দুর্ঘটনা

অন্যান্য দিনের মত সকালের দৌড়-ঝাপ শেষে বাসায় ফেরত এসে নাস্তা খেয়ে একটু ঝিমানোর প্রস্তুতি নিচ্ছি এমন সময় শাহরিয়ার (১৯৪৪ – মকক) এর ফোন। ধরার পরেই বলল,”অই কিবরিয়ারে স্ট্যাব করসে গাজীপুর স্টেশানে শুনছিস নাকি?! এখন ঢাকা সি,এম,এইচ এ আসে??!” বিছানা থেকে লাফ দিয়ে উঠতে গিয়ে ব্যালান্স হারিয়ে পরে গেলাম। আরোও বলল প্রথম আলো দেখতে। বাসায় ছিল ডেইলি স্টার। চোখ বুলাতেই দেখি “গাজীপুর স্টেশানে ৪ বুয়েট ছাত্র ছুরিকাহত”। ভেতরে কিছুদুর যাবার পরেই দেখি লেখা নৌ বাহিনীর কর্মকর্তা গোলাম কিবরিয়া (১৯৪৯ – মকক) গুরুতর আহত। ঘুম পালিয়ে গিয়েছে আরো আগেই। শুধু মাথাটা হ্যাং হয়ে গেল কয়েক সেকেন্ড এর জন্য।
মোবাইল ফোনে ডায়াল করলাম মুনতাসির (১৯৬৫ – মকক) এর নাম্বারে। ঘুমের ঘোরে ফোন ধরতেই বললাম “কিবরিয়াকে ছুরি মারসে অবস্থা খারাপ, সি,এম,এইচ আয়। আমি যাচ্ছি।” আবার ডায়াল ঘুরিয়ে শাহরিয়ারকে ফোন দিয়ে বললাম চলে আসতে। চট করে রেডি হলাম তখন দেখি ভাইয়া বলছে, “গতকাল নিউজ বানালাম কিন্তু তখনো নাম হাতে এসে পৌঁছায়নি”। ওখানে কিবরিয়া ছিল জানিয়ে দিয়ে আমি বের হয়ে গেলাম। এর মাঝে মা একটি প্রথম আলো নিয়ে এসেছিল সেখান থেকে আবার নিশ্চিত হলাম।
প্রথম আলোতে লেখা ছিল ‘নৌ বাহিনীর কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট কমান্ডার গোলাম কিবরিয়া……’ সি,এম,এইচ যাবার সময় অন্যান্যদের ফোন দিয়ে জানিয়ে দিলাম এবং সবাই বৈশাখের তৃতীয় দিন ও শুক্রবারের সকালের ঘুম জলাঞ্জলি দিয়ে ছুটল সি,এম,এইচ এর উদ্দেশ্যে।
অফিসার্স ওয়ার্ডের অনুসন্ধানে জিজ্ঞাসা করলাম “লেফটেন্যান্ট কমান্ডার গোলাম কিবরিয়া” কোন রুমে ভর্তি। ওরা লগ ঘেঁটে জানাল এই নামে কেঊ নাই তবে “সাব লেফটেনেন্যান্ট কিবরিয়া” একজন আছেন ভর্তি। এমনিতেই নৌ বাহিনীর পদ মর্যাদার নামকরন সম্পর্কে আমার জ্ঞ্যান একটু কম তাই মুনতাসির কে আবার ফোন। মুনতাসির বলল,”অই শালা, লেফটেনেন্যান্ট কমান্ডার তো মেজরের সমান আর কিবরিয়া তো বুয়েটে তাই প্রোমোশান হয় নাই। কিন্তু ছুরির পোঁচ খায়া ওয়ার্ডে কি করবে?? তুই আই,সি,ইউ তে খোঁজ নে…”। ফোন রেখে গেলাম আই,সি,ইউ তে জিজ্ঞাসা করতেই একি উত্তর, “এই নামে কেউ নেই”। এর মাঝে মুনতাসির এসে পরতেই তাকে নিয়ে আবার অফিসার্স ওয়ার্ডে গিয়ে জিজ্ঞাসা করতেই বলল ১০ নাম্বার রুমে “সাব লেফটেনেন্যান্ট গোলাম কিবরিয়া”।
ঢুকেই দেখি মলিন মুখে ডান হাতে ব্যান্ডেজ নিয়ে শুয়ে আছে বেচারা।
মন অর্ধেক ভালো হয়ে গেল। মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে আসছিলাম যে…আই,সি,ইউ…অক্সিজেন মাস্ক…যান্ত্রিক শব্দ…চারিদিকে ডাক্তার…নিঃসাড় পড়ে থাকা একটি দেহ। তার ধারে কাছেও না…আবার দেখি মিটিমিট হাসেও!!!
কাহিনী কমবেশী একই। কে কি করেছে বা করে নাই বা সূত্রপাত কোথায় সেই বর্ণনায় না গিয়ে এইটুকুই বলি যে বুয়েটের বাকি দুই ছাত্র কে যখন ছুরি, লাঠি, পাথরের চাঁই দিয়ে আঘাত করা হচ্ছিল তখন এই বন্ধুটি উদ্ধার করতে গিয়ে বেশ কয়েকবার বুকে পাথরের প্রচন্ড আঘাত পায় এবং কোন একটি আঘাতে তার ডান কাধের কলার বোনটিও ভেঙ্গে যায়। এরপরেও গুরুতর আহত সেই ছাত্র কে ১০/১৫ জন অস্ত্রধারী মানুষের মধ্য থেকে তুলে কাঁধে নিয়ে ট্রেনে উঠার সময় পেছন থেকে একজন এসে ছুরিকাঘাত করে। সেটাও ভাগ্যজোরে বেশী গুরুতর নয় তবে ঘাড়ের খুব এ কাছে ছিল। ট্রেন খুলনার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাবার পর তাদের অবস্থা গুরুতর দেখে ট্রেন কর্তৃপক্ষ মির্জাপুর স্টেশানে থামায়। সেখান থেকে কুমুদিনী হাসপাতালে নেয়ার পর প্রাথমিক চিকিৎসা ও প্রয়োজনীয় রক্ত দেবার পর দুই জনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে এবং কিবরিয়া কে সি,এম,এইচ এ স্থানান্তর করা হয় গত পরশু রাতে।
আপাদত সে ভালোর দিকে। পিঠের ছুরির আঘাতটি শুকিয়ে যাবে শীঘ্রই কিন্তু ভাঙ্গা কলার বোন জোড়া লাগা একটু ভোগান্তির দেখে সেটা সময় নিতে পারে বলে ডাক্তার সাহেব অভিমত দিয়েছেন।
সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ কি পদক্ষেপ নিয়েছেন/নিচ্ছেন/নিবেন/নেবার স্বপ্ন দেখছেন তা আমার জানা নেই। তবে বড় ভাই ও বোন, ব্যাচমেট এবং ছোট ভাই ও বোনেরা আপনারা তার জন্য দোয়া করুন এবং চাইলে যারা ঢাকা বা তার নিকটবর্তী রয়েছেন তারা ঢাকা সি,এম,এইচ এ অফিসার্স ওয়ার্ডের দোতালায় ১০ নাম্বার রুমে গিয়ে যেকোন সময় তাকে দেখে আসতে পারেন।

