পলাশবাড়ী কলেজ কেজি

ছোট বেলায় কলেজ কেজির মাঠে একবার কিসের যেন মেলা হল,
মনে নাই।
বিক্যাল বেলা সেই মেলায় গেছি।
হাটতে হাটতে পুরো মেলা ঘুরতেই পায়ে ব্যথা উঠে গেছে।
কানমুচরি-বাতাসা খাইছি,
তবে চিনির ছাঁচের হাতী-ঘোড়াগুলার জন্যই মনটা টানতেছিল বেশী।
তেল দিয়া পিঠা ভাজা দেখছি,
জিল্যাপি ভাজা!
আহা!
হাওয়াই মিটাই! বড় বড় বেলুন, মিনি এয়ারগান,
দশ টাকা দামের স্টিল কালার পিস্তল, এক টাকার বারুদের টোটা।
বসন্তের বিকেল ছিল সেটা হয়তো।
নইলে কেন কৃষ্ণচূড়ার কলি দিয়ে নিজে নিজেই যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা!
এখন হয়ত কলেজ কেজির মাঠে আর মেলা হয় না!
কতোদিন !
কতোদিন যে ! ওই প্রিয় মাঠে যাই না !
ক্লাসরুম থেকে- জানালায় উকি দিয়ে বিস্তর আলুক্ষেতে চোখ ফেলি না!
কতোদিন !
কতোদিন যে!
এক গ্লাস গরম হরলিকস খেয়ে সকালে বিছানা ছাড়ি না!

৬৫১ বার দেখা হয়েছে

৬ টি মন্তব্য : “পলাশবাড়ী কলেজ কেজি”

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।