আরও পাঁচটি জোকস

প্রকাশের দশ ঘন্টা পরে পাঠকদের আনুরোধে আমি এই ডিসক্লেইমার দিলাম যে, এই পোস্টের কন্টেন্ট প্রাপ্তবয়স্কদের জন্যে। প্রথমে চলুন কয়েকটা জোক শুনে ফেলা যাক। আগেরগুলোর মতই এটারো অশ্লীল শব্দগুলো বাংলায় না লিখে ইংরেজীতে লেখা হল।

১। রাতে ঘুমানোর সময় বয়ফ্রেন্ড মেয়ের ঘাড়ে টোকা দিলো, মেয়ে বিরক্ত হয়ে বললো আজ না, কাল আমার গাইনোকলজিস্টের সাথে অ্যাপোইন্টমেন্ট আছে এবং আই ওয়ান্ট টু স্মেল নাইস অ্যান্ড ফ্রেশ দেয়্যর। বয়ফ্রেন্ড মনঃক্ষুন্ন হয়ে ঘুড়ে শুলো। একটু পর আবার টোকা, এবার বয়ফ্রেন্ড বললো, “বাই দ্য ওয়েই, আশা করি কাল তোমার ডেন্টিস্টের সাথে অ্যাপোইন্টমেন্ট নেই, না কি?”

২। ফকল্যান্ড যুদ্ধ ফেরত তিন সৈনিক কে তাদের বীরত্বের জন্য পুরষ্কৃত করা হচ্ছে। অফিসার এসে বললো তোমাদের শরীরের যে কোন দুটি অংশ তোমরা বেছে নিতে পার, সেই দুই অংশের মধ্যকার দুরত্ব যত ইঞ্চি হবে তোমাদের তত গুনন ১০০০ পাউন্ড দিতে হার ম্যাজেস্টি মহারাণী রাজি হয়েছেন। প্রথম সৈন্যঃ আমি প্যারাট্রুপার, সো আমি বেছে নিচ্ছি আমার পা থেকে মাথা পর্যন্ত। তার পা থেকে মাথা পর্যন্ত মেপে দেখলো অফিসার ৭৭ ইঞ্চি, সে পেয়ে গেল ৭৭ গ্র্যান্ড। এরপর দ্বিতীয় সৈন্যঃ আমি একজন ফ্রগম্যান, আমি বেছে নিচ্ছি আমার দুই হাতের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত পর্যন্ত। অফিসার মেপে দেখলো ৭২ ইঞ্চি, সে পেয়ে গেল ৭২ গ্র্যান্ড। শেষমেষ আসলো একজন এক্সপ্লোসিভ এক্সপার্ট। সে বললো, আমি একজন মাইন-সুইপার, আমি বেছে নিচ্ছি ” ফ্রম দ্য টিপ অফ মাই ডিক টু মাই বোলস্। ” অফিসার বললো ” অস্বস্তিকর অনুরোধ, তবে কি আর করা যাবে যখন তুমি এইটাই চাচ্ছ, তোমার প্যান্ট নামাও।” সৈন্য প্যান্ট নামালে অফিসার অবাক হয়ে বললো “কি ব্যাপার সৌলজার, হোয়ার আর ইওর বোলস্?” সৌলজারের উত্তর, “ইন ফকল্যান্ড আইল্যান্ড স্যাহ্।”

৩। চারজন নান মারা গেলেন এবং স্বর্গে গেলেন। স্বর্গের দরজায় সেন্ট পিটার তাদের অভ্যর্থনা জানিয়ে বললেন ” যেহেতু তোমরা এখানে এসেছ এর মানে পৃ্থিবীতে তোমরা ভাল কাজই করেছ। তারপরও তোমাদের ছোট খাট দুই-একটা পাপ এই দরজায়েই মোচন করে তারপরেই তোমরা স্বর্গে ঢুকবে। লাইন ধরে দাড়াও এবং বল তোমাদের পাপ কি কি ছিল?” প্রথম নানঃ “একবার আমি একটি পুরুষাঙ্গ দেখেছিলাম।” সেন্ট পিটারঃ “তুমি পাপ করেছ, যাও হলি ওয়াটার দিয়ে চোখ ধুয়ে তারপর স্বর্গে প্রবেশ কর।” এবার দ্বিতীয় নানঃ “একবার আমি একটি পুরুষাঙ্গ ছুঁয়েছিলাম।” সেন্ট পিটারঃ “তুমিও পাপ করেছ, যাও হলি ওয়াটার দিয়ে তোমার হাত ধুয়ে তারপর স্বর্গে প্রবেশ কর।” এই অবস্থায় হঠাৎ চতুর্থ নান তৃতীয় নানকে ধাক্কা মেরে লাইনে তার সামনে এগিয়ে যায়। পিটার বললো “এটা তুমি কেন করলে?” তূতীয় নানকে দেখিয়ে চতুর্থের উত্তর ” ও এই হলি ওয়াটারের গামলায় গিয়ে বসে পড়ার আগেই আমাকে কুলি করতে হতো যে।”

৪। গাইনোকলজিস্টের কাছে এক লোক এই সমস্যা নিয়ে গেল যে, তার স্ত্রী তার সাথে মিলিত হয়ে আর ওর্গাজমে পৌছাতে পারছে না। ডাক্তার বললো, “ওয়েল এটা হয়ে থাকে দীর্ঘ দাম্পত্যজীবনে যখন লাভলাইফ কালার হারায়। আমি তোমাদের পরামর্শ দিচ্ছি তোমরা এমন কিছু কর যা একটু ব্যতিক্রমধর্মী যা তোমাদের লাভলাইফের হারানো কালার ফিরিয়ে আনবে, যেমন তোমরা একটা পুরুষ এস্কোর্ট ভাড়া করনা কেন যে তোমাদের ঘনিষ্ঠ মুহুর্তে তোমার স্ত্রীর শরীরে একটা টাওয়েল নাড়তে থাকবে, বলা যায় না এরকম দুই একটা উত্তেজনাকর স্টিমুলেইশন হয়তো তার লাভলাইফের হারানো কালার ফিরিয়ে আনতে পারে। দম্পতি একমত হল তারা এইটা করবে। তারা এস্কোর্ট ভাড়া করলো যার কাজ হল টাওয়েল নাড়ানাড়ি। লোক দেখলো নাহ্ এভাবে কিছু হচ্ছে না, তার স্ত্রী এখনও ওর্গাজমে পৌছাতে পারছে না। তো সে ভাবলো আর কেউ যখন জানছে না তখন এক কাজ করলে কেমন হয়? রোল রিভার্স করলে কেমন হয়? সে এস্কোর্টকে বললো “তুমি আমার স্ত্রীর সাথে ঘুমাও দেখি আমি টাওয়েল নাড়ি” স্ত্রীও দ্বিমত করলো না। তো লোক টাওয়েল নাড়ছে আর এস্কোর্ট লোকের জাগায় এভাবে দেখা গেল ১৫ মিনিটের মধ্যেই স্ত্রীর আকাশ-বাতাস কাঁপানো ওর্গাজমে হলো। সাফল্যে খুশী হয়ে লোক বললো “দেখেছ, বোকা? এইভাবে টাওয়েল নাড়তে হয়।”

