কবিতাঃ তোমার কোন ছুটি নাই…!!!

আমি কবিতা মোটেই হজম করতে পারি না, হয়ত আমার জীবন ছন্দহীন-অন্তমিলহীন তাই…কারও কবিতা পড়ে তাই যখনই কমেন্ট করেছি- বেশীরভাগ করেছি না বুঝে, কিংবা তার সাথে সম্পর্কের পয়েন্ট আপ করার জন্য… 😉

কবি বলে গেছেন, ‘…কবিতা তোমায় দিলেম আজ ছুটি…পূর্ণিমার চাঁদ যেন ঝলসান রুটি…’ কিন্তু আমার কাছে পূর্ণিমার চাঁদকে কখনও ঝলসান রুটির মত মনে হয় নি…আর যদি কল্পনাই করব, তাহলে ঝলসান রুটি কেন? এর চেয়ে বরং পোচ করা ডিমের কুসুম কল্পনা করা ভাল…অনেক বেশি ক্যালরি!! 😀

কবিতা ভাল না লাগলেও কবিতাকে (পদ্যকে! কোন মেয়েকে নয়…) নিয়ে উলটাপালটা ভাবতে ভালই লাগে… 😀
এর আগে তৌফিকের লেখা একটা কবিতাকে কাঁটাছেড়া করেছিলাম…মন্তব্যের ঘরে লিখতে গেলে অনেক বড় হয়ে যায় বলে, পোস্ট আকারেই দিয়ে দিলাম। সুতরাং, বুঝতেই পারছেন কবিতার আপাতত কোন ছুটি নাই…’ কবিতা, তোমার সব রকম ছুটি ক্যানসেল!!!’

কবিতার নামঃ আবোল এবং তাবোল……
কবিঃ হাসনাইন (৯৯-০৫)

লাল নীল সবুজ…।

রক্ত লাল জীবনের শেষ প্রান্তে এসে;
কালের আধাঁরে আমায় যদি পড়ে মনে।
জানালার শিক ধরে তাকিয়ে থেকো বহুদূরে,
খুঁজে নিও না খোঁজার ভান করে।

সব কিছু ভুলতে বসে নতুন করে শুরু করি।
যতদূর যেতে পারি।

যেদিন “প্রথম বাতাস” চোখে এসে পড়ে,
কষ্টের বাতাস গাঁয়ে এসে লাগে।
তাকিয়ে থাকি শুন্যপানে,
আশায় থাকি নিরাশার চাদরে ঘেরা।

মিছিলের শেষ প্রান্তে,
যেখানে মানুষ গুলো মিশে যায় একে একে।
সেখানে দাঁড়িয়ে একবার যদি পেতাম ইচ্ছের ঘুঁড়ি।
চড়ে বসতাম, নিয়ে যাক শুধু দেখে যাব কতদূর যেতে পার তুমি।

সময় চলে যায়, ফেলে রেখে যায় টুকরো সময় যা ধরে রাখে রঙিন দিনগুলো।
মাঝে মাঝে কালো কিছু দাগ, অমলিন।
তবুও আশার হাত পা গজায়।
নিত্য নতুন বেদনায় জীবনের মানে খুঁজে পেতে চায়।

ব্যাখ্যা শুরু করা যাকঃ

‘লাল নীল সবুজ…।

রক্ত লাল জীবনের শেষ প্রান্তে এসে;
কালের আধাঁরে আমায় যদি পড়ে মনে।
জানালার শিক ধরে তাকিয়ে থেকো বহুদূরে,
খুঁজে নিও না খোঁজার ভান করে।’

-প্রথমেই পোলাডারে কয়েকটা ঘুষি মারতে ইচ্ছা করছে…কয়েকটা রিব এলাকায়, আর দুটো ঘুষি নাভির ঠিক দুই ইঞ্চি উপরে…ব্যাটা ফাজিল! বলে কিনা কলেজ ভেবে লিখি নাই…আরে বেটা, তোমার শুরুতেই তো কলেজ! তিন হাউসের রঙ!!!

প্রথম অনুচ্ছেদে ও বলছে এম, জি, সি, সি’র ক্লাস টুয়েল্ভ এর কোন মেয়েকে উদ্দেশ্য করে…যে কিনা শান্তি হাউসের এবং তার হাউসের রঙ লাল!!
সেই মেয়ে কেন ওর কথা ভাববে, তাও আবার জানালার শিক ধরে…ঠিক বুঝতে পারলাম না!
যাই হোক, আমি মানুষ হিসেবে রক্ষনশীল বলে এখানে মেয়ে কল্পনা করেছি…তা না হলে বলতাম, ও বলছে ওরই কলেজের কোন টুএল্ভ এর পোলারে উদ্দেশ্য করে…তাও আবার অন্য হাউসের, গোমতীর…! কেন কে জানে…তবে, ইতিহাসের ফজলুল করিম (বর্তমানে এম,জি,সি,সি’র প্রিন্সিপাল) একবার বলেছিলেন, ‘ক্যাডেট কলেজে পড়ার কিছু গ্লানি (!) আছে…!!!’ 😉

‘সব কিছু ভুলতে বসে নতুন করে শুরু করি।
যতদূর যেতে পারি।’

-স্মার্ট এবং আধুনিক ছেলে! আগেকার পোলাপাইন হলে ব্রেকআপের পর দেবদাস হত… এখনকার পোলাপাইন ব্রেকাপের পরে মোবাইল বের করে খোঁজে কোন মেয়ে ফাঁকা আছে….. এরপর সব কিছু নতুন করে শুরু করে…!!!

