ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডসঃ ওয়ান্‌স আপ’ন এ টাইম, ইন নাৎজি অকুপাইড ফ্রান্স

[ব্লগ লেখা এক মারাত্মক নেশা। ঘাড় থেকে নামিয়ে রেখেছি আশ্বাসে নিশ্চিন্ত হয়ে বসলেই টের পাই কোন ফাঁকে সে আবারও ঘাড়ে চড়ে বসেছে এবং দুই হাঁটু দিয়ে কানের ওপরে চাপ দিচ্ছে! একটা ব্লগ না লেখাতক এই অদৃশ্য ব্যথাটি সরছে না!]

Inglourious Basterds নামটার মধ্যে প্রথমেই যেটা খেয়াল করলাম সেটা হলো নামের বানান ভুল। ভাবলাম টাইপো, তারপরে ভাবলাম টারান্টিনো কি ভুল শিখেছেন নাকি (যদিও চিন্তাটা শিশুতোষ ভীষণ), পরে একটু ঘাঁটতেই জানতে পারলাম এটা টারান্টিনোর সেই বিখ্যাত স্বপ্রণোদিত “গুফ”গুলোর একটা। টারান্টিনো নিজের সব ছবিতেই এরকম দুয়েকটা স্বেচ্ছায় করা ভুল রেখে দেন। এই ছবিতেও আছে। কিন্তু আমার লেখা সেইসব ভুল নিয়ে নয়। ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডস ছবি দেখে কী কী ভাবলাম আর পাইলাম সেগুলো নিয়ে।

দুর্দান্ত কোন সিনেমা দেখলে আমি সবার সাথে সেটা শেয়ার করার চেষ্টা করি, মাঝে মাঝে জোর করে কাউকে কাউকে ছবি দেখাই, পরে গিনিপিগেরা আমাকে ধন্যবাদই দিয়েছে বেশিরভাগ সময়ে। তবে ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডস দেখে আমি একটু মুশকিলে পড়েছি। এই ছবিটা নিয়ে মূলত অনেকেই আমার মতো মুশকিলে পড়েছেন। সেটাও টের পেলাম রটেন টম্যাটোতে রিভিউ পড়তে গিয়ে। কুয়েন্টিন টারান্টিনোর ছবি নিয়ে এমন দোলাচল খুব স্বাভাবিক, কারণ প্রথাগত ছবি তৈরির অভ্যাস এই পরিচালকের একেবারেই নাই। আখেরে লাভ অবশ্য আমার মতো দর্শকদের হয়, যারা একঘেঁয়ে গোলাগুলি আর ‘ব্রেইনলেস অ্যাকশন’ দেখে দেখে বিরক্ত। উদাহরণ হিসেবে এই মুহূর্তে ডাই হার্ড আর ট্রান্সফর্মারস এর কথা মনে আসছে।

বাস্টার্ডস ছবিতে টারান্টিনোর ম্যুভির স্বাক্ষর খুব প্রকটভাবে বিদ্যমান। যারা টারান্টিনোর সাথে পরিচিত নন, তাদের জন্যে বলতে পারি, দুর্বলচিত্তের অধিকারী হলে সযত্নে টারান্টিনো এড়িয়ে চলুন! প্রচুর রক্তপাত, যৌনতার দৃশ্য ভরা থাকে, রক্তপাতের দৃশ্যগুলো ধারণের মুন্সিয়ানা এতদূর যে যেকোনো মানুষের বিবমিষা তৈরিতে পারদর্শী। এছাড়া ধীরলয়ের সংলাপও থাকে খানিকটা ছবিজুড়ে। আবহ সঙ্গীতের প্রাবল্য থাকবে আর সঙ্গীতের পরপরই হয়তো শুরু হয়ে যাবে কাটাকুটি বা ভয়ানক নৃশংসতা। ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডস এর পটভূমি ফ্রান্সে, সময়কাল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ, সুতরাং এই উপাদান ব্যবহারের যথেষ্ট সুযোগ তিনি পেয়েছেন! তবে মজার ব্যাপার হলো, পুরো ছবিতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের ভয়ানক ধ্বংসযজ্ঞ নেই। আর প্রকৃত ইতিহাসের চাইতেও বড়ো চমক রয়েছে ছবির শেষে।

inglourious
এতো বড়ো সুযোগ পাওয়ার পরেও কেন টারান্টিনো মারামারি এড়িয়ে গেলেন সেটা বোঝার জন্যে ছবিটা আরেকবার দেখলাম। অবাক হয়ে খেয়াল করলাম যে এবার দেখার সময়ে আমার কাছে ছবিটা অনেক বেশিই বীভৎস লাগলো। মানুষের বিকৃতি, মনুষ্যত্বহীনতা, বর্ণবাদ, উগ্রস্বজাত্যবোধ, আর লালসার ঘিনঘিনে রূপ যেন ফেটে ফেটে বের হচ্ছে! এই ম্যাজিকাল ব্যাপারটি কীভাবে হলো? কেনো পরের বার দেখার সময়ে এটা টের পেলাম, প্রথমবারে যেটা পাইনি? আর কেনোই বা সেটা নিয়ে কেউ কথা বলছে না?