৫। এক কৃষক ভেটের কাছে গিয়ে বললো ” কিভাবে বুঝবো যে আমার শূকরগুলো গর্ভবতী কি নয়?” ভেট বললো “সকালে ঘুম থেকে উঠে যদি দেখ তারা চারপায়ের উপর বসে আছে তাহলে তারা গর্ভবতী, আর যদি দেখ দুই পায়ের উপর বসা তাহলে গর্ভবতী নয়।” খুশীমনে বাড়ী গিয়ে কৃষক তার সবগুলো শূকর ট্রাকে তুলে পার্শ্ববর্তী এক জঙ্গলে নিয়ে গেল, এবং সেখানে সবগুলোর সাথে একবার করে মিলিত হলো। পরদিন ক্লান্ত হয়ে ঘুম থেকে উঠে সে দেখলো শূকরগুলো দুই পায়েই বসা, অর্থাৎ তারা গর্ভবতী নয়। সেদিন সে শূকরগুলোকে ট্রাকে তুলে জঙ্গলে নিয়ে তাদের প্রত্যেকের সাথে দুইবার করে মিলিত হল। পরদিন আরো ক্লান্ত হয়ে ঘুম থেকে উঠে দেখলো তাও শূকরগুলো দুই পায়ে বসা। রেগেমেগে এবার সে সবগুলো শূকরের সাথে তিনবার মিলিত হল এবং পরদিন যারপরনাই ক্লান্ত হয়ে তার স্ত্রীকে বললো “দেখতো শূকরগুলো চারপায়ে বসে আছে না দুইপায়ে বসে আছে?” স্ত্রী বললো “দুটির কোনটিই নয়, তারা সবাই ট্রাকে উঠে বসে আছে।”
*************************
অনেকক্ষণ হাসাহাসি করলাম আমরা, এবার চলুন দেখা যাক এই পোস্টের উদ্দেশ্য কি? খুবই সাধারণ, পাবলিকলি, রসিকতাময় পরিবেশে, খুব হালকাভাবে আমার জানান দেয়া যে আমি সিসিবি ছেড়ে যাইনি, সিসিবির সাথেই আছি। প্রশ্ন হচ্ছে কেন আছি?

সিসিবি আমার একটি পোস্ট এমন সময় সেন্সর করে যা কিনা- লজিকাল ফেলাইসি কি তা যারা না জানে, তাদের কাছে আমাকে প্রতিয়মান করতে পারতো পরাজিত হিসেবে খুব সহজেই। আমি সেই পোস্টে দেখানোর চেষ্টা করেছিলাম লজিকাল ফেলাইসি কি এবং কেন এটা কোন যুক্তি না। আমি আমাকে সেন্সর হতে দেখে কষ্ট পেয়েছি। আমার সেই কষ্ট ২৪ ঘন্টাও আটকিয়ে রাখতে পারেনি আমার সিসিবিতে ফিরে আসা। কেন?

কারণ হচ্ছে মাস দুই-তিন অন্তর অন্তর আমি অনেক বড় বড় সব এক একটা বিপদে পড়ে যাই। গায়ের লোম খাঁড়া করা বিপদ সব। আমি বাতাসে অক্সিজেন খুঁজে পাইনা, আমি স্যাডোম্যাসেচিস্টিক হয়ে যাই, নার্সিসিস্ট হয়ে যাই আমি, আমি চিৎকার করে গালি গালাজ করি, আমার মনে হতে থাকে এই মুহুর্তে আমার শরীর কেন একটা আধ কিলোটন হাইড্রোলিক প্রেসের নীচে চাপা পড়ে থেতলে যাচ্ছে না, আমার ভাল লাগতে থাকে ভেবে কেমন হবে আধ ইঞ্চি অন্তর অন্তর আধ ইঞ্চি ডিপ করে আমার শরীর যদি এই মুহুর্তে কেউ একটা ভোঁতা ছুড়ি দিয়ে স্লো স্লাইস করতে থাকে, আমার মনে হতে থাকে পৃথিবীর সব মানুষ মরে যাচ্ছে না কেন, কেন পৃথিবীর সবগুলো অ্যাটম বোমা একসাথে ফুঁটে ওঠে পুরো পৃথিবীকে শ্মশান বানিয়ে দিচ্ছে না, আমার মনে হয় পুরো বিশ্বজগত এই মুহুর্তে ধ্বংস হয়ে গেলেও আমার কিচ্ছু আসে যায় না, আমি থুতু ছেটাতে থাকি, আমার মনে হতে থাকে পরিচিত সবগুলো মুখ মরে গিয়ে নতুন কেউ আসুক। বস্তুত খুবই খারাপ অনুভব করি আমি সেই সময়গুলোতে, যন্ত্রণা অনুভব করি, মানসিক যন্ত্রণা নয়, শারীরিক যন্ত্রণা।

