নামটা খুঁজে পাচ্ছি না

আমার ঠিক জানা নাই ভালো লেখকরা কোন কিছু লিখার আগেই নামটা দিয়ে দেন কিনা।আমি শুধু এটাই জানি যে আমি দেই।কিন্তু এইটার যে কি নাম দিব খুঁজে পাচ্ছি না।

ছোটবেলায় প্রথমে হতে চেয়েছিলাম কনফেকশনারীর দোকানদার।বিনা পয়সায় পেষ্ট্রী খাওয়াটাই যখন আমার কাছে সবচাইতে আকর্ষনীয়।তারপর কখন ও ক্রিকেটার,কখন ও জার্নালিষ্ট (স্পোর্টস),কখন ও ফ্যাশন ডিজাইনার আবার কখন ও স্বপ্ন দেখেছি আমি বিরাট এক্সিবিশন করছি বেংগল গ্যালারীতে।কখনোই যেটা চাইনি সেটা হল আর্মি অফিসার হতে।শেষ পর্জ়ন্ত ওটাই হতে হল।তাই স্পোর্টস রিপোর্টার হওয়ার সুপ্ত ইচ্ছেটা এই ব্লগেই পুরন করি।

গতকাল অফিস থেকেই মেজাজটা খারাপ।সন্ধ্যার পরে শুনলাম রকিবুল হাসান অবসরের ঘোষনা দিয়েছে।শেষ প্রাকটিস ম্যাচে সেঞ্চুরী আর হাফ সেঞ্চুরীর পর মোটামুটি নিশ্চিত টিমে থাকা।সবার মত আমার ও প্রথমে মনে হল আমাদের দেশের সেই “চিরায়ত পলিটিকস”।পরে যে কয়েকটা কাগজ পেলাম পড়লাম।রকিবুল হাসানের অবসরের সিদ্ধান্তের কারন ‘অবহেলা’।আরে ভাই,২০-২০ ম্যাচ টেষ্ট প্র্যাকটিস করার জ়ায়গা না।তোমাকে কেন টিমে রাখবে?ইদানিং নাকি নামাজ রোজা করে ধার্মিক হওয়ায় সে ব্যাংকে টাকা রেখে সুদ খাবে না।খুব ভাল কথা।না খেলেই হয়।মোহাম্মদ ইউসুফ কিংবা সাউথ আফ্রিকার মত দেশে থেকে হাশিম আমলার মত খেলোয়াড় সবকিছু ম্যানেজ করে খেলতে পারে।পারে না শুধু আমাদের রকিবুল।আমাদের সমস্যাটা এখানেই।সে হয়তোবা মনে করেছে এখন তাকে অনেক হাত পা ধরে ফিরিয়ে আনা হবে।হতেও পারে।আমাদের দেশের এটাই নিয়ম।কিন্তু ম্যাচের ২ দিন আগে দেশ ও টিমকে বিপদে ফেলে দিয়ে মজা দেখার অধিকারটা তাকে কে দিল?হয়তোবা আমাদের যে সাংবাদিকেরা এতদিন তাকে ধুয়ে ফেলেছে,তারাই আবার ওকে মাথায় তুলবে।কিন্তু আমার কাছে, যে খেলোয়াড় দেশ ও টিমকে এভাবে বিপদে ফেলে চলে যায়, তাকে আর না ডাকাটাই ভালো।সে তো এমন কিছু না- নিতান্ত ই আমার মতামত।

২,০৯০ বার দেখা হয়েছে

১৯ টি মন্তব্য : “নামটা খুঁজে পাচ্ছি না”

  1. আহসান আকাশ (৯৬-০২)

    রকিবুলের খেলা প্রথম দেখার পর থেকেই আমি ওর ফ্যান হয়ে গিয়েছিল, মনে হয়েছিল এতদিনে আমরা একজন মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান পেলাম যার উপর নির্ভর করা যায়। কালকে সন্ধ্যায় ওর পদত্যাগের কথা শুনে আমি বেশ একটা শক পেয়েছি। টিভি আর নেটে ভিতরের খবর জানার চেষ্টা করেছি। তবে নিশ্চিত করে কিছুই বুঝতে পারিনি, এখন আপনার কাছ থেকে আরো একটা নতুন দিক জানলাম। এক জায়গায় তো পড়লাম তাকে নাকি দলের ভিতরে বেশ টিজ করা হতো, তা সহ্য করতে না পেরেই নাকি সে এই কাহিনি করলো।

