নতুন বাংলাদেশ গড়বে যারা

কিছুক্ষন আগে আমরা আমাদের নতুন মন্ত্রীসভা পেয়েছি। বঙ্গভবনের দরবার হলে রাষ্ট্রপতি নতুন মন্ত্রিসভার সদস্যদের শপথ বাক্য পাঠ করান সন্ধ্যা পৌনে ৭টায়। (তথ্য সুত্রঃ বিডিনিউজ২৪ ডট কম)
প্রধানমন্ত্রী হয়েছেন শেখ হাসিনা। ২৩ জন মন্ত্রী এবং আট জন প্রতিমন্ত্রী রয়েছেন আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোটের এই সরকারে। মন্ত্রিসভার সদস্যদের অধিকাংশই নতুন।

পূর্ণ মন্ত্রী হিসাবে শপথ নিয়েছেন-

১. মতিয়া চৌধুরী – কৃষি,
২. আবুল মাল আব্দুল মুহিত –অর্থ
৩. এ কে খন্দকার – পরিকল্পনা
৪. আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী – বস্ত্র ও পাট
৫. ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ – আইন
৬. রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু – ডাক ও টেলিযোগাযোগ
৭. অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন – স্বরাষ্ট্র
৮. সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম – স্থানীয় সরকার
৯. খোন্দকার মোশাররফ হোসেন – কর্ম সংস্থান ও প্রবাসী কল্যাণ
১০. রেজাউল করিম হীরা – ভূমি
১১. আবুল কালাম আজাদ – তথ্য
১২. ডা. আফম রুহুল হক – স্বাস্থ্য
১৩. ডা. দীপু মনি – পররাষ্ট্র
১৪. ডা. আফছারুল আমীন – নৌ পরিবহন
১৫. ড. আব্দুর রাজ্জাক – খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা
১৬. এনামুল হক মোস্তফা শহীদ – সমাজ কল্যাণ
১৭. নূরুল ইসলাম নাহিদ –শিক্ষা
১৮. আব্দুল লতিফ বিশ্বাস – মৎস্য ও পশু সম্পদ
১৯. সৈয়দ আবুল হোসেন – যোগাযোগ
২০. ফারুক খান – বাণিজ্য মন্ত্রণালয়
২১. রমেশ চন্দ্র সেন – পানি সম্পদ
২২. জিএম কাদের – পর্যটন
২৩. দিলীপ বড়ুয়া – শিল্প

প্রতিমন্ত্রীর তালিকায় রয়েছেন-

১. অ্যাডভোকেট মুস্তাফিজার রহমান ফিজার – বন ও পরিবেশ
২. দীপঙ্কর তালুকদার – পার্বত্য মন্ত্রণালয়
৩. তাজুল ইসলাম – মুক্তিযুদ্ধ
৪. তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ – স্বরাষ্ট্র
৫. ড. হাছান মাহমুদ – পররাষ্ট্র
৬. মুন্নুজান সুফিয়ান – শ্রম ও ক্রমসংস্থান
৭. আহাদ আলী সরকার – যুব ও ক্রীড়া
৮. স্থপতি ইয়াফেস ওসমান – বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি

প্রাক্তন অনেক হেভিওয়েট বাদ গেছেন, এসেছেন অনেক নতুন মুখ। প্রতিশ্রুতিশীল অনেকে এসেছেন। সততায় ও যোগ্যতায় আস্থা রাখা যায় এমন অনেকে আছেন। আমরাও আপাতত আশাবাদী। তবে সবকিছু নির্ভর করছে পরিবেশ পরিস্থিতি আর বাস্তবিক ইতিবাচক পরিবর্তনের উপর।
মন্ত্রীসভা নিয়ে কে কি ভাবছেন এবং কোন মন্ত্রণালয় কেমন হলো ইত্যাদি ব্যাপারে আপনাদের মতামত জানতে চাই ।

