ডায়েরীর পাতা থেকে উদ্ধার করা কিছু জঞ্জাল (গত পর্বের পর)

শুক্রবার, ৯ মে ২০০৩
আজকের দিনটা মোটামুটি গিয়েছে। সকালে Optional Games, জুমআ নামাজ, তারপর Quiet Hour এ লম্বা ঘুম, 2nd Prep, অবশেষে হাউসে এসে লিখতে বসলাম। আজ আমাদের কলেজ টিম পার্লামেন্টারী ডিবেটে অংশ নিতে গিয়েছিল। প্রতিপক্ষ ছিল ভিকারুন্নিসা নুন স্কুল। Hard Opponent তবে ফাইট হয়েছে। মাত্র ৪ পয়েন্টের ব্যবধানে হেরে গিয়েছি আমরা। আমি বলতে গেলে ভালই দুঃখ পেয়েছি। অবশ্য কিছুই করার নেই কারন আমাদের বেশ কিছু সীমাবব্ধতা আছে সে না হয় নাই বা বললাম। কারন বলতে গেলে “নাচতে না জানলে উঠান বাঁকার” মত অবস্থা হবে। মনটা আরো খারাপ কারন আমার ঘড়িটা হারিয়েছে এক সপ্তাহ হয়ে গেল কিন্তু এখনো খুঁজে পাচ্ছি না। আমার খুব সখের ঘড়ি ছিল। (আমার মতে) বেশ দাম দিয়ে মাত্র দু’বছর আগে কিনেছি। ক্যাসিওর সবুজ ডায়ালের লেদার বেল্টের ঘড়ি। ভেবেছিলাম ছাত্রজীবন কেটে যাবে। অথচ দুর্ভাগ্য। আমার এই টার্মে যে কি হয়েছে উপরওয়ালা জানেন। এক এর পর এক দুর্ঘটনা তার উপর আমার ট্রেডমার্ক বিষন্নতা ও দুশ্চিন্তা তো আছেই – পিছু ছাড়েনি এক মুহুর্তের জন্য। তবে মজার ব্যাপার হলো ঘড়ির শোকে যতটা দুঃখ পাবার কথা তার এক দশমাংসও অনুভূত হচ্ছে না। কারনটা এর আগে বলেছি – আমার নিস্পৃহভাব। ব্যাপারটা বিরক্তিকর যাই হোক বলে লাভ নেই।

এখন বাজে রাত দশটা চল্লিশ। বেশ ঘুম পাচ্ছে। রুমে নয়জনের মধ্যে ৭ জন জেগে আছে তবে তাদের কেউ চুপচাপ বসে আছে কেউ বা টুকিটাকি কাজ করছে নিঃশব্দে। আমার ঘুমের পাশাপাশি লিখতেও ইচ্ছা করছে। তার উপর অনেক কাজ বাকি। প্র্যাক্টিকাল, পড়াশোনা আরো অনেক কিছু। সবকিছু শেষ হবেনা তবে আজকে চেষ্টা করতে মন চাচ্ছে। ভালো লক্ষণ। বাসায় যাব শীঘ্রই কিন্তু সেটা নিয়ে আমার মাঝে কোন অনুভূতি নেই। কেমন যেন নিরামিষ একটা ব্যাপার। আজকে গান শুনলাম ক্যাসেট প্লেয়ারে। Guns N Roses এর বেশ কয়েকটা। এর মাঝে November Rain টা অন্য সবার মতই ফেভারিট। Slash এর মত গীটার বাজাতে যদি পারতাম তাহলে পড়াশুনা ছেড়ে দেয়ার একটা চেষ্টা করা যেত। কিন্তু ওই শালার মত গীটার বাজাতে হলে আমাকে পড়াশোনার চেয়ে কষ্ট করতে হবে। সুতরাং দরকার নেই বাবা যতটুকু পারি তাতেই সময় বেশ ভালই কেটে যায়।

ঘুমের তীব্রতা মাত্রাতিরিক্তভাবে বেড়ে গিয়েছে তাই আজে বাজে কথা লিখে পাতা ভরানোর কাজটা আজকের মত মুলতুবি।

২,০৬৬ বার দেখা হয়েছে

৩১ টি মন্তব্য : “ডায়েরীর পাতা থেকে উদ্ধার করা কিছু জঞ্জাল (গত পর্বের পর)”

  1. মুসতাকীম (২০০২-২০০৮)

    :thumbup: :thumbup: :thumbup: চলুক


    "আমি খুব ভাল করে জানি, ব্যক্তিগত জীবনে আমার অহংকার করার মত কিছু নেই। কিন্তু আমার ভাষাটা নিয়ে তো আমি অহংকার করতেই পারি।"

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।