শুভ জনম দিন পুচকা মিয়া

মার্চ মাসটা বেশি সুবিধার না মনে হচ্ছে। একের পর এক বিগ বসেরা এমাসে ধরিত্রী আগমনের মাধ্যমে যেভাবে সিসিবি আলোকিত করেছেন, তাতে ভয় হয় ক্যালেন্ডারের পাতায় না জানি আবার ফার্মগেটের মতো বিশাল জট না পাকায় 😛 । জন্মদিনের পোষ্টগুলো পড়তে পড়তে ছোটবেলার জন্মদিনগুলো মনে পড়ে গেলো।

জন্মদিনের জন্য প্রায় পুরোটা বছর অপেক্ষা করে থাকতাম। কারণ, বইমেলা ছাড়া এই একটা সময়েই প্রচুর গল্পের বইয়ের মালিক হবার সম্ভাবনা থাকতো। কেক-কুক-খানাপিনা শেষে সবাই চলে গেলে, রঙ্গিন কাগজে মোড়ানো যে সব উপহারের আকৃতি বই-সদৃশ হতো, ওগুলোর উপর ঝাঁপিয়ে পড়তাম; বাকিগুলো গোল্লায় যাক-এমন একটা ভাব। আমার ছোট ভাইটাও ছোটবেলায় খুব বই পাগল ছিলো; অবশ্য পড়তে নয়, বইয়ের পাতাগুলো ব্যাপক আনন্দের সাথে চিবুতো। আমার বই, দ্বিতীয় ভাগের অনেকগুলো ছড়াই ওর উদরস্থ হয়েছিল। তবে পিচ্চির পাকস্থলীর এনজাইমগুলো ভালোই সক্রিয় বলতে হবে। এখন আর জন্মদিনের ব্যাপারটা সেভাবে উপভোগ করা হয়না। মনে হয় আরেকটু বড় কিংবা কাইয়ুম ভাইয়ের মতো আরেকটু বুড়ো হয়ে গেলাম (যদিও আমাকে নাকী এখনো অনেক ছোট দেখায় :no: )।

কাইয়ুম ভাইয়ের পাঠানো কেক আর কাবাব খেতে খেতে হঠাৎ মনে পড়ে গেলো, আজ যে আরো একজনের জন্মদিন। তাকে যে অভিনন্দন কিংবা আদর কোনটাই দেয়া হয়নি। যদিও এলেখাটা সে পড়তে পারবে না, প্রিন্ট করে দিলে আমার ছোট ভাইটার মতো কাঁচাই খেয়ে ফেলতে পারে। তবুও আমার অতি প্রিয় ভাগ্নের জন্মদিনটা কী ভুলে গেলে চলে !!!!!

:tuski: :awesome: শুভ জন্মদিন অয়োময় :party: :guitar:

অয়োময়

বড় হও, অনেক বড়, যতটা বড় হলে কামরুল ভাই (সিসিবির নাদের আলী ভাই :awesome: ) তোমায় তিন প্রহরের বিল দেখাতে নিয়ে যাবে।
আর মাবাবাকে (দিহান আপু- মঈন ভাই)বলো কিপটামি না করে একটা সেই রকম পার্টি দিতে। আমরা মামা-চাচা-খালা-ফুপুরা একটু কবজি ডুবিয়ে খাইতে চাই।

২,৭০৯ বার দেখা হয়েছে

৩৫ টি মন্তব্য : “শুভ জনম দিন পুচকা মিয়া”

  1. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    অয়োময় আরেকটু বড় হইলে আমি ওরে নিজ হাতে কুস্তি শিখামু আর কিভাবে :just: ফ্রেন্ডদের ডিল করতে হয় আকিম দিমু।সেই সাথে সঠিক পরিমানে খানাপিনা নিয়া একটা শর্ট কোর্সও ওরে ভবিষ্যতে করানোর ইচ্ছা আছে-যদি দিহান বৌদি পারমিশন দ্যান তাইলে :grr:

    জবাব দিন
  2. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    মাম্মু, অনেক অনেক অনেক আদর... 😀

    @বিলাডি, চামে তো পয়েন্ট আপ কইরা নিলি রে... 🙁
    প্রথমে গ্যাড়ানি দেবার জন্য দশটা ফ্রন্ট্রোল দে... 😡


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  3. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    বড় হও দাদাঠাকুর
    তোমাকে আমি তিন প্রহরের বিল দেখাতে নিয়ে যাব। 😀


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  4. মেহেদী হাসান (১৯৯৬-২০০২)

    শুভ জন্মদিন অয়োময়। অনেক অনেক আদর ও ভালবাসা রইলো। :-* O:-)

    আর মা-বাবাকে (দিহান আপু- মঈন ভাই)বলো কিপটামি না করে একটা সেই রকম পার্টি দিতে। আমরা মামা-চাচা-খালা-ফুপুরা একটু কবজি ডুবিয়ে খাইতে চাই।

    এই পার্টি শুধু রকিব খাবে আর আমরা ছবি দেখবো। x-(

    জবাব দিন
  5. দিহান আহসান

    সবাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আমার নানা-নানু এসেছেন এখানে তাই নতুন বাসায় উঠাতে ব্যস্ত সবাই। আর তাই সব ঝামেলায় দেরী হয়ে গেলো ধন্যবাদ দিতে। পিসি এখনো ঠিক হয়নি, আমার মা'য়ের ও তাই সিসিবিতে আসা হয়ে উঠছেনা। ঝামেলা কমলে আবার নিয়মিত হবে সে। সবাইকে শনিবার আমার জন্মদিনের দাওয়াত। ঈশ!! ম্যাশ পটেটো চাচ্চু মিস করে ফেল্লো ;))

    ছোট্ট মাম্মু তুমি এসে কেক-কুক-বিরিয়ানী খেয়ে যেও শনিবার 😀

    অয়োময়

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।