আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই- ৩

১।
ঠিক ঘড়ি ধরে এক ঘন্টা পর পর বিদ্যুৎ চলে যায়। দু’দিন আগে খবরের কাগজে দেখলাম ঢাকায় নাকি ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের সরবরাহ বাড়ানো হয়েছে, কিন্তু কোন ঊনিশ-বিশ টের পাচ্ছি না। যাহা লাউ তাহাই কদু।
সকাল সাড়ে দশটায় শুরু হয়, তারপর সারাদিন। মাঝে মাঝে রাত ৩টা /৪টার সময়ও হুট করে বলা কওয়া ছাড়া ফ্যানটা বন্ধ হয়ে যায়। প্রচন্ড গরমে উঠে বারান্দায় গিয়ে বসে থাকি, কখন কারেন্ট আসবে, এই অপেক্ষায়।

প্রতিদিন সকালে ঘুম ভাঙ্গে পাশের রুম থেকে রুম্মানের চিৎকারে। আমাদের বাসায় সবচেয়ে বেশি গরমে কাহিল ও। ক’দিন আগে লন্ডন থেকে এসেছে। এমবিএ করতে আড়াই বছরের ভিসা নিয়ে গিয়েছিলো, এক বছর যেতে না যেতেই এমবিএ’র মুখে ঝাটা মেরে চলে এসেছে। জিজ্ঞেস করলে বলে, ‘ধুর! ওই হারামীদের দেশে মানুষ থাকে ! মনের কথা খুইলা বলার একটা লোক নাই।’ কিন্তু এখানে এসে ৪২ ডিগ্রী গরমে পড়ে সুর পালটে ফেলেছে, ‘ধুর! এই হারামীর গরমে মানুষ থাকে ! দিনের মইধ্যে ১২বার কারেন্ট যায়। এরচেয়ে লন্ডন ভালো। ঠান্ডা ঠান্ডা, কুল কুল !! ‘

প্রতিদিন সকাল সাড়ে দশটায় কারেন্ট যাওয়ার সাথে সাথে পাশের রুম থেকে তাই রুম্মান চিৎকার দেয়, ‘শালার বিদ্যুৎমন্ত্রীর োয়া মারি।’ আর আমার ঘুম ভাঙ্গে। সামসুল হক টুকু সাহেবের জন্যে মায়া হয়। বেচারা জানতেও পারে না প্রতিদিন সকালে তাকে কতজন কতকিছু মারছে।

২।

এতোদিন ড্রইংরুমে একটা টিভি ছিলো, সেটাতেই সবকিছু দেখতাম। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স লীগের কোয়ার্টার ফাইনালগুলি একই সময়ে দুইটা পাশাপাশি হচ্ছিলো। দেখা গেলো একজন ম্যান-ইউ’র খেলা দেখতে চাচ্ছি, অন্যজন বার্সার। এইটা একটু আবার ওইটা একটু এরকম করে দেখতে ভালো লাগে না। ফলে ধুম করে ভিতরের রুমের জন্যেও আরেকটা টিভি-কার্ড কেনা হলো। এবার যার যেটা খুশি দেখো। একটায় আইপিএল অন্যটায় এএফসি কাপ। কোন সমস্যা নেই।

সমস্যা হলো অন্য সময়ে কোন টিভিতে কি দেখবো এই নিয়ে। রিমোট হাতে নিলে কেউ ছাড়তে চায় না। মাসুদ বুদ্ধি বের করলো, ড্রইং রুমেরটায় আমরা শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান দেখবো আর ভিতরের রুমেরটায় বিনোদনমূলক। আমরা রাজি। কিন্তু সেদিন মাসুদ ড্রইং রুমে বসে টকশো দেখছিলো, রুম্মান গিয়ে রিমোট টিপে এমএম২ দিয়ে দিলো। সেখানে রগড়গে একটা ইংরেজী ছবি চলছে। ‘অরিজিনাল সিন’। এন্টোনিও ব্যান্ডেরাস আর এঞ্জেলিনা জোলি’র রক্ত গরম করা শয্যাদৃশ্য। মাসুদ ঝাড়ি দিলো- ‘ওই ব্যাডা, খালেদা জিয়ার বাড়ি নিয়া আলোচনা দেখতেছি , এর মধ্যে এইটা কি লাগাইলি? এইসব ভিতরের রুমে গিয়া দেখ।’ রুম্মানও কম ফাজিল না, বলে – ‘তুই-ই না কইছিলি শিক্ষামূলক অনুষ্ঠান এইরুমে দেখতে ?’
‘বলছি, কিন্তু সেক্স কি শিক্ষামূলক নাকি? সেক্স হইলো বিনোদনমূলক।’
‘না , সেক্স শিক্ষামূলক, জোলি আপার পজিশনডা ভালো কইরা দেখ, অনেক কিছু শিখতে পারবি।’
দুইজনে তর্ক শুরু হয়। সেই তর্কে আমি আর হাসনাত শামিল হই। হাসনাত বলে শিক্ষামূলক, আমিও বলি শিক্ষামূলক। হেরে গিয়ে মাসুদ আমাদের দলে শামিল হয়। চারজন একসাথে ড্রইংরুমে বসে এঞ্জেলিনা জোলির উথাল-পাতাল পজিশন দেখি। মনে মনে নিজেরে এন্টোনিও ব্যান্ডেরাস ভাবি !!