আমার মোটামুটি সারাজীবনই কেটেছে এই দুঃসময়গুলো আমি কিভাবে পার করবো সুসময়ে তার পরিকল্পনা করে। এখন আমার মনে হচ্ছে আমার সেই অনাগত দুঃসময় আমি খুবই সহজে পার করতে পারবো সিসিবিতে নিন্মোক্ত এরকম একটি পোস্ট দিয়ে। খুব শ্রীঘ্রই আপনারা হয়তো আমার এমন একটি পোস্ট দেখবেন “সাহায্য চাই, আমি দাড়াতে পারছি না; সহানুভুতি চাই, আমি বিপর্যস্ত বোধ করছি; ভরসা চাই, আমি প্রচন্ড অনিশ্চয়তার মধ্যে আছি; সাহস চাই, আমি ভয়ে কুঁকড়ে মরে যাচ্ছি; সান্তনা চাই, আমার সবকিছু অসহনীয় লাগছে; উদ্যম চাই, এটা অনুধাবন করার জন্য যে আমাকে বেঁচে থাকতে হবে; বন্ধু চাই, আমার সবার সঙ্গ অসহ্য লাগছে…… ইত্যাদি ইত্যাদি।” মূলত এজন্যেই আমি সিসিবিতে আছি।

ততদিন সবাই ভাল থাকবেন।

১২,৪৬৯ বার দেখা হয়েছে

৮৪ টি মন্তব্য : “আরও পাঁচটি জোকস”

  1. কামরুলতপু (৯৬-০২)

    ভাইয়া ভাল থেক অনেক অনেক বেশি ভাল। আমার জ্ঞান খুব বেশি নয় এইটা জানি তাই তোমাদের থেকে শিখতে আমার খুব ভাল লাগে। অনেক নতুন নতুন শব্দ/বিষয় ও জানতে পারি। শুধু মনে রেখ তুমিও আমাদের একজন।
    এখানে থাক সবার সাথে , দেখবা সিনিয়র এর ঝাড়ি পাংগানো, সবই ভাল লাগবে। তুমি কোথায় কিভাবে থাক জানিনা, নিজের কথা বলি। একা একা থাকি। আমার ভুল শুদ্ধ যে কোন কাজে বাগড়া দেবার একজন যদি আমি যে কোন জায়গায় পেয়ে যাই আমার অসম্ভব ভাল লাগে।
    তোমার লেখা না পড়েই ফার্স্ট হলাম।

    জবাব দিন
  2. রকিব (০১-০৭)
    সাহায্য চাই, আমি দাড়াতে পারছি না; সহানুভুতি চাই, আমি বিপর্যস্ত বোধ করছি; ভরসা চাই, আমি প্রচন্ড অনিশ্চয়তার মধ্যে আছি; সাহস চাই, আমি ভয়ে কুঁকড়ে মরে যাচ্ছি; সান্তনা চাই, আমার সবকিছু অসহনীয় লাগছে; উদ্যম চাই, এটা অনুধাবন করার জন্য যে আমাকে বেঁচে থাকতে হবে; বন্ধু চাই, আমার সবার সঙ্গ অসহ্য লাগছে…… ইত্যাদি ইত্যাদি।

    যাই হোক আর তাই হোক, ছোট ভাই হাজির খেদমতে।


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন
  3. মেহেদী হাসান সুমন (৯৫-০১)

    বেশি অশ্লিল জোকস। আমার ব্যাক্তিগত মতামত হল এ ধরনের জোকস সিসিবির জন্য না। কারন এখন অনেক বর্তমান ক্যাডেট, জুনিয়র এক্স ক্যাডেট, আমাদের বাবা- চাচার বয়সী সিনিয়র এক্স ক্যাডেট, আমাদের শিক্ষক মন্ডলী এবং অনেক অতিথি এই ব্লগ পড়েন। আমার বাবা ও এই ব্লগ পড়েন আমার লেখার জন্য। আমার মনে হয় এই ধরনের লেখা আমার বাবার বা আমার শিক্ষক মন্ডলী বা আমার অনেক সিনিয়র ভাইয়ের জন্য নয়। এটা আমাদের ব্লগ এর পরিবেশ কলুসিত করছে।

    @ লেখকঃ আপনি দয়াকরে আমার কমেন্ট নিয়ে কোন মন্তব্য না করবেন না

    জবাব দিন
    • আদনান (১৯৯৭-২০০৩)

      অশ্লীল কথা ডিরেক্টলি তো বলা হয়নাই। অসুবিধা কি? আমরা যখন একসাথে থাকি সামনাসামনি তখন কিন্তু সিরিয়াস ডার্টি জোক্স করি হার গড়াই। এখানে তো জুবায়ের বলেই দিসে ভাষাগত বেরিকেড ব্যবহার করে অশ্লীলতাকে একটু ফিল্টার করার চেষ্টা করা হয়েছে। আমরা তার ঐ চেষ্টাটাকে একটু মুল্যায়ন করি...

      আর বেশি ফিল্টার করলে আমার মনে হয় জোকগুলা আর হাসির খোরাক হত না।

      জবাব দিন
      • মেহেদী হাসান সুমন (৯৫-০১)

        না সমস্যা নাই। আসলে আমি সবার কথা ভেবে বলেছি।

        আমরা যখন একসাথে থাকি সামনাসামনি তখন কিন্তু সিরিয়াস ডার্টি জোক্স করি হার গড়াই।

        খুব সত্যি, সানা ভাই, শওকত ভাই, আমাদের দু- এক জনের বাবা - মা, প্রেমিকা বা স্ত্রী, আর কলেজের দুই এক জন স্যার সবাই মিলে আমরা এরকম গল্প করতেই পারি ...

        জবাব দিন
        • ওরে না রে ভাই, আমি আমরা বলতে এই ধরেন পোলাপানের কথা কইসি... বাপ্রে... মাপ চাই!
          এখনো তো দেখি সিনিয়াররা কলেজের মত 'কতায় কতায় ধরে'! ভাল, ভাল, কলেজ কলেজ আমেজ পাইতেসি। 😀

          জবাব দিন
        • সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

          ওই মিয়া সুমন, জীবনটা সব কিছু নিয়ে। শ্লীল-অশ্লীল সব। আমি চাইলে কি আমার ছেলের কাছ থেকে সব অশ্লীল বিষয়, বস্তু লুকিয়ে রাখতে পারবো? না সেটা ঠিক হবে? ক্লাস সেভেনে যখন আমি বা আমরা পড়তাম, তখন কি সেক্স সম্পর্কে আমার কোনো বোধ ছিল না? বরং এই ধরণের রক্ষণশীলতা সমস্যার তৈরি করে।

