:

    সাবাস রকিব। তোর গত তিনটা পোস্টই চমৎকার হইছে। একটার থেকে আরেকটা জটিল। হাসতে হাসতে পিরা গেছিলাম প্রায়। প্রেমজ্বর কাটানোর জন্য এডভিল নাইলে টাইলানল খা। আর এইরকম লেখা দিতে থাকলে মাইয়ারা সব মার মার কাট কাট করে তেড়ে মেরে তোর সাথে প্রেম করতে আসবে।

    বহুত চা দিলি সবাইরে, এইবার একটু ঠান্ডা হয়া বস। আমিই তোরে চা দেই।
    :teacup:

    অফটপিকঃ রবিন ভাইয়ের পোস্টে একটা ইউটিউব ভিডিও দিয়া আসছি। দেখ এই রকম কইরা কোন কাহিনী ঘটাইতে পারস কিনা। 🙂

    জবাব দিন
    • রকিব (০১-০৭)

      হ্যা, এইটা দেখছিলাম, চরম একখান ভিডিও। আর ব্যাপার হলো তিনি থাকেন ঢাকাতে আর আমি এইখানে; এত্তদূর থেইকা কেমনে সাইন দেখাবো 😕 😕
      আর এসব বলে কি হবে ক্রসফায়ারে পইড়া আমি তো শ্যাষ।


      আমি তবু বলি:
      এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

      জবাব দিন
    • রকিব (০১-০৭)

      রকিব (০১-০৭) বলেছেন:

      জুন ১১, ২০০৯ ‌, ১২:৫৩ পূর্বাহ্ন
      মাস্ফ্যু ভাইইইইইইই, আপনার শ্যালিকার প্রতি আমার ব্যান তাইলে উঠাইয়া নিছেন
      [জবাব দিন ]

      মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩) বলেছেন:
      জুন ১১, ২০০৯ ‌, ১:০০ পূর্বাহ্ন
      উঠাই নিছিলাম কিন্তু জিহাদের কবিতা পইড়া বযান আবার জারি হইছে
      [জবাব দিন ]

      আপনি আমার কি সর্বনাশ করলেন এইটা :(( আম্মা দেইখা যাও তোমার বউ আসার আগেই জিহাদ ভাই ভাগাইয়া নিয়া গেলো 😕


      আমি তবু বলি:
      এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

      জবাব দিন
  2. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    তোর প্রেম হইলো কি হইলো না সেইটা বেলাডি জামাই বুঝবে।

    আমার সোজা কথা, আমি তোরে আর জামাইরে খুন করুম। x-( তোদের চামড়া ছিল্যা লবন লাগাইয়া দিমু। আয়োডিনযুক্ত মোল্লা লবন।

    ভুল ইনফরমেশন দিয়া পুরা সিসিবিতে ক্যারাব্যারা লাগাইছিস, আমি তোদের ছাড়ুম না বদমাইশের দল । x-(


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  3. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    পুরাই জটিল... :just: :hatsoff: :just: :hatsoff:

    রকিব পোলাডা দেখি দিন দিন পুরা মাল হয়া উঠতেসে।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  4. সামি হক (৯০-৯৬)

    রকিব হাজার হলেও তুমি আমার দেশী ভাই (কানাডায় থাকি না দুইজনে) 😀 এত্তো চিন্তা করো ক্যান চা খাও মিয়া... আর আমাদের জামাই কিছু না করলে নাই ওর শশুড় মশাইতো আবার আমাদেরই বড় ভাই সেইদিক দিয়া আমরাও ওর শশুড় তোমারে জামাইয়ের ভায়রা ভাই বানায়ে দিব, আর কামরুল কে নাহয় কয়েকটা সিনেমা দিয়ে বসায়ে দিব ওই দেখে ওর মন মেজাজ ভালো হয়ে যাবে তোমার উপরে। 😀

    জবাব দিন
  5. রায়হান আবীর (৯৯-০৫)
    দুই সুপুরুষ আসিয়া মাস্ফ্যু ভাইয়ের সামনে খাড়াইলো। তারপর ইয়া আলী বইলা উনার ইজ্জতের ফালুদা বানাইয়া আমার চায়ের দোকানের সামনে রেস্টুরেন্ট দিয়া বেচতে শুরু করলো।

    =)) =))

    জবাব দিন
  6. তানভীর (৯৪-০০)