৩।
বাসা থেকে বের হয়ে দুটো গলি পার হয়ে পান্থপথ মেইন রোডে আসতে হয়। প্রথম গলিটায় হাঁটতে হাঁটতে প্রায়ই দু’পাশে চোখ আটকে যায়। শুধু কনডমের প্যাকেট আর প্যাকেট। দু’পাশের ফ্ল্যাটগুলির জানালা দিয়ে ফেলা। নানান রঙের, নানান ব্র্যান্ডের। আমি, রুম্মান আর হাসনাত সেই গলি দিয়ে হাঁটি আর কনডমের প্যাকেট দেখি। আমাদের মধ্যে একমাত্র হাসনাত প্রেম করে, ডেটিং করে। ওর কাছ থেকে শুনি কোনটার ফ্লেবার কেমন। আমাদের শরীর উষ্ণ হয়ে উঠে।

এই গলিটার একটা নাম দিয়েছে রুম্মান। ‘কনডম লেন’। রাতের বেলায় বিদ্যুৎ চলে গেলে ও সবাইকে ডাকে, ‘চল, কনডম লেন থেকে হেঁটে আসি, বাতাস খেয়ে আসি।’

তার পরের গলিটা আবার বেশ বড়। বিকেল হলেই সেখানে অনেকগুলি পিচ্চি পোলাপাইন দল বেঁধে ক্রিকেট খেলা শুরু করে। টুয়েন্টি- টুয়েন্টি। তাদের কিচির-মিচির, হৈ-চৈ, আর দৌড়াদৌড়িতে তখন সেই গলি দিয়ে হাঁটা মুশকিল হয়ে যায়। সাবধানে যেতে হয়, কখন আবার উড়িয়ে মারা বল এসে গায়ের উপর পড়ে।
মাঝে মাঝে খুব বিরক্তি লাগে। সেই গলি দিয়ে বিকেল বেলা হাঁটতে হাঁটতে হাসনাত আমাকে জিজ্ঞেস করে, ‘এই গলিতে এতো পিচ্চি পোলাপাইন ক্যান জানস?
আমি মাথা নড়ি, ‘জানি না’।
‘কারণ এই গলিতে কনডমের প্যাকেট নাই’।
আমি হেসে দেই।

৪।

লোডশেডিংয়ের কারণে একটানা বসে সিনেমা দেখার জো নেই। তাই ছবি দেখা হচ্ছে না অনেকদিন। এই সময়টা এখন বই পড়ে কাটাই। এখন পড়ছি আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদের ‘বিস্রস্ত জর্নাল’। বইমেলা থেকে কিনেছিলাম। দারুণ বই। গল্প, উপন্যাস, কবিতা, প্রবন্ধ কিচ্ছু না, অনেকটা ডায়রীর মতো করে লেখা লেখকের টুকটাক ভাবনা। বিছিন্ন কথাবার্তা। কিন্তু এটা পড়তেই মজা লাগছে বেশ।

আজকে যেমন এক পাতায় পড়লাম, লেখক বলছেন, ‘যার ভালোবাসার মানুষ অনেক একমাত্র সে-ই বলতে পারে — তার কেউ নেই।
যার ‘প্রেম’ থাকে তার থাকে কেবল একজন।’

