ব্যবধান

আমায় হন্যে হয়ে খুঁজে খুঁজে মানুষের ভীড়ে,
হতাশায় ভেজা চোখ ফিরে আসে শূন্যে তোমার।
অথচ তোমায়, কেবলি যে ছুঁয়ে গেল আর্দ্র বাতাস,
আমারি নিঃশ্বাস তাতে অশ্রুর বাষ্পে ছিল মাখা।
তোমার চোখের পরে উল্টানো আকাশের ফ্রেমে,
এলোমেলো মেঘের ধূসর ক্যান্‌ভাসে আঁকা,
আমার ছবি তুমি পাও নাই খুঁজে কোনদিন।

তোমাতে আমাতে কোনো বিভেদ-সংঘাত নাই,
সুহৃদ বন্ধুতা তবু, রয়ে যায় এই সুক্ষ আঁড়াল।
শ্রেনী নয়, স্বার্থ নয়, ব্যক্তি দন্দ্ব নয়,
দুর্বোধ্য কোনো এক বোধের দেয়াল।
আমি যেই পথে চলি, সেইখানে তুমি
চোরকাঁটা হয়ে থেকে যাও অগোচর।
তুমি যেই দিকে চাও, আমি রই একা
তার সবখানি জুড়ে। তবু দুজনার
চোখে চোখে কোনোদিন হয় নাতো দেখা।

১,৩২৬ বার দেখা হয়েছে

১৬ টি মন্তব্য : “ব্যবধান”

  1. মইনুল (১৯৯২-১৯৯৮)

    কবিতা ভালো বুঝি না। তারপরেও ......

    এলোমেলো মেঘের ধূসর ক্যান্‌ভাসে আঁকা,
    আমার ছবি তুমি পাও নাই খুঁজে কোনদিন।

    পাও নাই এর বদলে পাওনি শব্দটা ব্যবহার করলে ভালো হতো না ???
    যাহোক ভালো লাগলো সাজিদ ...... :clap: :clap: :clap:

    জবাব দিন
  2. রকিব (০১-০৭)
    তুমি যেই দিকে চাও, আমি রই একা
    তার সবখানি জুড়ে। তবু দুজনার
    চোখে চোখে কোনোদিন হয় নাতো দেখা।

    এই লাইন কয়টা মাথায় আটকে পড়েছে। :boss: :boss:


    আমি তবু বলি:
    এখনো যে কটা দিন বেঁচে আছি সূর্যে সূর্যে চলি ..

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।