          লুকিয়ে রাখা, রেখে-ঢেকে রাখা ভালো; নাকি সবকিছু খোলামেলা রাখা ভালো- এ নিয়ে বিতর্ক হতে পারে: একেকজন একেক রকম মনোভাব দেখাতে পারেন। কিন্তু এটা বাস্তব এবং সত্য জীবনে অশ্লীলতা আছে, থাকবে। আর এখানে আমরা সবাই ১৮+। বড় ভাই হিসাবে বলি, আমি এসব জোকসে মোটেও বিব্রত নই। আর তোমাদের অনেকেই আছে, যারা আমার ছেলের বয়সী।

          অর্ণব : তোমার ৩ আর ৪ নম্বরটা ফাটাফাটি। মজা পেয়েছি। তোমার শেষের কথাগুলো নিয়ে ভাবছি। একটা লিখছি সিসিবি নিয়ে। কাজের চাপে সময় লাগছে। আশা করি শিগগিরই দিতে পারবো।


          "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

          জবাব দিন
          • মাসরুফ (১৯৯৭-২০০৩)

            সানা ভাই,আপনার কথা কি আর বলব,এত চমৎকারভাবে আর কেউ বোধহয় বিষয়টা খোলাসা করতে পারত না...গত কয়েকদিন আপনার অভাব প্রবলভাবে অনুভব করেছি...

            অফ টপিক-সানা ভাইকে ব্লগ এমপি হিসেবে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করা হয়েছে সেই নির্বাচনের সময়...কেউ উনাকে সেইভাবে স্যালুট দেয় না ক্যাআআআআআন???জুনিয়র পুলাপাইন ফ্রন্টরোল শুরু কর... x-(

            জবাব দিন
          • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)

            সানাউল্লাহ ভাই, খুবই খুশী হলাম দেখে যে অবশেষে আপনার কমেন্ট পড়লো আমার পোস্টে, আপনার বিরাগভাজন হলে সেটা আমার জন্য হত আসলেই দুঃসংবাদ।

            লুকিয়ে রাখা, রেখে-ঢেকে রাখা ভালো; নাকি সবকিছু খোলামেলা রাখা ভালো- এ নিয়ে বিতর্ক হতে পারে: একেকজন একেক রকম মনোভাব দেখাতে পারেন।

            আপনার এই কথাটা চিন্তার খোরাক জোগায়। কে কি বলছে এটা নিয়ে কারও কোনো মাথাব্যাথা থাকবে না, গনতন্ত্রের এই শিখরে আমরা ক্যাডেটরা অন্তত আর সবার ১০ বছর আগে পৌছাতে চাই। অবশ্যই আমরা ভদ্রতার সীমা লঙ্ঘন করবো না, আবার পড়ে থাকবোনা সেই জাগায়ও যেখানে কিনা আমাদের- আন্তর্জাতিক নয় ভৌগলিক সংস্কৃতিপ্রসূ্ত মূল্যবোধ আমাদের দিয়ে লুকোচুরি খেলিয়ে নিতে পারে। আমার পর্যবেক্ষণ হচ্ছে গনতান্ত্রিক বিশ্ব থেকে যে সেন্সরশিপ বিলুপ্ত- সবার আগে কিন্তু তারা বিলুপ্ত করেছে সেক্সচ্যুয়ল সেন্সরশিপ এবং যেই রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে সেক্সচ্যুয়ল বিষয় যত খোলামেলা- অন্যান্য সব দিকেও তারা তত সেন্সরশিপের অভিশাপ মুক্ত। আমরা আমাদের বাংলাদেশেও এই একই পদক্ষেপ নিয়ে দেখতে পারি, বিশেষত যেখানে হারানোর কিছু নেই। এই অনুধাবনই আমাকে দিয়ে লেখিয়ে নিচ্ছে এই জোকগুলো, নাহয় এই মূল্যহীন জোকগুলো লেখার আমার কোনো কারণ থাকত না। এবং আপনারা যারা সিনিয়র এক্স ক্যাডেট তারা যদি এই ব্যাপারে একমত হন, আমি মনে করি সমগ্র বাংলাদেশের ঐক্যমত অর্জন হবে শুধুই সময়ের ব্যাপার।

            জবাব দিন
            • সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

              অর্ণব : অবশেষে নয়, তোমার প্রায় পোস্টেই সম্ভবত আমার মন্তব্য আছে। তোমার লেখাগুলো সিসিবিতে ভিন্নমাত্রা এনেছে। তবে এর আগেও বলেছি, প্রথম দিকে তোমার লেখার ভাষা খটমট ছিল। এখন সহজ হয়ে এসেছে। লেখাটা আসলে প্র্যাকটিসের ব্যাপার। প্রথম দিকে তোমার ভাষা ছিল আক্রমণাত্মক। যেটা অন্যকে আঘাত করতো। অন্যদের মন্তব্য-প্রতিক্রিয়া জেনে নিজেকে অনেকটা সংশোধন করেছ। ভালো লেগেছে। তোমার পড়াশুনার বিষয়গুলো নিয়ে আরো শেয়ার করো আমাদের সঙ্গে। কোনটা বুঝবো, কোনটা না। তবে এসব হয়তো আমার মধ্যে আরো জানার আগ্রহ জন্ম দেবে।

              তোমার আগের পোস্ট পড়ে তখনি ইউটিউবে গিয়ে স্যাট্রিয়ানি শুনেছিলাম। অন্যদের মন্তব্যগুলোও পড়েছিলাম। ভালো লেগেছিল। সেটা বোধহয় তখন জানানো হয়নি। এই সুযোগটা এবার নিলাম। ভালো থেকো।


              "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

              জবাব দিন
  4. আমিন (১৯৯৬-২০০২)

    জুবায়ের , ভাই এখানে যাই হোক সবকিছুর শেষে আমরা একটা পরিবারের মত। এই কারণেই হাজার সমস্যা ঝামেলার মাঝেও আমি হাজিরা দেয়ার চেষ্টা করি। প্রথম দিকে আমি যখন আসি তখন একসাথে দুজন অনলাইন থাকত কদাচিৎ। শুধু স্মৃতিচারণ মূলক লেখা হতো। একটা কমেন্ট সকালে দিয়ে বিকালে খুলতাম তার রিপ্লাই পাওয়ার আসায়। মাঝে আমি কিছুদিন ছিলাম না। তারপর একদিন এসে হঠাৎ করেই দেখি পরিবারটি পূর্ণাঙ্গ ব্লগ হয়ে গেছে। নানা দিকে নানা আলোচনায় সয়লাব। খুব ভালো কিছু সময় এখানে কাটিয়ে যাই। ভালো লাগে শিখতে ভালো লাগে বলতে। মত দ্বিমত যাই থাকুক এক পরিবারের মতই আমরা সবাই সবার জন্য।
    তোমার জোকসের একটা হালকা রিপ্লাই দিব ভেবে কী সব লিখে ফেললাম। যাহোক ভাইয়া ভালো থেকো সাথে থাকো। শুভকামনা রইল।

