জামীকথন

ব্লগে গত এক/দুইদিন কোন নতুন লেখা দেখছিনা-অনেকটা খরা যাচ্ছে বলে মনে হচ্ছে।এই সুযোগে ভাবছি হালকা একটা লেখা দিয়ে দেই।ক্যাডেট কলেজে লেইম জোকস(দুঃখিত,ভাল বাংলা প্রতিশব্দটি জানা নেই-অর্থহীন কৌতুক শব্দটি কতটা যুক্তিযুক্ত ঠিক বলতে পারছিনা) আমাদের অনেকেরই বেশ প্রিয় ছিল।কঠোর ক্যাডেট জীবনের ফাঁকে ফাঁকে এই লেইম জোকস বা অর্থহীন কৌতুকগুলোই যে অন্য সময়ের অনেক নামকরা কৌতুকের চেয়ে বেশি হাসির খোরাক যোগাত সেটা বোধহয় সবাই স্বীকার করবেন।একটা উদাহরণ দিচ্ছি-এথলেটিক্স মিটে আমার কুমিল্লার বন্ধুদের একটা জোক ছিল এমনঃ এক লোক তিনতলা একটি বাড়িতে উঠছে।প্রথম তলায় গিয়ে দেখে তার জন্যে রুটি আর সবজি রাখা,দ্বিতীয় তলায় গিয়ে দেখে সেখানে পোলাও কোরমার ব্যবস্থা।আর তৃতীয় তলায়??সেখানে গিয়ে দেখে কিছুই নেই।এই হল লেইম জোক আর এটা শুনেই অনেকেই হাসতে হাসতে গড়িয়ে পড়েছি(কিছুটা সম্ভবত গল্প বলিয়ের মুন্সিয়ানার কারণেই!)।ক্যাডেট কলেজের বাইরে আসার পর এ জাতীয় জোকগুলোর সাথে খুব একটা মোলাকাত ঘটেনি-এই মাত্র ক’দিন আগে ছাড়া।নিচের গল্পগুলোর স্রষ্টা আমাদের জিহাদ,তুহিনদের ব্যাচের জামী নামের জনৈক ছাত্র-আইউটিতে যার বিচরণ।তুহিনের মুখে ওর গল্প শুনে এবং ফেসবুকে “জোক্স অফ জামী” গ্রুপে ঢুকে ওর লেইম জোকগুলো দেখে না হেসে পারিনি।উচ্চমার্গীয় সাহিত্য বা সংগীতকে যেমন জাতীয়তার বাঁধনে জড়ানো যায়না,জামীর জোকগুলোকেও তাই আইইউটির সম্পদ না বলে যাবতীয় লেইম জোকপ্রেমীর ভান্ডারের অমূল্য সম্পদ বলেই বিবেচনা করেছি।আর এ কারণেই নিজের ভাষায় দিয়ে দেবার লোভ সামলাতে পারলাম না।যাঁরা লেইম জোক পছন্দ করেননা তাঁদের কাছে এটি ভাল লাগবে বলে মনে হয়না আগেভাগেই বলে রাখলাম কিন্তু!

জনৈক ছাত্র(পরীক্ষার আগে)-জামী,দোস্ত,তোর সিলেবাস কতদূর?
জামী(ব্যাগ থেকে স্কেল বের করে)-দাঁড়া স্কেল দিয়ে মেপে দেখি।


বন্ধু-জা্মী,জানিস টাঙ্গাইলে নাকি গায়েবী বাবা নামে এক পীর এসেছেন অনেক কেরামতি নিয়ে,যাবি নাকি দেখতে?
জামী-এত কষ্ট করে টাঙ্গাইল যাবি কেন,একটা ছেলের গায়ে B লিখে তার বাবাকে দেখলেই তো হয়!


বন্ধু-জামী,আমার না এখন জলপাই খেতে খুউউউব ইচ্ছে করছে।এই আইইউটিতে কিভাবে পাব বলতে পারিস?
জামী-একটা বালতিতে জল ভর্তি করে “পাই”(pie) বানিয়ে খেলেই পারিস!


ঢাকার কাঁচপুর দিয়ে আসার সময় বাসে এক বন্ধুর সাথে জামীর কথোপকথনঃ

বন্ধু-দোস্ত জায়গাটার নাম কাঁচপুর কেন?
জামী-এখানে একসময় অনেক কাঁচ ছিল তাই।
বন্ধু-আচ্ছা,কাঁচগুলো এখন কই?
জামী-আরে এটাও বুঝলিনা? কাঁচগুলো রোদে পুড়ে গেছে আর তাই তো এই জায়গার নাম কাঁচপুর!


