মেলাঙ্কলিয়া

প্রতিটা মানুষ একেকটা গহন টানেল
ঘরের ওপরের ছাদে তাদের বিম্ব জমে থাকে শিশিরের সাথে

টানেলের মত
ঘিয়েরঙের কয়েক
টুকরো নিঃশব্দ
বিকেল পকেটে
গলিয়ে রাখা যায়

পুলিশী তল্লাসি চলে তল্লাটে যখন, পকেটে জমানো বিকেলের রোদ
ফেলে দেয়া যায় ফুটপাতে, ভিখারির পাতে
খুশি খুব সে’ও আমার মতোইঃ “জিতে গ্যাসি হৈ” ভেবে
আমি এক অচল বিকেল গছিয়ে টানেলে লুকালাম শেষে
সেকথা পুলিশ বা ভিখারি না-ও জানতে পারে
গহন টানেলের ভেতর আরেক টানেল আড়াআড়ি!

টানেলের ওপারে গ্রীনহাউজ
কাচের ঘরের নাম সবুজ, তাপের সরবরাহ অহরহ
তাপঘরে টেবিল পাতা চোখের রশ্মির চে’ তীক্ষ্ণ তীর
আলোক আলোক মাখা। সাজানো শরোৎসব জুড়েছে নৃত্যগান
ছুরি চামচ প্লেট মেলে লোকমা লোকমা মুখের ভেতর হেমন্ত শরৎ
জিহ্বা, চোয়াল, কড়কড়, কাশফুল!

প্রতিটা মানুষরূপী টানেলের ছায়া পড়ে থাকে ভিখারির পাতে।

***
১৬.৭.৯

১,৩৯১ বার দেখা হয়েছে

২৮ টি মন্তব্য : “মেলাঙ্কলিয়া”

  1. আদনান (১৯৯৪-২০০০)

    কিরে মুড খারাপ নাকি? কবিতার নাম দেখে বললাম । অনেকদিন পর প্রথম । কবিতাটা এখনো পুরোপুরি বুঝিনাই । কবিতা আমি খুব ভাল বুঝিনা । তবে শব্দের খেলা যে ভাল লেগেছে সেটা জানিয়ে যাই ।

    জবাব দিন
  2. রকিব (০১-০৭)
    প্রতিটা মানুষরূপী টানেলের ছায়া পড়ে থাকে ভিখারির পাতে।

    :hatsoff: :hatsoff: :hatsoff:
    সবুজ বৃক্ষ রক করে।


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
  3. আন্দালিব ভাই খুব সুন্দর একটি কবিতা খু্বই ভালো একটা কবিতা।সিসিবি আমাদের খুবই সুন্দর কবিতা,গল্প প্রকাশ পাই বইমেলাই একটা বই বের করতে পারি যা থেকে যে টাকা আসবে আমরা ভালো কোন কাজে ব্যায় করতে পারি।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।