নিঃশব্দ কবিতা

মাঝরাতে করোটির জরাজীর্ণ ছোট্ট কুটিরে,
আচম্‌কা হানা দেয় অশরীরি কবিতার দল;
দৈত্যের ক্ষুধা নিয়ে তারা শুধু শব্দ খেতে চায়।
তাদের আপ্যায়নে মগজ ব্যস্ত হয়ে ওঠে,
আবেগের তেলে ভেজে ক’রে দেবে শব্দের ফ্রাই,
তাই শব্দ হাঁতড়ে মরে স্মৃতির নিঃস্ব ভাঁড়ারে।
শব্দ খুঁজে পায়নাকো, শব্দের ভীষণ আকাল!
মগজ ভর্তি খালি কাপড় আর ভাতের হিসাব।
মগজে আঘাত করে শব্দপায়ী ক্রুদ্ধ কবিতারা,
শব্দ চাই, শব্দ চাই, একপেট শব্দের ক্ষুধা।
শব্দ কোথা পাবো বলো? অভাবের হিংস্র দানব,
লুটে-পুটে খেয়ে গেছে কবিতার সকল রসদ।
বাস্তবতার নীচে চাঁপা পড়ে কবিতার কথা,
জীবন এক মহাকবি, ক্ষুধা তার নিঃশব্দ কবিতা।

২,০৫৫ বার দেখা হয়েছে

২৫ টি মন্তব্য : “নিঃশব্দ কবিতা”

  1. কেমন আছেন ভাইয়া? আজ থেকে দুই বছর আগে আপনাকে এনটিভির খবরে দেখেছিলাম। কাকে যেন এরেস্ট করেছিলেন আপনি। সেদিন আমার খুব গর্ব হয়েছিল, আপনাকে চিনি বলে। আব্বু-আম্মুকে চিৎকার করে বলেছিলাম--"দেখো দেখো, উনি আমাদের ক্যাডেট কলেজের সিনিয়র ভাই!"। আপনার কবিতা খুব ভালো হয়েছে। আশা করি, আরও লিখবেন। ভালো থাকবেন ভাইয়া।

    ইতি,
    সাদিদ।

    জবাব দিন
  2. তাইফুর (৯২-৯৮)

    ঝিনাইদা'র পোলাপাইন গুলা হেব্বি শক্ত শক্ত কোবতে লেখে ...
    উপরটা শক্ত ... ভিতরটা নরম ... নারিকেল টাইপ
    (ডিডাকশানঃ এই ব্লগে ঝিনাইদা'র কবি গুলা নারিকেল গাছ)


    পথ ভাবে 'আমি দেব', রথ ভাবে 'আমি',
    মূর্তি ভাবে 'আমি দেব', হাসে অন্তর্যামী॥

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।