সিলভার জুবিলি…

নাহ,প্রিয় ভাইবোনেরা-এইটা সিসিবির সিলভার জুবিলি না।কিন্তু এই সিলভার জুবিলির মাজেজাও কম না।আজ থেকে ২৫ বছর আগে এই দিনে ঘটেছিল এক মর্মান্তিক ঘটনা।সিসিবির স্বনামধন্য প্রিন্সিপাল,আমাদের ব্লগের এমপি,বাংলাদেশের বিশিষ্ট সাংবাদিক এবং আমরা যারা চারাগাছ তাদের মাথার উপর মহীরুহরূপে যিনি ছায়াদান করেন, সেই জনাব সানাউল্লাহ লাবলু ওরফে আমাদের সানা ভাই এই দিনে কোরবানী হইয়াছিলেন।

চলুন দেখা যাক এই বিধ্বংসী ঘটনায় খোমাখাতায় কিরকম পাবলিক রিএ্যাকশান হচ্ছেঃ

সানা ভাইঃএকটা অন্যরকম দিন। প্রায় প্রতিবছরই দিনটার কথা ভুলে যাই। এবার ভুলিনি। আমরা একসঙ্গে বাকিটা পথও পাড়ি দেবো, মনে রেখো(এই কথাটা প্রিন্সিপাল ম্যাডামকে উদ্দেশ্য করে বলা।ইশ,২৫ বছর পর আমিও যেন এরকম রোমান্টিক থাকি! 😡 )

আব্দুল্লাহ ভাইঃ শুভকামনা লাবলু ভাই।

তানভীর ভাই(ফার্স্ট স্ট্যান্ড)-সব সময় সবুজ থাকুন আপনারা- এই প্রার্থনা রইল লাবলু ভাই 🙂

কামরুল ভাই(ক্রীড়া সাংবাদিক)-এই দিনটা আরো অনেকবার ফিরে ফিরে আসুক আপনাদের জীবনে।অনেক অনেক শুভ কামনা । ইয়ে মানে, আমার জন্যেও একটা বার্ষিকী পালনের ব্যবস্থা করা যায় না? 😛

রায়হান আবীর(সামিয়াপ্পুর লেজ)-সামনের শুক্রুবার 😀 শুভ বিবাহবার্ষিকী! (ওর কথাতে সামনের শুক্রবার কি জানি খানাপিনার ব্যাপার ছিল,পরে চেপে ধরে বের করতে হবে)

ফয়েজ ভাই( দিহানভাবী আর বসাফার মালসিংহ ভাইয়া)- উররেবাস, ২৫ বছর, দূর লাভলু ভাই, নতুন মুখ খুজতে এতদিন লাগাইলে ক্যামনে কি? বেরি পুওর পারফরম্যান্স।যাউজ্ঞা, ভাল থাইকেন দু’জন, আর ধুমসে ঝগড়া করেন..।..।… জোরসে বলেন “শুভ কোরবানী বার্ষিকী”

সানা ভাই( চক্ষুকর্ণের বিবাদ ভঞ্জন করতে)- ঠিক ধরেছো সবাই। আজ আমাদের বিয়ের ২৫তম বার্ষিকী। গত ১১ তারিখ সিসিবির গেট-টুগেদার দিয়ে “মাসব্যাপী উদযাপন” শুরু করেছি। গত শুক্রবার ছিল আত্মীয়-স্বজনরা। সামনের শুক্রবার এফসিসির ২১তম ব্যাচের বন্ধুরা আর তোমাদের ভাবীর বন্ধুরা, পরের শুক্রবার আইডিয়াল স্কুলের বন্ধুরা।
( এই বেলা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি-একবার ফুটবল খেলা উপলক্ষে গিয়েছি তো কি হয়েছে,বিবাহ বার্ষিকী উপলক্ষে পুনরায় কেক্কুক খাইতে চাই)

আব্দুল্লাহ ভাই(আমার মনের কথাটা বলে দিয়েছেন এইভাবে)-খালি ৪ তলা ! তাইলে আমরা যারা আগরতলা, চকিরতলা আছি তারা কি দোষ করলাম?দেশে ইনসাফ বইলা কিচ্ছু নাইক্কা।

জুনাদা(কমেন্ট শিল্পী)-২৫ বচ্ছর! তাইলে তো আপনারা এখন ভাই-বোন!! অনেক অনেক শুভেচ্ছা সানা ভাই-ভাবী, চির জীবন এমন সবুজ থাকুন এই কামনা করি( আহা, বৃক্ষ জুনাদা ঠিক বৃক্ষের মতই সবুজ থাকার কামনা করলেন!)