আচ্ছা, সেটা নিয়ে বলার আগে একটু কাহিনীটা বলে নেই। গল্পের সময়কাল ১৯৪১ থেকে ১৯৪৪, নাৎজি-অধিকৃত ফ্রান্সে। আমেরিকান-ইহুদী আটজন সৈনিককে পাঠানো হয় এই অঞ্চলে গিয়ে নাৎজিনিধনে। এই আটজনের নাৎজিনিধনের বীভৎস গল্প ছড়িয়ে পড়ে বিপক্ষশিবিরে, এদেরকেই বলা হতো বাস্টার্ডস। যুদ্ধের শেষের দিকে, ১৯৪৪ সালে এক জার্মান সৈনিকের বীরত্বের কাহিনী দিয়ে চলচ্চিত্র বানানো হয়। সেই চলচ্চিত্রের প্রিমিয়ার শো’তে আসবেন হিটলার, এমন খবর গোপনসূত্রে পেয়ে যায় বাস্টার্ডরা। তাদের পরিকল্পনা ছিলো, একই দিনে হিটলার, গোয়েবলস, জেনারেল হারম্যান গোরিংকে মেরে ফেলার সুযোগ পাওয়া গেছে, সেটা কাজে লাগাতেই হবে। মূলত গেরিলা কায়দায় কাজ করা এই দলটি তখন ছদ্মবেশে সিনেমা হলে ঢুকে পড়ার ফন্দি আঁটে। সৌভাগ্যক্রমে, সিনেমাহলের মালিক এক কমবয়েসি ছদ্মবেশী ইহুদি মেয়ে, যে নিজেও আলাদাভাবে হিটলারকে মারার নকশা করছে। বাকিটুকু না’হয় সিনেমা দেখার জন্যে এখন উহ্য রাখি। 🙂

ইনগ্লোরিয়াস ছবি দেখে সবচেয়ে বড়ো প্রাপ্তি হলো অনেকদিন বাদে এক ভয়ানক ভিলেনের চরিত্রের দেখা পেলাম। স্টান্ডারটেনফুয়েরার হান্‌স লান্‌ডা। Schutzstaffel সংক্ষেপে SS অর্থাৎ তৎকালীন নাৎজি বাহিনীর সিক্রেট সার্ভিসের এক সেনা কর্মকর্তা। অস্ট্রিয়া থেকে তাকে ফ্রান্সে পাঠানো হয় লুকিয়ে থাকা ইহুদি খুঁজে খুঁজে তাদেরকে বন্দি করা, কনসেন্ট্রশন ক্যাম্পে পাঠানো অথবা মেরে ফেলা। ইহুদিদের খুঁজে বের করার পারদর্শিতার জন্য তার নাম দেয়া হয় “দ্য জিউ হান্টার”। ছবির শুরুর বিশ মিনিট কর্নেল (পরবর্তীতে জেনারেল) হান্‌স লান্‌ডা দখল করে নিয়েছেন, এবং বাকি ছবি জুড়ে তার একটা প্রচ্ছন্ন ছায়া ছড়িয়ে আছে। চতুর, কথাবার্তায় হাস্যমুখি এই জেনারেলকে দেখে বোঝার কোনো উপায়ই নাই, যেকোন মুহূর্তেই সে কতোটা নৃশংস হয়ে উঠতে পারে। দুটি দৃশ্যের কথা বলতে পারি, ছবির শুরুতেই এক ফরাসির বাসায় ইহুদি খুঁজতে যায় হান্‌স লান্‌ডা। সেখানে তার কথা, চাহনি আর বডি ল্যাঙ্গুয়েজ আমাকে বারবার পাকিস্তানি সামরিক খুনিদের কথা মনে করিয়ে দিয়েছে। আমারও মনে পড়েছে, “ওয়ান্‌স আপ’ন এ টাইম, ইন পাকি-অকুপাইড বাংলাদেশ”-এ কীভাবে মানুষকে মারা হয়েছে! ফরাসি গ্রামটিতে চারটি ইহুদি পরিবার ছিলো, যাদের মাঝে তিনটা পরিবারকে খুঁজে পাওয়া গেছে। মঁসিয়ে লাপাদিত’-এর বাসায় গিয়ে হান্‌স তার সাথে কথা বলা শুরু করেন চতুর্থ পরিবারটি নিয়ে, তারা কোথায়, দেশে আছে না স্পেনে পালিয়ে গেছে, সেই পরিবারটিতে কয়জন ছিলো, তাদের বয়স কতো ইত্যাদি ইত্যাদি। এই সময়ে জার্মান তথা হিটলারীয় দৃষ্টিকোণের কিছুটা ঝলক চলে আসে, ইহুদিনিধনের প্রোপাগান্ডা, ইহুদিবিদ্বেষের বিষ কেমন ছিলো! সেইসাথে জার্মান উগ্র জাতীয়তাবোধের একটা নমুনা নিচের সংলাপে দেখুনঃ