৩,৫৪৪ বার দেখা হয়েছে

৪৭ টি মন্তব্য : “নতুন বাংলাদেশ গড়বে যারা”

  1. ওমর (১৯৯৬-২০০২)

    অনেক হেভিওয়েট নেতা এইবার বাদ পড়েছেন। তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আমির হোসেন আমু সহ অনেক নেতা বাদপড়াদের তালিকায় আছেন।
    ব্যক্তিগতভাবে আমি আওয়ামী লীগ এর নতুন মন্ত্রিসভা দেখে আশাবাদী কারণ এইবার মামলা বা দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত কাউকে মন্ত্রী বানানো হয়নি।
    এছাড়াও কয়েকজন মন্ত্রী, উপমন্ত্রী এবং প্রতিমন্ত্রী এর নিয়োগ আমার কাছে বেশ ভাল মনে হয়েছে।

    জবাব দিন
  2. মুহাম্মদ (৯৯-০৫)

    রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব অনেককের সম্বন্ধেই কিছু জানি না। তাই কে কোন মন্ত্রণালয় পেলে ভাল হবে সেটা বলতে পারছি না। অন্যরা আলোচনা করুক। আমি নেট ঘেঁটে যা পারি মেলানোর চেষ্টা করব।

    জবাব দিন
  3. তাৎক্ষণিকভাবে যে কয়েকজন মন্ত্রীর দপ্তর বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া গেছে তা হচ্ছে:

    এ এমএ মুহিত -অর্থ,
    ড. দীপু মণি -পররাষ্ট্র,
    সাহারা খাতুন -স্বরাষ্ট্র,
    মতিয়া চৌধুরী- কৃষি,
    সৈয়দ আশরাফ হোসেন -স্থানীয় সরকার,
    নুরুল ইসলাম নাহিদ -শিক্ষা,
    ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ -আইন
    তানজিম আহমেদ- স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

    জবাব দিন
    • কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

      ১. মতিয়া চৌধুরী - কৃষি,
      ২. আবুল মাল আব্দুল মুহিত -অর্থ
      ৩. এ কে খন্দকার - পরিকল্পনা
      ৪. আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী - বস্ত্র ও পাট
      ৫. ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ - আইন
      ৬. রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু - ডাক ও টেলিযোগাযোগ
      ৭. অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন - স্বরাষ্ট্র
      ৮. সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম - স্থানীয় সরকার
      ৯. খোন্দকার মোশাররফ হোসেন - কর্ম সংস্থান ও প্রবাসী কল্যাণ
      ১০. রেজাউল করিম হীরা - ভূমি
      ১১. আবুল কালাম আজাদ - তথ্য
      ১২. ডা. আফম রুহুল হক - স্বাস্থ্য
      ১৩. ডা. দীপু মনি - পররাষ্ট্র
      ১৪. ডা. আফছারুল আমীন - নৌ পরিবহন
      ১৫. ড. আব্দুর রাজ্জাক - খাদ্য ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা
      ১৬. এনামুল হক মোস্তফা শহীদ - সমাজ কল্যাণ
      ১৭. নূরুল ইসলাম নাহিদ -শিক্ষা
      ১৮. আব্দুল লতিফ বিশ্বাস - মৎস্য ও পশু সম্পদ
      ১৯. সৈয়দ আবুল হোসেন - যোগাযোগ
      ২০. ফারুক খান - বাণিজ্য মন্ত্রণালয়
      ২১. রমেশ চন্দ্র সেন - পানি সম্পদ
      ২২. জিএম কাদের - পর্যটন
      ২৩. দিলীপ বড়ুয়া - শিল্প