    এটা ঠিক যে সে হুট করনে এরকম একটা সিদ্ধান্ত নিয়ে পুরো দলকে বিপদে না ফেললেও সবাইকে বেশ বিব্রত পরিস্থিতির মাঝে ফেলে দিয়েছে। এক রকিবুলের জন্য বাংলাদেশ ক্রিকেট থেমে থাকবে না। তবে আমার মনে হয় এক্ষেত্রে রকিবুলের বয়সটা বিবেচনা করা উচিৎ। উপুযুক্ত কাউন্সিলিং এর মাধ্যমে তাকে খেলায় ফিরিয়ে আনতে পারলেই বাংলাদেশ ক্রিকেট লাভবান হবে, তাকে শাস্তি দিয়ে বসিয়ে রাখলে নয়। আর সে যদি তার না খেলার সিদ্ধান্তে দৃঢ় থাকে তাহলে তাকে নিয়ে আর ঘাটাঘাটি না করাই ভাল। হাজার হোক সে তো আর আইসিএল এর ট্রেইটরদের মত টাকার জন্য জাতোয় দলকে বুড়ো আঙ্গুল দেখায়নি।

    তবে কোন নির্দিস্ট ব্যক্তি ছাড়া দল চলবে না এরকম ধারনা গড়ে উঠতে দেয়া ঠিক নয়। মাশরাফি যেমন দল থেকে বাদ পড়ায় কাউকে তোয়াক্কা না করে ক্যাম্প ছেড়ে নিজের খেয়াল খুশি মত চলে গেল, তার শাস্তি হওয়া উচিৎ। সে দিক থেকে তুলনা করলে রকিবুল তো পুরো নিয়ম কানুন মেনে কাজ করেছে।

    (বস, বিশাল কমেন্ট করে ফেললাম। ব্লগে পুরা ক্রিড়া সাংবাদিক বনে যান, অনেক দিন ধরে খেলাধূলা নিয়ে তেমন লেখা আসছে না)


    আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
    আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

    জবাব দিন
    • রুম্মান (১৯৯৩-৯৯)

      বিসাল কমেন্ট করছ তাতে কোন সমস্যা নাই।মাশরাফি যা স্বাস্থ্য বানাইছে তাতে ওর বাদ দেওয়াটা ফরজ। ওর আগে পেট যায়।আর বোলিং কি করে এইগুলা? আমার ১ সিনিয়র অফিসারের কাছ থেকে শোনা,মাশরাফি যখন অষ্ট্রেলিয়া যায়,তখন এয়ারপর্টের লাউঞ্জে উনিও মাশরাফির সঙ্গে ওয়েট করছিলেন।প্রায় ২ ঘন্টা সময় ও নাকি শুধু সেল ফোনে ব্যাবসার কথা বলছে। অমুক কে ১ লাখ টাকা দিস,অমুকের কাছ থেকে ২ লাখ আনিস এসব।তুই বাবা যাইতেছিস অপারেশন করাইতে,এটার উপর তোর ক্যারিয়ার।তুই দোয়া চা সবার কাছে।তা না,ব্যাবসা।

      রকিবুল কে টিজ করার কথা বলছো?১২ বছরের ১টা ছেলে আথারি পাথারি টিজ খাওয়া যখন শুরু করে ক্লাস সেভেনে ঢুকে,তখন সে কি কলেজ থেকে চলে আসে?আর ২২ বছরের ঐ বুড়া পোলার টিজ সহ্য হয় না?

      ক্রীড়া সাংবাদিক বনতে পারি।কিন্তু শুধুমাত্র ক্রিকেট নিয়া।তোমার মনে আছে কিনা জানিনা,১৯৯৭ এ মির্জাপুরে আই সি সি ফুটবলের পর থেকেই ফুটবল সংক্রান্ত যাবতীয় কিছু থেকে অবসর নিছিলাম।এর পর থেকে আর ফুটবল না।
      রিপ্লাই তো দেখি আমাটাও বড় হয়ে গেল। 😀 (সম্পাদিত) (সম্পাদিত)


      আমার কি সমস্ত কিছুই হলো ভুল
      ভুল কথা, ভুল সম্মোধন
      ভুল পথ, ভুল বাড়ি, ভুল ঘোরাফেরা
      সারাটা জীবন ভুল চিঠি লেখা হলো শুধু,
      ভুল দরজায় হলো ব্যর্থ করাঘাত
      আমার কেবল হলো সমস্ত জীবন শুধু ভুল বই পড়া ।

      জবাব দিন
      • আহসান আকাশ (৯৬-০২)

