বিগত কয়েক ঘন্টার বৃক্ষনিধন কর্মসূচী এবং এতদসম্পর্কীয় ঘটনাবলী বিষয়ক বটবৃক্ষের উন্মুক্ত পত্রঃ

(দ্রষ্টব্যইহা নিছকই কৌতুকের নিমিত্তে লিখা,কেহ আশা করি মনে কোনরূপ আঘাত নিবেন না।কোন অংশ দৃষ্টিকটু হইলে উহা সম্পাদনা করিবার সম্পূর্ণ অধিকার শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কর্মকর্তা মহাশয়কে দেওয়া হইল।আর কোন শব্দ অপরিচিত মনে হইলে বা অর্থ বুঝিতে না পারিলে নির্ঘন্টতে একবার চোখ বুলাইতে মর্জি হয়)

আমার প্রিয় প্রাক্তন বালক-বালিকা সেনাবৃন্দ,

শুরুতেই আমার কান্ডের গভীরতম মূলের রসালতম কক্ষের নির্যাস মিশ্রিত ভালবাসা গ্রহণ করুন 😡 😡 😡 ।যে মুহূর্তে আপনাদের কাছে আমার দুঃখানুভূতি ব্যক্ত করিতেছি ঠিক সেই মুহূর্তে আমার এক বেসামরিক বান্ধবী উত্তপ্ত পত্র সংবাদবাহকের মাধ্যমে আমাকে জিজ্ঞাসা করিল-“তোমাকে সবাই জামাতা ডাকিতেছে কেন?আর বালকসেনাব্লগে তোমাকে নিয়া এমন হঠাৎ আলোড়নের হেতু-ই বা কি?” বুঝিতে পারিলাম-আমার এতদিনের কষ্টার্জিত মান সম্মানের ফালুদা নামক মিষ্ট পানীয় কেবল বালকসেনা পরিমন্ডলেই হয় নাই,তাহা বালকসেনাব্লগের সীমানা অতিক্রম করিয়া বেসামরিক স্থাপনাতেও আঘাত হানিয়াছে :(( :(( :(( । অতএব আমি বলি-ইহা ঘোরতর অন্যায়,যুদ্ধরীতির সুস্পষ্ট লঙ্ঘণ-ইহা শ্রবণ করিলে পৌরাণিক যুগের বীরগণ হইতে শুরু করিয়া জন্মনিয়ন্ত্রণতন্তু গলির মাস্তান পর্যন্ত লজ্জায় অধোবদন হইবেক।কিন্তু কি আর করিব-বিধি বাম,তীর হস্ত হইতে ছুটিয়া গিয়াছে-উহা ফেরত আনিবার আর কোনই উপায় দেখিতেছিনা x-( x-( ।

যাহা হইতে এই ঘটনার সূত্রপাত তাহা আপনারা সকলেই জানেন।যৌনচেতনা-নিয়মাবলী ভ্রাতার শুভ জন্মদিনের আবেগে আতিশায্যিত হইয়া এবং প্রহরারত নামক শাখামৃগের কিচির মিচিরে বিভ্রান্ত হইয়া আমি মূল জন্মদিনের কিঞ্চিৎ আগে অভিনন্দন জানাইয়া একখানা দিনলিপি দিয়াছিলাম-যেহেতু সময়ের আগে দিনলিপিখানি দেওয়া হইয়াছে তাই যৌনচেতনা নিয়মাবলী ভাই অবিলম্বে তাহা প্রত্যাহার করিয়া নিতে আদেশ দিয়াছিলেন।কিন্তু আপনারাই বলুন,দন্তরোগারি লেই যদি একবার নল হইতে বাহির হইয়া যায় তবে তাহা পুনরায় ভিতরে প্রবেশ করাবার আদৌ কি কোন উপায় আছে?ইসলাম শিক্ষার প্রভাষক জনাব মুহম্মদ ইলিয়াছুর রহমান যদি বালকসেনাগৃহ পরিদর্শনকালে জনৈক উদাসীন বালকসেনার আলমারি হইতে শ্রী শ্রী রসময় গুপ্ত বিরচিত পুস্তক উদ্ধার করেন,তবে সেই ঘটনাকে ধামাচাপা দেওয়া কি সম্ভব?না,উহা যেমন সম্ভব নহে,তেমনি আমার পক্ষেও সম্ভব ছিলনা অগনিত ভ্রাতা-ভগিনীকে সদ্য প্রকাশিত দিনলিপি পাঠ করা হইতে বিরত রাখা।