Col. Hans Landa: Now if one were to determine what attribute the German people share with a beast, it would be the cunning and the predatory instinct of a hawk. But if one were to determine what attributes the Jews share with a beast, it would be that of the rat. If a rat were to walk in here right now as I’m talking, would you treat it to a saucer of your delicious milk?
Perrier LaPadite: Probably not.
Col. Hans Landa: I didn’t think so. You don’t like them. You don’t really know why you don’t like them. All you know is you find them repulsive. Consequently, a German soldier conducts a search of a house suspected of hiding Jews. Where does the hawk look? He looks in the barn, he looks in the attic, he looks in the cellar, he looks everywhere “he” would hide, but there’s so many places it would never occur to a hawk to hide. However, the reason the Führer’s brought me off my Alps in Austria and placed me in French cow country today is because it does occur to me. Because I’m aware what tremendous feats human beings are capable of once they abandon dignity.

ইতোমধ্যে কান ফেস্টিভ্যালে হান্‌স লান্‌ডার চরিত্র রূপায়নকারী ক্রিস্টফ ওয়ালটজ্‌ সেরা অভিনেতার পুরষ্কার জিতে নিয়েছেন। আমার মতে, এই বছরের অস্কারও তার পাওয়া উচিত! অনেকদিন এমন মানবিক (!) নেগেটিভ চরিত্র আমি দেখি না।

ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডসের মধ্যে পরিচালক টারান্টিনোর আরেকটা কাজ দুর্দান্ত লেগেছে, তা হলো সংলাপ ও দৃশ্যের হিউমার। যুদ্ধের ছবিতে কৌতুকমুখর দৃশ্য তৈরি করা বেশ কঠিন, আর যেখানে পাশাপাশি নৃশংসতা দেখানো হয় সেখানে মোটামুটি দুষ্কর। এই দুরূহ কাজটি টারান্টিনো এমন স্বাভাবিকভাবেই করেছেন, যে অভাবিত কষ্টের দৃশ্যগুলোও দর্শকের মনে আঁচড় কাটে না সেভাবে। হাসির দ্রুততায় হঠাৎ করে ঘটে যাওয়া মৃত্যুও স্বাভাবিক মনে হয়। এরকম বেশ কয়েকটি দৃশ্যই মনে পড়ছে, যেগুলো পরেরবার দেখার সময়ে অনেক বেশি প্রকট হয়ে উঠেছিলো। আরো যে জিনিশটা ফুটে উঠলো সেটা হলো যুদ্ধপীড়িত অবস্থায় মানবিকতার অবক্ষয়। যে কোন অপরাধ বা অন্যায় যা সাধারণ অবস্থায় খুব গর্হিত বলে গণ্য হয়, সেগুলো যুদ্ধের পটভূমি দৈনন্দিন চর্চা হয়ে ওঠে। মানুষের একটা ‘বাই-ডিফল্ট’ অভ্যাস হলো নৈতিক অন্যায়ের ব্যাপারে বিদ্রোহী হয়ে ওঠা (মনে মনে বা সদলবলে)। যুদ্ধাবস্থায় নৈতিকতা আর মনুষ্যত্বের এই স্খলনের সময়ে তাই খুব জরুরি হয়ে পড়ে সৈন্যদের মোটিভেট করা। “উই আর ফাইটিং ফর এ গুড ক’জ”- এই বাক্যটা যে কোন অন্যায় যুদ্ধে অনেক বেশি ব্যবহৃত হয়! দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধও তার বাইরে নয়। হিটলার তথা জার্মান যুদ্ধনীতির মূল শক্তিই ছিল অপরিসীম ঘৃণা ও ম্যানিপুলেশন। উগ্র স্বজাত্যবোধের সাথে দু’চামচ ঘৃণা মিশালে যে সুস্বাদু নেশা-জাগানিয়া বর্ণবাদের জন্ম হয়, তার বিষ খুব সহজেই লাখ লাখ মানুষ মারতে পারে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে যে চর্চা শুরু হয়েছিলো, সেই একই চর্চা দিয়েই তাদের ঘায়েল করা হয়েছে। মিত্রশক্তির মূল প্রেরণাই ছিল জার্মান নাৎজি বাহিনীর বিরুদ্ধে অবিমিশ্র ঘৃণা! বাস্টার্ডসদের পরিচয়পর্বের শুরুতে লেফটেন্যান্ট আলডো র‌্যাইন-এর চরিত্র রূপায়নকারী ব্র্যাড পিট তাই বলে,