        ২০০১ সালের আইসিসি ফুটবলের সেমিফাইনালে স্বাগতিক এফসিসি আমাদেরকে হারিয়ে দেবার (?) পরে আমিও ফুটবল থেকে অবসর নিসিলাম, কিন্তু ফুটবল আমার রক্তের মধ্যে মিশে আছে, এক মাস যেতে না যেতেই আবারো সেই ফুটবল। দুঃখের কথা মনে পড়ে গেল, এফসিসি কি খেল ই না দেখাইছিল x-(

        অফটপিকঃ বস আমিও কিন্তু গোলকিপার ছিলাম 🙂


        আমি বাংলায় মাতি উল্লাসে, করি বাংলায় হাহাকার
        আমি সব দেখে শুনে, ক্ষেপে গিয়ে করি বাংলায় চিৎকার ৷

        জবাব দিন
    • রুম্মান (১৯৯৩-৯৯)

      রাজিন সালেহ এর ফর্ম ও নাই।ডিকেন্স ্যে পরপর ২টা লীগে সর্বোচ্চ রান করলো,তার পুরস্কার কই?না দিলে তো ভাল খেলার প্রেরণাটা আসবে না। (সম্পাদিত)


      আমার কি সমস্ত কিছুই হলো ভুল
      ভুল কথা, ভুল সম্মোধন
      ভুল পথ, ভুল বাড়ি, ভুল ঘোরাফেরা
      সারাটা জীবন ভুল চিঠি লেখা হলো শুধু,
      ভুল দরজায় হলো ব্যর্থ করাঘাত
      আমার কেবল হলো সমস্ত জীবন শুধু ভুল বই পড়া ।

      জবাব দিন
    • রুম্মান (১৯৯৩-৯৯)

      হা হা হা...। 😀 সম্পাদিত হওয়ার কারন হল আমি কমেন্টানোর পরে দেখি অভ্র এর বদৌলতে বেশ কিছু বানান ভুল।ঐগুলা আবার এডিট করছি।তাই সম্পাদিত লিখা আসলো।কিলিয়ার???


      আমার কি সমস্ত কিছুই হলো ভুল
      ভুল কথা, ভুল সম্মোধন
      ভুল পথ, ভুল বাড়ি, ভুল ঘোরাফেরা
      সারাটা জীবন ভুল চিঠি লেখা হলো শুধু,
      ভুল দরজায় হলো ব্যর্থ করাঘাত
      আমার কেবল হলো সমস্ত জীবন শুধু ভুল বই পড়া ।

      জবাব দিন
  2. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    আমার মনে হয় না রকিবুলকে শাস্তি দিয়ে ফিরিয়ে আনলে সেটা দলের জন্যে খুব ভালো ব্যাপার হবে ... আমাদের জন্যে ক্রিকেট আমোদ প্রমোদের বিষয় হলেও তার কাছে কিন্তু ব্যাপারটা পেশা ...... খুব গুরুত্বপূর্ন কারণ না হলে বা খুব বেশি ছেলেমানুষী না থাকলে তার এই ডিসিশন নেয়ার কথা না .... যেটাই হোক আমার মনে হয় না এক রকিবুলের জন্যে বাংলাদেশের ক্রিকেট থেমে থাকবে, হয়ত একটু পিছিয়ে গেল -- কিন্তু থেমে কখনই থাকবে না .....

    জবাব দিন
  3. সানাউল্লাহ (৭৪ - ৮০)

    কেন জানি না, আমার মনে হয় সাকিবও সমস্যা হয়ে উঠছে কিনা। খেলার আগে পরে সংবাদ সম্মেলনগুলোতে ওর বক্তব্য ঠিক পছন্দ হচ্ছে না। বেশ আক্রমণাত্মক ভাষা। মাশরাফি বা রকিবুল নিয়ে তার বক্তব্য কিন্তু ইঙ্গিত দেয় যে দলে সমস্যা আছে। সময়মতো নজর না দিলে এটা বিদ্রোহের দিকেও যেতে পারে। যদিও ওকে বেশ পছন্দ করি। আমার মনে হচ্ছে ক্রিকেট দল নিয়ে বড় বেশি রাজনীতি চলছে। আমরা বড় বেশি এক্সপেরিমেন্ট করছি দল নিয়ে। বাচ্চা বয়সীদের গুরুদায়িত্ব দিচ্ছি। সেটা বহন করার ক্ষমতা তাদের আছে কিনা, ভাবা দরকার।


    "মানুষে বিশ্বাস হারানো পাপ"

    জবাব দিন
  4. কামরুল হাসান (৯৪-০০)

    মোস্তফা মামুন ভাইয়ের এই লেখাটা পড়তে পার।


    ---------------------------------------------------------------------------
    বালক জানে না তো কতোটা হেঁটে এলে
    ফেরার পথ নেই, থাকে না কোনো কালে।।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।