      প্রতিমন্ত্রীর তালিকায় রয়েছেন-

      ১. অ্যাডভোকেট মুস্তাফিজার রহমান ফিজার - বন ও পরিবেশ
      ২. দীপঙ্কর তালুকদার - পার্বত্য মন্ত্রণালয়
      ৩. তাজুল ইসলাম - মুক্তিযুদ্ধ
      ৪. তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ - স্বরাষ্ট্র
      ৫. ড. হাছান মাহমুদ - পররাষ্ট্র
      ৬. মুন্নুজান সুফিয়ান - শ্রম ও ক্রমসংস্থান
      ৭. আহাদ আলী সরকার - যুব ও ক্রীড়া
      ৮. স্থপতি ইয়াফেস ওসমান - বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি


      সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

      জবাব দিন
  4. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)


    মন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রী ও উপদেষ্টাদের তালিকা ও আমার রেটিং :

    ১. মতিয়া চৌধুরী : সৎ ও যোগ্য।
    ২. আবুল মাল আব্দুল মুহিত : সৎ ও যোগ্য।
    ৩. এ কে খন্দকার : সৎ ও যোগ্য।
    ৪. আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী : সুবিধার হলো না।
    ৫. ব্যারিস্টার শফিক আহমেদ : যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন আছে, দলবাজ।
    ৬. রাজিউদ্দিন আহমেদ রাজু : অযোগ্য, সততা নিয়ে সন্দেহ আছে।
    ৭. অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন : এখনো সৎ তবে অযোগ্য।
    ৮. সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম : ভালো।
    ৯. খোন্দকার মোশাররফ হোসেন : বেয়াই, মুক্তিযুদ্ধে ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন আছে।
    ১০. রেজাউল করিম হীরা : সৎ তবে যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন আছে।
    ১১. আবুল কালাম আজাদ : ভালো, যোগ্য।
    ১২. ডা. আফম রুহুল হক : যোগ্য কি?
    ১৩. ডা. দীপু মনি : সৎ, যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন আছে।
    ১৪. ডা. আফছারুল আমীন : তেমন জানি না।
    ১৫. ড. আব্দুর রাজ্জাক : ভালো ও যোগ্য।
    ১৬. এনামুল হক মোস্তফা শহীদ : যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন আছে।
    ১৭. নূরুল ইসলাম নাহিদ : সৎ ও যোগ্য।
    ১৮. আব্দুল লতিফ বিশ্বাস : অযোগ্য।
    ১৯. সৈয়দ আবুল হোসেন : বাজে। টাকা খেয়ে করা হয়েছে।
    ২০. ফারুক খান : ভালো।
    ২১. রমেশ চন্দ্র সেন : সৎ
    ২২. জিএম কাদের : ভালো
    ২৩. দিলীপ বড়ুয়া : অকর্মা, বাজে।

    প্রতিমন্ত্রীর তালিকায় রয়েছেন-
    ১. অ্যাডভোকেট মুস্তাফিজার রহমান ফিজার : চলে
    ২. দীপঙ্কর তালুকদার : যোগ্য
    ৩. তাজুল ইসলাম : ভালো হলো না।
    ৪. তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ : যোগ্যতা নিয়ে সন্দিহান।
    ৫. ড. হাছান মাহমুদ : যোগ্যতা নিয়ে সন্দিহান।
    ৬. মুন্নুজান সুফিয়ান : কাজের না।
    ৭. আহাদ আলী সরকার : জানি না, ধারণা নেই।
    ৮. স্থপতি ইয়াফেস ওসমান : ভালো হবে না মনে হয়।

    মন্ত্রিসভায় সৎ লোক বেশি। তবে সে বিচার এখন করে ফেললে বিপদ। অনেকেই সুযোগ ছিল না বলে হয়তো সৎ। দুইবছর যাক। অনেক সৎকে তখন চেনা যাবে!