৯৬৫ বার দেখা হয়েছে

১৫ টি মন্তব্য : “দুর্ঘটনা”

  1. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    সকালে জিহাদের স্ট্যাটাসে খবরটা পেয়েছিলাম। কিবরিয়া ভালোর দিকে শুনে ভালো লাগলো। ইনশাল্লাহ, আশা করি খুব তাড়াতাড়ি পুরো সুস্থ্য হয়ে যাবে।

    জবাব দিন
  2. অসাধারন আন্তরিক একজন মানুষ তিনি।খোঁচালে,টিজ করলে,বিরক্ত করলেও তিনি রাগ করেছেন এরকম ব্যভার তিনি কখনো করেননি।কিবরিয়া ভাইকে সারাজীবনই গুরুজী বলে ডাকতাম,এখনো একই ভাবে সম্বোধন করি।গুরুজীকে যে ba*tard গুলি ছুরি মেরেছে,তাদের ক্রসফায়ার চাই........

    জবাব দিন
  3. মাহমুদ (১৯৯৮-২০০৪)

    তোর ফোন থেকে যখন কিবরিয়ার সাথে কথা বলি তখন যে লুইও ছিল আমারে কস নাই ক্যান?লুই মাইন্ড খাইসে অর লগে কথা বলি নাই দেইখা,আমি কি জানি নাকি...?
    আমি আগামী সপ্তাহে আসতেছি ঢাকায়(আশা করি),দেখতে যামু নে...
    তোরে বলছিলাম না সকালে যে কিবরিয়া সাব লেফটেন্যান্ট,তাহলে আবার খুঁইজা পাস না ক্যান? :frontroll: :frontroll: :frontroll: :frontroll: দে

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।