খেরোখাতা- হুররে হুররে ইটস আ হলি হলিডে

ব্যাপারটা একদম ঠিক করছিনা। এখন একটা গল্প দেয়া উচিত সিসিবিতে। তা না, আমি লিখছি খেরোখাতা। গল্পের একটা প্লট আছে, একটু বিশ্বাসযোগ্যতা আনার জন্য বাংলাদেশের মানচিত্র কিনতে পাঠিয়েছি অর্জুনকে দিয়ে, সাতক্ষীরা আর সুন্দরবনের এক নাপিতের খ্যাপ মারার গল্প। গল্পের নামটা “খ্যাপ” রাখব ঠিক করেছি। পুরা দুনিয়া এখন খ্যাপের উপর চলে। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, একটু ভাল নামওয়ালা ডাক্তার, উকিল, ব্যবসায়ী, মৌসুমি রাজনীতিবিদ, সবখানে খ্যাপের জয়জয়কার। কেউ যদি দু’পয়সা রোজগারের জন্য খুন করাকে খ্যাপ হিসাবে নেয় তবে এ আর এমন কি?

কলেজে ছুটির দিনগুলোও শুরু হত সেই বাশির শব্দে। তবে পার্থক্য হচ্ছে, সেই বাশি সবার জন্য ছিল না। সৈ্যদপুর রেলষ্টেশন থেকে সকাল ৭ টায় আন্তঃনগর রুপসা ছাড়ত খুলনার উদ্দেশ্যে। কলেজ থেকে সকাল ৪ টার দিকে খুলনা, যশোহর যারা যাবে তাদের নিয়ে কলেজের বাস যেত সৈয়দপুর, বাশি দিয়ে তাদেরকেই ডেকে তুলত ষ্টাফরা। আমরা যারা স্থানীয়, তাদের ঘুম সেই বাশির শব্দে আরও গাঢ় হত। পরে অবশ্য আমাকেও খুলনা যেতে হয়েছে, আমার গ্রাজুয়েশন এর সময়টাতে। আমি যেতাম সীমান্তে। রাতে উঠতাম, সকাল বেলায় নামতাম। সেই প্রথম আমার ট্রেনের সংগে ভালবাসাবাসি। এরপর অনেক কিছুতেই চড়েছি, কিন্তু ট্রেনে যে মাদকতা পেয়েছি, তা পাইনি অন্য কোথাও। আমি ট্রেন ভালবাসি।

ঢাকায় যখন প্রথম আসি, তখন সবচেয়ে বেশি উঠতাম ৬ নম্বর বাসে। ঢাকায় আমাকে টিকিয়ে রেখেছিল ঢাউস এই বাসগুলো। তখন এত এত বাস ছিল না ঢাকার রাস্তায়। ৬ নম্বর ছিল রাস্তার রাজা। কত ঝুলে ঝুলে চড়েছি। আর এখন? এসি গাড়ি ছাড়া চড়তে ইচ্ছে করে না। অফিসের গাড়ি ছাড়া ঢাকার রাস্তায় নামতে ইচ্ছে করে না। এটা কি বয়সের জন্য? কি এমন বয়স আমার। আভিজাত্য কি ঝাকিয়ে বসতে চাইছে আমার উপর? যে দেশের আশি ভাগ লোক দিনের খাবার নিয়ে চিন্তা করে, সেখানে আমার এই বাহুল্যতা কেন? আমি, আমার এই অচেনা আমিকে অন্তরঃ দিয়ে ঘৃনা করি।

নিজেই নিজেকে ঘৃনা করা, এটাও কলেজ থেকেই শিখেছি।

সিসিবি তে এখন অনেক ভাল ভাল লেখা জমা পড়ে। অল্পবয়সী ছেলেগুলোর জীবন সর্ম্পকে গভীর ভাবনা আমাকে মুগ্ধ করে। আলাদা করে কারও নাম বলতে বললে পারব না, অনেক নাম চলে আসবে। আর কেউ কেউ আছে কথায় কথায় মাতিয়ে তোলে সবকিছু। মনে হয় আড্ডায় মেতে আছি। আহা জীবন কত না সুন্দর, আর তার চেয়ে সুন্দর এই বেচে থাকা।

ঈদে বাড়ি যাব এবার। চট্টগ্রাম থেকে সোজা রংপুর। জীবন কেটে যাচ্ছে বাংলাদেশের এমাথা আর ওমাথা করে। পাচ বছরের মত ছিলাম খুলনায়, তিন পেরিয়ে যাচ্ছে চিটাগাং এ। এবার সিলেটে একটা চাকুরী পেলে মন্দ হয় না। বাংলাদেশের চারটি কোনা ধরে ফেলব তাহলে।

দেশকে নিয়ে অনেক ভেবেছি একসময়, যখন ভেবেছি কিছুমাত্র পিছুটান ছাড়াই ভেবেছি। “আমরা যদি না জাগি মা, কেমনে সকাল হবে” যৌবনের মাতাল সময়গুলোতে সাম্যের কথা খুব করে বলতাম। “দেখে যা, যা অর্নিবান, কি সুখে রয়েছি আমি………।“ বলতে দ্বিধা নেই, চিন্তা এখন অনেকটাই আলাদা। তবে আমরা দাড়াবোই, একা অথবা একসাথে। নিজের মধ্যে টের পাই অবিরত।