আমার কেউ নেই।

আরো কিছু কথা খুব পছন্দ হয়েছে। কিন্তু লিখতে গেলে অনেক হয়ে যাবে। তাই সবচেয়ে বেশি মজা পেয়েছি যে কথাগুলি পড়ে সেটা বলেই শেষ করি।

‘কোন মেয়ে যদি কোন ছেলেকে সত্যি সত্যি পটাতে চায় তবে অযথা সময় নষ্ট না করে ছেলেটাকে সোজাসুজি ‘ভাইজান’ বলে ডাকতে শুরু করে দেয়া উচিত। কয়েকদিনের মধ্যেই ভাইজানের ‘ভাই’টা লেজের মতো খসে যাবে, থাকবে শুধু ‘জান’টা।’

ইদানীং কেন জানি খালি রুপবতী মেয়েদের ‘ভাইজান’ হতে ইচ্ছে করে।

৯,৩০৮ বার দেখা হয়েছে

১৫৫ টি মন্তব্য : “আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই- ৩”

  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    :khekz: :khekz: :khekz:

    পুরা সিরাম হইছে বস :boss: :boss: :boss:

    অফ টপিকঃ বার্সা রিয়াল খেলা কি কেউ দেখতেছে?


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  2. কয়েকদিনের মধ্যেই ভাইজানের ‘ভাই’টা লেজের মতো খসে যাবে, থাকবে শুধু ‘জান’টা।

    :khekz: :khekz: :khekz:

    সিরাম লাগলো ভাই...

    ইদানীং কেন জানি খালি রুপবতী মেয়েদের ‘ভাইজান’ হতে ইচ্ছে করে।

    আমারও করে ভাই 😀 😀 😀

    জবাব দিন
  3. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    কামরুল লেখা দিছে! 😮 😮
    যাই চোখে মুখে একটু পানি দিয়া আসি ;;;
    তবে একটা তথ্যগত চাপাবাজি আছে লেখায়। কামরুলদের বাসাটা আসলে কনডম লেইনের মাঝামাঝি জায়গায় অবস্থিত 😀 যারা যারা চিনেন তারা আমার সাথে একমত হবেন :grr: :grr:
    আর বিদ্যুত মন্ত্রীর জিনিস পত্র মারার জন্য আরেকটার জায়গার কথা কইলিনা, শমরিতার পাশে রডের উপ্রে 😛
    অনেক দিন পর কামরুলের লেখা। যথারীতি সেরকম, সেরকম :thumbup: :thumbup:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  4. রাশেদ (৯৯-০৫)

    কামরুল ভাই আমি ব্যন্ডেরাস হইতাম চাই সাথে ভাইজানও হইতাম চাই 😀

    লিখা সিরাম হইছে :clap: আপ্নেরেতো ভুলতে বসছিলাম 🙁 ভাগ্যিস আজকে লেখাটা দিছিলেন 😀


    মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

    জবাব দিন
  5. মুহাম্মদ (৯৯-০৫)


    পরীক্ষার পর যদি বাসায় না যাই তাইলে তার একমাত্র কারণ হবে কারেন্ট। তাছাড়া হলে যুদ্ধ কইরা কারেন্ট আনছি, সুফল ভোগ করা তো উচিত।


    আমি জীবনে প্রথম অন্তরঙ্গ দৃশ্য দেখছিলাম ব্যান্ডারাস আর সালমা হায়েকের। ডেসপারাডোস। এসএসসি-র ছুটিতে টাঙ্গাইলে এক ক্লাসমেটের বাসায়। জানেনই তো, আমি তখন এইসব দেখতাম না। ফাকতালে যে কয়েক পলক দেইখা ফেলছি সেইটা কিন্তু সেদিন ডেসপারাডোস দেখারত কেউ বুঝতে পারে নাই। অবশ্য খুব বেশী দেখি নাই। আর এখন তো ফ্রি স্টেটে বাস করি, দেখতে পারমু না এমন কিছু নাই... :shy:


    এইটা নিয়া মন্তব্য করার বয়স হয় নাই এখনও... 😛


    কলেজে থাকতে আবদুল্লাহ আবু সায়ীদের একটা বই পড়ছিলাম, নাম মনে আসতেছে না। লোকটা বস আছে, চরম চরম বাণী দেয়। বই পড়া হইলে আরও কিছু শেয়ার কইরেন।

    জবাব দিন
  6. জুনায়েদ কবীর (৯৫-০১)