অতএব আমি কহিলাম,কে যৌনচেতনা-নিয়মাবলী ভ্রাতা,এইবার ক্ষান্ত দিন।না হয় দু দিন আগেই শুভেচ্ছা প্রকাশ করা হইল,তাহাতে কী-ই বা এমন মহাভারত অশুদ্ধ হইয়া যায়?বরং ইহাতে ২০০০ ও ২০০১ তম পোস্টের কৃত্রিম বিভ্রান্তির মত কোনরুপ পরিস্থিতির উদ্ভব সম্পূর্ণ প্রতিরোধ করা যাইবেক! আমার যুক্তি শুনিয়া জ্যেষ্ঠ ভ্রাতা যেন চুপ করিয়া গেলেন-আমিও ভাবিলাম ভুজুং ভাজুং দিয়া উহাকে এইবারের মত ঠান্ডা করা গেছে।কিন্তু হা হতোস্মি!এই ছিল উনার মনে!!!!ঘন্টা কয়েকের মধ্যেই দেখি আমার পল্লবিত শাখা-প্রশাখায় পরশুরামের নিক্ষত্রিয় বিশ্ব সৃষ্টি করিবার মত নিমাস্ফ্যু করিব সিসিবি ব্রত নিয়া একের পর এক কঠোর কুঠারাঘাত!প্রথমে সপ্রশংস,তারপর ধর্মযুদ্ধ,তারপর প্রহরারত-একের পর এক আমার ভাবমূর্তিকে ছড়া,কবিতা ও গদ্যের ছদ্মাবরণে গুপ্তহত্যা করিয়া সবশেষে মান-সম্মান যা অবশিষ্ট ছিল তাহার দ্বাদশ প্রহর বাজাইয়া আমার ঘটি-বাটি চাটি করিয়া দিলেন।এই মাত্র দিনলিপিতে প্রবেশ করিয়া দেখিলাম সপ্রশংস আরেক খানা বল্লম নিক্ষেপ করিয়াছে গদ্যের ছদ্মাবরণে x-( x-( x-( ।

কনিষ্ঠ সহযোগী সহযোগে জ্যেষ্ঠ ভ্রাতার এইরূপ অনভিপ্রেত আক্রমণ আমার মনে যে আহত ভাব সৃষ্টি করিয়াছিল তাহা এক মাইকেলী ভাষাতেই কিছুটা প্রকাশ করা সম্ভবঃ

হায় ভ্রাতঃ,উচিত কি তব এ কাজ?
এসসিসি বিদ্যালয় তোমার জননী,সহপাঠীগণ বালককূল শ্রেষ্ঠ-
কেমনে ভুলিলা,কর্ম তব কোন মহাকূলে?
নিজ প্রিয় বৃক্ষ ভ্রাতঃ দেখাও কাঠুরিয়ারে
পামোশরে বসাও আনি বালককূল ধূমপানকক্ষে…
হায় ভ্রাত,কেমনে করিলা এ কাজ??