আগের ঈদগুলো থেকে এখনকার ঈদগুলো অনেকটাই অন্যরকম। আগে নিজেরা আনন্দ করতাম, আর এখন বাচ্চারা আনন্দ করে। আমি দেখি। তবুও ছুটি বলে কথা। ওদের শরীর আর মন দুটোই নাচে, আমার মন নেচে উঠে। ও আর হ্যা, আগাম ঈদ মোবারক, যদিও অনেক আগেই হয়ে গেল, কিন্তু উপায় নেই। কারন ছুটিতে, মানে আগামীকালের পর থেকে টানা দশদিন ল্যাপটপ শিকেয় তুলে রাখব। সব চিন্তা ঝেটিয়ে বিদায় করে বাচ্চাদের সংগে আনন্দ করব, আনন্দে হা হা করে হাসব, গরুর শরীর দেখে ভাবব দাম কত হতে পারে, বিশাল রকমের দরদাম করব, ২০ বললে ১২ থেকে শুরু করব, নির্বাচনের আমেজ চলে এসেছে, অক্ষম আক্রোশে হয়ত লাথি মারব কোথাও, কিংবা কিছুই না, গায়ের ময়লা গুলো অনেক সময় নিয়ে ঘসে ঘসে তুলব, বা দাত ব্রাশ করব অনেক যত্নে, গোল করে কাটব পায়ের নখ। গ্রামে ছাগলের খামার করা যায় কিনা ভাবব। বা একটা পুকুর।

অন্য কিছু আর ভাববো না। শুধু দেখব। ডিসেম্বর আমাদের অনেক দিয়েছে। আমি দেখব আর আশায় বুক বাধব। “হাল ছেড়না বন্ধু”। আমি হাল ছাড়ব না, আমি হাল ছাড়ার জন্য আসিনি।

এখন থেকে ছুটি…………। হুররে হুররে ইটস আ হলি হলিডে, হোয়াট আ ওয়ার্ল্ড অফ ফান ফর এভরিওয়ান, হলি হলিডে।
(বনি এমের একটা গানের লিংক দিলাম। ডিজুসদের ভাল নাও লাগতে পারে, কিন্তু পুরনোদের লাগবেই)।

Get this widget | Track details | eSnips Social DNA
৫,৮১১ বার দেখা হয়েছে

৫৮ টি মন্তব্য : “খেরোখাতা- হুররে হুররে ইটস আ হলি হলিডে”

  1. তানভীর (৯৪-০০)
    আমি, আমার এই অচেনা আমিকে অন্তরঃ দিয়ে ঘৃনা করি।

    ফয়েজ ভাই, আমিও কেমন যেন পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছি, ঠিক নিজেকে ঘৃনা করার মতই!

    আমি হাল ছাড়ব না, আমি হাল ছাড়ার জন্য আসিনি।

    আমিও আশাবাদীদের দলে।

    চমৎকার একটা লেখা দেয়ার জন্য আপনাকে :salute:

    জবাব দিন
  2. খেরোখাতা যখনই পড়ি, শুধু মনে হয় আরে এতো আমারই কথা। আমার হয়ে ফয়েজ ভাই লিখে যাচ্ছে। আমি হলে এতো সুন্দর করে লিখতে পারতাম না। অনেক ধন্যবাদ ভাইয়া। :hatsoff:

    কিন্তু টানা দশদিন আপনাকে ছাড়া সিসিবি কিভাবে থাকবে। ল্যাপটপ টা আরো কম সময় অফ রাখা যায় না? 🙁

    আমিও যাবো বাড়ি। কিন্তু বড়জোড় ৪ দিনের জন্য। 😀 আপনি সময় করে ফাঁকে ফাঁকে সিসিবিতে উঁকি দিয়েন। :thumbup:

    জবাব দিন
    • ফয়েজ (৮৭-৯৩)

      পুরা দুনিয়া চলে কপি-পেষ্ট দিয়া, আর তো আমি? তবে তুমি আমার চেয়ে অনেক ভাল লিখতে পারতা কুনু সন্দ নাইক্যা।
      নিজের বাপের বাড়ি, বউয়ের বাপের বাড়ি, দাদার বাড়ি, নানার বাড়ি, লিষ্ট তো ম্যালা বড়। দশদিন কোন টেনশন নাই, মাথার উপর শুধু আকাশ আর আকাশ, আহা।
      ঈদ মোবারক।


      পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

      জবাব দিন
  3. সাকেব (মকক) (৯৩-৯৯)
    তবে আমরা দাড়াবোই, একা অথবা একসাথে। নিজের মধ্যে টের পাই অবিরত।

    উরাধুরা,বস!
    পুরা পোস্টটাই; এই লাইনটা সবচেয়ে...


