ধোঁয়া খাওয়া চাঁদ

লেখাটিকে কবিতা বলার দুঃসাহস করতে পারছিনা। পাঠকেরা তাই একে এক শহুরে পাগলের আবোলতাবোল বকা বলেই ধরে নেবেন।

ধোঁয়া খাওয়া চাঁদ

তোর লাগি আমি চাঁদ হব,
গ্রামের মুক্ত আকাশের অপূর্ব চাঁদ নয়;
নগরের ধোঁয়া খাওয়া চাঁদ;
কালো ধোঁয়া, বিদ্যুতের আলোর সাথে যুদ্ধ করা এক চাঁদ।
সখী, তোর লাগি আমি সেই চাঁদটি হব।

তোর কাছে আসব আমি এ শহরেরই কোনও এক দশতলার ছাদে,
না, গায়ে-হলুদ বা জন্মদিনের কোনও অনুষ্ঠানে আমি তোকে জ্বালাবো না,
এমনকি তোর ফ্লাটের রুমে, নিজের মত কাজ করার সময়ও তুই আমায় দেখতে পাবি না,
শুধুমাত্র যখন তোর প্রচণ্ড মন খারাপ; আশপাশের সবাই থেকে যখন তুই প্রতারিত,
অথবা তোর মন প্রচণ্ড ভালো, সুখের ঝড়ে মন-ভেলাটি তোর আন্দোলিত;
তখন দেখা দিবি তুই আমার কাছে,
ছাদের রেলিঙে বসে, একাকী, যেখানে শুধুই বাতাস আছে।
কালো-সাদা সকল ধোঁয়াকে সরিয়ে আমি আসব
মৃদু বাতাস নিয়ে,
হালকা আঁধার নিয়ে,
দূরে ছুটে যাওয়া অজানা কোনও প্লেনের লাল ফোঁটা নিয়ে।
অদ্ভুত এক নীলাভ আলোয় আমি তোকে আমার করে নেব,
বিশ্বাস কর, তোর সাথে যাই ঘটুক না কেন আমি তোর মন ভালো করে দেব।

তোর লাগি আমি সেই চাঁদটি হব,
গ্রামের মুক্ত আকাশের অপূর্ব চাঁদ নয়,
নগরের ধোঁয়া খাওয়া চাঁদ।

৯৫২ বার দেখা হয়েছে

৬ টি মন্তব্য : “ধোঁয়া খাওয়া চাঁদ”

  1. ফরহাদ (২০০৫-২০১১)
    ছাদের রেলিঙে বসে, একাকী, যেখানে শুধুই বাতাস আছে।
    কালো-সাদা সকল ধোঁয়াকে সরিয়ে আমি আসব
    মৃদু বাতাস নিয়ে,

    ভালো হয়েছে ভাই...


    এক জীবনে কতটা আর নষ্ট হবে?

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।