(মাস্ফ্যুবধকাব্য-ষষ্ঠ সর্গ)

আপনাদের সকলের স্নেহ ও ভালবাসাধন্য মাস্ফ্যুর ভাবমূর্তির এইরূপ উচাটন-নিপীড়ন যে পামোশকে বালককূলের গোপন ধূমপানকক্ষ দেখাইয়া দেওয়ার মতই গর্হিত কাজ,তাহা দিবালোকের মত পরিষ্কার।কিন্তু আর না।মাস্ফ্যু এইবার ঘুরিয়া দাঁড়াইবে- কুম্ভ হইয়া বুঁদির কেল্লা একাই রক্ষা করিবে।আঘাতে আঘাতে জর্জরিত হইয়াও সে পরাজয় বরণ করিবেনা,বরং সিংহনিনাদে অভিমন্যূর ন্যায় সপ্তমহারথী পরিবেষ্টিত হইয়াও যুদ্ধ চালাইয়া যাইবে।আর ইহার নিমিত্তে নিম্নলিখিত কর্মসূচী গ্রহণ করা যাইতে পারেঃ

১)আগামী একত্রীকরণে যৌনচেতনা-নিয়মাবলী ভ্রাতাকে আতিথ্যকর্তা হিসাবে নিয়োগ দিয়া অতঃপর সেইখানের তিন-চতুর্থাংশ খাদ্য আমি একা গলাধঃকরণ করিলে তিনি ধনে-প্রাণে-মানে সব দিক দিয়াই “মাইনকা চিপায়” নিপতিত হইবেন বলিয়া আশা করা যায়।

২)ধর্মযুদ্ধকে পাবনা বালকসেনা উচ্চবিদ্যালয়ের এক দল পিপাসু বালকসেনার মাঝে ছাড়িয়া দিয়া বাহিরের দরজা বটবৃক্ষের খুঁটি দিয়া বন্ধ করিয়া দেওয়া যাইতে পারে।

৩)প্রশংসার্হ যেহেতু আমার হইলেও হইতে পারে শ্বশুর মহাশয়ের মত একই বিদ্যালয় হইতে পড়াশুনা করিয়াছে এবং তাহার কবিতাটি যেহেতু ভবকূলে আমাকে নিয়া লেখা প্রথম কবিতা-সুতরাং তাহাকে বড় ধরণের কোন শাস্তি হইতে অব্যাহতি দিলে তেমন ক্ষতি লক্ষিত হয়না বলিয়াই বোধ করি।

৪)প্রহরারত যেহেতু আমার নিজ বিদ্যালয়ের এবং পতাকাবাহী থাকাকালীন উহার পৃষ্ঠদেশে আমি নিত্য নিমিত্তই পতাকাদন্ড সহযোগে প্রহার করিয়াছি তাই তাহাকেও শারীরিক লাঞ্ছনা হইতে মুক্তি দেওয়া যাইতে পারে।তবে হ্যাঁ,আমার শ্যালিকার সহিত তাহার যেই ভবিষ্যৎ ছিল তাহাতে যে তাহার কার্যাবলী বিরূপ প্রভাব ফেলিয়াছে উহাতে কোন সন্দেহ নাই।তবে আমি পাষাণ নহি,তাই সেই সম্ভাবনা একেবারে নাকচ করিয়া দিতেছি না,কিন্তু দ্রুত কর্মসম্পাদন বাহিনীর ভাবী সদস্য স্বর্গরক্ষী যদি তাহাকে শাস্তি প্রদান করে তাহা হইতে রক্ষা করিবার দায়ভার আমি বহন করিব না,বরং আরো ইন্ধন যোগাইব।

আপাততঃ এইটুকুই।আমরা সকলে মাস্ফ্যুর হৃত ভাবমূর্তির আত্মার মুক্তি ও চিরশান্তি কামনা করি-এই বলিয়া আজ উপসংহার টানিতেছি।