সানা ভাই(কামরুল ভাইয়ের কমেন্টের শেষাংশ লক্ষ্য করে)- একটা ঘটকালির অফিস খুলতে হবে সিসিবির পোলাপাইনের জইন্য……………….. @ কামরুল

আঁধার্ভাবী(আমার আর পিন্টুর বসাফা এবং ম্যাড মেহেদী ভাইয়ের নবপরিনীতা সহধর্মিনী)- সানা ভাইয়ের ঘটকালি অফিস,জিন্দাবাদ!জিন্দাবাদ!! সানা ভাই, আপনার অফিসে ভ্যাকান্ট পোস্ট থাকলে আমাকে দিয়েন…

সানা ভাই(জবাবে)-আপাতত কাউয়ুম, কামরুলের ব্যবস্থা করো তানজীনা…………….. পোলা দুইডা বিয়ার কথা জপতে জপতে মুখে ফেনা তুইল্যা ফ্যালছে…………..

দেখুন দেখি কাণ্ড!!!! কোথায় সানা ভাইয়ের বিয়ের রজতজয়ন্তী উপলক্ষে উনারা কেক্কুক খানাপিনার ব্যবস্থা করবেন, তা না করে নিজেরাই আকারে-ইঙ্গিতে-ইনিয়ে-বিনিয়ে নিজেদের বিয়ের কথা তুলছেন।নাহ ইন্সাফ এই দুনিয়া থেকে উঠে দিহান ভাবীর বাসায় বেড়াতে গেছে বলে মনে হচ্ছে!!

ইন্সাফকে দিহান ভাবীর বাসা থেকে ফিরিয়ে নিয়ে আসার একটাই উপায়- উদরপুর্তি করা কেক্কুকের ব্যবস্থা,যা নিয়ে প্রিন্সু স্যার আমাদের নিরাশ করবেননা বলে আমি ১০০% নিশ্চিত।

ইদানীং আমার কম্পিউটারে সম্ভবত কোন সমস্যা হয়েছে তাই ইচ্ছে থাকা সত্বেও এর আগের বার কমান্ডো দম্পত্তির ছবি আপলোড করতে পারিনি, আর এবারও বার বার চেষ্টা করেও প্রিন্সু দম্পত্তির ছবি আপলোড করতে পারলাম না…(টেকী কেউ এখানে দয়া করে প্রিন্সু দম্পত্তির একটা সেইরকম রোমান্টিক ছবি আপলোড করে দেবেন…ওই যে এফসিসির সামনে স্ট্রাইক এন্ড স্ট্রাইভ লেখাটার সামনের ছবিটা)

আসুন সবাই জ়েনারেল সালাম দিতে দিতে কপালে স্যালুট ঠুকে বলি- শুভ বিবাহ বার্ষিকী, প্রিন্সু স্যার!!!!! :gulli2: :awesome: :tuski: :hug:

৪,৩৫৯ বার দেখা হয়েছে

১৪২ টি মন্তব্য : “সিলভার জুবিলি…”

  1. সাইফ শহীদ (১৯৬১-১৯৬৫)
    আমরা একসঙ্গে বাকিটা পথও পাড়ি দেবো, মনে রেখো

    জানি না এটা ভয়ে না নির্ভয়ে লাবলুর মুখ থেকে বেরিয়েছে।

    আন্তরিক শুভেচ্ছা রইল লাবলু ও তোমার স্ত্রীর প্রতি।

    জবাব দিন
  2. মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

    ইয়ে,একদিনের হিসাব ইট্টু গণ্ডগোল হইছে মনে হয়।।বাদশা ভাইয়ের দেয়া লিঙ্কে গিয়া দেখি তারিখটা আসলে ২৮ জুন- আপনেরা সবাই এক দিন মাইনাস কইরা নিয়েন,প্রিন্সু স্যার আমারে গাজরের হালুয়া বানানোর আগে আমি পলাই... 🙁 :((

    জবাব দিন
  3. মেহেদী হাসান (১৯৯৬-২০০২)

    অনেক অনেক শুভেচ্ছা আর শুভ কামনা রইলো ভাইয়া এবং ভাবীকে :hatsoff:
    পার্টি দিলেও হয়তো যেতে পারবো না, মাস্রুফ আমার ভাগেরটা তোকে দিয়ে দিলাম। :party:

    জবাব দিন
  4. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    ভাবী এবং লাবলুভাইকে অনেক শুভেচ্ছা 🙂
    ভালো থাকুন, চির সবুজ থাকুন। 😀

    যেহেতু খানাদানা পর্ব এখনো হয়নাই, তাই দীর্ঘ দেড়দিন নেট বিচ্ছিন্ন থাকার পরও কিছু মিস করিনাই মনে হচ্ছে। :clap:


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  5. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    রাত ১২টা বাজার কিছুক্ষণ আগে দিহানের ফোন পেয়ে জেনেছিলাম সিসিবিতে মাস্ফ্যু আমাদের বিয়ের ২৫তম বার্ষিকী নিয়ে পোস্ট দিয়েছে। বিকেলে অফিসে এসে সিসিবি খুলে দেখলাম, পড়লাম। নাজমুলের পথ অনুসরণ করে কপিপেস্ট করার মতো মন্তব্য খুঁজছিলাম! পেলাম না। ~x( সিসিবি, ফেসবুক আর সেলফোনে বড়ভাই, বন্ধু, ছোট ভাইবোনদের এতোসব শুভেচ্ছা বার্তা পেয়েছি যে, গত কয়েকদিনে আমার যতো মনখারাপ ছিল সব উধাও হয়ে গেছে। এই পোস্টের পাঠক, মন্তব্যকারী সবার প্রতি আমি কৃতজ্ঞ। আমি অভিভূত (কপিরাইট : কমান্ডো আহসান)!!

    বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়ই আমরা বিয়ে করেছিলাম (অবশ্যই আমি কাউকে ওই বয়সে বিয়ে করতে উৎসাহিত করবো না)। কারণও ছিল। আমাদের সম্পর্কের বিষয়টি জানতে পেরে অবসরপ্রাপ্ত জেলা জজ আমার শ্বশুর আমাকে ডেকে স্পষ্ট বলে দিয়েছিলেন, হয় আমার মেয়েকে এক্ষুণি বিয়ে করবে, নইলে ভাগো। কারণও ছিল, এমন একটা ছেলের সঙ্গে তাঁর মেয়ে সম্পর্ক করেছে যে কিনা রাজনৈতিক এক্টিভিস্ট এবং কমিউনিস্ট পার্টির সার্বক্ষণিক কর্মী হতে আগ্রহী। এমন পাত্রের কাছ থেকে মেয়েকে বাঁচাতে তিনি এই কঠোর শর্ত জুড়ে দিয়েছিলেন। আমার মাথায় আকাশ ভেঙ্গে পড়ার অবস্থা। ভালোবাসার মানুষের কাছে দেওয়া অঙ্গীকার থেকে তো আমি ফিরতে পারি না। তাই মামার কাছে আশ্রয় খুঁজলাম। মামা আমাকে যেমন ভীষণ স্নেহ করতেন, তেমনি আমার বাবাও তার একমাত্র শ্যালককে প্রচণ্ড ভালোবাসতেন। মামা শেষ পর্যন্ত বাবাকে একরকম রাজি করালেন। দুই পরিবারে সভা হলো। বিয়ের দিন-তারিখ ঠিক হলো। কিন্তু বাবা যেহেতু অসম্মতির সম্মতি দিয়েছিলেন, তাই হলুদের দিন পুরো বাসার লোকজন নিয়ে তিনি চলে গেলেন ঢাকার বাইরে বেড়াতে। আর বিয়ের নির্ধারিত দিন ২৭ জুন সন্ধ্যায় ওদের বাসায় গিয়ে দেখা গেল, কোনো আয়োজন তো নেই বরং ড্রয়িং রুমের মেঝেতে বিরাট বিছানা করে সবাই ঘুমোনোর প্রস্তুতি নিচ্ছে। তাই বিয়েটা সেদিন ভেস্তে গেল।

    পরে ২৯ জুন ছবি বন্ধুর বাড়ি যাচ্ছি এই অজুহাত দেখিয়ে বাসা থেকে বেরিয়ে এলো। আমাকে ফোন করলো। ফকক, বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আর আমার ছোটবেলার বন্ধুদের জড়ো করে এক বড়ো ভাইয়ের কাছ থেকে ৫০০ টাকা ধার নিয়ে বিকেলে আমরা বাসাবো কাজি অফিসে গিয়ে বিয়ে করলাম। দুদিন পর বাবা-মা বাসায় আমাদের আনুষ্ঠানিকভাবে বরণ করে নিলেন। এই হলো আমাদের বিয়ের পেছনের কথা।

    অফটপিক : উদয় বেশ কিছুদিন আগে তার মাকে প্রশ্ন করেছিল, "আচ্ছা মা, তুমি আর বাবা নাকি বাসা থেকে বেরিয়ে গিয়ে বিয়ে করেছিলে?" ওর মায়ের জবাব কি হতে পারে??

    আমাদের ছেলে সম্পর্কে আরেকটা তথ্য : সম্ভবত চতুর্থ বা পঞ্চম শ্রেণীতে পড়ার সময় ওকে ওর মা প্রশ্ন করেছিল, "তোমার যদি সুযোগ আসে নিজের বাবা-মা বেছে নেওয়ার তুমি কাকে নেবে?" ছেলের চটজলদি জবাব ছিল, "বিল গেটস"।

    অতিরিক্ত তথ্য : যারা এখন কেক্কুক খেতে চান তারা ভারচ্যুয়ালি খেয়ে নিতে পারেন। কারণ গত ১১ জুন রীতিমতো আয়োজন করে খাওয়া-দাওয়ার আয়োজন হয়েছিল। সেদিনের অনুপস্থিত সদস্যদের আরো কয়েকমাস ভুখা থাকা ছাড়া আর কোনো পথ দেখছি না!! ;)) ;)) ;)) (সম্পাদিত)


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  6. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    টানা ২ সপ্তাহ জঙ্গলে থাকায় দেরি হয়ে গেল... ভাবী এবং লাবলু ভাইকে অনেক শুভেচ্ছা। ( ১১ তারিখের খানা পিনার আয়জনে আমি ছিলাম ফার্স্ট ম্যান, তাই আর দাবী জানাইলাম না 😛 )


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।