    কামরুল ভাই, আপনের লেখা পইড়া তো মনে হইল না আপনি নিজেরে খুঁইজা বেড়ান... :-B
    বরং 'পলিথিনের ব্যাগ' খোঁজার দিকে আপনার বেশি নজর... 😛


    ঐ দেখা যায় তালগাছ, তালগাছটি কিন্তু আমার...হুঁ

    জবাব দিন
  7. আন্দালিব (৯৬-০২)

    সুপার্ব পোস্ট। সত্যিকথা বলতে কি, 'ব্লগিঙ' তো এখন অনেকটাই আদিরূপ থেকে বদলে গেছে। কিন্তু আপনার পোস্টগুলো সেই পুরোনো স্বাদ ফিরিয়ে দেয়। এই রকম লেখাগুলারে আমি পার্ফেক্ট ব্লগ বলি! জোওশ!

    মাঝে আরও অনেক কথা আইছে। এখন রাত গভীর। সুপ্তমনন, জাগ্রতক্ষুধা। বেশি কিছু না বলি!;)

    জবাব দিন
  8. আমিন (১৯৯৬-২০০২)
    কোন মেয়ে যদি কোন ছেলেকে সত্যি সত্যি পটাতে চায় তবে অযথা সময় নষ্ট না করে ছেলেটাকে সোজাসুজি ‘ভাইজান’ বলে ডাকতে শুরু করে দেয়া উচিত। কয়েকদিনের মধ্যেই ভাইজানের ‘ভাই’টা লেজের মতো খসে যাবে, থাকবে শুধু ‘জান’টা।’

    :pira: :pira: :pira:

    জবাব দিন
  9. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)
    ‘কোন মেয়ে যদি কোন ছেলেকে সত্যি সত্যি পটাতে চায় তবে অযথা সময় নষ্ট না করে ছেলেটাকে সোজাসুজি ‘ভাইজান’ বলে ডাকতে শুরু করে দেয়া উচিত। কয়েকদিনের মধ্যেই ভাইজানের ‘ভাই’টা লেজের মতো খসে যাবে, থাকবে শুধু ‘জান’টা।’

    এইখানে কামরুলের জন্য একটা যান্ত্রিক সমস্যা দেখা দিতে পারে রিস্ক ফ্যাক্টর হিসাবে। সায়ীদ স্যার তো কইয়া দিয়াই খালাস, যদি আসল লেজের মত ভাইজানের 'জান'টা খসে পিড়া যায় তাইলে কিন্তু সব শেষ :grr:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  10. রেজওয়ান (৯৯-০৫)

    কামরুল ভাই, এদ্দিন বাদে আপনার একটা লেখা পড়লাম...পুরা জট্টিল আর জাক্কাস হইসে :thumbup:
    আমিও তো কত্ত গেলাম 🙁 কই কিছুই তো দেখবার পারলাম না ঝুলন্ত জিনিস 😕
    আপনে না ডিরেক্টর মানুষ ? আপনি কেন বেন্দারাস হইবেন 😮
    হমু তো আমরা B-) আর আপনি সুন্দর সুন্দর নাইকা কাস্ট করবেন 😛 :awesome: :frontroll:

    জবাব দিন
  11. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    কামরুল,

    আমি তুমারে ভালা পুলা মনে করতাম! এইসব কি লিখছো? তাও ওপেন ফোরামে? এক্ষুণি একটা বিতর্ক শুরু করা দরকার। এডু, মডুরা কি করে?

    নাহ, নিজেরে মনে হয় এইবার মডুর দায়িত্ব নিতে হইবো!! 😡 😡 😡

    (সতর্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি : আমি কাউকে মনে করে এই মন্তব্য করিনি। ছোটভাইরা কেউ কিছু মনে কইরো না। আজ শুধুই :just: ফান)


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
    • সানা ভাই,
      কামরুলের এই লেখাটা পড়ে আমার বউরে একটা গান শুনালাম..................
      প্রিয়......এমনও রাত যেন যায় না বৃথায়............

