আউলা চিন্তা – সাবেক উপদেষ্টা, একজন বিশ্বাসঘাতক আর আমাদের বদলে যাওয়া

ভেবেছিলাম এই সিরিজের সমাপ্তি হয়ে গেছে। নানা কারনে। নিজেও অনেক “কুল ডাউন” হইছি। মাল মাল আইডিয়া গুলা সব মাথা থেকে ঝেটিয়ে বিদায় করে দিয়েছি। যা শালা, খাইট্টা খা।

কিন্তুক জিনিসটা আমার প্ল্যান মত হয় নাই। কোন বউয়ের ভাই কবে কি কথা কইছে, আজকে কি কথা কইছে এইটা নিয়া মাথায় আবার হিপোক্রেসীর খাইস্টা পোকাটা কিড়-কিড় কইরা মগজে কামড় দেয়া শুরু করছে।

আরে দূর, কি কইতে কি কই, আপনার বরং আগে এই রিপোর্টটা পড়েন। প্রথম আলো প্রত্থম পাতায় ছাপাইছে এইটা। পেপারে এনার তেল চক চকা একটা ছবিও ছিল, ই-ভার্সানে পাইলাম না।

দেখছেন কত্ত সুন্দর সুন্দর কথা কয় এই লোকে।

তা কইতেই পারে, সুশীল সমাজ, এসি গাড়িতে চইড়া ঘুরে, বাথরুমে তার এয়ার ফ্রেশনার লাগানো, তাই গন্ধ লাগে না। সুন্দর সুন্দর কথা এই লোক কইতেই পারে। কষ্ট নাই জীবনে।

আচ্ছা এবার আমাদের মাসুম ভাইয়ের এই ব্লগটা পড়েন। ডি আই জির নামটা চেনা চেনা লাগলে আমারে কইয়েন তো, এই দুইটা একই লোক কিনা?

তাইলে কোনটা আসল রূপ, ওইটা না এইটা, এইটা না ওইটা?

আপনার-আমার জন্মের অনেক অনেক দিন আগে রাজা কৃঞ্চ-কান্ত এক বিশাল সমস্যায় পড়ে গিয়েছিলেন। রাজ দরবারে এক বহু ভাষাবিদ পন্ডিত এসে অনর্গল একাধিক ভাষায় কথা বলা শুরু করলো। ভাষা, তা প্রায় দশ বারো হবে। কোনটা তার মাতৃভাষা কেউ বলতে পারে না। রাজা ডাকলেন গোপাল ভাড় কে। গোপাল ভাড় তুড়ি মেরে বললেন “এইটা কোন সমস্যাই না। পরেরদিন সকালেই সবার সামনে সে কবুল করবে তার আসল রূপ কোনটা।” পরেরদিন গোপাল ভাড় সবার আগে রাজ দরবারে এসে লুকিয়ে থাকলেন পর্দার আড়ালে, এরপর রাজ সভা বসার পর যেই না ভাষাবিদ পন্ডিত আসলেন দরবারে, গোপাল দিলেন তাকে ল্যাং মেরে মেঝেতে ফেলে, এরপর কাপড় দিয়ে মুখ পেঁচিয়ে ধুন্ধুমার মাইর, মাইরের উপরে ওষুধ নাই। পন্ডিত পালি ভাষায় চিৎকার করে গালাগাল শুরু করে দিল। গোপাল ভাড়ও বুক চিতায় রাজ দরবারে ঘোষনা করে দিল, পন্ডিত ব্যাটা পালি।

তাই ভাবছিলাম বিপদে পড়লেই মানুষের সব তত্ত্ব কথা উড়ে যায়, আসল রূপ বের হয়ে পড়ে। এই যেমন ধরেন এরশাদ, সুযোগ ছিল, যুদ্ধে যায় নাই, যেমন ধরেন মঞ্জুর, জিয়া কে মারেন নাই, কিন্তু দায়টাও এড়ান নাই, আপোষ করেন নাই।

আচ্ছা আমি তো শাহজাহান সাবের হাতে মঞ্জুরের রক্ত দেখি, ক্রসফায়ারের আদি ভার্সানে উনার গুরুত্বপূর্ণ ভুমিকা দেখি, আপনি দেখেন না? এখন তো মরে সন্ত্রাসীরা, তিনি তো মেরেছেন মুক্তিযোদ্ধা। এখন দরদ উথলায়, আর তখন গদি পোক্ত হয়।

আচ্ছা, এই সুশীল লোকটার যে একটা অতি সৌন্দর্য্যময় অতীত আছে এইটা কি আনিসুল হক, আর মতিউর রহমানরা জানেন না? পাঠক ভাই, আমার কেমন জানি সন্দ সন্দ লাগে।

তবে তারা এই লোককে প্রমোট করছে কেন তাদের পত্রিকায়? তাও আবার তেল চক চকা চেহারা সহ? প্রথম পাতায়?