    জবাব দিন
  5. রেজওয়ান (৯৯-০৫)

    ভাই আপনের লাস্ট কথা গুলা খুবি ভাল্লাগসে কিন্তু তারপরও বলতে বাধ্য হইলাম প্রথমে যেই জোকস গুলা করসেন সেই গুলা না করলেই হইত......ভাইবেন না এইখানে আমরা তাই বলে অইসব জোকস করি না.........
    তাইফু ভাই, কামরুল ভাই, শওকত মাসুম ভাই এমনকি সানা ভাইও এই সবে অনেক ভাবে পার্টিসিপেট করে কিন্তু সেই গুলা হয় অনেক অনেক মার্জিত এবং অবশ্যই সর্বসাধারনের পরা এবং পিরা যাবার উপযুক্ত......এবং তাতে রসবোধ এই জোকস গুলার চাইতে অনেক বেশী থাকে বলেই বলব ।

    এইখানে আমাদের অনেকেরই পরিবারের অনেকে আসেন পরতে......অনেক সিনিওর ভাইদের ভাবি, অনেকের বোন, অনেকের প্রেমিকা, আপনি কি চান তারা প্রথম পেজ এ ঢুকেই এই ধরনের লেখা দেখে অন্যরকম একটা আইডিয়া নিক...?
    অথচ দ্যাখেন তাই বইলা এই জোকস যে হয় না তা কিন্তু না......অনেক ভাবেই এই ধরনের কৌতুক গুলা করা যায়...সিসটেম এ...ক্যাডেটিয় গুনাবলি থাকলে আপনিও অবশ্যই পারবেন...ধন্যবাদ

    আর ক্যাডেট হিসেবে ছোট ভাই কে আপনি যখনই তলব করবেন বান্দা হাজির থাকবে...। আমরা একটা অনেক বড় পরিবার , সবারই এখন অনেক দায়িত্ব ।

    আর এই মন্ত্যব্যে মাইন্ড খাইলে কিছু করার নাই, আমি আজ পর্যন্ত কাউরে কন মন্তব্যে খারাপ কিছু কই নাই বা কারও প্রতি অভিযোগ করি নাই......কিন্তু আজকে খুব খারাপ লাগল ব্যাপারটা বিশেষ কইরা মেহেদি ভাইয়ের কমেন্ট দেখে...তাই বাধ্য হইলাম কিছু বলার জন্য, মাইন্ড খাইলেও আমার কিছু আসে যায় না......

    জবাব দিন
    • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)

      যদিও তুমি বলেই দিয়েছ মাইন্ড খাইলেও তোমার কিছু আসে যায় না, তারপরও তোমাকে বলছি না আমি মাইন্ড করিনি। তুমি যা বলেছ এটা সত্যই। আমি ঘুমাতে যাচ্ছি এখন, ঘুম থেকে উঠে ৬ ঘন্টা পর দেখবো, যদি আরও দুটির সমান বা বেশী নেতিবাচক কমেন্ট পড়ে তবে, এই পোস্ট তুলে নেব। আমার প্রস্তাব কি তোমার যুক্তিযুক্ত মনে হচ্ছে? আর বাই দ্য ওয়েই, আমার এই পোস্ট মডারেইট হয়েছে, মডারেইটর পড়ে একটা বাক্য কেটেও দিয়েছে, এগুলো যখন কাটেনি, এবং এর আগেও আমার একটি জোকের পোস্ট যেহেতু সমালোচিত হয়নি তাই এই মুহুর্তেই আমি এটা তুলে নিচ্ছি না। ধন্যবাদ।

      জবাব দিন
        • রেজওয়ান (৯৯-০৫)

          ভাই বুঝলাম আপনি অনেক যুক্তিপ্রিয়,সব কিছুর পিছনে লজিক খুজেন , কিন্তু আমার কথাটার মানে আপনে বুঝেন নাই :no:
          যদি বুঝতেন তাইলে এইভাবে বলতেন না ।
          আমি কিন্তু আপনাকে বা আপনার লেখাকে ছোট করার জন্য বলি নাই কারন এই সব জোকস হর হামেশাই আমাদের মধ্যে হয় , কিন্তু ওই যে, এইখানে শুধু আমরা না, আরো অনেকেই আছেন যাদের কথা একটু মাথায় রাখলে ভাল হয় , আমি কিন্তু অনুরোধ করলাম ব্যাপারটা বিবেচনায় রাখার জন্য , আর আরেকটা কথা

          মাইন্ড খাইলেও আমার কিছু আসে যায় না……

          কারন

          নিজের জন্য এট লিস্ট কই নাই

          নিজের স্বার্থের খাতিরে আপনাকে কিছু বললে আপনি যদি মাইন্ড করতেন তাহলে আমার অনেক কিছুই এস যেত ।

          জবাব দিন
          • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)

            ক্ল্যারিফিকেইশনের জন্য তোমাকে ধন্যবাদ রেজওয়ান, আমার ঐ মাইন্ড করার কমেন্ট তোমার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ ছিলোনা যদিও।তারপরও আমরা কিছু সময় চলো দেখি। এখনো যেহেতু জনমত উভয় পক্ষে সমান, চল অপেক্ষা করি কিছুক্ষণ, আমিতো বলেছিই আর দুটি নাতিবাচক কমেন্ট পড়লে পোস্ট তুলে নেব। গনতান্ত্রিকভাবেই সেটা নির্ধারিত হোক, কি বলো?

            জবাব দিন
    • আদনান (১৯৯৭-২০০৩)

      কথাটা অবশ্য ঠিক... তাও... সে তো বলেই নিসে এটার মধ্যে কিছু ডার্টিনেস আছে... আরেকটা কথা লিখে দিলে ভাল হত যে "যারা পড়বেন নিজ দ্বায়িত্বে"...

