হিয়ার লাইজ দ্যা গিনেজ বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড

১।
ব্ল্যাকবোর্ডে নাম লিখার সময় ক্যাডেট অনেক সময়ই ঐচ্ছিক-অনৈচ্ছিক ভুল করে ফেলতো। ‘ক্ষুরসিধা বানু’, ‘ষাঁড়মীণ’ লিখে বেদম পিটন খেয়ে পুনঃ যেই লাউ সেই কদুই …… অতিষ্ট হয়ে শেষ পর্যন্ত এই ভুল গুলিকে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতেই দেখা হোত।
২।
রাতজেগে আড্ডাচ্ছি, হঠাৎ পাশের হাউজ থেকে ক্লাসমেট এসে খুব ডাকাডাকি, ‘দোস্ত দেইখা যাও, তাড়াতাড়ি’। কি এমন জিনিস যে কাল সকালে দেখা যাবে না? প্রশ্নের উত্তরে বলল ‘সকালে সুইপার আসার আগেই দেখতে হবে’। উৎসুক হয়ে দেখতে গেলাম। দেখলাম তিনটা টয়লেটের সর্ব ডানেরটার দরজার বাইরের অংশে খুব সুন্দর করে ইংলিশে লিখা ‘হিয়ার লাইজ দ্যা গিনেজ বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড’, ভেতরে দেখলাম ক্রিকেট মাঠের চারের সীমানা দেয়ার মত মোটা একখন্ড ‘দড়ী’ পরে আছে আর দরজার ভিতরের অংশে লিখা ‘হিদ হিদ মুস্তাহিদ’।
সুইপার কি পারবে?? নাকি ফায়ার ব্রিগেড লাগবে?? সেই চিন্তায়ে সারারাত আর আড্ডা, ঘুম কোনটা-ই হল না আমার।

(‘হাওয়ার গুলি’ ব্লগটি পড়িয়া এই গল্প শেয়ার করিবার সাহস করিলাম)

১,৫৫৫ বার দেখা হয়েছে

১৭ টি মন্তব্য : “হিয়ার লাইজ দ্যা গিনেজ বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ড”

  1. ওই মিয়া! আপনের হইলোডা কি আজকে? আর কতো হাসাইবেন। :goragori: সারাদিন ধইরা হাসলাম। এখন ঘুমাইতে যামু, তার আগে আবার এইটা ছাড়লেন। :khekz: :khekz:
    এমন করলে কিন্তু খেলুম না।

    জবাব দিন
  2. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    তাইফুর মামা আইজকা পুরা উরা ধুরা মুডে আছে। পোলাপাইনের কুনু ছাড়াছাড়ি নাই
    আজকে বুঝছি, হাসতে হাসতে পিরা যাইতে যাইতে মিরা যাওয়া ছাড়া কুনু উপায় নাই :goragori: :goragori:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  3. মুহাম্মদ (৯৯-০৫)

    তাইফুর ভাই একদিনে যা দেখাইলেন আমরা এতোদিন ধইরাও তা দেখাইবার পারিনাই। প্রত্যেকটা লেখা সেইরকম হইছে।
    কলেজে কিন্তু আপনের নাম অনেক শুনছি। সেই ক্লাস সেভেনের প্রথম দিন থেকেই। যদিও আমরা যাওয়ার ১ বছর আগেই আপনারা বিদায় নিছেন।

    জবাব দিন
    • তাইফুর (৯২-৯৮)

      আরে ধুর মিয়া, উৎসাহ দিয়া গাছে তুইলা দিয়া মই নিয়া ভাগছ, এখন একের পর গল্প মনে পড়ে আর কম্পিউটার নিয়া বসি। চাকরী যায়, যায়। ঘুম, নাওয়া, খাওয়া তো গেছেই।


      পথ ভাবে 'আমি দেব', রথ ভাবে 'আমি',
      মূর্তি ভাবে 'আমি দেব', হাসে অন্তর্যামী॥

      জবাব দিন
  4. সাইফ (৯৪-০০)

    তাইফুর বস,আপনার কাহিণী পইড়া আমার মনে অইতাছে। আমি আপনার গলার স্বর শুনতে পাচ্ছি ।চিকন গলায় ডাক্তেছেন.।আরশাদ অই আরশাদ।..আপ্নার ফাইনাল টার্ম আমাদের...সবেশ

    বেশি কইরা লেখেন। :duel: ব্লগে একটা রিভোলীঊশাণ নিয়ে আসেন।

    জবাব দিন
  5. সায়েদ (১৯৯২-১৯৯৮)
    ‘ক্ষুরসিধা বানু’, ‘ষাঁড়মীণ’

    আগে খালি "পিরা" ছিল। এখন "মিরা"ও যোগ হইছে......
    আর উপায় নাই - এইরকম গুল্লি খাইতে থাকলে মিরা যাওয়া ছাড়া উপায় নাই 😛 ।
    জোশ মামা - বহুত জোশ 😀 :)) =)) :boss: :boss: ।


    Life is Mad.

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।