বন্ধু-এবারের আইইউটির ব্যাচ সেলিব্রেশনে তিন তালা একটা কেক আনলে কেমন হয়?
জামী-এত পয়সা খরচ করে তিন তালা কেক আনতে হবে কেন,একটা কেক এনে তার উপর দরজার তিনটা তালা খুলে এনে রেখে দিলেই তো হয়!


আইইউটির জনাকয়েক কথাবন্ধু রেডিও এবিসিতে লাইভ শো করতে আইউটি থেকে স্টুডিওতে যাচ্ছে,তাদের মধ্যে জামীও আছে।
বন্ধু-আমরা ক্লাসে যাব আর তোরা রেডিও স্টেশনে এসিতে(এয়ার কন্ডিশন) বসে থাকবি!
জামী-শুধু এসি না,মাঝখানে একটা B ও থাকবে-তাহলেই তো হবে রেডিও এবিসি!


আইইউটিতে হঠাৎ ঘোষণা দেয়া হল নর্থ আমেরিকার বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সাথে মিল রেখে আইউটির জিপিএ স্কেল ৫ এর বদলে স্কেল ৪ এ গণনা করা হবে।
জামীর প্রতিক্রিয়া-বাহ এবার তাহলে পড়াশোনা কম করলেও চলবে,জিপিএ ৫ এর জায়গায় ৪ পেলেই হচ্ছে!

আজ এ পর্যন্তই।আইইউটির কেউ জামীর নতুন কোন জোক শুনলে আমাকে জানাতে ভুলবেন না কিন্তু,আপডেট করে দিতে হবেনা!!

কৃতজ্ঞতা স্বীকারঃ
জোক্স অফ জামি ফেসবুল গ্রুপ(//www.facebook.com/home.php#/group.php?gid=106992378506&v=wall)
কুচ্ছিত হাঁসের ছানা

৪,১১০ বার দেখা হয়েছে

৭৬ টি মন্তব্য : “জামীকথন”

  1. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    ফ্লপ খাইলে খাইলাম জোক্স কইরা আমারও একটা জক্স লিখতে মন চাইলো। ঝামীর মতই এক ক্যারেক্টার আমাদের ব্যাচের তানভুঈর (ফকক)।
    তার একটা জোক্স-

    খাওয়া দাওয়া শেষ করে সবাই উঠবো। ক্যাফের ছেলেকে ডেকে একজন বললো, এই বিল আন।
    তানভীরের জবাব, দোস্ত এইখানে বিল আনলে মারা যাবো তো।
    অবাক হয়ে একজন বললো, মানে? কি সব বলছিস।
    তানভীর বললো, আরে আমি তো সাণনতার জানি না। বিল আনলে তো চারদিক পানিতে ভেসে যাবে।

    জবাব দিন
  2. হাসান (১৯৯৬-২০০২)
    ঝামীর মতই এক ক্যারেক্টার আমাদের ব্যাচের তানভুঈর (ফকক)।

    এই পোস্ট পড়তে পড়তেই তানভীরের কথা মনে হচ্ছিল, কমেন্টে এসে দেখি তুই ওর কথা লিখে ফেলছস।

    আমাদের জাহিদ একবার জুনিয়র মুনতাসির কে বলল 'একটা বোরিং জোকস বল'। মুনতাসির বলল 'ভাই দুইটা কুকুর মারামারি করতেছিল, একটা কুকুর মারা গেছে।' :))

    এখনও এই দুইটা বাক্য মনে পড়লে হাসতে হাসতে পিড়া যাই

    জবাব দিন
  3. কাইয়ূম (১৯৯২-১৯৯৮)

    আমাদেরও এরকম বস ছিলো।
    দুইয়েকটা নমুনাঃ
    ১ ঢাকা থেকে চিটাগাং এর দিকে গাড়ি নিয়া রওনা দিছিলাম, সীতাকুন্ড আইসা তেল শেষ হয়ে গেলো দেখে আবার ঢাকা ব্যাক করলাম 🙁
    ২ এইটার ক্রসকান্ট্রী ভার্সন, ১৩ টা পাহাড়ের মধ্যে ১২ টা পার করার পর স্ট্যামিনা শেষ হয়ে গেছে তাই আবার আগের ১২ টা দিয়া স্টার্টিং এ ব্যাক।
    ৩ এক্টা মশার গায়ে এক্টা হাতি উঠার পর মশায় কইছে উফ সুড়সুড়ি লাগে ক্যান। 🙁
    ৪ ব্যাপক ঘুম আইতাছে তাই ঘুমাইতে গিয়া দেখি ঘুম আইতাছেনা


    সংসারে প্রবল বৈরাগ্য!