    এবারের মন্ত্রিসভা মূলতঃ শেখ হাসিনার অনুগতদের নিয়ে। মন্ত্রীরা সব সিদ্ধান্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে ছুটাছুটি করবেন। স্বৈরতন্ত্রের আশংকা আছে। মন্ত্রীরা কতোটা দক্ষতার পরিচয় দেবেন সন্দেহ আছে। ভোটারদের আকাঙ্খা পূরণ কঠিন হবে।


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
    • তৌফিক (৯৬-০২)

      দ্বিমত করার জ্ঞান নাই। আপনার মূল্যায়ন অনুযায়ী একটু শংকিত হলাম। এক বালতি দুধে এক ফোঁটা চোনাই যথেষ্ট।

      লাবলু ভাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ তাঁর মতামত শেয়ার করার জন্য। আমরা নাদানেরা উপকৃত হলাম। চোখ রাখবো মন্ত্রীদের উপর।

      জবাব দিন
    • ভাইয়া
      আমার মনে হয় , আমরা রাতারাতি একেবারে আমূল পরিবর্তন আশা না করে ধীরে ধীরে আগানোর আশা করতে পারি।
      আপনার নিজের মুল্যায়নেও আমি যে ইতিবাচক দিকটা দেখি সেটা হলো , বেশির ভাগ মন্ত্রী সৎ হিসেবে পরিচিত। এইটা একটা ভালো দিক নিঃসন্দেহে। পরিবর্তনের জন্য আমাদের সবার আগে তো সৎ মানুষ দরকার ছিলো। এখন পর্যন্ত সেই পথেই আছি আমরা। এতোদিন তো টিন চোর আর গম চোরদের নেতা মন্ত্রী হিসেবে দেখে আসছি। এবার অন্তত সেই চোরদের হাত থেকে বাঁচা গেছে।

      আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী ,খোন্দকার মোশাররফ হোসেন এরকম দু'একজনের ব্যাপারে আমার ধারনা সবার মতামত আপনার মতোই। তবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে বাকিদের নিয়ে আশা করতে চাই। আমরা যদি সবাই মিলে দিন বদলের পথে যেতে চাই, তাঁরাও আমাদের পথেই যাবেন আশাকরি।

      অন্য দেশগুলি হয়তো লিফটে চড়ে উপরে উঠছে, আমরা নাহয় সিঁড়িতেই উঠি। 😀

      জবাব দিন
    • ফয়েজ (৮৭-৯৩)
      ডা. দীপু মনি : সৎ, যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন আছে।

      এনাকে পররাষ্ট্র দেয়া হয়েছে, বুঝলাম না ব্যাপার টা। পররাষ্ট্র কি হাসিনা নিজে দেখতে চাচ্ছেন?


      পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

      জবাব দিন
  5. তৌফিক (৯৬-০২)

    মন্ত্রিসভা ছোট হওয়ায় একটা লাভ হইছে। ইতিবাচকভাবে চিন্তা করলে, পুরো টিম হবে lean এবং mean.

    নেতিবাচকভাবে চিন্তা করলে, লুটেপুটে খেতে চাইলে কম লোকই ভালো। কম খাবে।

    জানি না কি হয়।

    জবাব দিন
  6. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    উপদেষ্টাগুলো বেশির ভাগ অযোগ্য ও পঁচা।

    মশিউর রহমানের (নিজে যোগ্য ও ভালো) নেতৃত্ব প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সুপার কেবিনেটে পরিণত হতে পারে।
    এইচ টি ইমাম : অযোগ্য আমলা।
    চক্ষু ডা. মোদাচ্ছের : হাসিনার বড় চামচ।
    ড. আলাউদ্দিন : মাস্তান, সাবেক ভিসি।


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  7. মান্নান (১৯৯৩-১৯৯৯)

    অধিকাংশ লোককেই চিনি না। এই মুন্নুজান সুফিয়ান কি খুলনার মুন্নুজান ? অন্তত খুলনা বিভাগে যোগ্য রাজনীতিবিদের বড়ই অভাব। আর এইজন্য খুলনার অবস্থা শোচনীয়। একটা ভালো নেতৃত্ব আশা করছি খুলনা থেকে।