আপনাদের স্নেহ ও ভালবাসাধন্য

শ্রী শ্রী জামাতামাস্ফ্যু বৃক্ষমানব কল্যাণীয়েসু

নির্ঘন্টঃ

১)উত্তপ্ত পত্র সংবাদবাহক:Hotmail messenger
২)বালকসেনাবিদ্যালয়ব্লগ:Cadet College Blog
৩)যৌনচেতনা-নিয়মাবলী:কাম-rule
৪)প্রহরারত-রকিব(আরবি শব্দ রকিবের বাংলা প্রহরারত,অতন্দ্র) ৫)প্রশংসার্হ-প্রশংসার যোগ্য,আরবি মাহমুদ শব্দের বাংলা প্রতিরূপ
৬)দন্তরোগারি লেই-toothpaste
৭)নল-tube
৮)পামোশ-পাছা মোটা শয়তান,উনার আসল নাম সংগত কারণেই উহ্য রাখা হল
৯)দ্বাদশ প্রহর- বারোটা বাজানো
১০)বুঁদির কেল্লা-রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের “কথা ও কাহিনী” থেকে গৃহীত রাজপুত রূপকথা,যেখানে কুম্ভ নামক রাজপুত মাটির তৈরি নকল কেল্লা রক্ষা করতে একা একটি সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে । ১১)মাস্ফ্যুবধকাব্য-মেঘনাদবধ কাব্যের ব্যঙ্গাত্মক অনুকরণ
১২)আতিথ্যকর্তা-host
১৩)শাখামৃগ-বাঁদর
১৪)দিনলিপি-blog
১৫)ধর্মযুদ্ধ-জিহাদ শব্দের বাংলা রুপ
১৬)পরশুরাম-রামায়নে উল্লেখিত রামের অস্ত্রগুরু যিনি পিতার নির্দেশে বহুবার ক্ষত্রিয়দের কুঠার দিয়ে কেটে খন্ড খন্ড করেছিলেন।
১৭)অভিমন্যূ…সপ্তমহারথী-কর্ণ,দ্রোণ প্রভৃতি সাতজন কৌরবপক্ষীয় বীর যুদ্ধক্ষেত্রে মধ্যম পাণ্ডব অর্জুনের বালক পুত্র অভিমন্যূকে একযোগে আক্রমণ করেছিলেন এবং অভিমন্যু শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বীরের মত যুদ্ধ করতে করতে প্রাণ ত্যাগ করেন।
১৮)মাইনকা চিপা-পুরান ঢাকার একটি কথ্য কৌতুকবিশেষ।মানিক নামক জনৈক ভদ্রলোকের একটি বাঁদর ছিল যা সব সময় মালিকের অনুকরণ করে তাকে সবার কাছে হাসির পাত্রে পরিণত করত।মানিক কোনভাবেই বাঁদরকে অনুকরণ করতে নিবৃত্ত করতে না পেরে অবশেষে বিশেষ একটি কৌশল অবলম্বন করেন।তিনি একটি বড় বাঁশ অর্ধেক কেটে সেই ফাঁকে একটি কাঠি দিয়ে আটকিয়ে নিজের বিশেষ অংগ সেখানে প্রবেশ করিয়ে দেন এবং কিছুক্ষন পর বের করে নেন।বাঁদর এটা দেখে যেই অনুকরণ করতে যায় তখন তিনি কাঠিটি সরিয়ে নেন এবং বাঁদরের ঐ অংগ বাঁশের “চিপায়” আটকা পড়ে।ব্যথায় কাতর বাঁদর “আর কখনো মালিককে অনুকরণ করবনা” প্রতিজ্ঞা করে ছাড়া পায়।সেই থেকে কেউ উভয় সংকটে পড়লে পুরান ঢাকার লোকেরা “হালায় মাইনকা চিপায় পড়ছে” বলে উপহাস করে।
১৯)দ্রুত কর্মসম্পাদন বাহিনী-Rapid Action Batallion(RAB)
২০)স্বর্গরক্ষী-রেজওয়ান,আরবি শব্দের বাংলা রূপ
২১)শৃঙ্খলা রক্ষাকারী কর্মকর্তা-এ্যাডজুটেন্ট বা আমাদের এডু স্যার
২২)জন্মনিয়ন্ত্রনতন্তু গলি-কনডম লেন(কামরুল ভাইয়ের বাসার সামনের গলি,আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই দ্রষ্টব্য)
২৩)একত্রীকরণ-Gettogether