      যাই হোক, জুবায়ের, জোক গুলা ব্যাপকাছিলো। 😀

      তোমার কাছ থেকে আরো আরো হাসি আশা করছি (শুধু মানুষকে হাসালে হবে না, তোমার নিজেরও হাসতে হবে, সত্যিকারের হাসি)

      মিউজিশিয়ান মানুষের তো এত পেইন হবার কথা না। আমার লাইফে কি পেইন কম নাকি? বেশি আলোচনা করতে গেলে পার্সোনাল বিষয় নিয়া অনেক কথা বলা হয়ে যাবে, আমি সেটা এখানে আলোচনা করতে চাইনা। যাউকগ্যা, আমি যেটা বলতে চাচ্ছিলাম - তোমার ছবিখান দেখে তো মনে হয় তুমি সেই মাপের গিটারিস্ট। বেশি কষ্ট হইলে গিটার নিয়া বসে যাইবা। মিউজিক কম্পোজিশনের মত টাইম পাস আর কি হতে পারে মিউজিশিয়ানদের জন্য? This is such a talent which can make your tears out from others' eyes; and the laughter out from others' hearts... তাই, মিউজিক চালায় যাও। আর সিসিবি'র সদস্যরাও কম যায় না এই শেয়ারিং-এর ব্যাপারে, সো কোনরকম ঘাপলা হইলে knock on our door, আমরা আছি তোমার লগে।

      বেশি প্রব্লেম হলে আমার সাথে ইস্পিশালি যোগাযোগ কইরো, মেডিটেশন শিখায় দিমুনে; প্রশান্তি সুস্বাস্থ্য সাফল্য!

      অফটঃ তোমার ওটা কি গিটার?

      জবাব দিন
      • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)

        এটা আইবানেজ আর জি ২৬২০ প্রেস্টিজ কিউবড ব্ল্যাক, আর পিছনে যেটা দেখছেন সেটা ফেন্ডার ডিলাক্স স্ট্র্যাটোকাস্টার চেরী সানবার্স্ট। আমার আরও একটা আছে যেটা ছবিতে আসেনি, ঐটাও আইবানেজ তবে প্রেস্টিজ না, কমদামী, আর জি ৩২০ ফ্লেইম্ড মেইপল। আমার ২৬২০ প্রেস্টিজটার আবার পিকআপ কাস্টোমাইজড, নেকে ডিমার্জিও পিএইএফ প্রো আর ব্রিজে ডিমার্জিও ফ্রেড। বাই দ্য ওয়েই, আমার ইউটিউব কি দেখতে পেরেছিলেন শেষপর্যন্ত? http://www.youtube.com/user/aj566 । আমি জো স্যাট্রিয়ানি বাজিয়েছি, দেখতে পারেন আপনার জো স্যাট্রিয়ানি পছন্দ হলে। ধন্যবাদ। আপনার পরামর্শ শুনে ভাল লাগলো, এখনই গীটার নিয়ে বসে যাচ্ছি।

        জবাব দিন
        • আমার একটা S 320 আছে... বেশি দাম না, কিন্তু ওটার শেপটাই জোস লাগ্লো... আমার সাথে যায়। ওয়েদার্ড ব্লাক।

          আরে ভাই আমি তো সাট্রিয়ানি'র সেইরকমের ফ্যান। বুকে আয় ব্যাটা :hug: আমিও তুলসি ১টা, সবচেয়ে সহজটাঃ always with me always with you. লাভ থিং-এর উপ্রে কাজ করতেসি, লিড টা তো সোজা, প্লাকিংটা ইন্টারেস্টিং।

          অই তোমার মেসেঞ্জার থাকলে এ্যাড করঃ adnanul.haque@yahoo.com

          জবাব দিন
          • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)

            এস সিরিজের গীটার দেখতে বেশ সুন্দর, তবে ম্যাহগোনী টোনের চেয়ে আমার বেইজউড টোন আমার বেশী পছন্দ। এমনি টেকনিকালি জো স্যাট্রিয়ানি বেশ সোজা, তবে ভাল করে বাজাতে বেশ ইমোশনাল কন্টাক্ট লাগে। আর মডিউলেইশনটা যেন কোনটা? অনেকগুলো টার্ম আমি ভুলে গিয়েছি। তবে এটা সত্য আমার বাজানোতে সার্পনেস আনা দরকার আরো বেশী, বেশ ফ্ল্যাট শোনায় নইলে।

            জবাব দিন
  6. রায়হান আবীর (৯৯-০৫)

    একজন লেখকের কি লেখা উচিত আর কি লেখা উচিত না সেই ব্যাপারে সাজেশন না দিয়ে, যদি কোন লেখা খারাপ লাগে তাহলে সরাসরি জানিয়ে দিন খারাপ লেগেছে। ব্যাস।

    জবাব দিন
    • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)

      ওয়েল বিপদের কারণ আর প্রকৃ্তি এত জটিল কিছু নয়, কিন্তু বিপদটা জটিল, কারণ ও প্রকৃতি বয়সের সাথে সাথে চেইঞ্জ হচ্ছে। এককালে ছিল হয়তো নারী, এখন বলতে পার মানুষ হিসেবে বেঁচে থাকাটাই হচ্ছে সবচেয়ে বড় বিপদ, অনেক কাজ, অনেক দায়িত্ব অনেক হিসাব, ক্যারিয়ার, কি হবে, কি করবো, হাতী পোষার মত করে যে একটা অ্যাম্বিশন পুষলাম পারবো তো জীবনে কোথাও পৌছতে, কোথাও কি পৌছছি, পড়াশুনা এইসব আর কি।ইত্যাদি ইত্যাদি।

      জবাব দিন
  7. রাশেদ (৯৯-০৫)

    জুবায়ের ভাই কিছু মনে না করলে একটা কথা বলি আর সুষ্পষ্ঠ ভাবে একটি ডিসক্লেইমার দিলে মনে হয় ভাল হত 🙂

    আর শেষের প্যারার জন্য শুধু বলি থাকবেন না কেন অবশ্যই থাকবেন কারন আমরা আমরাই তো 😀


    মানুষ তার স্বপ্নের সমান বড়

    জবাব দিন
  8. রেজওয়ান (৯৯-০৫)