কি জানি বাবা, আমি ম্যাংগো পাব্লিক, এত কিছু কি আর বুঝি? তবে এটাকেও যদি আনিসুল হক আর মতিউর রহমান সাবে দিন বদলের ক্যাম্পেইন-এড হিসাবে প্রচার করে তাইলে কইষা একটা হাততালি দিমু আমি, ঈমানে কইলাম এই কথা।

সবার আগে নিজেরে বদলাইতে হইবো কিন্তুক কইয়া দিলাম, হুহ।

৩,০৫০ বার দেখা হয়েছে

৫৭ টি মন্তব্য : “আউলা চিন্তা – সাবেক উপদেষ্টা, একজন বিশ্বাসঘাতক আর আমাদের বদলে যাওয়া”

  1. ওবায়দুল্লাহ (১৯৮৮-১৯৯৪)

    আমি ম্যাংগো পাব্লিকরে আর তেনার লিখারে ভালা পাই।
    :boss:
    তয় এহেন তেলতেলাদের বিষয়ে আমার আর কিছুই বলার নাই।]
    আমি ফেইল - এক্কারে ফেইল।


    সৈয়দ সাফী

    জবাব দিন
  2. রাহাত ইবনে রফিক (০০-০৬)

    "কি জানি বাবা, আমি ম্যাংগো পাব্লিক, এত কিছু কি আর বুঝি?"

    🙁 🙁 ...আসলেই কিছু বুঝি না মনে হইতেছে...মিডিয়া একবার কাউরে উঠায় আবার কাউরে নামায়...যেটা করলে উনাদের স্বার্থসিদ্ধি হয়...

    জবাব দিন
  3. আচ্ছা, এই সুশীল লোকটার যে একটা অতি সৌন্দর্য্যময় অতীত আছে এইটা কি আনিসুল হক, আর মতিউর রহমানরা জানেন না? পাঠক ভাই, আমার কেমন জানি সন্দ সন্দ লাগে।

    তেনারা সবই জানেন নিশ্চয়ই...... আর এইটাই না দিন বদল... ... :goragori: :goragori:

    স্বার্থ আর ব্যবসার প্রয়োজনে কত কী যে হবে! সবই ব্যবসার খেলা...
    ব্রসনান অভিনীত জেমস বন্ডের কোন মুভিতে যেন মিডিয়ার এরকম একটা ভূমিকা দেখে অবিশ্বাসের চোখে দেখেছিলাম। ইদানিং আর এরকম মনে হয়না। নীতি-বিবেক শব্দগুলো মনে হয় শুধু কথার সৌন্দর্যবর্ধন আর অলংকরণে ব্যবহার করেন এইসব মানুষ...

    ঘেন্না লাগে ভাইয়া...... ভিতরটা উগলায়া আসে ঘেন্নায়

    //অনেক কথা বললাম... বলি নাই, বের হয়ে গেলো......

    জবাব দিন
  4. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    কিছুই বলার নাই... ম্যাংগো পাবলিক... খালি তামশা দেইখা যাই।


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  5. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    মুনাফিকদের স্থান জাহান্নামের সর্বনিম্ন স্তরে- ধর্মে বিশ্বাস না কইরাও এই সব হিপোক্রেটদের দেখলে এই কথাটা সত্য হউক এইরকম আশা করতে মঞ্চায়।সেইরাম দিছেন গো ফয়েজ ভাই,এক্কেরে হাতে বদনা ধরায় দিছেন :))

    জবাব দিন
  6. ওয়াহিদা নূর আফজা (৮৫-৯১)

    বুদ্ধিজীবিদের স্বরূপ বোঝার পর থেকে বাংলা পেপারের হেড লাইন ছাড়া অন্য কিছু পড়া ছেড়ে দিয়েছিলাম।

    তোমার লেখাটা খুব নাড়া দিল।

    ভাব আছে, ভাষা আছে, ভালো ভাবে তুলেও ধরতে পার - এবার নব্য বুদ্ধিজীবি ক্যাডারে নাম লেখাও। আবার পেপারের এডিটোরিয়াল পড়ার ইচ্ছা জাগবে।


    “Happiness is when what you think, what you say, and what you do are in harmony.”
    ― Mahatma Gandhi

    জবাব দিন
    • ফয়েজ (৮৭-৯৩)

      বুদ্ধিজীবি হইতে গেলে বুদ্ধি থাকতে হয়, সারা জীবন গরু আর গাধা গালি খাইছি, জ্যামিতি পড়াইতে গিয়া হুক (হুমায়ুন কবির) স্যার আমারে কইছে, আমার ঠেলা গাড়ি চালানোর যোগ্যতাও নাই, উপপাদ্যের অনুসিদ্ধান্ত করতে পারি না, আর আপনি কন এডিটোরিয়াল লিখতে 🙁

      দুনিয়াতে ইনসাফ বইলা আর কিছু থাকলো না :((


      পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।