And once we’re in enemy territory, as a bushwhackin’ guerrilla army, we’re gonna be doin’ one thing and one thing only… killin’ Nazis. Now, I don’t know about y’all, but I sure as hell didn’t come down from the goddamn Smoky Mountains, cross five thousand miles of water, fight my way through half of Sicily and jump out of a fuckin’ air-o-plane to teach the Nazis lessons in humanity. Nazi ain’t got no humanity. They’re the foot soldiers of a Jew-hatin’, mass murderin’ maniac and they need to be dee-stroyed.

এমন ঘৃণা থেকে কি যুদ্ধের শুরু হয়? নাকি যুদ্ধের মধ্যে দিয়েই এই ঘৃণার জন্ম? আমি এই প্রশ্নের দোলাচলে ভাসছি এখনও। টারান্টিনোর পরিচালনার গুণ এটাই যে বৃহদাকার কোন প্লট আর প্লাটফর্ম ছাড়াই এক অল্টারনেটিভ ওয়ার মুভি তিনি বানতে পারেন, যেখানে গোলাগুলির সংঘর্ষের চাইতে ক্রুর পৈশাচিক হাসির ক্ষমতা বেশি, বেয়োনেটে খুঁচিয়ে মারার চেয়ে নিষ্ঠুর কপালে স্বস্তিকার চিহ্ন এঁকে দেয়া।


পুনশ্চঃ আমি ছবিটা দেখতে দেখতে মন খারাপ করছিলাম যে আমাদের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে কবে এই ধরনের গভীরতা ধারণ করা চলচ্চিত্র তৈরি হবে, আর কবে আমি সেটা নিয়ে এর চেয়েও বড়ো ব্লগ লিখতে পারবো! 🙁


পুনঃপুনশ্চঃ লিঙ্করাজি (যারা এখনও ডাউনলোড করেন নাই বা কিনে ফেলেন নাই তাদের জন্যে 🙂 ):

ডিভিডিরিপ ডাইরেক্ট ডাউনলোড
ডিভিডিরিপ টরেন্ট
ব্লুরেরিপ ডাইরেক্ট ডাউনলোড
ব্লুরেরিপ টরেন্ট

৬,৮১৩ বার দেখা হয়েছে

৭৫ টি মন্তব্য : “ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডসঃ ওয়ান্‌স আপ’ন এ টাইম, ইন নাৎজি অকুপাইড ফ্রান্স”

  1. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)

    আরে! প্রথম হয়ে ত' বেশ মজা লাগে! 😀

    এখন বুঝলাম কেনো আমার থেকেও সিনিয়ররা পর্যন্ত এই প্রতিযোগিতায় নামে। 😛

    যাই, এখন পইড়া আসি.........


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন
  2. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)
    উগ্র স্বজাত্যবোধের সাথে দু’চামচ ঘৃণা মিশালে যে সুস্বাদু নেশা-জাগানিয়া বর্ণবাদের জন্ম হয়, তার বিষ খুব সহজেরই লাখ লাখ মানুষ মারতে পারে

    আমারো একই ধারণা।।


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন
  3. শাহরিয়ার (২০০৪-২০১০)

    একটা চমৎকার রিভিও!মুভিটা দেখতে গিয়ে ঠিক এই দুর্বলতাগুলো আমিও ফীল করেছি...
    ১.আমাদের মুক্তিযুদ্ধ নিয়ে এইরকম একটা সিনেমা বানানো হবে কবে(নিজেই কয়েকবার প্ল্যান করেও ফেলেছি)
    ২.ইহুদিদের প্রতি নাৎজিদের যে ঘৃনা,নিষ্ঠুরতা তেমনি বাস্টার্ডদের পৈশাচিকতাও খুব খারাপ ভাবে উঠে এসেছে।
    ৩.এই সিনেমায় মুগ্ধ হয়ে উপভোগ করেছি “দ্য জিউ হান্টার” এর অভিনয়।জাস্ট অসাধারণ!


    People sleep peaceably in their beds at night only because rough men stand ready to do violence on their behalf.

    জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      আমি অবশ্য দুর্বলতা হিসেবে চিহ্নিত করি না। আমি মনে করি সকল ভালো পরিচালকের নিজস্ব ভাষা আছে, গল্পবলার আর সিনেমা বানানোর ভঙ্গি আছে। এই ছবিটা টারান্টিনোর ছবি হিসেবে দুর্দান্ত হয়েছে কিন্তু!
      এতো মন দিয়ে পড়ার জন্যে তোমাকে অনেক ধন্যবাদ আর এক কাপ চা :teacup:

      জবাব দিন
  4. আন্দালিব কেমন আছিস? পরশুদিন মুভিটা দেখছি আর ভাবছি কবে এর রিভিউ ককব তে আসবে। যাক এসেই গেলো।
    আমার কাছে সমাপ্তিটা মুভির সেরা অংশ মনে হইছে। :shy:

    জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      সিনেম্যাটিক ভ্যালু বলে একটা কথা আছে, সেটা মানলে এই সমাপ্তিটা অনবদ্য হয়েছে। এটা নিয়ে অনেক ক্রিটিকেরই আবার মাথা খারাপ হবার জোগাড়। অনেকে সমাপ্তির কারণেই ছবিটার অন্য সব দিক নাকচ করে দিচ্ছেন। মনে হয় টারান্টিনোর "নাড়া দেয়া"র পরীক্ষাটা ভালৈ হয়েছে।

      তোর কমেন্ট পেয়ে খুব ভালো লাগলো রে। তুই নিয়মিত হয়ে যা এখানে। ম্যুভি যা দেখিস, রিভিউ লিখলে আমরা সবাই-ই লাভবান হইতাম! 😀 😀

      জবাব দিন
  5. তৌফিক (৯৬-০২)

    মুভিটা থিয়েটারে বইসা দেখছিলাম। পয়সা উশুল হইছে। ভালো হইছে রিভিউ। ব্লগে এখন কেন জানি নীরব পাঠক হইয়া গেছি। ব্লগানো দূরের কথা, বেশি কমেন্টাইয়ো না। 🙁

    জবাব দিন
  6. আদনান (১৯৯৪-২০০০)

    দেখি দেখি করে মুভিটা দেখা হচ্ছে না । রিভিউটা ভাল হইছে । কোন স্পয়লার দেস নাই । দিলে মাইর দিতাম 😛 গতকাল ব্লাইন্ড সাইট দেখলাম । দেখতে পারিস ভালো লাগছে আমার । শেষ করার আগে টারান্টিনোকে নিয়ে একটা মজার কথা মনে পরল । কলেজ থেকে বের হয়ে আমরা নিজেদের জন্মদিনে সবাইকে মুভি ভিসিডি/ডিভিডি গিফট করতাম । তো মোত্তাকীর জন্মদিনে আমি পাল্প ফিকশন গিফট করে সবার গালি খাইলাম । কারন মুভিটা সবার মাথার উপর দিয়ে গেছে । আমিতো ডেইলী স্টার এ রিভিউ পড়ে গিফট করছিলাম । কিন্তু এত নেগেটিভ রিভিউ শুনে দেশে থাকতে এই মুভিটা আর দেখা হয়নাই । পড়ে তো সিডনী এসে পরলাম, আর অনেক মুভি দেখা শুরু করলাম । তখনি পাল্প ফিকশন দেখে বুঝলাম কি মাল একটা মুভি পোলাপান বুঝেনাই । পরে অবশ্য সবার এ্যন্টেনাতে মুভিটা ধরা পরছিল 😀

    জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      হুম, পাল্প ফিকশন আমিও ক্লাস টেনে থাকতে দেখে বুঝিনাই কিছুই। তার উপরে প্রিন্ট ছিলো বাজে, ভেবেছিলাম ফালতু ডিরেক্টরের (!) হুদাই মুভি!! পরে অনেক পরে বুয়েটে ঢুকে আরেকবার দেখলাম। এবারে ডিভিডি কিনে। আর বুঝলাম যে আসলেই টারান্টিনো একটা মাল। 😛

      স্পয়লার দেই না যারা ম্যুভিটা দেখে নাই তাদের সুবিধার্থে। 😀

      জবাব দিন
    • কুচ্ছিত হাঁসের ছানা

      পাল্প ফিকশন নাকি খুব বস মুভি এই কথা শুইনা আমি, মুহাম্মদ আর মহিব মিলা একসাথে বইসা দেখা শুরু করছিলাম। আধঘন্টা দেখার পরে আমি পাশে তাকায়া দেখি মুহাম্মদ আর মহিব ঘুমাইতাছে আর আমি কোনমতে জাইগা আছি 🙁 🙁 🙁 🙁 পরে আর দেখা হয় নাই 🙁 🙁 🙁

      জবাব দিন
  7. জাহিদ (১৯৯৯-২০০৫)

    ছবিটার গল্প কার কাছে জানি শুনেছিলাম। তারপর থেকেই দেখার ইচ্ছা ছিলো। কিন্তু ভাল প্রিন্ট পাই নি। আন্দালিব ভাইয়ের লিঙ্ক থেকে নামায় দেখি। :boss: :boss:

