মাই বেস্ট ফ্রেন্ড…!!!

শিরোনাম দেখে অনেকেই হয়ত নষ্টালজিক হয়ে যাবেন, চোখে ভেসে উঠবে প্রিয় মুখগুলো একের পর এক…কেউ কেউ পুরনো দিনগুলোর কথা মনে করে নিজের অজান্তেই হয়ত হেসে উঠবেন। আবার যারা ইদানিং বন্ধুদের কাছে ‘সিল’ খেয়েছেন- তাদের ক্ষেত্রে দাঁত কিড়মিড় করে গাল দিয়ে ওঠাটাও বিচিত্র কিছু হবে না…তবে, আমার পছন্দ সেই পার্টিকে- যাদের কিছুই মনে হবে না, এবং যারা টানা লেখাটা পড়তে থাকবেন…!!!

আমরা সবাই অনেক ভাগ্যবান। ক্যাডেট কলেজে পড়ার কারনে আমরা সবাই-ই এমন কিছু বন্ধু পেয়েছি, যারা সাথে থাকলে চরম ‘বন্ধুর’ পথও মসৃন হয়ে যায়…জীবনের সকল ছোট-বড় দুঃখকে নিমেষে কাঁচ কলা দেখিয়ে তাড়ানো সম্ভব না হলেও অন্ততঃ দূরে সরিয়ে দেয়া যায়…একেবারে ইনডিড টাইপ বন্ধু, মানে ঐ প্রবাদের মতন- ‘আ ফ্রেন্ড ইন নিড, আ ফ্রেন্ড ইনডিড…’ আমি জানি, আমার বিপদে-আপদে সবার আগে যে (রক্তাত্মীয়দের বাইরে…) এগিয়ে আসবে সে অবশ্যই আমার কলেজের বন্ধুদের কেউ হবে…

কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের সাথে জানাচ্ছি, এত কিছুর পরও আমার বেস্ট ফ্রেন্ড কিন্তু কলেজের কেউ না। আপনারা আমাকে বোকা ভাবতে পারেন, ‘আবলুস’ বলে গালি দিতে পারেন…তবুও আমি সত্য কথাটা বলতে এতটুকু পিছপা হব না কিংবা কোন গ্লানি বোধ করব না…টেকনিক্যাল কিছু সমস্যার কারনে তার নামটা এখুনি দিতে পারছি না। আপাতত তাকে সম্ভোধন করছি ‘ও’ বা ‘সে’ দিয়ে…

খুব ছোটবেলাতেই ওর সাথে আমার পরিচয়। পরিচয় হয়েছিল বাবা-মার হাত ধরে। প্রথমে আমার একটুও ভাল লাগত না…ধীরে ধীরে ওকে যখন জানলাম, বুঝলাম…ভাল লাগা তৈরি হল- আর ভাল লাগা থেকেই এক সময় হয়ে গেল আমার সবচেয়ে ভাল বন্ধু। আমার মনে আছে, কত শত ক্ষণ আমরা একসাথে কাটিয়েছি…কত হাসি-কান্নার স্মৃতি আছে আমাদের! কলেজে যাবার পরও আমার ভাল লাগা এত টুকু কমে নি। এটা ঠিক, কলেজের নানান নিয়ম কানুন এবং প্রচলিত শিক্ষা-ব্যবস্থার চাপে পড়ে কিছুটা দূরত্ব হয়েছিল…তবে মনের গহীনে জানতাম আমরা আছি কাছাকাছি, পাশাপাশি।

কলেজ থেকে বের হবার পর আমাদের যোগাযোগ মোটামুটি নিয়মিতই হত। কারন বাঁধা দেবার কেউই ছিল না। সবচেয়ে মজা হত বইমেলার সময়। ক্লাস শেষে প্রায় প্রতিদিনই তখন বই মেলায় যেতাম। মেলায় গিয়ে ওর সাথে যখন দেখা হত…আহ্‌!!! এখন তো যোগাযোগের কত মাধ্যম আছে…সবচেয়ে উপকারি হচ্ছে ইন্টারনেট। মাত্র কয়েকটা ক্লিক করে, নিখরচাতেই আমাদের যোগাযোগ হয়…

