মনে পড়ে ওপারের জীবন…

আজ অনেক দিন…দিন বললে ভুল হবে,অনেক মাস পর সিসিবি তে লিখছি। লেখাটা নিতান্তই উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে,নিজের ব্যাচ, নিজের কলেজের কিছু নিজের মানুষকে উৎসর্গ করছি!
লেখা হয়না কতদিন!!জীবনের ব্যাস্ততার মাঝে ভুলেই গেছি ফেলে আসা আরেক জীবন আমার! কিন্তু বাস্তবে…ভোলা হয়নি, ভলা যায়নি, যাবেও না সেই দিন গুলো!
কলেজে বসে শেষদিনগুলোতে লেখা কিছু বিক্ষিপ্ত আবেগের আবোল তাবোল আর ডায়েরির বাকি পাতা গুলোতে নিজের মানুষদের উত্তপ্ত মন্তব্যের ঢল- এইতো সম্বল আমার! তাও হারিয়ে ফেলেছি রে শিমীম… রাগ করিস না, খুঁজে বের করে ফেলবো ঠিক দেখিস!
আবার লেখার আগ্রহ পেলাম লিজার জন্যেই। সে ও এই ব্লগ পড়ছে, পাঠক পেলাম! বাকি গুলোকেও ঘাড় ধরে পড়াতে পারবো… এটা তো আর ২০০৮ এর ফেসবুক না!!!!
আসলে এটা ঠিক লেখা হচ্ছেনা, হচ্ছে ভার্সিটির ইংরেজী ম্যাম এর ভাষায় Pre writing!! কি লিখবো গুছিয়ে ওঠা, আর সাথেই সবাইকে জানান দেয়া I AM BACK!
লিখতে বসলেই আমার চোখের সামনে ভাসে ইঁট বিছানো একটা পায়ে হাঁটা পথ, ডানদিকে ব্লকের গ্রিল, ফাঁকে ফাঁকে অতিরিক্ত নীল দেয়া কিছু সাদা মোজা(7-8 এর ব্লক, শান্তি হাউস) আর বাঁ দিকে Bottlebrush গাছের সারি ছাড়িয়ে মন উদাস করা সবুজ আর সবুজ! সামনে বাগানবিলাসের গোলাপী আভা, আর সাদা নির্জন একটা নেট লাগানো ব্লক(হাসপাতাল)।


আমার অলস মুহুর্ত গুলোতে উঁকি মেরে যায় মিতু’র হাসতে হাসতে হাসির কথা টা বলতেই না পারা, বাগানবিলাসের ঝাড়টা কেটে ফেলায় তাজিনের কান্নাভেজা চোখ দুটো, রিডিং রুমে টিষা’র কাস্টার্ড কেক গলাধঃকরণের আপ্রান চেষ্টা… আর কোন এক অজ্ঞাত কারনে আমার গোলাপী ballerina shoes!
সেই ছয়টা বছর যে স্বপ্ন ছিলোনা, বরং আমার নিজের জীবনের নিত্য বাস্তব ছিলো তা এখন নিশ্চিত জানি। কলেজ থেকে বের হয়ে “রঙ্গের দুনিয়া”র ঘোর না কাটতেই এইচ.এস.সি’র ফলাফল ভয়াবহ দূঃস্বপ্নের মাঝে ঠেলে দেয় আমাকে। আবার উঠে দাঁড়াতে দেরী করে ফেলেছিলাম সত্যি, কিন্তু প্রিয় নিন্দুকেরা বাঁচিয়ে দিল! যাদের ভাষ্যমতে- তাদের পিছু নিয়ে একই কোচিং এ ভর্তি হই আমি, আজ বেশ এগিয়ে গেছি তাদের থেকে!এখন আশা করছি কেউ বলবেনা কেউ যে তাদের পিছু নিয়ে আমি এখানে… যেখানে আছি…নিজেকে নিয়ে খুশী একজন মানুষ!
এখন ভাবার অবসর হলো, অনেক দেরীতে! এখন তো জানি এটাই জীবন। তাই সেই জীবনটাকে মাঝে মাঝে দেখে আসতে খুব লোভ হয়! যদি ডালিয়াকে আবার পেতাম সেরকম হাতের নাগালে, রুমে যেমন ছিল, দুটো চড় লাগিয়ে বলতাম,আমরা দুই রুমমেট কি করেছি তোর সাথে? ফোন ধরিস না কেন? ফাজলামীর জায়গা পাস না?? বুঝলাম ডাক্তার হবি, তাই বলে এত্ত ভাব?যা যা, ভিজিট দিয়েই নাহয় দেখাব তোর কাছে! তাও তো… এভাবে হারিয়ে যাস না!!!

আল্লাহ সবাইকে তার স্বপ্ন পূরণের ক্ষমতা দিক, এটুকুই কামনা!!!

৫৬৬ বার দেখা হয়েছে

৪ টি মন্তব্য : “মনে পড়ে ওপারের জীবন…”

  1. আসিফ খান (১৯৯৪-২০০০)

    "যাদের ভাষ্যমতে- তাদের পিছু নিয়ে একই কোচিং এ ভর্তি হই আমি, আজ বেশ এগিয়ে গেছি তাদের থেকে!এখন আশা করছি কেউ বলবেনা কেউ যে তাদের পিছু নিয়ে আমি এখানে… যেখানে আছি…নিজেকে নিয়ে খুশী একজন মানুষ!"
    জীবনের দৌড়ে আমাদের একমাত্র প্রতিপক্ষ আমরা নিজেরাই, অন্যেরা সব ছায়া মাত্র! খুশী মনে জীবনের পথে হেঁটে যাও বহুদূর, বহুদিকে।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।