৮,৩২৪ বার দেখা হয়েছে

১০৬ টি মন্তব্য : “বিগত কয়েক ঘন্টার বৃক্ষনিধন কর্মসূচী এবং এতদসম্পর্কীয় ঘটনাবলী বিষয়ক বটবৃক্ষের উন্মুক্ত পত্রঃ”

  1. ইউসুফ (১৯৮৩-৮৯)

    একটা জন্মদিন নিয়ে দেখি ছেলেপেলে হিন্দী সিরিয়ালের মত কাহিনী শুরু করছে। 😡 😡

    দাড়াও, তোমাদের প্যারেন্টস ডেকে প্রিন্সিপ্যাল ওয়ার্ণিং এর ব্যাবস্থা করছি..... প্রিন্সিপ্যাল স্যার গেল কই?

    অফটপিক: :gulli2: :pira: :goragori:

    জবাব দিন
  2. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    সবাইকে অনেক ধন্যবাদ।
    জামাইকে বিশেষ ধন্যবাদ।

    জন্মদিন নিয়ে আমার কোন উচ্ছাস কাজ করে না কখনো। তারপরও প্রিয়জন শুভেচ্ছা জানালে আনন্দিত হই।

    জামাই, আমাদের মাস্ফ্যু, আমাকে খুবই পছন্দ করে, (এবং সত্যি কথা আমিও এ ছেলেটাকে কি যে পছন্দ করি বলে বোঝাতে পারবো না।) ফলে উচ্ছাসে ও পরপর দুই দিন আমার জন্মদিন নিয়ে লিখেছে, এ আমার জন্যে পরম পাওয়া।

    আর এই উপলক্ষ্যে সিসিবি গত দুই দিন এতো জমে উঠেছে দেখতে দারুণ লাগছে।

    অনেক ধন্যবাদ মাস্ফ্যু।
    তোর জন্মদিনে একটা লেখা আমার কাছে পাওনা রইলি।


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন
  3. মাসরুফ ভাই,

    অসাধারণ লাগলো ভাই। সরাসরি প্রিয়তে যোগ এবং ৫ তারা। জানিনা এর বেশি আর কি করতে পারি অকুণ্ঠ প্রসংশা করা ছাড়া।

    এই ধরণের সাধু ভাষা ব্যবহার করতে গেলে যথেষ্ট জ্ঞান থাকা লাগে বাংলা ভাষার উপর। তার উপর সাহিত্যচর্চা না করলে এইরকম কবিতাগুলো যেখানে সেখানে ব্যবহার করা অসম্ভব।
    :salute: :salute:

    ভাই আমি খু-উ-ব মুগ্ধ আর সন্তুষ্ট এই লেখা পড়ে। ধন্যবাদ।
    :hatsoff: :hatsoff:

    জবাব দিন
  4. তাছাড়া আমি বেকসুর খালাস হইছি মাসরুফ ভাইয়ের হাতে...
    এইটা আমার বড় সফলতা 😀

    ভাই, এই পৃথিবীতে আপনাকে নিয়ে লেখা প্রথম কবিতার কবি হিসেবে আপনার সাথে দেখা হওয়ার পর একটা বিশেষ খাওয়া কি পেতে পারি না?
    অন্ততঃ কবি হিসেবে একটা পারিশ্রমিক আর কি 😀 😀

    জবাব দিন
  5. ভাই,
    পোস্টের সংখ্যার ব্যাপারে আমি প্রায় আপনার সমতুল্য (মানের ব্যাপারে নাহয় কথা না বলি).........