    জবাব দিন
  8. কুচ্ছিত হাঁসের ছানা

    আমার IDM এর ডাউনলোড কিউ তে অনেক নিচে ছিল এই মুভিটা। আপনের রিভিউ পইড়া উপ্রে নিয়া আসলাম। ৬৫০ মেগা বিআর রিপ। আশাকরি আইজ্রাইতের্মধ্যেই হয়া যাইবো। 😀 😀 😀
    এ ব্যাপারে পরে বিস্তারিত আলুছানা করার আশা রাখি (কপিরাইট: আমিন ভাই 😀 )

    জবাব দিন
  9. মুহাম্মদ (৯৯-০৫)

    রিভিউয়ে ৫ তারা।
    সিনেমা তো এখনও দেখি নাই। কিন্তু রিভিউ পড়ে বুঝলাম টারান্টিনোর সিনেমা যতোটা বস হওয়া উচিত, ইনগ্লোরিয়াস বাস্টার্ডস সম্ভবত ঠিক ততোটাই। সিনেমাটা আছে। শীঘ্রই দেখব। দেখার পর আরও কথা হবে।

    জবাব দিন
  10. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    স্পয়লার এলার্ট-দয়া করে
    মুভিটি না দেখে থাকলে পড়বেন না,কাহিনীর অনেক কিছু বলে দেয়া আছে যার ফলে এই মন্তব্য এবং এর উত্তরের মন্তব্যগুলো পড়লে পড়ার পর মুভি দেখলে মজা নষ্ট হয়ে যেতে পারে।

    আন্দা ভাই,
    আপনার রিভিউ পড়ে পরীক্ষার মাত্র একুশ দিন আগেও মুভিটা না কিনে পারলাম না।এই মাত্র দেখা শেষ করে এসে উঠলাম।ভয়ঙ্কর সুন্দর মুভি- এটুকুই শুধু বলতে পারছি।প্রায় আড়াই ঘন্টার মুভি দেখতে বসে কখন কিভাবে সময় কেটে গেল টেরই পাইনি একবিন্দু! যদিও মুভিতে ব্যাখ্যা করা আছে যে ০ দশমিক ০০১ বার ভাগ্য নিজে হাত বাড়িয়ে দেয় ইতিহাসের গতিপথ পরিবর্তন করতে-তারপরেও দুর্ধর্ষ নাৎসী কর্নেলের দল পরিবর্তন করার কারণটা নিয়ে শেষের দিকে খুঁতখুঁতে ভাব রয়েই গেছে-কেন জানি ঠিক বিশ্বাসযোগ্য হচ্ছেনা(তাতে ছবি দেখার মজা যদিও নষ্ট হয়নি)। সবচাইতে অসাধারণ লেগেছে ইহুদি বালিকার ওই তরুন জার্মানকে হত্যা করার পর তার ভিতরে যে মানবিক অনুভূতির প্রকাশ দেখানো হয়েছে সেটি।আর বীভৎস রকমের আকর্ষণে বাস্টার্ডদের ওই বেসবল ব্যাটের মাধ্যমে সার্জেন্টকে হত্যা করার দৃশ্য সিনেমা শেষ হবার পর আর একবার দেখেছি।

    সবশেষে বলা যায়-দিস মুভি ইজ আ টোটাল ট্রিট!

    জবাব দিন
  11. রাজীউর রহমান (১৯৯৯ - ২০০৫)

    আন্দা ভাই, রিভিউ হিসেবে আমার মনে হয় অনেক কাহিনী বলে ফেলসেন : 😀

    এই মুভি দেখার পর আমার বেশ কিছু বিষয় ত্রুটিপূর্ন মনে হয়েছে। বাস্টার্ডদের যেভাবে এলাম, কোপালাম , জিতলাম স্টাইল ভালো লাগে নি। বিশেষ করে ব্যান্ড অফ ব্রাদারস দেখার পর মিত্রবাহিনীর জয়ের জন্য অত্যন্ত কষ্টসাধ্য পথ পাড়ি দিতে হয়েছে বলে মনে হয়েছে। যদি ও সম্মুখ সমর এই মুভির উপজীব্য বিষয় ছিল না তারপরও বাষ্টার্ডরা আকাশ থেকে পড়ল আর সবাই তাদের ভয়ে কাপাকাপি শুরু করল এমনটা দেখতে ভাল লাগেনি।

