ধুলোমাখা শহর, ধুলোমাখা স্মৃতি – ০২

এবার এক রাজকন্যার গল্প বলি।

রাজকন্যার গায়ের রঙ সাদার কাছাকাছি। আয়ত আর মায়ামাখা চোখ। হাসলে গালে টোল পড়ে। কথা বলার সময় মাথাটা একটু একটু দুলে উঠে কি? বব কাট চুল। অন্য সব মেয়েদের মত রাজকন্যা মাথার মাঝখানে সিথি করে না। কারন বোধহয়, তাদের মাঝখানে সিথি করতে হয় না, বামদিকে সিথি করতে হয়। বার্ষিক ক্রীড়া কিংবা পিকনিকের দিন জিন্সের প্যান্ট পড়ে স্কুলে আসে। আমাদের মুগ্ধতা বাড়ে। পাশ দিয়ে হেটে গেলে অদ্ভুত একটা সুগন্ধ নাকে লাগে। আমাদের কচি মন অন্যরকম ভালোলাগায় ভরে যায়। রাজকন্যা এক গাদা সখী নিয়ে স্কুলের বারান্দায় নেচে নেচে হেটে বেড়ায়। গাড়ি নিয়ে স্কুলে আসে। গাড়ি এসে নিয়ে যায়।

আমরা এক একজন ডালিমকুমার, ব্যাঙকুমার, নীলকুমার, রুপকুমার। কেউবা মন্ত্রীপুত্র, কোটালপুত্র। স্কুলের সারা মাঠ পংখীরাজে চড়ে টগবগিয়ে ছুটে বেড়াই। সাই সাই করে তরোয়াল চালিয়ে হানা দেই ডাইনী বুড়ির রাজ্যে। গাছের মগডালে যাদুকরের লুকিয়ে রাখা লিচু আর আম চুরি করে আনি। আর আড়চোখে তাকাই রাজকন্যার দিকে। তার কালো চোখে আমাকে নিয়ে কোন মুগ্ধতা ফুটে উঠে কি?

আট অক্ষরের তিন শব্দের একটি ইংরেজী বাক্যের অর্থ কেমন কেমন করে জানি শিখে ফেললাম ক্লাস ফোরে। টিফিন পিরিয়ডে খুব পার্ট নিয়ে জানতে চাইলাম হাসিবুলের কাছে “বলতো I Love You মানে কি?” ত্যাব্দা চোখে তাকিয়ে থাকা তাকে বললাম “এইটার মানে হচ্ছে আমি তোমাকে ভালবাসি”। পিছন থেকে ক্যাক করে ঘাড় ধরে বসলেন এক ক্লাস উপরের আজাদ ভাই, ‘এই, তুমি এই পচা কথা কার কাছে শিখছ? দাঁড়াও আমি হেড স্যারকে যদি না বলি?” আমার মাথায় ভেসে উঠে সাদা চুল-দাড়ির শুকনো চেহারার পাঞ্জাবী পরিহিত স্যারের চেহারা। আর ও কি? স্যারের হাতে বেত কেন?…… আজাদ ভাইটা যে কি না একদম?

জুলফিকার চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিল “তুই যদি রাজকন্যাকে I Love You বলতে পারিস, তোকে পুরো এক টাকার চালতার আচার খাওয়াবো আমি”। মেঘের রাজ্যে আমি আমার পংখীরাজ চালাই, তীর ছুড়ে মেরে ফেলি ভুত, পেত্নী আর কত শত ডাইনী বুড়িকে। এর পর ঢুকে পড়ি সুনশান পাথর দিয়ে তৈরী রাজপ্রাসাদে। পেরেক-গাথা দানব আমাকে বলে দেয় রাজকন্যা কোথায় বন্দী আছে। আমি আবার ঘোড়া দাপিয়ে চলে যাই উত্তরে, কন কনে শীতের দেশে, উদ্ধার করে আনি স্বপ্নের মানুষটাকে। এর পর ঘোড়া ঘুরিয়ে রওনা দেই নিজ রাজ্যে, রাজকন্যার কানের কাছে মুখ নিয়ে বার বার বলতে থাকি I Love You, I Love You. পিছন পিছন আমাকে তাড়া করে জট পাকানো চুলের হেড স্যার মুখো আরেক ডাইনী, হাতে জাদুর বেত নিয়ে।

আমার আর চালতার আচার খাওয়া হয়ে উঠে না।

ক্লাস ফাইভের বৃত্তি টেষ্ট পরীক্ষা আর প্রথম সাময়িক পরীক্ষা একই সাথে হবে। মানে প্রথম সাময়িক পরীক্ষার বৃত্তির সাবজেক্ট গুলির নম্বর আলাদা যোগ করে প্রথম দিকের কিছু ছাত্র-ছাত্রীদের নির্বাচন করা হবে। পুরা ক্লাস জুড়ে সাজ সাজ রব। প্রথম পরীক্ষার দিন দম বন্ধ হয়ে গেল আমার। রাজকন্যার সিট পড়েছে একদম আমার পাশে। হায় হায়, কি পরীক্ষা দিব আমি এবার?