    এই জন্যই আমরা ক্যাডেট......একটা বিষয় নিয়ে যত টানাটানি করি না কেন, পারস্পরিক সহানুভূতি, ভাতৃত্ববোধ আমাদের আবার এক রেখায় ফিরিয়ে আনতে দেরী করে না ......
    সমস্যা থাকবেই আর তার সমাধানও অবশ্যই থাকে , আর এত সহজভাবে এদের কম্বিনেশন ঘটাতে পারি দেখেই তো আমরা ক্যাডেট......... :salute:
    জয়তু সিসিবি

    জবাব দিন
    • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)
      জুবায়ের ভাই আপনার এই পোষ্ট টা পরে খুব ভালো লাগলো

      তোমাকে অস্যংখ্য ধন্যবাদ নাজমুল।

      তবে আমার আপনার সম্পর্কে জানতে খুব আগ্রহ হচ্ছে

      আমার সম্পরকে যা জানতে চাও সেটা জানিয়ে আমাকে একটা মেইল কর আমি উত্তর দিব, বা এখানেও লিখে জানাতে পার।

      ভুল করলে মাফ করে দিবেন

      না না কি বলছো ভুল হবে কেন? এত বিনয়ী হয়েতো লজ্জায় ফেলে দিচ্ছ আমাকে।

      জবাব দিন
  9. সামীউর (৯৭-০৩)

    যৌনতা মানুষের জীবনের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ যার কারণে পৃথিবীতে আমাদের আগমন, ধারণা করা হয় জ্ঞানবৃক্ষের সেই নিষিদ্ধ ফল হচ্ছে যৌনচেতনা। তবে এই ব্যাপারটি আমরা সামাজিক ভাবে অনেকটা রেখে ঢেকে রাখতেই পছন্দ করি। সামাজিক জীব হিসেবে সব মানুষই একটা নিয়মের মধ্যে অবচেতন ভাবেই চলে। সিসিবি ব্লগ হিসেবে বেশ বড় আকার ধারণ করেছে, এটা ক্যাডেট কলেজের মতো শৃংখলার ঘেরাটোপে আটক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে জানার একটা জানালাও বটে। তাই এখন জুবায়েরের মতো ডিস্ক্লেইমার দিয়ে আমি যদি প্রাপ্তবয়ষ্কদের উপোযোগী কোন গল্প (শ্লীল বা অশ্লীল এই বিতর্কে আমি যাবনা...কারো কাছে বতিচেল্লির বার্থ অফ ভেনাস অশ্লীল লাগতে পারে...ডি এইচ লরেন্সের উপন্যাসও অশ্লীলতার অভিযোগে ১৯৬০ পর্যন্ত ইংল্যান্ডে নিষিদ্ধ ছিলো, তার উপন্যাস এখন আধুনিক সাহিত্যের পাঠ্যসূচিতে স্থান পায় ) ব্লগে দেই ( জোকস গুলার মতো গল্পটাও আমার লেখা হবেনা) এবং এই ধারাবাহিকতা যদি চলে তাহলে এই ব্লগের ভবিষ্যৎ কেমন হবে? প্রাপ্ত বয়ষ্ক হিসেবে যৌন বিনোদনের দাবিটা অত্যন্ত প্রাকৃতিক কিন্তু এই বিনোদনের জন্য সিসিবিকেই কেন এই অন্তর্জালের ভুবনে বেছে নিতে হবে এই প্রশ্নের উত্তর জানাটা প্রয়োজন।

    জবাব দিন
  10. আহসান আকাশ (৯৬-০২)
    আন্তর্জাতিকতার প্রসার

    আন্তর্জাতিকতা = ......

    :)) :)) :))


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
  11. মেহেদী বখ্‌ত (৯২-৯৮)

    এত স্পষ্ট একট disclaimer দেয়ার পরও কেন এই পোস্ট নিয়ে এত সমস্যা তা আমার বোধগম্য নয়। এরপরও যে পড়বে সে স্ব দায়িত্বে পরবে। আর কেউ যদি চিন্তিত হন যে নন-ক্যাডেটরা কি ভাববে আমাদের সম্পর্কে তাহলে সেটা কেমন যেন ভন্ডামি শোনায়।

    জবাব দিন
  12. জুবায়ের ভাই,
    আপনার যুক্তি গুলো সঠিক হয়ত।

    আন্তর্জাতিকতার প্রসার

    ব্যাপারটা বুঝি নাই।

    সেক্সচ্যুয়ল বিষইয়গুলো খোলামেলা করে

    এর প্রকৃত অর্থ হয়ত আমার অবোধ্য...

    বড় ভাই, আমার কথায় রাগ করবেন না আশা করি... আমার ব্যক্তিগত অভিমত বলতে চাই শুধু। আপনার পোস্ট এর জোকস গুলো যথেস্ট মজার। কিন্তু আসলে "সেক্সচ্যুয়ল বিষয়গুলো" আমাদের কেউ জানিনা, বুঝিনা এমন কোন সম্ভাবনা নাই। "খোলামেলা" হওয়ার জন্য আমাদের বন্ধুমহলের আড্ডাগুলো মোটেই কম কিছু নয়। সিসিবি এর মত যায়গায় এই জাতীয় জোকস দিয়ে সেক্সচ্যুয়ল বিষয়গুলো খোলামেলা হওয়ার আদৌ প্রয়োজন আছে বলে মনে হয় না। যদিও ডিসক্লেইমার দেয়া হোক না কেন।

    ভালো থাকবেন।
    আমার কথা খারাপ লেগে থাকলে আমি দুঃখিত। যে কোন ব্যাপার, সিদ্ধান্ত সবার কথা ভেবে নিলে ভালো হয়।
    আবারো বলি, আমার কথায় মাইন্ড কইরেন না। আমার কাছে একটু অন্যরকম লাগলো তাই অসঙ্কোচে বলে ফেললাম।
    😛

    জবাব দিন
    • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)
      "আন্তর্জাতিকতার প্রসার" আর "সেক্সচ্যুয়ল বিষইয়গুলো খোলামেলা করে" ব্যাপারটা বুঝি নাই।