যেদিন “প্রথম বাতাস” চোখে এসে পড়ে,
কষ্টের বাতাস গাঁয়ে এসে লাগে।
তাকিয়ে থাকি শুন্যপানে,
আশায় থাকি নিরাশার চাদরে ঘেরা।

-ফ্লাশ ব্যাক করে ক্লাস সেভেনের কথা বার্তা মনে করার কি দরকার ছিল, ঠিক বোঝা গেল না… হতে পারে ঘটনার সূত্রপাত সেই সেভেন থেকেই!!!

মিছিলের শেষ প্রান্তে,
যেখানে মানুষ গুলো মিশে যায় একে একে।
সেখানে দাঁড়িয়ে একবার যদি পেতাম ইচ্ছের ঘুঁড়ি।
চড়ে বসতাম, নিয়ে যাক শুধু দেখে যাব কতদূর যেতে পার তুমি।

-বেচারা! এত ইচ্ছা থাকা স্বত্তেও কখনও স্কোয়াড লীডার হইতে পারল না… অবশ্য ভালই হইছে…ইচ্ছামত কমান্ড করে কি করত কে জানে??

সময় চলে যায়, ফেলে রেখে যায় টুকরো সময় যা ধরে রাখে রঙিন দিনগুলো।
মাঝে মাঝে কালো কিছু দাগ, অমলিন।
তবুও আশার হাত পা গজায়।
নিত্য নতুন বেদনায় জীবনের মানে খুঁজে পেতে চায়।

-এই অংশটুকু নিয়ে আমি কোন মন্তব্য করব না…(এই অনুচ্ছেদ পড়ার পর কেন জানি বুকের মধ্যে মোচড় দেয়…বলা ঠিক হবে না- হাসনাইনের ভাব বেড়ে যেতে পারে…!!!)

হ্যাজন, ডো কি মি, ব্র!!! (লাইবেরিয়ান ইংলিশ!)
Hasnain Dont kill me, Bro!!!

২,৬১১ বার দেখা হয়েছে

৩৭ টি মন্তব্য : “কবিতাঃ তোমার কোন ছুটি নাই…!!!”

  1. তৌফিক (৯৬-০২)

    জুনায়েদ ভাই, আপনার মতো সমঝদার আর সমালোচক না পাইলে আমরা যে কুন দুইন্নাত গিয়া মরতাম?? :-/

    ব্যাখ্যা অতি উত্তম হয়েছে। আমার মনে হয় কবি কাব্য ভাষায় ইহাই বুঝাতে চেয়েছিলেন। 😀

    হাইসা গড়াগড়ি দিতেছি। =))

    জবাব দিন
  2. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    ঝোঁকের মাথায় ব্যাখ্যা তো দিয়ে দিলাম...ভাবছি প্রোফাইলে ঠিকানা দিছিলাম কিনা... :dreamy:
    হাসনাইন, ঠিকানা দেয়া থাকলেও ওটা আর নাই...(স্নাইপারের গুলিতে মরতে চাই না... 🙁 )


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  3. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    আমারো একটা রোগ হইছে-দুইন্নায় যেইখানেই যা কিছু ঘটুক না কেন তার সাথে আমি ক্যাডেট কলেজের কুনু না কুনু কিসুর মিল খুঁইজ্জা পাই-এই সেইদিন কন্ডোলিজ্জা রাইস রে দেইখা ভাবলাম আরে ইনি আমাগো ভূগোলের রোকিমুন্নিসা ম্যাডামের বোন টোন না তো?সেই তেজী ভাব,সেই দুর্দান্ত অঙ্গভঙ্গি-পরে সম্বিত ফির‌্যা পাইলাম যে আমি কলেজ ছাইড়া আইসি ৫ বছর হইছে...

    কবীর ভাই,আমি আপনি দুই গাছ মুনে হয় এই রোগের পার্মানেন্ট রোগী মামু...