    নাজিদের নিরপত্তাব্যুহ সম্পর্কে এই সিনেমার চিত্রায়ন একেবারেই বাস্তবসম্পন্ন হয় নি। হিটলার এবং অন্যান্য টপ বসেরা হলের ভিতর বসে কাহিনীচিত্র দেখছেন, আর বাইরে একজনও নিরপত্তাকর্মী নেই ভাবতেই কেমন যেন লাগে। কোনরকম থরো চেকিং ছাড়াই অস্ত্র, বিস্ফোরকসহ ভেতরে ঢুকে পড়ছে লোকজন, অর্ধেক বিশ্বের দখলদারের ইমেজের সাথে ইহা একেবারেই যায় ন। সিনেমার শেষ দৃশ্যসমুহের চিত্রায়নে অতিকিক্ত কল্পনার ব্যাবহার ভাল লাগেনি।

    SS কর্ণেল এই সিনেমার অত্যন্ত শক্তিশালী চরিত্র । সিনেমার শুরুতেই সে তার অভিনয়ের মাধ্যমে সবাইকে মুগ্ধ করে ফেলেছে।

    টারান্টিনোর সম্পর্কে আমি প্রায় কিছুই জানিনা। বস একটা ছবি বানাইছে, সমালোচনা করে যদি অপরাধ করে ফেলি তবে সেইটা ক্ষমার যোগ্য 😀

    জবাব দিন
      • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

        তোর পয়েন্টগুলার সাথে আগেই যেইটা বলছি সেইটাও যোগ করি-দুর্ধর্ষ এই এসএস কর্নেল হঠাৎ দল পরিবর্তন করল এবং মিত্রবাহিনীকে বিশ্বাস করে নিজের জীবন তাদের হাতে তুলে দিল-এইটা তার চরিত্রের সাথে একেবারেই খাপ খায়না।বাকি পয়েন্টগুলা ফ্যান্টাসি হিসেবে উড়ায় দিলেও এই একটা জায়গায় আমার কাছে কোনভাবেই খুঁতখুঁতানিটা দূর করা সম্ভব হয়নাই।

        তারপরেও মুভিটা আমার কাছে জটিল লাগছে।

        জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      রাজী, কিসু কাহিনী তো বলতেই হবে। তা নাইলে বলার কিসু পাইতেছিলাম না। 😀

      তোমার কথাগুলো ঠিক আছে। একটা জাতি একা একা (ঠিকমতো বললে একজন লোক, হিটলার) প্রায় ছয় বছর সারা পৃথিবী জুড়ে যুদ্ধ বাঁধিয়ে রাখতে পারলে তাকে আক্রমণ করা এতো সহজ না। মারা তো আরো কঠিন। হিটলারের উপরে আত্মঘাতী হামলা নিয়ে আরেকটা ছবি কয়েকদিন আগেই দেখেছি, "ভ্যালকাইরি"। সেখানে হিটলারকে যেমন শ্বাপদের মতো ভয়ঙ্কর দেখিয়েছে, সেটাই তার প্রকৃত রূপ- নিষ্ঠুর, প্রতিশোধপরায়ণ এবং অত্যন্ত ধূর্ত। তার চারপাশের লোকজনগুলো ক্ষমতার লোভে হোক আর ভয়ে হোক, নিঃশর্তভাবেই তার অনুগত ছিলো।

      এই ম্যুভির জঁরা বা জনরা দেইখো, স্প্যাগেটি ওয়েস্টার্ন/ওয়ার। এই স্প্যাগেটি ওয়েস্টার্ন একটা পিকিউলিয়ার জঁরা (এই ক্যাটাগরির একটা উদাহরণ হলো "দ্য গুড, দ্য ব্যাড, দ্য আগলি" ম্যুভিটা)। একটা সময়ে আমেরিকায় খুব অল্প বাজেটে কিছু ওয়েস্টার্ন ছবি হতো যেগুলো বাজেট স্বল্পতার কারণে মূল লোকেশনে শ্যুটিং না করে বিরান কোন এলাকায় শ্যুটিং হতো। ছবির পরিবেশ ওয়েস্টার্ন হলেও তার ভেতরের মালমশলা, কাহিনী আসল ঘটনার কাছ দিয়েও যেতো না।

      টারান্টিনো এই ছবি বানানোর আগেই ঘোষণা দিয়েছিলেন যে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ নিয়ে একটা স্প্যাগেটি ওয়েস্টার্ন বানাবেন। অর্থাৎ কম বাজেটে, মূল যুদ্ধক্ষেত্রের বাইরে যুদ্ধ নিয়ে ছবি। এই ছবিতে দেখো কোনো সম্মুখ যুদ্ধ নাই। ইনগ্লোরিয়াসদের আচার আচরণ ওয়েস্টার্ন হিরোদের মতোই।

      আর ইতিহাসের সত্যের চাইতে এই ছবি বার বার যেটা করেছে, সেটা হলো একটা বীভৎস যুদ্ধের দুই পক্ষকেই "নৃশংস" করে দেখিয়েছে। ইতিহাসের পাঠে সাধারণত জয়ীপক্ষকে 'মহান' বলে একটা পরিচয় দেয়া হয়, সেটা অনেকাংশেই সত্য না। যুদ্ধ একটা নোংরা, মানবতাহীন লড়াই। সেখানে মহত্ত্বের সুযোগ কম।