    জবাব দিন
  8. আরেকটা পজিটিভ দিক হচ্ছে, প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ,স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ,কৃষিমন্ত্রী গুরুত্বপুর্ন এই মন্ত্রনালয় গুলিতে সব নারী সাংসদ। আমি মনে করি এটা ভালো লক্ষন। 😀

    জবাব দিন
        • ভালো লক্ষন এই অর্থে, যে দেশ পরিচালনায় ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ন দায়িত্বে নারীদের সংশ্লিষ্টতা বাড়ছে। এবারই প্রথম সবচেয়ে বেশি সঙ্খ্যক নারীকে নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিলো। এবং এবারই সরাসরি নির্বাচনে জিতে রেকর্ড সঙ্খ্যক নারী সংসদে আমাদের প্রতিনিধিত্ব করছেন।
          আরেকটা ব্যপার, এতোদিন যা দেখে আসছি, তাতে আমার নিজের ধারনা, দূর্নীতিতে নারী রাজনৈতিকদের সংশ্লিষ্টতা কম পাওয়া গেছে।
          এবং সবশেষে গনতন্ত্রের গত ১৫ বছরে আমার দেখা সেরা এবং সবচেয়ে সফল মন্ত্রীটি একজন নারী। মতিয়া চৌধুরী।
          এই জন্যই আমি ভালো লক্ষন বলেছি। এটা আমার ব্যক্তিগত অভিমত। আমি ভুল হতে পারি। 😀

          জবাব দিন
          • ফয়েজ (৮৭-৯৩)
            ভালো লক্ষন এই অর্থে, যে দেশ পরিচালনায় ও অন্যান্য গুরুত্বপূর্ন দায়িত্বে নারীদের সংশ্লিষ্টতা বাড়ছে। এবারই প্রথম সবচেয়ে বেশি সঙ্খ্যক নারীকে নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হয়েছিলো। এবং এবারই সরাসরি নির্বাচনে জিতে রেকর্ড সঙ্খ্যক নারী সংসদে আমাদের প্রতিনিধিত্ব করছেন।

            এটাকে নারীর ক্ষমতায়ন বলা যেতে পারে। বলা যেতে পারে নারী ক্ষমতায়নের যে ধারা তা গতি পেয়েছে। ব্যাস এইটুকুই।

            সবশেষে গনতন্ত্রের গত ১৫ বছরে আমার দেখা সেরা এবং সবচেয়ে সফল মন্ত্রীটি একজন নারী। মতিয়া চৌধুরী।

            গত পনের বছর আমরা দুজন ব্যর্থ প্রধানমন্ত্রী পেয়েছি, এবং দুজনেই নারী।

            নারী পুরুষ আলাদা না করে মানুষ আর দক্ষতাকে মাপকাঠি করা মনে হয় ভাল হবে। 😀


            পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

            জবাব দিন
            • ফয়েজ ভাই
              দুঃখিত, আমি আসলে আপনাকে বুঝাতে ব্যর্থ হয়েছি। ক্ষমতায়নও এক ধরনের সংশ্লিষ্টতা, এবং এটা ভালো লক্ষন। আমি এটাই বলতে চেয়েছিলাম।
              নারী পুরুষ আলাদা করার কথা কিভাবে বুঝে ফেললেন আমি নিজেই বুঝতে পারছি না। একবিংশ শতাব্দীতে এসে আপনি আমার কাছ থেকে নারী পুরুষ আলাদা করার মতো একটা ধারনা পেয়েছেন বলে, নিজেই নিজের পাছায় লাথি দিতে ইচ্ছে করছে। 😀 😀 😀

              জবাব দিন
  9. টিটো রহমান (৯৪-০০)

    আমি সত্যি অবাক হয়েছি। শওকত ভাই ঠিকই বলেছিলেন "হাসিনার বদল......"
    নতুনরাই পারে দিন বদলাতে...........আমার প্রত্যাশার ভিত্তি শক্ত হল
    সাবাস হাসিনা :clap: :clap: :clap: :clap: :clap: :clap: :clap:


    আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই

    জবাব দিন
    • ফয়েজ (৮৭-৯৩)

      সাবাস দিতে পারছিনা। বরং শংকিত, স্বৈরগনতন্ত্রের শংকায়।

      কারন টা বলি, স্বরাষ্ট্র, পররাষ্ট্র যারা পেয়েছেন তারা নিজে থেকে কতটুকু ডিসিসান নেবেন এ ব্যাপারে আমি সন্দিহান, মনে হচ্ছে সিদ্ধান্ত নিবেন শেখ হাসিন, তারা সামনে, প্রতিরক্ষা নিজের কাছে রেখেছেন, আইন দিয়েছেন শফিক সাহেব কে। হাওয়া ভবনের মত ভাব গতিক। এবার হবে সুধা ভবন।

      অর্থাৎ এটা ওয়ান উমেন শো হয়েছে। চেয়েছিলাম উনি প্রধানমন্ত্রী না হোন, হয়েছে পুরা উলটা, সব কিছু নিজের কাছে রেখেছেন।

      দেখা যাক। কাজ কাম দেখি।


      পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

      জবাব দিন
      • টিটো রহমান (৯৪-০০)

        ভাইয়া আমি সাবাস বলেছি অন্য কারণে। আগের মত একঘেয়ে দৃশ্যের অবতারনা তিনি করেননি। সবকিছুতেই বদলের ছাপ আছে। এই পরিবর্তন ভাল লাগছে।
        এখন প্রশ্ন হল তার এই পরিবর্তন কিভাবে এসেছে???
        সম্ভবত .......এবার তিনি ভাল পরামর্শক পেয়েছেন এবং ভাল পরামর্শ চিনতে পারছেন।
        সে ক্ষেত্রে সব কিছু তার হাতে থাকলে তো সমস্যা নেই

        তবে আমার আর একটা ব্যাপার মনে হচ্ছে.....তারুণ্যের জয়গান দিয়ে তিনি ছেলে জয়কেও বোধ হয় প্রতিষ্ঠিত করবেন পরবর্তীতে


        আপনারে আমি খুঁজিয়া বেড়াই

        জবাব দিন
        • ফয়েজ (৮৭-৯৩)

          জয় যদি যোগ্য হয় সার্ভিস নিতে তো অসুবিধা নেই।

          এবার তিনি ভাল পরামর্শক পেয়েছেন এবং ভাল পরামর্শ চিনতে পারছেন।

          আমারও তাই মনে হয়েছে। পরিবর্তনের ছাপ আছে। তোফায়েল-আমু-জলিল-সুরঞ্জিত বৃত্ত ভেংগেছেন, মেরুদন্ড আছে বলতে হবে।

          "ভাল" ব্যাপারটা পুরো আপেক্ষিক। আমরা বরং "সৎ" এবং "যোগ্য" এই দুটো টার্ম ব্যাবহার করতে পারি।


          পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

          জবাব দিন
  10. মুসতাকীম (২০০২-২০০৮)

    দেখি কি হয় :dreamy: :dreamy: :dreamy: :dreamy:


    "আমি খুব ভাল করে জানি, ব্যক্তিগত জীবনে আমার অহংকার করার মত কিছু নেই। কিন্তু আমার ভাষাটা নিয়ে তো আমি অহংকার করতেই পারি।"

    জবাব দিন
  11. আস আদ (৮৮-৯৪)

    to me-cabinet formed not from Bangladesh awami league member-it is formed from Bangladesh hasina league members. Hasina takes a big risk.hope she will be successful.cause any failure of this cabinet will regarded a her personal failure.
    health minister is a renowned orthopedic surgeon.he is a professor,so he knows the limitation & problem of health sector.i hope he will be able to establish a system in the health cadre.

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।