রেজাল্ট নিয়ে পুরো স্কুল জুড়ে হৈ-চৈ। প্রথম আমি হয়েছি, এটা ঘটনা না, রাজকন্যা চান্স পেয়েছে, এটাও ঘটনা না, ঘটনা হচ্ছে, রাজকন্যার অংক খাতার দুটো অংক অন্য কেউ করে দিয়েছে। এটা রাজকন্যার হাতের লেখা না। নিশ্চিত। অংক স্যার হাবিবুর রহমান আরও নিশ্চিত, হাতের লেখাটা আমার। আমি রাজকন্যার পরীক্ষার খাতার দুটো অংক নিজ হাতে লিখে দিয়েছি। আমি যতই অস্বীকার করি, তিনি মানেন না।

আমি ভাল ছাত্র বলেই হয়ত, কিংবা রাজকন্যার বাবা পুলিশের বড় কর্তা বলেই কিনা, পুলিশ লাইন স্কুলের শিক্ষক সমিতি ব্যাপারটা নিয়ে আর বেশি আগান না ।

অ…নে…ক, অ…নে…ক দিন আগের কথা। কত কিছুই ভুলে গেছি। মস্তিষ্কের কোষে জেগে আছে শুধু রাজকন্যার ছবি আর তার গায়ে লেগে থাকা সুগন্ধ।

৭,৭৯৭ বার দেখা হয়েছে

৮০ টি মন্তব্য : “ধুলোমাখা শহর, ধুলোমাখা স্মৃতি – ০২”

  1. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)

    বস,
    এতো সুন্দর হইসে যে, ভাষা হারায় ফেলছিলাম...
    তাই আগের কমেন্টের "..." গুলা মুগ্ধতার প্রকাশ হিসাবে... 😀

    আপনি পুরা একটা 'জিনিস', বস...
    :salute:


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন
  2. ছোট্ট বেলার প্রেম আমার কালো মেম কোথায় গেলে হারিয়ে 🙁 🙁

    নাহ! এইবার একটা প্রেম করতেই হবে, নইলে কয়দিন পরে তো বড় হইয়া যামু 😛 😛

    ফয়েজ ভাই, দিন দিন মুগ্ধ করেই চলেছেন। 😀 😀

    জবাব দিন
    • ফয়েজ (৮৭-৯৩)

      তোমরা যে রকম দেখছো তখন স্কুল এত বড় ছিল না। শুধু প্রাইমারী ছিল। আর বিল্ডিং ছিল ছোট একতলা। পিছনে পুলিশের ব্যারাক। সামনে বিশাল মাঠ।

      এখন তো অনেক বড় হয়ে গেছে স্কুলটা।


      পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

      জবাব দিন
  3. তাইফুর (৯২-৯৮)

    অসময়ে নাক গলানোর জন্য আজাদ ভাইয়ের ব্যান্নাচায়া থাকতে পারলাম না। ওইটা নাকি পচা কথা ...
    গল্পটা অসম্ভব ভাল লাগল ... রাজকণ্যাদের সিট সবসময় রাজপুত্রদের পাশে পরুক ... এই কামনায় ...


    পথ ভাবে 'আমি দেব', রথ ভাবে 'আমি',
    মূর্তি ভাবে 'আমি দেব', হাসে অন্তর্যামী॥

    জবাব দিন
  4. শরিফ সাগর (৯৭-০৩)
    আয়ত আর মায়ামাখা চোখ। হাসলে গালে টোল পড়ে। কথা বলার সময় মাথাটা একটু একটু দুলে উঠে কি? বব কাট চুল।

    আহা, কি সুন্দর উপমা!

    ভাইয়া, মস্তিষ্কের কোষে একটু কষ্ট কইরা সার্চ দিয়া দেখেন তো রাজকন্যার একটা ছোট্ট গজদাত আছিলো নাকি,কন্যা হাসলে যেটা অল্প দেখা যাইতো, টোল পড়া হাসিতে যোগ হইতো আরেক মাত্রা, যা বুঝানোর কোনো উপমা নেই......আহা,আহা 😉

    জবাব দিন
  5. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)

    বস,
    সকাল থিকা কমপক্ষে ৮-১০ বার আপনার এই পোস্টটা পড়সি...
    প্রত্যেকবারই আরো ভাল লাগতেসে... :boss:


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন
  6. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    মিস্টি একটা গন্ধ...................