      ওমা কেন? আমি তো মনে করি তারা সেল্ফ-এক্সপ্ল্যানেইটোরি। আমি বোঝাতে চেয়েছি যে, পৃথিবীর সব উন্নত দেশগুলোর মত বাংলাদেশেও সেন্সরশিপ দুর হোক যার প্রথম পদক্ষেপ হবে সেক্সচ্যুয়ল সেন্সরশিপ দুর হওয়ার মাধ্যমে, এটা হতে পারে একটি অন্যতম কারণ যা আমাদের সামাজিক মূল্যবোধকে উন্নিত করবে গোষ্ঠিগত আঞ্চলিকতা থেকে বিস্তৃত, ব্যাপ্ত ও মানবসভ্যতার সবচেয়ে প্রতিনিধিত্বশীল আন্তর্জাতিকতার দিকে। অবশ্যই বলছিনা যে এটা হবে শুধু বড়দের জোক করেই। আর না আমি মাইন্ড করিনি, ব্যাখ্যা চাওয়ার অধিকার তাওমার আছে, আর তুমি যে অসঙ্কোচে বলেছ এটার জন্য বরং তোমাকে সাধু বাদ জানাই।

      জবাব দিন
  13. সামীউর (৯৭-০৩)
    এই পোস্টের কন্টেন্ট প্রাপ্তবয়স্কদের জন্যে।

    সিসিবিতে যারা আসে বেশীরভাগই কলেজ থেকে বের হওয়া যার মধ্যে আমরা ক্যালেন্ডারের পাতায় ১৮ (যা প্রাপ্তবয়ষ্কের মাপকাঠি ধরা হয় তা পেরিয়ে যদিও ক্যালেন্ডারের পালা বদলে অনেকের মানিসিক অপরিপক্কতা থেকেই যায়!) যাই, তাই আমার মনে হয় এখানে ই কন্টেন্ট ফিল্টারিং ডিস্ক্লেইমার লাগানোটা ভূল! জোকস আমরা বানাই না, আমরা কোথাও শুনি বা পড়ি (অন্তত আমি)।
    তাই আমি যদি এখন আমার কলেজ জীবনে রেলের বুকস্টল থেকে কেনা সস্তা নিউজপ্রিন্টে ছাপা ভুল বানানে লেখা অজ্ঞাত কোন লেখকের গল্প ১৮+ ডিস্ক্লেইমার দিয়ে পোস্ট দেই এবং এভাবে সিসিবিতে ১৮+ কন্টেনেটের জোকস, গল্প, যা খুশি আসতে থাকে তাহলে কি সিসিবির ব্লগ ট্যাগে রাজনীতি, রম্যরচনা, ব্লগর ব্লগর এর মতো প্রাপ্তবয়ষ্কদের জন্য
    একটা ট্যাগ বানানো দরকার?

    জবাব দিন
    • জুবায়ের অর্ণব (৯৮-০৪)
      আমি যদি এখন আমার কলেজ জীবনে রেলের বুকস্টল থেকে কেনা সস্তা নিউজপ্রিন্টে ছাপা ভুল বানানে লেখা অজ্ঞাত কোন লেখকের গল্প ১৮+ ডিস্ক্লেইমার দিয়ে পোস্ট দেই এবং এভাবে সিসিবিতে ১৮+ কন্টেনেটের জোকস, গল্প, যা খুশি আসতে থাকে

      এরকম তো এখানে হচ্ছে না। আর হলেও যদি জনমত এর বিরোধিতা না করতো আমরা তো কিছু করতে পারতাম না। আপনি খেয়াল করে দেখবেন আমি বলেছি যে, জনমত যদি এই পোস্টের বিপক্ষে থাকে তবে আমি এটা তুলে নেব, এবং জনমত এর বিরুদ্ধে নয় বলেই এটা এখনও এখানে আছে। আপনার স্বাধীন মত নির্ভিকভাবে জানানোর জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

      জবাব দিন
  14. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    মজার বিষয় কি, গত ৩৬ ঘন্টায় সম্ভবত এই পোস্টটিতেই সবচেয়ে বেশি হিট পড়েছে। অন্য কোনোটা এর ধারেকাছেও নাই।

    যে লেখায় "প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য" ট্যাগ লাগানো থাকবে দেখবে সেটাতেই সবচেয়ে বেশি হিট পরে। এটা মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি। আমরা সব প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ। আমরা একমত হবো না, জানি। তবে সবার কাছে একটাই অনুরোধ, মনটাকে খোলা রেখ। দরজা-জানালা দিয়ে আলো-বাতাস ঢুকতে দাও। তারপর সিদ্ধান্তটা যার যার কোনটা সে গ্রহণ করবে।

    আমার প্রাক্তন বসের কথা বলি। একদিন এক মিটিংয়ে উনি জানতে চাইলেন পর্নোগ্রাফি আমরা দেখি বা পড়ি কিনা। প্রশ্ন শুনে আমরা পরস্পরের মুখ চাওয়া-চাওয়ি করছি। উনি বললেন, "ওই মিয়া কেউ যদি বলে আমি পর্নোগ্রাফি দেখি নাই বা পড়ি নাই; তাহলে আমার সন্দেহ হবে যে সে মিথ্যা বলছে। এটা মানুষের-প্রাণীর শরীরবৃত্তিয়-স্বাভাবিক বিষয়। সেক্সের বিষয়ে কোনো মানুষের আগ্রহ না থাকাটা বরং অস্বাভাবিক।"

    মানুষের ষড়রিপু আছে। কখনো কোনটা তাকে গ্রাস করবে সেটা সময়, পরিবেশ, পরিস্থিতি ঠিক করে দেয়।


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  15. হোসেন (৯৯-০৫)
    হাতী পোষার মত করে যে একটা অ্যাম্বিশন পুষলাম পারবো তো জীবনে কোথাও পৌছতে

    ওয়েলকাম টু দা ক্লাব 😀 😀 😀 😀

    আমার অবস্থা আরো খারাপ। প্যাশন ছিল এবং আছে ফিজিক্সে, বাসার চাপে পড়তেছি ইলেক্ট্রিকাল মস্তিরিগিরি। গত তিন বছর যাবত ঘুমাতে যেতে ভয় পাই। চারপাশ যখন নীরব হয়ে উঠে তখন নিজের মুখোমুখি হতে ভয় লাগে।


    ------------------------------------------------------------------
    কামলা খেটে যাই

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।