ওর সবচেয়ে বড় যে গুন সেটা হল- এত জানে তবুও একটুও ‘মুই কি হনু’ ভাব নেই। আমি অবশ্য সুকৌশলে সবসময় ভারী ভারী আলোচনা এড়িয়ে চলি, বেশির ভাগ সময়েই আমাদের আলোচনা হালকা বিষয়ের উপরেই হয়। ওর জ্ঞানের ধারে কাছেও আমার জ্ঞান নেই- এটা আমাকে কখনো ব্যথিত করে না, বরং গর্বিত করে। ওর কাছ থেকে কত কিছু আমি শিখেছি, এখনো শিখছি…

উপরওয়ালার কাছে আমার চাওয়া- আমাদের বন্ধুত্ব যেন অটুট থাকে চিরকাল…!!!

মোরাল অব দ্যা স্টোরি- বেশি বেশি বই পড়ুন, প্রিয়জনকে উপহার হিসেবে বই দিন… ;;;

৫,১১০ বার দেখা হয়েছে

৭০ টি মন্তব্য : “মাই বেস্ট ফ্রেন্ড…!!!”

  1. মান্নান (১৯৯৩-১৯৯৯)

    বইমেলাটা মিস করছি অনেক। বইমেলার আড্ডাবাজি, টাংকিবাজি সব মিস করছি। বন্ধুদেরকেই মিস করছি খুব।

    এইসব মনে করিয়ে দেয়ায় জুনার নামে দুইটা ফ্রন্টরোল ইস্যু হলো। স্টার্ট :

    জবাব দিন
  2. অনুরক্ত (৮৩-৮৯)

    ভাল পোস্ট....এই ধরনের কিছু বেস্ট ফ্রেন্ড আমারও আছে।

    তবে কিছু ওয়র্স্ট ফ্রেন্ডও আছে। টেকনিক্যাল কারনে আমি এদের নাম বলতে চাই ও সারাজীবন আমার জীবন থেকে ব্যান চাই। অনেকে মাইন্ড খেতে পারে। এরা হল:

    ১। গণিত।
    ২। পদার্থবিদ্যা।
    ৩। বায়োলজী।

    আরো আছে, বলব না।

    জবাব দিন
  3. অনুরক্ত (৮৩-৮৯)
    বই নিয়া একটা পোস্ট দিতে ইচ্ছা করতাছে।
    জিপিও নিয়া একটা পোস্ট দিতে ইচ্ছা করতাছে
    সেই দুঃখের স্মৃতি নিয়া একটা পোস্ট দিতে ইচ্ছা করতাছে
    কমেন্ট করা নিয়া একটা পোস্ট দিতে ইচ্ছা করতাছে

    কাইয়ুম এর পোস্ট দেয়ার ইচ্ছাগুলা নিয়া আমার একটা পোস্ট দিতে ইচ্ছা করতেছিল

    জবাব দিন
  4. আদনান (১৯৯৪-২০০০)

    ঝুনা আইক ভুলে জুনা কে ঝুনা লিখে ফেলসি । তোর লেখা মানেই সারপ্রাইজ এলিমেন্ট থাকবে । লেখা টা যে আসলেই ভাল হইসে কমেন্ট এর লম্বা মিছিল দেখেই বোঝা যায় । :hatsoff:

    জবাব দিন
  5. রহমান (৯২-৯৮)
    প্রথমে আমার একটুও ভাল লাগত না…ধীরে ধীরে ওকে যখন জানলাম, বুঝলাম…ভাল লাগা তৈরি হল- আর ভাল লাগা থেকেই এক সময় হয়ে গেল আমার সবচেয়ে ভাল বন্ধু

    আমি ভাবলাম বুঝি অন্য কিছু :bash:

    উপরওয়ালার কাছে আমার চাওয়া- আমাদের বন্ধুত্ব যেন অটুট থাকে চিরকাল…!!!

    শুধু বন্ধুত্ব :-/

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।