    রাজকন্যারে নকলে সাহায্য করার জন্য রাজপুত্রের ভ্যান চাই!! :hatsoff: :hatsoff: :hatsoff:

    ইটি : কামরুল ছবি বানাইবা নাকি এইডা নিয়া? নাম হইতে পারে এই ধরো :
    "সিট পরলো সই তোমার পাশে"
    অথবা
    "রাজকন্যা ও অংককুমার"


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
    • “সিট পরলো সই তোমার পাশে” নামটাই বেশি পছন্দ হইছে। ওইটাই ফাইনাল। লাবলু ভাই শুভ মহরৎ অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি আপনি। 😉

      ফয়েজ ভাই, রাজকন্যার ফোন নাম্বার দেন। তার স্ক্রিন টেস্ট নিতে হবে। আর নায়ক চরিত্রে একজন হ্যান্ডসাম ছেলে খুজতেছি। পাইলে জানাইয়েন 😉 😉

      জবাব দিন
  7. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)
    “রাজকন্যা ও অংককুমার”

    :khekz: :khekz: :khekz:

    আর, 'অংককুমার' এর ছোট ভাই হবে আমাদের মাস্ফ্যু- :just: 'বন্ধুকুমার'


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন
  8. আহ্সান (৮৮-৯৪)

    বস,
    কি যে কমু বুইঝা উঠবার পারতাছিনা...
    ক্লাশ ওয়ান আর টু-তে খালি রাজকন্যারা আছিল...এরপর আজীবন খালি কুমারদের সাথেই দিন কাটছে...এই দুঃখে ম্যাট্রিকে আর ইলেক্টিভ ম্যাথ নেয়া হয়নাই...কারে অংক করামু? তয় ইন্টারে গিয়া আবার ম্যাথ নিছিলাম...যদি পরে কারো খাতার অংক করে দেয়ার সুযোগ পাই...। পরে অবশ্য অংক করছি... তয় ব্যাটম্যানের লগে... বিএমএ'তে আমার সেই ব্যাটম্যান আর আমি অংক করতাম, "বুটকালি ১২টাকা, বেলা বিস্কুট ১৮টাকা, বালুসা ৬টাকা, ফান্টা ১০টাকা......সর্বমোট ৪৬টাকা..."

    লেখা জটিল হইছে :boss:

    জবাব দিন
  9. সামিয়া (৯৯-০৫)

    নাহ, এই বয়সে মানুষের মাথায় এত কিছু থাকে কেমনে?? :no:
    কালকে এক সিনেমা দেখলাম, সাত আট বছরের এক পোলা লাভে পড়ছে, তারে আবার বাপে গাড়ি চড়ায়া এয়ারপোর্ট নিয়া গেছে যেন সে ওই পিচকিরে লাবিউ বলতে পারে। আমার বাপ হইলে তো... থাবর দিয়া... :gulli2: :gulli2:
    আমি ভাবলাম, হায় প্রভু, এরা পারেও।

    জবাব দিন
  10. রায়হান আবীর (৯৯-০৫)

    স্যাম বোধ হয় "লাভ একচুয়ালী"র কথা বললো।

    আপনার লেখা দেওয়ার সাথে সাথেই পড়ি। মন্তব্য করি পরে। কারণ মন্তব্য করতে গেলে, খালি একটা কথাই মাথাই আসে- খুব ভালো লাগলো, অনুভূতি ছুঁয়ে গেলো। একই কথা আর কতবার বলা যায় বলেন।

    প্রেমের সিনেমা দেখলে ঠিক যেমন অনেক্ষণ আবেশিত হয়ে থাকি, আপনার এই লেখা পড়েও তাও হলো। যদিও সিনেমার মতো হ্যাপি এন্ডিং হয় নাই, তাতে কী। আমার জীবনের অনেক কিছুরই হ্যাপি এন্ডিং হয় না। খালি স্মৃতিগুলো থাকে- সেগুলো হ্যাপি হয়ে জীবনের ক্ষণে ক্ষণে উকি মারে...আগেরটার চেয়ে এই পর্ব ভাল্লাগছে।

    প্রিয়তে...

    জবাব দিন
  11. মান্নান (১৯৯৩-১৯৯৯)

    বুয়েটে ১/১ এ এক রাজকন্যার পাশে সিট পড়ছিল। রাজকন্যার ইলেক্ট্রিক্যালের অংকটা করে দিয়েছিলাম।কিন্তু রাজকন্যার রাজকুমার (ততদিনে রাজকন্যা দখল হয়ে গেছিল) ব্যাপারটা ভালো চোখে দেখে নাই।

    আর বুয়েটের সিট এত দূরে দূরে পড়ে যে গায়ের গন্ধ পাওয়া দুস্কর।

    পোড়া কপাল আমার :((

    জবাব দিন
  12. ওবায়দুল্লাহ (১৯৮৮-১৯৯৪)

    বস,
    মাঝে ছিলাম না ক্যাম্পে।
    ফিরে এসে আগে পুরানো সিরিজটা শেষ করছি।
    তারপর আপনার বাড়ী এলাম।
    এসেই চমৎকার লেখাটা পড়লাম।

    আপনার ধূলোর ঝড়ে একেবারে উড়ে গেলাম ভাই। :clap:

    আমার স্বপ্নে দেখা রাজকন্যা থাকে
    সাত সাগর আর তের নদীর পাড়ে...
    :dreamy:


    সৈয়দ সাফী

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।