    রকিব......এত চিন্তা কইর না। তোমার চেয়ে সুপাত্র আর খুঁজে পাবে না। আমি তো আছিই তোমার সাপোর্টে। জামাই মাস্ফ্যু ছেলে ভাল, দেখবা ওর রাগ আস্তে আস্তে কমে যাবে। আর আমরা তো তোমার ব্যাপারে সুপারিশ করবই। 😀 😀
    তুমি পোলাটা দেখি কঠিন মাল। 😀 😀

    জবাব দিন
  7. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    দারুন দারুন :hatsoff: :hatsoff:
    রকিব ফাটায়া লিখছিস ভাইডি :thumbup: :thumbup:
    এই পোস্ট পড়লে জামাইয়ের শ্যালিকা নিজেই তোর হাতে ধরা দিবে বাচ্চু 🙂


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  8. নাজমুল (০২-০৮)

    তাহসিন মাসরুফ হোসেন মাসফি ভাই দেখেন আমি কিন্তু আপনার দলে রকিব ভাই কে এখিসেবে মাফ করা উচিত কিন্তু উনি তো এখানে আপনাকে সাপোর্ট না কইরা সিনিয়রের নামে বাশ মারলো 😮
    আপনে তো এখন চাইলেও আমার বড় ভাই রকিব ভাইরে আর দিতে পারবেননা।
    আপনার শালিকাকে
    আমার জন্য নিজে লাভ গুরু হইতে গিয়া কবিতা পাইলেন তাহলে আর বাকি রাখবেন ক্যান আমার সাথে আপনার শালিকার একটা মিলমিশ করাই দিয়া প্রমাণ কইরা দ্যান :shy:
    যদিও আমার এরকম কোনো ইচ্ছা ছিলনা কিন্তু কি আর করা সিনিয়রের নামে ভাই বাশ মারলো পুরা ব্লগে আবার লিঙ্ক ও শেয়ার করসে ফেসবুকে 😮
    রকিব ভাই কি আর করা 🙁

    জবাব দিন
  9. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    নাহ এই লেখাডা এত্ত ভাল লিখছে যে রকিব পোলাডারে(সাধু ভাষায় অতন্দ্র/অনিদ্র/প্রহরারত) ক্ষ্যামা কৈরা দেওন যাইতে পারে-কি কন আপনেরা?পুরা ফাটানি হৈছে পোস্ট,আর অনেক খাইটা খুইটা লিখছে এইটাও বুঝাই যাইতাছে

    জবাব দিন
  10. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    যাহ! তোকে মাফ করে দিলাম।

    জামাইরে আদেশ করতেছি রকিবের প্রিয়াকে রকিবের কাছে ফিরাইয়া দেয়ার জন্যে।

    না হইলে সামনের বার রকিব দেশে আসলে অরে নিয়া গিয়া জামাইয়ের শ্যালিকারে উঠাইয়া নিয়া আসুম, দেখি কে ঠেকায়। আমার ছোটভাইয়ের পছন্দ বলে কথা :grr:


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  11. মাহমুদ ভাইরে দিতে হইবো শাবনূর

    এই লাইনটা আগে খিয়াল করি নাইক্কা। রকিব, তোর জীবনে সুখের দিন আইছে বুঝতাছি; কারণ কামরুল হাসান ভাই আর মাসরুফ ভাইয়ের কথাবার্তা। কিন্ত শুইন্না রাখ, ভবিষ্যতে যদি আমারে নিয়া এইসব লিখিস-- তাইলে তোরে দাঁত ছাড়া ডেটিং করতে হবে কয়া দিলাম।

    x-( x-( x-( প্লায়ার্স দিয়া টাইন্না টাইন্না দাঁত তুইলা ফালামু তোর x-( x-( x-( যদি ফারদার এইসব বেলজ্জা বেগানা নারী নিয়া আমার লগে মশকরা করিস

    (তয়, বাংলার নায়িকাদের মধ্যে আমি ওরেই সবচেয়ে ভালা পাইতাম 😛 ):P

    জবাব দিন
  12. রেজওয়ান (৯৯-০৫)

    😮 😮 😮 😮 😮 😮 😮
    এই লেখাডা কেমনে আমার চোখ এড়াইয়া গেল ????? :bash: :bash:
    কই ছিলাম আমি তখন ???? ~x( ~x(
    রকিব্যা :duel: খাইছি তোরে :chup:
    মাস্ফ্যু দা রে জিগা......তেনার শ্যালিকার কথা আগে তোরে কইছে না আমারে 😡
    মাস্ফ্যু দা x-( আপনের একদিন কি আমার একদিন :duel:
    আমি দরকার হয় ভটভটি নিয়াই 😡
    কিন্তু তোর খবর আছে 😡 নজর হটা 😡 :duel:

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।