ক্যাডেট জীবন : বন্দীত্ব না মুক্তি

লেখাটা লিখেছিলাম আমাদের ব্যাচের ব্লগসাইট www.ccr19.com এ আমাদের ক্যাডেট কলেজে ভর্তির 14 তম বার্ষিকী উপলক্ষে । বাইরের সবাই ভাবে ক্যাডেট কলেজ বুঝি একটা জেলখানা । ক্যাডেট কলেজে থাকার সময় আমারও এমনই ধারনা ছিল। কিন্তু যখন কলেজ থেকে বের হলাম দেখলাম আসলে ক্যাডেট কলেজেই বেশি উপভোগ করেছি সময়টা। নিয়মের মধ্যে থেকেও যেন অন্যরকম স্বাধীন ছিলাম। আমার কবিতাটা এ উপলদ্ধি থেকেই লেখা। আপনাদের মতামত জানতে পেলে খুশি হবো।

বন্দীত্বেই মুক্তি

গুটি গুটি পায়ে বাবার হাত ধরে
লোহার বিশাল গেট পেরিয়ে
লম্বা অসীম করিডরে

হিলের জুতার শব্দ তুলে
মায়ের স্নেহ পিছে ফেলে
মজার মজার খাবার ভুলে

দেখতে পেয়ে এগিয়ে এসে
স্যারেরা সব একগাল হেসে
নাম লিখিয়ে বিশাল খাতায়
অনেক ঘর অনেক পাতায়

গাইড ভাইয়া ব্যাজ পরিয়ে
ডর্ম ঘুরিয়ে ফর্ম ঘুরিয়ে
হাজার হাজার কানুন জানিয়ে
চোখ রাঙিয়ে ভয় দেখিয়ে

সবাই মিলে আমায় জানায়
বন্দী হলাম জেলখানায়।

আসলেই কি বন্দী ছিলাম ?
অনেক নতুন বণ্ধু পেলাম

সবাই মিলে সুখে দু:খে
দুষ্টুমি আর বাদরামিতে
ভাল ছেলে আর পাঁজিতে
সবার চোখ ফাঁকি দিয়ে,
শাস্তির ভয় না পেয়ে
বাথরুমে তে নেয়ে গেয়ে

কাটিয়ে জেলের ছয় বছর
ভাবতে বসি মুক্তির পর

আসলেই কি বন্দী ছিলাম ?

এখন যখন ভাবতে বসি
বন্দী-মুক্তির হিসাব কষি

দেখতে পাই নিজের কাছে
এখন বন্দী কাজের মাঝে

বন্ধুদের কাছে পাইনা আর
ব্যস্ত কাজে যে যার যার ।

১,৩৯০ বার দেখা হয়েছে

১০ টি মন্তব্য : “ক্যাডেট জীবন : বন্দীত্ব না মুক্তি”

  1. সামিয়া (৯৯-০৫)

    কবিতা নিয়ে বলার কিছু নাই, স্বয়ং রবীন্দ্রনাথই তো বলে গেছেন,
    'অসংখ্য বন্ধন মাঝে লভিব মুক্তির স্বাদ' 😉 আমরা ছাড়া কে এটা বেশি ভাল বুঝে?
    (ভুল হইলে মাফ করে দিয়েন, অনেক দিন বুড়াটা থেকে দূরে আছি)

    জবাব দিন

মন্তব্য করুন

দয়া করে বাংলায় মন্তব্য করুন। ইংরেজীতে প্রদানকৃত মন্তব্য প্রকাশ অথবা প্রদর্শনের নিশ্চয়তা আপনাকে দেয়া হচ্ছেনা।