রাজশাহীতে AMEC এর কম্বল বিতরণ

গতকাল  রাজশাহীতে হয়ে গেলো  Association of Mymensingh Excadets(AMEC) এর কম্বল বিতরণ । AMEC এর পক্ষ থেকে কম্বল বিতরণীতে ছিলেন জিনাত শামা  আপা (০২-০৮) , তাসনুভা আপা (০২-০৮), শফিকা মনি ( ০৩-০৯), তাসনিম মিতু (০৪-১০),সিফাত (০৪-১০), সাদিয়া আরজু (০৪-১০)।

উনাদের সহযোগিতায় ছিলেন কবির ভাই(প ক ক, ৮৯-৯৫), জামিল ভাই(প ক ক, ৯৬-০২), মুকতাদির( ম ক ক, ০৫-১১), প্রিয়াঙ্কা( জ গ ক ক, ০৫-১১)এবং আমি। কোন বস্তিতে কম্বল বিতরণ করতে হবে এবং কোথায় অসহায় মানুষের সংখ্যা বেশি এবং কম্বলের সঠিক বণ্টনের ক্ষেত্রে সহযোগিতায় ছিলেন নোটারি ক্লাব,   নর্থ বেঙ্গল ।একটি কথা না বললেই নয় কম্বল এর অর্থায়ন এর কাজ করেছে AMEC  আর বস্তী খুঁজে বের করা (যেখানে অসহায় লোকের সংখ্যা বেশি ) এবং এর সঠিক বণ্টন এর জন্য অভিজ্ঞ কারো  সাহায্যের দরকার ছিল , ঠিক সেই জন্য রোটারি ক্লাব এর সাহায্য এর নেয়া হয়েছিলো ।   থাক বেশি না বাড়িয়ে কম্বল বিতরণীর কিছু ফটো দেখা যাক ।

কম্বল বিতরণীর পৃষ্ঠ পোষক AMEC

 

কম্বল বিতরণীর পূর্বে AMEC এর পক্ষ থেকে বক্তব্য রাখছেন জিনাত শামা আপা ( ম গ ক ক,০২-০৮)

কম্বল বিতরণীর পূর্বে বক্তব্য রাখছেন রাজশাহীর বড় ভাই হিসেবে পরিচিত এবং ক্যাডেট দের প্রতি নিবেদিত প্রাণ কবির ভাই (প ক ক, ৮৯-৯৫)

 

কম্বল বিতরণীর পূর্বে শলা পরামর্শ

 

লাল হাউসের ক্যাডেট লাল কম্বল বিতরণ করছেন 😀

 

লাল হাউসের ক্যাডেট সবুজ কম্বল বিতরণ করতে লজ্জা পাচ্ছে 😀

 

অবশেষে লাল হাউসের ক্যাডেট লাল কম্বল বিতরণ করতে সমর্থ হল 😀

 

লালের দাপটে নীল হাউসের ক্যাডেট লাল কম্বল বিতরণ করতে বাধ্য হল 😀

 

অনেক অনুরোধের পর নীল হাউসের ক্যাডেটকে নীল কম্বল বিতরণের অনুমতি দেয়া হল 😀

উল্লেখ্য উপরের ক্যাডেট এর নাম মুকতাদির (ম ক ক, ০৫-১১), ওর সম্পর্কে যত কম বলা যায় ততো ভাল । তার চিন্তা ভাবনা অনেক বড় বড় । সে যাদেরকে কম্বল বিতরণ করা হবে তাদের সামনে ইংরেজিতে বক্তৃতা দেয়ার প্ল্যান দিয়েছিল  😛

 

লাল হাউসের গর্বিত ক্যাডেট হিসেবে লাল কম্বল বিতরণ করছি 😀

 

লাল হাউসের সব ক্যাডেট মিলে লাল কম্বল বিতরণ 😀

 

এই ছিল AMEC এর কম্বল বিতরণ । কিছুদিন এর ভিতরেই রাজশাহীতে অবস্থিত ক্যাডেট দের সহযোগিতায় অসহায় মানুষের মাঝে কম্বল বিতরণের ইচ্ছা আছে । সকলের দোয়া প্রার্থী  🙂

৭৮৩ বার দেখা হয়েছে

৪ টি মন্তব্য : “রাজশাহীতে AMEC এর কম্বল বিতরণ”

  1. নাফিস (২০০৪-১০)

    উল্লেখ্য উপরের ক্যাডেট এর নাম মুকতাদির (ম ক ক, ০৫-১১), ওর সম্পর্কে যত কম বলা যায় ততো ভাল । তার চিন্তা ভাবনা অনেক বড় বড় । সে যাদেরকে কম্বল বিতরণ করা হবে তাদের সামনে ইংরেজিতে বক্তৃতা দেয়ার প্ল্যান দিয়েছিল :khekz: :khekz: হা হা ! মুকি এখনো মানুষ হইলি না ! =))

    জবাব দিন
  2. রাজীব (১৯৯০-১৯৯৬)

    গুড জব।
    কিন্তু এমেক ই তো শুধু নও। অন্য আরেক প্রতিষ্ঠান ছিলো, রোটারি। ওদের নাম ও দিয়ে দাও। তাইলে শেয়ার দিতে পারি, আর ওদের কারো চোখে আসলে ব্যাপারটা কেমন হবে বলো তো!


    এখনো বিষের পেয়ালা ঠোঁটের সামনে তুলে ধরা হয় নি, তুমি কথা বলো। (১২০) - হুমায়ুন আজাদ

    জবাব দিন
  3. শরিফ (০৩-০৯)

    কম্বল এর অর্থায়ন এর কাজ করেছে AMEC আর বস্তী খুঁজে বের করা (যেখানে অসহায় লোকের সংখ্যা বেশি ) এবং এর সঠিক বণ্টন এর জন্য অভিজ্ঞ কারো সাহায্যের দরকার ছিল , ঠিক সেই জন্য রোটারি ক্লাব এর সাহায্য এর নেয়া হয়েছিলো ।

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।