রিপুহত্যাযজ্ঞ

১.
…দুপুর গড়িয়ে চলে এলেও ঘেরা-পর্দা ঘরে সবুজ-আঁধার, বিনম্র; চলাচল করে। আমি ওঘর থেকে এলোমেলো ঘুম পায়ে এসে একটু হকচকিয়ে যাই, দেখি অন্ধকারের সবুজ মায়া তখনও যা টেবিলের প্রান্তে লেগে ছিল। আমাদের ঘরের একাকী রসনা-টেবিলে কিছু বোনা-কাপড়ের ম্যাট চকচকে-কাঁচ গেলাশেরা মিনারেল বোতলে ভরা মমতা-জল উদভ্রান্ত আর বিষন্ন বসে থাকে। এ ঘরে এলেই তারা সবাক-সশব্দ হয়ে ওঠে, কিশোরীর ঋতুমন্ত হয়ে ওঠার মতো তাদের কোমল ব্রীড়া, গোপন কান্না আমার নখাগ্রে মিশে যেতে থাকে। আমি ইতস্তত দ্রুততায় ঈর্ষা-কাম-ক্রোধ-লোভঃ প্রথাগত রিপুসমূহ লুকিয়ে ফেলি তারা ভয় পেতে পারে ভেবে…

২.
…সারাদিন বাইরে ঘুরে আমি রিপুগুলো ঘষে ধারালো ক্ষুরধার করেছি হা হা করে হেসেছি অস্ত্র বাগিয়ে চিরেছি বাগান, ফুল আর কোমল ঘাস। ঘরে ফিরে ক্ষুধার্ত দাঁতাল শুয়োরের মত ঘোঁৎ ঘোঁৎ করে দরোজা-জানালা ভাঙচুর করি ধূলো ওড়ানো কার্পেট চষে গেরস্তের জামা, চাকরের চুরি করা ট্যাঁকে গোঁজা টাকা, ছেলেটার টিফিনের বাক্স আছড়ে ভাঙতে থাকি। ভুল করে বেখেয়াল উন্মত্ততায় যেই এঘরে এলাম, রসনা-টেবিলের কিশোরী-তৈজস আমাকে নিরস্ত্রনির্মূলনখদন্তহীন করে দিল!…


৮.১.৯

২,৫৫৩ বার দেখা হয়েছে

৪৪ টি মন্তব্য : “রিপুহত্যাযজ্ঞ”

  1. রহমান (৯২-৯৮)
    ভুল করে বেখেয়াল উন্মত্ততায় যেই এঘরে এলাম, রসনা-টেবিলের কিশোরী-তৈজস আমাকে নিরস্ত্রনির্মূলনখদন্তহীন করে দিল!…

    ভুল করে বেখেয়াল উন্মত্ততায় যেই এই পোষ্টে এলাম, তোমার এই ব্যাপক লেখা আমাকে নিরঙ্কুশঙ্কিতহতবিহবলিতন্দ্রাহীন করে দিল!... :bash:

    তাই আর বুঝার চেষ্টা না করে :no: ঘুমাতে গেলাম 🙁

    জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      ...দুপুর গড়িয়ে চলে এলেও
      ঘেরা-পর্দা ঘরে সবুজ-আঁধার,
      বিনম্র;
      চলাচল করে।
      আমি ওঘর থেকে এলোমেলো ঘুম পায়ে এসে
      একটু হকচকিয়ে যাই,
      দেখি অন্ধকারের সবুজ মায়া তখনও যা
      টেবিলের প্রান্তে লেগে ছিল।
      আমাদের ঘরের একাকী রসনা-টেবিলে
      কিছু বোনা-কাপড়ের ম্যাট
      চকচকে-কাঁচ গেলাশেরা
      মিনারেল বোতলে ভরা মমতা-জল
      উদভ্রান্ত আর বিষন্ন বসে থাকে।

      এ ঘরে এলেই তারা সবাক-সশব্দ হয়ে ওঠে,
      কিশোরীর ঋতুমন্ত হয়ে ওঠার মতো
      তাদের কোমল ব্রীড়া, গোপন কান্না
      আমার নখাগ্রে মিশে যেতে থাকে।

      আমি ইতস্তত দ্রুততায় ঈর্ষা-কাম-ক্রোধ-লোভঃ
      প্রথাগত রিপুসমূহ লুকিয়ে ফেলি
      তারা ভয় পেতে পারে ভেবে...

      দেখতো, এবার পড়ে কবিতাটা কেমন লাগলো?

      জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      …সারাদিন বাইরে ঘুরে আমি
      রিপুগুলো ঘষে ধারালো ক্ষুরধার করেছি
      হা হা করে হেসেছি
      অস্ত্র বাগিয়ে চিরেছি বাগান,
      ফুল আর কোমল ঘাস।

      ঘরে ফিরে ক্ষুধার্ত দাঁতাল শুয়োরের মত
      ঘোঁৎ ঘোঁৎ করে দরোজা-জানালা
      ভাঙচুর করি
      ধূলো ওড়ানো কার্পেট চষে
      গেরস্তের জামা,
      চাকরের চুরি করা ট্যাঁকে গোঁজা টাকা,
      ছেলেটার টিফিনের বাক্স
      আছড়ে ভাঙতে থাকি।

      ভুল করে বেখেয়াল উন্মত্ততায়
      যেই এঘরে এলাম,
      রসনা-টেবিলের কিশোরী-তৈজস
      আমাকে
      নিরস্ত্র
      নির্মূল
      নখদন্তহীন
      করে দিল!…

      দেখতো এবারে কেমন লাগে কবিতাটা! 🙂

      জবাব দিন
      • রহমান (৯২-৯৮)

        আন্দালিব,
        আগের কমেন্টে দুষ্টামি করেছিলাম ভাই। আশা করি কিছু মনে করোনি। তোমার লেখার ষ্ট্যান্ডার্ড অনেক অনেক ভালো। কিন্তু মাঝে মাঝে আমার এন্টেনার উপর দিয়ে চলে যায়, ক্যাচ করে না :no: । তাই আমি তোমার লেখা পড়তে একটু ভয়ও পাই 🙁 । এখন কবিতাটা বোঝা যাচ্ছে, পড়তেও আরাম লাগছে, কিছুটা মনে হয় বুঝতেও পারছি 🙂

        জবাব দিন
        • আন্দালিব (৯৬-০২)

          রহমান ভাই, কিছুই মনে করিনি। আপনি খামাখা এভাবে বলে আমাকে লজ্জায় ফেলে দিচ্ছেন। আমার শেষ কিছুদিনের লেখালেখি একটু বিক্ষিপ্ত, সেটা নিয়ে আমি খুব চিন্তা চালাচ্ছি। কারণ লেখার মাঝে যদি সরল চিন্তাগুলো ঠিক মত আনতে না পারি তাহলে আমার নিজের কাছেও অস্বস্তি লাগে।

          গদ্যকবিতা নিয়ে আমার কাজ খুব বেশি নাই, পড়াও হয় নাই বেশি। তবে লোভ সামলাতে পারি না গদ্যকবিতা লেখার। সেজন্য মাঝে মাঝে হয়ত লেখাগুলো খুবই বেশি দুর্বোধ্য হয়ে পড়ে। সেখানে আপনাদের নিরন্তর উৎসাহ লেখা চালিয়ে যেতে প্রেরণা দেয়, সেকথা না বললে অন্যায় হবে...
          ঃ)

          জবাব দিন
  2. সায়েদ (১৯৯২-১৯৯৮)

    শীর্ষেন্দুর একটা শিশুতোষ গল্পের বই আছে "গোসাইবাগানের ভূত" না কি যেন.........সেখানে নতুন জামাইয়ের সাথে শালীদের ঠাট্টার নমুনা স্বরূপ পানের মধ্যে আস্ত আস্ত সুপারী দিয়ে দেবার কথা আছে। সেই জামাই বাবাজি আবার কড়মড় কড়মড় করে সেই সুপারী চিবিয়ে খেয়েও সব দাঁত ভেঙ্গে ফ্যালে 😛 😛 ।

    আমার সেই কড়মড় কড়মড় অনুভূতি হচ্ছে 😀 😛 😀 😛 ।
    বহুত কডিন রে ভাই।


    Life is Mad.

    জবাব দিন
  3. টিটো রহমান (৯৪-০০)

    আন্দালিব কবিতার আকারে দেয়ার পরই ভাল লাগছিল। কোন নতুন এক্সপেরিমেন্ট করলে ফুটনোট দিয়ে দিও ........তাতে সবার উপকার হবে..........কিংবা কোন স্টাইলে পড়তে হবে


    আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই

    জবাব দিন
  4. ওবায়দুল্লাহ (১৯৮৮-১৯৯৪)

    কামরুলতপু বলেছেনঃ

    আন্দালিব তুই আসলেই বস, তোর লেখাই শুধু না তোর চিন্তা ধারণা গুলাও।

    আন্দালিব (১৯৯৬-২০০২)

    ধুর ব্যাটা! কী বলিস! চুপ চুপ! :shy:

    প্রিয় আন্দালিব,
    প্রাথমিক উপস্থাপনা এবং পরবর্তীতে রূপ পরিবর্তন -
    শিরোনামসমেত মোহনীয় হয়ে ঠেকলো আমার কাছে।
    🙂
    শুভেচ্ছা নিও ভাইয়া।


    সৈয়দ সাফী

    জবাব দিন
  5. তানভীর (৯৪-০০)

    আন্দালিব, লেখা নিয়ে তোমার নিত্যনতুন এক্সপেরিমেন্ট করার ব্যাপারটা আমার বেশ ভাল লাগে।
    প্রবন্ধ অবস্থাতেই একটু বুঝেছিলাম, কবিতা আকারে দেয়ার পর বেশ স্পষ্ট হয়ে গেল।

    চমৎকার। :thumbup: :thumbup:

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।