কেন?

আজ অনেক দিন ধরেই চাচ্ছি ব্লগে লেখার জন্য…কিছুতেই হয়ে উঠছে না।ছুটি চলছিল।২৭ ফেব্রুয়ারিতে বাসা(সিরাজগঞ্জ) থেকে খুলনা(কুয়েট) আসছি।আমার ডাইনোসরটার(মগকক,৯৯) সাথে যেহেতু নিয়মিত ফোনালাপ( আনুমানিক দৈনিক গড়ে ৪ ঘন্টা) হয়,আর এর মধ্যে কলেজের স্মৃতিচারন হয় প্রায় ৫০ ভাগ সময়।১৩-২২ ফেব্রুয়ারি ঢাকা ছিলাম।আমরা সাধারণত একা কোথাও ঘুরতে যাই না বা আড্ডা দেই না,কোন না কোন ক্যাডেট( আমি এক্স ক্যডেট বলতে নারাজ,ক্যডেট সবসময়ই ক্যডেট) সাথে থাকে।এবার বেশিরভাগ সময় স্যাম আর আহসান(মকক,৯৯) সাথে ছিল।অসাধারণ মেয়ে।ওর হাসিমুখ চোখে ভাসছে।তাই সাহস হয় নি ওকে ফোন করার।সাহস হয় নি সা…
ওই কয়েকদিন কতনা প্রার্থণা করছি আঙ্কেলের(কর্ণেল ডাঃ জাকির) জন্য।আল্লাহ তায়ালা ওনাকে বেহেশত নসীব করুন।কিন্তু কেন?…..লিখতে পারছি না….সব ঝাপসা…
আমাদের (আমি আর আমার ডাইনোসর)মধ্যে একটা অলিখিত চুক্তি আছে,কেউই দুঃসময়ে একসাথে ভেঙ্গে পড়ব না। ওই কয়েকদিন ঘটনা ওর একার পক্ষে bear করা সম্ভব ছিল না।কারণ ও ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে থাকার জন্য প্রায়ই স্যামদের বাসায় যায় এবং ২৫ তারিখ রাতে ওর ওখানে থাকার কথা ছিল।কিন্তু ১১ টার দিকে স্যাম ওকে ফোন করে যেতে নিষেধ করে। আমি বলে দেই ক্লাস শেষে রোকেয়া হলে যাবার জন্য,কারণ তখন টিভিতে ব্রেকিং নিউজ দেখাচ্ছিল।ওই ২টা দিন ২০ ঘন্টা করে টিভির সামনে বসে ছিলাম শুধু আঙ্কেলের খবর জানার জন্য।…..।আম্মি বলে,”সরকারের থেকে দেখি তোর টেনশন বেশি।””ওখানে স্পটে আঙ্কেল ছিল”,টিভিতে চোখ রেখে বলি “ওনার কোন খবর পাওয়া যাচ্ছে না।”।
২৬ তারিখ রাতে আড়াইটায় মাহমুদের(রকক,৯৯) সাথে কথা হয়।”ইতিহাস বলে,কোন ক্যু তে অফিসাররা বাঁচেনি।””না রে”,আমি বললাম,”দেখিস,আঙ্কেল ঠিকই ভাল আছেন।দোয়া কর,দোস্ত।”পরদিন সকালে খুলনা চলে আসি।পেপার,টিভি,নেট….সব বাদ দিলাম(…এত রক্ত..)।শুধু ডাইনোসরটার কাছে খবর নেই।খবর পেলাম।
২ মার্চে রাত ১০টায় কি মনে করে সিসিবিতে ঢুকলাম।একেকটা পোস্ট পরছি….পারলাম না নিজেকে ধরে রাখতে।শেষ কবে কেঁদেছি জানি না,ধরেই নিয়েছিলাম কাঁদতে পারি না।এতটা Confident হয়েও পারলাম না।গত ৫ দিন ধরে ডাইনোসরটাকে শক্ত রেখে ওই সময়টায় আমি যেন ভেঙ্গে গেলাম।এভাবে কাঁদতে পারি জানতাম না।ফেসবুকে অনলাইনে মামনুন ভাই(পকক,৯৮)(একই হলের তিন তলায় থাকেন,আমি নিচ তলায়) ম্যাসেজ পাঠালাম।”প্লিজ,সিসিবিতে ঢুইকেন না।”,চোখ মুছতে মুছতে টাইপ করলাম।”i cnt stop my tears.”।”সব ঠিক হয়ে যাবে”,ওনার ছোট্ট উত্তর।
পরদিন বিকেলে মাহমুদের সাথে দেখা।হলের পাশে,চায়ের দোকানে।”দোস্ত,এতগুলা অফিসার..এতগুলা ক্যাডেট…কেন?”ওকে জিজ্ঞেস করলাম।দেখি ওর চোখ দিয়ে অঝোরে পানি পড়ছে।আমি আমারটা আটকাতে অন্য দিকে চোখ ফিরিয়ে নিলাম।”কুত্তা,আমারে কাঁদাইলি ক্যান?”
কতবার চোখ মুছব………..
ক্লাস টেন এ শামীমের(মকক,৯৯) খাতার ওপর একটা লেখা দেখেছিলাম।

এমন জীবন তুমি করিও গঠন,মরিলে হাসিবে তুমি কাঁদিবে ভুবন।

আমাদের সূর্যসন্তানেরা হাসতে হাসতে চলে গেছেন….আর আমরা….

কিন্তু কেন?

৯২৪ বার দেখা হয়েছে

১৪ টি মন্তব্য : “কেন?”

  1. ফয়েজ (৮৭-৯৩)
    খুলনা(কুয়েট)

    তুমি কুয়েটের নাকি, সেলাম, এই বান্দাও ওই খাঙ্কার পোলা। লালু হলে ছিলাম, পরে শুনলাম আমাগো ভলিবল গ্রাউন্ড আরেকটা হলে খাইয়া ফেলছে।

    আমি ইইই তে ছিলাম, তুমি?


    পালটে দেবার স্বপ্ন আমার এখনও গেল না

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।