    এই জন্য কি আমি কলার উচু করতে পারি? আই মিন আমার বয়স সিসিবি তে এখনো ৩ মাস হয় নাই 😀 😀 ২৭ টা পোস্ট। যেখানে আপনাদের সবার কমেন্টের ছোঁয়া মুখরিত করে দিয়েছে আমার ব্লগ O:-)

    জবাব দিন
  6. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)

    :pira: :pira: :pira:

    -আমি হাসতে হাসতে শেষ। এক্কেবারে পিরা-মিরা গেলাম।

    মাসরুফ আসলেই একটা ......... থাক, ছোট ভাইরে আর কি কমু। দেশে গিয়ে মুস্তাকিমের কাবাব খাওয়ামু নে।


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন
  7. আন্দালিব (৯৬-০২)

    মাসরুফ, আমি কী বলবো, পুরোপুরি স্তম্ভিত হয়ে গেছি। আমি ভাবতাম এতদিন খালি আমিই কঠিন বাংলা লিখি, আর তুহিন লেখে। এখন তোমার বাংলা দেখে আমি সত্যিই খুব আনন্দ পেলাম। খুবই সুন্দর লেখাটা, সাথে মহাভারত বা পুরাণের টুইস্টগুলা অসাধারণ হয়েছে।

    তোমার জন্মদিন নিয়ে পোস্টটা পড়েছি, তারপরে গত দুইদিন ব্লগে ঢোকা হয়নি। এর মাঝে যে এত কাণ্ডকারখানা ঘটে গেছে, কে জানতো!

    কালকে রাতে অফলাইনে সব লেখা পড়লাম, তবে কমেন্ট পড়া হয়নি এখনও। কত কথা বলে রে সবাই!!! তবে ভাল লাগছে এইরকম সবাইকে মাতোয়ারা দেখে।

    একটা ফুটনোট, কাম- অর্থ যৌনচেতনা, এর চাইতে কাম- অর্থ হিন্দুদেবতা মদনের অপর নাম দিতে পারতা। অর্থাৎ, কাম=মদন*! 🙂

    দ্র. মদন=হিন্দুশাস্ত্রে প্রেমের দেবতা।

    জবাব দিন
      • আন্দালিব (৯৬-০২)

        ছি ছি! তোমার পোস্টে তোমাকে প্রশংসা করলাম কাব্যপ্রতিভা নিয়ে আর তুমি কী না এখানে আমার বদনাম করে দিচ্ছো! x-( x-(

        আমি তো শুধুই কাম শব্দের বিকল্প ব্যবহারের কথা বললাম। এখানে ধরো কেউ যদি ডিয়ার মাস্ফূকে জিজ্ঞেস করে বসে যে যৌনচেতনা কী? কয় প্রকার? উদাহরণসহ ব্যাখ্যা দেন। তাহলে মাস্ফূ কী বিপদেই না পড়বে। তাছাড়া বারবার পাঁচ অক্ষরের শব্দের চাইতে ছোট-হাল্কা-স্লিম মদন শব্দটি শ্রুতিমধুরও বটে!

        এক বৃক্ষের সহায়তায় আরেক বৃক্ষ এগিয়ে আসবে এটাই তো স্বাভাবিক! 😉

        জবাব দিন
  8. কেউ এখন যদি জিগায় মদন কে?
    তাইলে এখন এক কথায় বলে দিবো - কামরুল ভাই!

    যদি কামরুল ভাই জিজ্ঞেস করে কে কইছে?
    উত্তর দিবো---- আন্দালিব ভাই কইছে 😀 😀

    জবাব দিন
  9. আজীজ হাসান মুন্না (৯১-৯৭)

    মাশরুফ , তোমার লেখাটা অনেকের সাথেই শেয়ার করলাম। অসাধারন। 🙂 আমি তোমার লেখার বিশেষ ভক্ত। তোমার জন্য

    গর্বে আমার শাকা প্রশাখা আকাশ ছুঁইয়া যাইতেছে… B-)
    জবাব দিন
  10. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)

    আগে জানতাম, পুরুষ মানুষ বিয়ে করলে মৃত/জীবন্মৃত হয়ে পড়ে (সবাই না কিন্তু; এ-ই যেমন আমি বহাল তবিয়তে এখনো বেঁচে আছি)। কিন্তু সিসিবিতে এসে দেখলাম, পুরুষ মানুষ বাংলাদেশ পুলিশে জয়েন করলেও মৃত/জীবন্মৃত হতে পারে।

    সিসিবিতে মাসরুফকে খুব মিস করি।


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।