ভ্রমণ বিড়ম্বনা……

(প্রত্যেকবার যখন ট্রেনে বা বাসে বড় কোন জার্নিতে যাই তখন ভাবি অনেক কিছু। কিন্তু বাস্তবে হয় তার পুরো উল্টো। অনেকবার নানা রকমের অভিজ্ঞতা হয়েছে। সেই গুলোই এখানে বলার চেষ্টা করলাম। )

কল্পনায়-
যাবো ট্রেনে বসবে পাশে, অচেনা এক মেয়ে;
সুন্দরী হবে খুব-দেখবো চেয়ে চেয়ে।
কথা হবে, হাসি হবে,হবে পরিচয়।
বিদায়ের আগে হবে নাম্বার বিনিময়।
অতঃপর দেখা হবে, প্রেম হবে এবার।
সিঙ্গেল লাইফটার, ইতি হবে আমার।

 

 

বাস্তবে-
ঘটনা-১
যাচ্ছি ট্রেনে- বসেছে পাশে, থুরথুরে এক বুড়ী।
পান খাওয়া মুখ খানা তার- জীবন্ত পিচকিরি।
থুথু ছিটায়, পিক ফেলে- আমার গায়ের উপর,
পানের পিকে ভিজে গেল গায়ের জামা-কাপড়।
একটু পরে পরে সে খুকখুকিয়ে কাশে,
আমি কিছু বলতে গেলেই, ফোকলা দাঁতে হাসে।

 

ঘটনা-২
এবার পাশে বসেছেন, মোটাসোটা এক লোক।
তারে দেখে ভুললাম আমার, মেদ-ভুরির শোক।
তাগড়াই চেহারা তার, লাগে দেড়খান সিট।
চাপা পড়ে ক্রমেই আমি, যাচ্ছি হয়ে ফিট।
গরমে আর ঘামের গন্ধে, আমি মরো মরো…
হঠাৎ দেখি লোকটা বলে, “any problem, bro?”

 

ঘটনা-৩
মোবাইল কানে, হিপহপ এক পোলা বসলো পাশে-
ফোনে কী কী বলে আর, হুদাই খালি হাসে।
গুনগুন করে সে, শোনায় কারে গান-
একটু পর পর জিগায় খালি, “ভাত খাইছো, জান?”

 

ঘটনা-৪
বাসযাত্রাঃ সহযাত্রী, হোমরা-গোমড়া চেহারা-
তার ব্যক্তিত্বের কাছে আমি, নাদান এক বেচারা।
পাশে বসেই হাতে নিলেন, দামি একখান ফোন,
কারে জানি কল দিয়ে বললেন- “ওই শোন-
“জানোস না আমি, এলাকার ভাই?”
“আমার লগে কোন রকম চুদুরবুদুর নাই”।
“বাত-চিত করলে, খাবি মুলি বাঁশ-
“রাইতের বেলা ঘুমায়া থাকবি- সকালে হবি লাশ”।

 

ঘটনা-৫
পাশে বসা যাত্রী এবার, অচেনা এক আন্টি-
সাথে দেখলাম পিচ্চি একটা, নাম শুনলাম- বান্টি।
চিল্লায় আর কান্দে সে, থাকেনা চুপচাপ-
অর মায়ে পিঠের উপর, বসায় খালি ধুপধাপ।
পিচ্চি বিশাল দুষ্টু আছে, চিপস দিলে চায়- বিস্কিট
পেটে মনে হয় ক্রিমি হইছে, মেজাজ পুরাই খিটখিট।
একবার আমি ভাবলাম, নেই তারে কোলে,
আমার কোলে এসে সে হল- লক্ষ্মীছেলে।
একটু পরে দেখি তার, মুখে কোন কথা নাই।
ব্যাপার খানা আমি, পরথমে বুঝি নাই।
হঠাৎ আমার প্যান্ট দেখি লাগে ভেজা ভেজা-
পিচ্চিবাবু নগদে, মুইতা দিসে সোজা।

১,১৬৯ বার দেখা হয়েছে

১৪ টি মন্তব্য : “ভ্রমণ বিড়ম্বনা……”

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।