    জবাব দিন
  4. আন্দালিব (৯৬-০২)

    পোস্ট পড়ে অনেক অনেক ফাউল জোক্স মনে পড়ে যাচ্ছে। আপাতত তানভীরের (ফকক) আরেকটা শেয়ার করি।

    কোন এক শুক্রবারে একজন তানভীরের কাছে চিঠি লেখার জন্যে রাইটিং প্যাড চাচ্ছে।
    - দোস্ত, তোর কাছে Writing pad আছে?
    তানভীরের ত্বরিৎ জবাব, "না দোস্ত, আমার কাছে লেফটিং প্যাড আছে।"

    😕

    জবাব দিন
  5. ক্যাডেটস মেসে ক্লাস সেভেনের এক ক্যাডেট সবকিছুর পরেই একটা করে "টা" লাগাত। যেমন: কাইন্ডলি ডালটা পাস করুন প্লীজ, কাইন্ডলি ভাতটা/চা টা/কারি টা পাস করুন প্লীজ। বিরক্ত এক সিনিয়র জুনিয়রকে বললেন, ব্লাডি, তুমি সব কিছুর পরেই "টা" লাগাও ক্যান? আর যদি শুনছি .....

    পরের দিন ব্রেকফাস্টে জুনিয়রটা ভয়ে ভয়ে বলল, কাইন্ডলি, পরো পাস করবেন প্লীজ?

    জবাব দিন
  6. শোভন (২০০২-২০০৮)

    ১নং জোকস পড়ে স্কেল সংক্রান্ত ঘটনা মনে পড়লঃ
    লোকাল বাসে উঠে কোচিং এ যাচ্ছিল আমার এক ফ্রেন্ড । বাসের সিট নিয়ে এক মোটা লোকের সাথে ঝগড়া করছিল এক চিকন লোক । ঝগড়ার এক পর্যায়ে চিকন লোকটি বলল ভাই স্কেল দিয়ে মেপে দেখেন কে কত জায়গা নিয়েছে । সংগে সংগে আমার ফ্রেন্ডটি স্কেল বের করে দিয়ে বলল আঙ্কেল এই স্কেল দিয়ে মেপে দেখেন ।

    জবাব দিন
  7. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    একটা জুক্স--
    এক দেশে ছিলো বুড়া আর বুড়ি। তারা চিড়িয়াখানায় গেল। চিড়িয়াখানার বাঘ তাদের দেখে হালুম করলো।
    তারা ভয় পাইয়া চইলা গ্বেলো।
    (কপিরাইট : কিংবদন্তী রসায়ন শিক্ষক কাউ বয় ক্যাচ মুন)

    জবাব দিন
  8. আছিব (২০০০-২০০৬)

    =)) আমার কলেজেও এসব জোক্স প্রচলিত ছিল,''খাগা জোক্স'' হিসাবে।আমি ভালো জোক্স মারতে পারি না।আমাদের মিলেনিয়াম ব্যাচে যারাই এগুলা শুনত,আমাদের মারতে তেড়ে আসত। :grr:
    একটা লিখিঃএইটা কিছুদিন আগে চ্যাট করার সময় আমার মাথায় আসছে>>> :-B

    ১ম বন্ধুঃ দোস্ত,বল তো ,একটা লোক রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাচ্ছিল...।হাঁটতে হাঁটতে সে একটা তালগাছের নিচে আসল...বল তো এরপর কি হল?...। 😛
    ২য়ঃ কি আর হবে?লোকের মাথায় তাল পড়ল... 😕
    ১মঃ হয়নাই,তখন গরমকাল ছিল,তাল ছিল না,লোকটা নিরাপদেই তালগাছ পার হল........... . :duel:

    জবাব দিন
  9. আছিব (২০০০-২০০৬)

    :grr: একবার আমার এক ফ্রেন্ড আমারে বলল,দোস্ত দেখছিস, দেখতে দেখতে ঝাউগাছ গুলা কত্ত বড় হইয়া গেল! 🙁 পুরা কলেজেই কত্ত ঝাউগাছ,দেখছস? 🙂 আমি বললাম,হ,কলেজটা জে.সি.সি হইয়া গেল :khekz: সে জিজ্ঞেস করল,'মানে কি? :-B '' আমি বললাম,''ঝাউগাছ ক্যাডেট কলেজ'' 😛 :)) =))