      আপনি মাইন্ড খাইলে কি চলব ভাই।

      জবাব দিন
    • কামরুল হাসান (৯৪-০০)

      লাবলু ভাই কি বিব্রত বোধ করছেন? ;;;
      আপনার ব্যাক্তিগত অনুভূতিতে আঘাত দেয়ার জন্যে দুঃখিত ;;; ;;;

      :frontroll: :frontroll: :frontroll: :frontroll:


      ---------------------------------------------------------------------------
      বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
      ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

      জবাব দিন
      • আমি ত লেখাটিতে বাস্তবতার ছোয়া পাই।আমরা যে এসব ছোটখাট ব্যাপারে কতটা অসচেতন তার একটা ঘটনা বল্লেই বুঝতে পারবেন............আমাদের ক্যাডেট কলেজের ভর্তি পরীক্ষার ফল বেরিয়েছে।আমি খুশিতে নাচতে নাচতে সকাল ৬ টায় আমাদের কোচিং এ গিয়ে হাজির।দেখি আমার মত আর দশ পনের জন ছাত্র এসে হাজির।স্যার খালি গায়ে চোখ কচলাতে কচলাতে বেরিয়ে এলেন কে কে চান্স পেয়েছে জানার জন্য।আমরা খুব আনন্দ করছি সবাই মিলে।ঠিক তখনি দেখি স্যার এর তিন বছরের মেয়ে একটা সজীব বেলুন হাতে নিয়ে হাস্তে হাস্তে আমাদের দিকে এগিয়ে আসছে।আমরা হাসব না কাদব ভেবে পাচ্ছিলাম না।স্যার যেন লজ্জা না পান সেজন্য আর বিসেস দেরি না করে বাসার বাইরে এসে হাসির খরাক মিটিয়ে ছিলাম ওইদিন।

        জবাব দিন
  12. মাহমুদ (১৯৯০-৯৬)
    ইদানীং কেন জানি খালি রুপবতী মেয়েদের ‘ভাইজান’ হতে ইচ্ছে করে।

    - পরিচালক কামরুলের ত 'জান'টা ছেটে ফেলে "ভাই" হতে চাওয়ারই কথা! (কপিরাইটঃ আ.মু.ভাই) 😉


    There is no royal road to science, and only those who do not dread the fatiguing climb of its steep paths have a chance of gaining its luminous summits.- Karl Marx

    জবাব দিন
  13. তারেক (৯৪ - ০০)

    ও, আরেক্টা কথা- সায়ীদ স্যারের লেখা প্রায়ই পড়ি, মানে হাতের কাছে যে কয়টা বই আছে। বাংলায় যারা লিখি তারা ইদানিং অনেক কম শব্দ দিয়া কাজ চালিয়ে দেই, হাজার দুহাজার শব্দ দিয়েই ঘুরে ফিরে সব কথা বলে ফেলি। সায়ীদ স্যারের লেখা পড়লে একটা জিনিস হয়, শব্দ ভান্ডার বাড়ে, অনেক নতুন শব্দ বা পুরনো শব্দই নতুন করে মনে ধরে।


    www.tareqnurulhasan.com
    www.boidweep.com

    জবাব দিন
  14. হাসান (১৯৯৬-২০০২)
    ইয়ে মানে কাইয়ুম ভাইয়ের বয়েস তো প্রধান্মন্ত্রীর কাছাকাছি হইবো…উনি যখন এফসিসির ক্যাডেট তিনি তখন সেইখানের ম্যাডাম না কি জানি এট্টা কাহিনী আছে না…।

    কি কাহিনী......ঝাতি ঝানতে ছায় B-)

    জবাব দিন
  15. ইফতেখার (৯৯-০৫)
    সামসুল হক টুকু সাহেবের জন্যে মায়া হয়। বেচারা জানতেও পারে না প্রতিদিন সকালে তাকে কতজন কতকিছু মারছে।

    হাহাহাহাহাহাহাহা...... =)) =)) =))
    বসিং বসিং...... :thumbup: :thumbup: :thumbup:

    জবাব দিন
  16. www.radiolalonshah.com ফকির লালন শাহ্ কে নিয়ে এই প্রথম অনলাইন রেডিও স্টেশন। এই স্টেশনে গান শোনার জন্য আপনি আমস্ত্রিত। ফকির লালন শাহ্ এর জীবনী থেকে শুরু করে সমস্ত প্রকার অর্জন আমরা সংগ্রহ করবো এই ওয়েবে। আপনাদের কছেও যদি কোন সংগ্রহ থাকে তাহলে আমাদের সাথে যোগাযোগে আপনি সানন্দে আমন্ত্রিত। আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে০০৮৮০১৯৪৫৯০৮৭৪৮

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।