      আমার কাছে কাহিনীর সাথে মূল সত্যের পার্থক্যটা তেমন বড়ো ইস্যু মনে হয় নাই। ধরেই নিয়েছি একটা যুদ্ধ নিয়ে ম্যুভি দেখতেছি যেটার আসল ঘটনা আমি জানি না। 😉

      টারানটিনোর কয়েকটা ম্যুভির নাম নিচে রিজওয়ান দিয়েছে, ওগুলো দেখতে পারো। সে সবসময়েই প্রভোকেটিভ। 🙂

      জবাব দিন
      • রাজীউর রহমান (১৯৯৯ - ২০০৫)

        ভাই, মুভির দর্শক হিসেবে একেবারেই নিম্নমানের। সাধারনত একটু হাই থটের মুভি দেখতে গেলে কখন যে ঘুমায়ে পড়ি টের পাই না। রিজওয়ানের দেওয়া মুভিগুলার নাম শুনছি, দেখতে ভয় করে মাথার কত উপ্রে দিয়ে যায়। তার্পরও দেখার চেষ্টা করবো। 🙂

        জবাব দিন
        • আন্দালিব (৯৬-০২)

          ভয় পেয়ো না। ভয়ের সামনেই জয়! 😉
          (কপিরাইট- মাউন্টেন ডিউ)

          ম্যুভি দেখা তো পরীক্ষা দেবার মতো ব্যাপার না। এটা আসলে বিনোদনের অংশ। সাথে করে, যেহেতু শৈল্পিক একটা মাধ্যম, আমরা কিছু কিছু শিখতে আর জানতে সচেষ্ট হই। ওটা অপশনাল বা যার যার নিজস্ব চিন্তা। 🙂

          জবাব দিন
  12. রিজওয়ান (২০০০-২০০৬)

    :thumbup: ferpect!!!!
    রিভিউ জটিল হইছে। যদিও তারান্তিনোর এই মুভিটা আমার অত ভালো লাগে নাই, তবে Pulp fiction, Tue Romance, Natural Born Killers, Reservoir dogs,
    খালি From Dusk till dawn টা দেখা হয় নাই, তবে এইগুলা সবই বস। :boss: :boss: :boss:

    জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      এটাই মজা। তোমার এই ম্যুভিটা 'অত ভালো লাগে নাই', আবার কারো কারো 'অনেক বেশিই ভালো লাগছে'। একটা ম্যুভির ব্যাপারে এই প্রতিক্রিয়াগুলোকে বলে 'মিশ্র প্রতিক্রিয়া'। হা হা! 🙂

      টারান্টিনোর "কিল বিল" দেইখো। ছবিটা দুই পর্ব করে বানানো। কাহিনী তেমন কিছু না, তবে একশন দূর্দান্ত! :thumbup:

      জবাব দিন
  13. জাহিদ (১৯৯৯-২০০৫)

    ভাই বলেছিলেন মুভিটা দেখে জানিয়ে যেতে। গতকাল দেখেছি। ভালো লেগেছে। সাধারণ মানুষ হিসেবে নাজী বাহিনীর প্রতি একটা ঘৃণা কাজ করে। কিন্তু বাস্টার্ডদের কাজ কিন্তু কম নিষ্ঠুরতা নয়। একচোখ বন্ধ করে ঘটনা ব্যাখ্যা করলে যে আমরা অর্ধেক ঘটনা দেখি না, এই মুভিটা সেদিকে ইঙ্গিত করে।
    আমার কাছে মনে হয়েছে, এই মুভির মেসেজঃ একটা মুদ্রার দুই দিক দেখে তারপরই ঐ মুদ্রা সম্পর্কে মন্তব্য করা সমীচিন।

    জবাব দিন
    • আন্দালিব (৯৬-০২)

      ঠিক। বাস্টার্ডসদের ম্যুভিতে ঠিক ততোটাই নৃশংস দেখানো হয়েছে, যতোটা নাৎসীরা। এটা একটা রূপক, অর্থ হলো যুদ্ধ সবসময়েই অমানবিক। শুধু মানুষ মারা যায় বলে না, মানুষ মারা যাওয়ার পেছনে মানুষের স্বেচ্ছাক্রিয়া থাকে বলে।

      যুদ্ধের একমাত্র জাস্টিফিকেশন হয় আক্রান্ত-আক্রমণকারীকে নিক্তিতে মেপে। এ ছাড়া পুরোটাই একটা ধ্বংসযজ্ঞ।

      জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।