    জবাব দিন
      • 😕 😕 খেলুম না!! আপনে আমার জোকসগুলা দ্যান নাই কেনু, কেনু কেনু?????? :((
        স্যার পড়াচ্ছেন,
        "নাইট্রুজেন, উক্সিজেন, ক্লুরিন, ফ্লুরিন, ব্রুমিন, আয়ুডিন"।

        নুরুল টিজ করে,
        "স্যার আপুনি খুব ভালু পুড়ান। আমুরা গুর্বিতু।"

        স্যার হেভভি পিটান দিয়ে, "নাম কি তোমার??"

        উত্তর- নরল [নুরুল]।

        ১৫।
        স্যার পড়াচ্ছেন,
        "ধরো একমিটার ওজনের পাখি ১০ কেজি উপর দিয়ে উড়ছে। পাখিটির স্থিতি শক্তি কত??"

        এইবার খাগা সিরিজ। কলেজে খুব জনপ্রিয় ছিলো। শুরুতে বোরিং লাগবে, ধৈর্য ধরে পড়তে থাকুন- হাসি আসবেই।

        খাগা-১ -
        গ্রামের রাস্তা দিয়ে এক লোক হাঁটছে, পাশে ক্ষেতে এক চাষী হাল চাষ করছেন। পথিক জিজ্ঞেস করলেন, "ভাই সখীপুর গ্রাম কোনদিকে??"
        "খাগা!!!!!!" চাষীর উত্তর।

        খাগা-২ -
        গ্রামের রাস্তা দিয়ে এক লোক হাঁটছে, পাশে ক্ষেতে এক চাষী হাল চাষ করছেন। চাষী জিজ্ঞেস করলেন, "ভাই সখীপুর গ্রাম কোনদিকে??"
        "খাগা!!!!!!" পথিকের উত্তর।

        খাগা-৩ -
        গ্রামের রাস্তা দিয়ে এক লোক হাঁটছে, পাশে ক্ষেতে এক চাষী হাল চাষ করছেন। দুই জনই জিজ্ঞেস করলেন, "ভাই সখীপুর গ্রাম কোনদিকে??"
        "খাগা!!!!!!" হালের গরুর উত্তর।

        খাগা-৪ -
        গভীর রাতে নারিকেল গাছের মাথায় চোর উঠেছে, গাছের মালিক টের পেয়ে নিচ থেকে জিজ্ঞেস করলেন, "গাছের মাথায় কি করিস??"
        উত্তর- ঘাস কাটি!!!

        খাগা-৫ -
        গভীর রাতে আবার নারিকেল গাছের মাথায় চোর উঠেছে, গাছের মালিক টের পেয়ে নিচ থেকে জিজ্ঞেস করলেন, "আবার গাছের মাথায় কি করিস??"
        উত্তর- কাস্তে ফেলে গিয়েছিলাম, ফেরত নিতে এসেছি!!!

        খাগা-৬ -
        গভীর রাতে আবার নারিকেল গাছের মাথায় চোর উঠেছে, গাছের মালিক টের পেয়ে নিচ থেকে জিজ্ঞেস করলেন, "আবার গাছের মাথায় কি করিস??"
        উত্তর- এমনি উঠেছি!!!

        খাগা-৭ -
        হাতির সামনে রাগে ফুঁসতে ফুঁসতে পিঁপড়া হাজির। বলল,"প্যান্ট খুলে সামনে বিছিয়ে দে।" হাতি ভয়ে ভয়ে তাই করলো।অনেকক্ষণ বিশাল প্যান্টের উপর ঘোরাঘুরি করে পিঁপড়া বলল, "নাহ, এইটা আমার প্যান্ট না, আমার প্যান্টের দুইটা পকেট!!!"

        খাগা- ৮ -
        কাউসারের টিজ নাম গোরু[কাউ]।
        গুলিস্তানের মোড়ে লোকাল বাস থেকে কাউসার নামবে। কন্ডাকটর, "নামেন, নামেন, বাম পা আগে দিয়া নামেন"
        কোন বাম পা?? সামনের টা না পিছনের টা?? কাউসারের প্রশ্ন!!!

        খাগা- ৯ -
        দুই মাতালের আলাপ,
        ১ম- বলতো আমার হাতের মধ্যে কি? [হাত মুঠোবদ্ধ করে]
        ২য়- হাতি!!
        ১ম- যাহ তুই দেখে ফেলেছিস!!!

        জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।