    জবাব দিন
  4. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    এইডা কি কইলেন?এই রোগের রিমিডি হউক আমি সেইটা এই জনমে চাই না।সেইদিনও ঝাড়ি খাইছি এক বান্ধবীর কাছে যে আমি এখনো ক্যাডেটই রইয়া গেছি আমার কুনু "উন্নতি" হয়নাই...
    "তোমার উন্নতির খ্যাতা পুড়ি সুন্দরী" কইয়া চইলা আইছি x-(

    জবাব দিন
  5. হাসনাইন (৯৯-০৫)

    :)) :))
    জুনায়েদ ভাই,
    ভাই আপনে :boss: । :clap:
    সেদিন মন বেক গিয়ারে ছিল। কম্পুটারের সামনে বসে যা আসে মনে টাইপ করে গেছি, দ্বিতীয়বার চিন্তা করি নাই। কি মনে করে আর ডিলিট করি নাই।
    আই.ইউ.টি থেকে বাসায় এসে ফাইলটা খুললাম। একটু সাজায়ে ব্লগে দিয়ে দিছি, তাই নাম দিছিলাম "আবোল এবং তাবোল..." 😀 । রবিন ভাই আগেই এক লেখায় শিরোনাম "আবোল তাবোল" দিয়ে রাখছেন তাই আর এটা দেই নাই(ভাই মাফ কইরা দিয়েন 🙂 )।

    আমি নিজে কোন অর্থ বের করতে পারি নাই। তাই লেখা পইড়া মজাক পেলুম 😀

    "কবিঃ হাসনাইন (৯৯-০৫)"
    - :)) =))

    জবাব দিন
  6. হাসনাইন (৯৯-০৫)

    @সাইফ ভাই,
    এখন ত ভাই ভাল লাগবেই, তর্জমা সহ তফছিল। 😀

    @জুনায়েদ ভাই,

    "হাসনাইন, ঠিকানা দেয়া থাকলেও ওটা আর নাই…(স্নাইপারের গুলিতে মরতে চাই না… )"
    - আমি স্নাইপার ক্যামতে?? তয় গ্রুপিং ভাল করতাম ৩-২ ইঞ্চি। :grr:

    জবাব দিন
  7. কামরুলতপু (৯৬-০২)

    জুনায়েদ ভাই
    জটিল হইছে। আমার এখন নিজের কবিতা লেখতে ইচ্ছা করছে। আপনার ভাবসম্প্রসারণ পাওয়ার লোভে। আমার দুই একটা কবিতা আছে বস এখানে দেখেন তো ওইগুলারে সাইজ করা যায় কিনা। আমার গুলা আবার এক্কেরে নিরামিশ কোন কঠিন শব্দ নাই।

    জবাব দিন
  8. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    আরিফ, মুখে কি কইতাম তাতো কইলি না??
    'খবরদার, কাছে আইবানা...তাইলে কিন্তু শিক কাবাব বানায়া খামু...!!!'-এইডা?


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  9. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    ওরে বন্য,
    তর কথা-বার্তা অতি জঘন্য,
    এল,এম,জি নিয়ে আছি তোর জন্য (গিফট করার জন্য না, তরে গুলি করার জন্য!)
    পাব অনেক পূন্য... 😉
    (কবিতা নিয়ে কাঁটাছেড়া করতে গিয়া আমারও দেখি ছন্দ আসতেছে...ওরে না রে না... 😀 )


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  10. এতো সুন্দর কইরা কলেজে যদি কেউ আমারে কবিতা বুঝাইতো তাইলে আমার মেট্রিক ইন্টারে বাংলায় টাইনা টুইনা পাস করতে হইতো না। 🙁 🙁

    কি চমৎকার। জুনায়েদ তুমি জীবনান্দ দাশের কবিতাসমগ্র নিয়া আলোচনা শুরু করো।
    😉 😉

    জবাব দিন
  11. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    কামরুল ভাই, জীবনানন্দ দাশ তাও তো ভাল ছিল...ডেঞ্জারাস ছিল ফররুখ আহমেদ, মাইকেল মধুসূদন...
    কথায় কি সুইং... 🙁


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  12. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    বেশকিছু সেইরকম কবিতা লেইখা রাখছি, এই সুযোগে কবীর মিয়ারে দিয়া ব্যাখ্যাইতে হইবো সবকয়টারে :)) :))

    ভে গু পো জ্যুনা ক [ভেরি গুড পোস্ট জুনায়েদ কবীর :grr: :grr: ]


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  13. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    ভাই, সবাই মিলে আপনারা কি ব্লু ডিজাইন (নীল নক্সা! আরে! আমার হাউস কালার...ব্লু ব্লু আপ আপ!!)করতেছেন...??? 🙁
    কবিতা ব্যাখ্যা করানোর নামে আমারে পঁচানোর অপচেষ্টা সফল হবে না...ইনশাল্লাহ্‌!


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  14. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    এতক্ষণে ক্যাডেট কহিলা বিষাদে-
    "জানিনু ,কেমনে আসি ডিউটি মাস্টার পশিল ক্যাডেটপুরে।
    হায় স্পাই,উচিত কি তব এ কাজ?"
    ......মাইকেল ক্যাডেটসূদন দত্ত(ক্যাডেটবধ কাব্য ;ষষ্ঠ সর্গ) 😀

    জবাব দিন
  15. আহ্সান (৮৮-৯৪)

    আমি আমার ইহজীবনে কোন কবিতা লেখছি বইলা মনে পড়েনা। ত্য কসম কইলাম, আমি অচিরেই একখান কবিতা লিখুম (ছন্দ মিলাইতে না পারলে আধুনিক গদ্য কবিতা টাইপের) শুধুমাত্র কবীরের ব্যাখ্যার জন্য।

    কবীর,
    না করতে পারবানা কিন্তু... 😉

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।