    "আমার মাঝে এক মানবীর ধবল বসবাস
    আমার সাথেই সেই মানবীর তুমুল সহবাস"

    জবাব দিন
  4. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    বস্, এইডা যেমুন আমাগো নিজেগো গল্প মনে হইতাছে, খ্যাপটাও সেইরকম হইবো কিনা কে জানে ( খ্যাপের উপ্রেই বিচা আছি কিনা :(( )
    লেখা আগের মতোই হৃদয়ে টোকা দেয়া :boss:
    আপনেরে :salute: আর ঈদ মুবারাক, ছুটি শেষে সিটিজি আইবেন কবে?


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  5. শার্লী (১৯৯৯-২০০৫)

    ভাই এমন একটা লেখা আপনি লিখতে পাড়েন, আর আপনি নাকি নিজেরে ঘৃণা করেন!!

    আমি ভাই কিছুই পারি না তবুও তো নিজেকে প্রচন্ড ভালোবাসি। আমি আপনার অনেক ছোট এবং কথাটা জ্ঞানের মত মত শোনায় যা আমি অথবা কোন ক্যাডেটই পছন্দ করে না তবুও না বলে পারছি না, ভাই নিজেকে ঘৃণা করে কেউ কোনদিন কিছু অর্জন করে নি এবং করবেও না। আমরা আপনাকে ভালোবাসি, নিজেকে ভালোবাসার জন্য তাই কি যথেষ্ট নয়।

    জবাব দিন
    • ফয়েজ (৮৭-৯৩)

      শার্লী, তোমার ম্যাজেস টা কি আমি বুঝতে পেরেছি?

      আমি রিপুতাড়িত বা ইদ্রিয়াসক্ত কেউ নই। প্রতি মানুষের যেমন ভাল আর মন্দের মিশ্রন, তেমনি আমার মাঝেও তাই। আমি আমার মন্দগুলোকে ঘৃনা করি, কারন পাপ কে ঘৃনা করা উচিৎ। এই ঘৃনা আমাকে পুড়ায় খাটি হবার জন্য, হতাশায় ডুবে যাবার জন্য নয়। আর মোটের উপর নিজেকে ভীষন ভালবাসি, আর ভালবাসি বেচে থাকাকে। আশা করি বুঝবে।

      ঈদ মোবারক


      পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

      জবাব দিন
  6. সায়েদ (১৯৯২-১৯৯৮)

    ফয়েজ ভাই,
    অনেক কথা বুগবুগ করে আঙ্গুলের ডগায় চলে আসছিল। আপাতত রাশ টেনে ধরলাম। খালি বলি "অনেক ভালো লাগছে"।

    সবার সাথে আনন্দময় ঈদ কাটুক এই কামনা।
    ঈদ মোবারক।


    Life is Mad.

    জবাব দিন
  7. টিটো রহমান (৯৪-০০)
    আমি, আমার এই অচেনা আমিকে অন্তরঃ দিয়ে ঘৃনা করি।

    মনের কথা।

    শুভ ঈদ...............ফয়েজ ভাই

    'হুররে হুররে ইটস আ হলি হলিডে' এই অনুভূতি দেয়ার জন্য অনেক অনেক ধন্যবাদ


    আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই

    জবাব দিন
  8. শরিফ সাগর (৯৭-০৩)

    আবার কবে যে দেশে ঈদ করতে পারুম-গত কুরবানি ঈদে ক্লাশ ছিল,লাঞ্চব্রেক এ এক মালয়শিয়ান মুসলিম ফ্রেন্ড কয়- আজ যে ঈদের দিন তুমি জানো? একটা মুচকি হাসি দিছিলাম...জানি না ও সেই হাসিতে কি ছিল বুঝছে কি না ...যাই হোক, আবার কোনো একদিন আমিও ফয়েজ ভাই এর মত ১০ দিন ঈদের ছুটিতে যাবো-ল্যাপটপ টার সাথে আরো কিছু বৈচিত্রহীন কাজকামকে শিকেয় তুলে...

    বরাবর এর মতই এবারো খুউউউবি ভাল লেখা ,সাথে গান টাও। যান,রংপুর ঘুরে আসেন। ঈদ মোবারক আপনাকেও।

    জবাব দিন
  9. জিহাদ (৯৯-০৫)

    এই সব দিনলিপি পড়ি আর হা পিত্যেশ করি। এমন দিন তো আমারও কাটে। কিন্তু মাইরা কাইটা শীতলক্ষ্যায় ভাসায়া দিলেও এমন দিন লিপি লিখতে পারুম না।

    কিন্তু যেইটা পারবো সেইটা হইলো আপনারে :salute: দিতে।


    সাতেও নাই, পাঁচেও নাই

    জবাব দিন
    • ফয়েজ (৮৭-৯৩)

      কি বল এইসব তুমি পাগলের মত? আমার লেখা, তার আবার বই 😀

      সিসিবি কে অনেক ধন্যবাদ, একটা জায়গা দেয়ার জন্য, লিখি আর কি সময় কাটে, কিছু ভাবনা জোড়া লাগে, কিছু মেরামত হয়, কত নতুন তথ্য পাই।

      তবে তোমার বউ মানে আমাদের ভাবীর ছড়ার বই পেলে একটা কিনব, কোন মিস নাই।


      পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।